ঢাকা, বুধবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ ৭:২৯:৩৫

এসির ক্ষতি থেকে ত্বকের সুরক্ষায় করণীয়

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১২:৫৯ পিএম, ১৮ জুন ২০১৭ রবিবার | আপডেট: ০১:৪৪ পিএম, ১৮ জুন ২০১৭ রবিবার

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

অফিসে যাওয়ার জন্য সেজেগুজে প্রস্তুতি নিয়ে বের হলেন। কিন্তু বাইরে প্রচণ্ড রোদ ও গরম। সারা শরীর ঘামের ভিজে গেছে। মেয়েদের ক্ষেত্রে সানস্ক্রিন থেকে লাইট মেকআপ সব গলে গেছে। এ অবস্থায় অফিসে এসির বাতাসে। মানে হঠাৎ এসির শীতলতা ও শুষ্কতা ত্বকের বারোটা বাজিয়ে দিল। এসি করা কক্ষে থাকলে এমনিতেই শরীরের পানির অভাব দেখা দেয়। যে ঘরে এসি থাকে সে ঘরের বাতাস খানিকটা মরু অঞ্চলের বাতাসের মতোই শুষ্ক। সে বাতাস ত্বকে যে আর্দ্রতা থাকে তাও বের করে দেয়। ফলে ত্বক হয়ে ওঠে শুষ্ক ও খসখসে। এভাবে দিনের পর দিন থাকলে ত্বকের সমস্যা হতে পারে। অল্প বয়সে ত্বক কুচকে বয়সের ছাপ পড়ে যেতে পারে।

কিছু ঘরোয়া টিপস মেনে চললে এই সমস্যা থেকে মুক্ত থাকতে পারেন। এসিতেও ত্বক থাকবে সতেজ, জেল্লাও থাকবে অটুট। চলুন তাহলে জেনে নেই সেই টিপসগুলো।

এক. সাবানের পরিবর্তে ক্লিনজিং মিল্ক বা জেল দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন। কারণ, সাবান ত্বককে শুষ্ক করে।


দুই. অন্ততপক্ষে প্রতি মাসে একদিন ফেসিয়াল করুন। এতে আপনার ত্বক সুরক্ষিত থাকবে।


তিন. ত্বক মসৃণ, টানটান এবং উজ্জ্বল রাখার জন্য টোনিং করুন। তুলোয় গোলাপ জল দিয়ে মুখ মুছে নিতে পারেন।


চার. নিয়মিত মুখে ও গলায় ময়শ্চারাইজিং লোশন বা ক্রিম লাগতে পারেন। এতে ত্বক শুষ্ক হবে না।


পাঁচ. এসিতে থাকলে দুঘণ্টা অন্তর অবশ্যই ময়শ্চারাইজার লাগান। এটি ত্বকের স্বাভাবিক আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে।


ছয়. কমলালেবুর রস মিশিয়ে মাঝে মধ্যে মুখে লাগান। এতে, ত্বক নরম ও মসৃণ হয়।

সারারাত এসি চালিয়ে ঘুমাবেন না। ফ্যান চালান। ঘুমোবার আগে ২০ মিনিট এসি চালিয়ে রুম ঠাণ্ডা করে নিন। এরপর ফ্যান চালিয় ঘুমান।


 
 

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি