ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ জুন, ২০১৮ ১০:৩০:৩৯

Ekushey Television Ltd.

এ বাজেট সব শ্রেণির মানুষের উপকার হবে: তোফায়েল  

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৩:৫৯ পিএম, ৯ জুন ২০১৮ শনিবার | আপডেট: ১০:০৭ এএম, ১১ জুন ২০১৮ সোমবার

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, এক সময় বিএনপি জ্বালাও পোড়াও রাজনীতি করেছিল। তাদের সে রাজনীতি যে ভুল ছিল তারা সেটা উপলব্ধি করতে পেরেছে। সেজন্য এখন আর জ্বালাও পোড়াও এর দিকে তারা যায় না। কিন্তু আবার যে কোনো সময় তারা মাথা চাড়া দিতে পারে, আবার যে কোনো সময় গোলোযোগ সৃষ্টি করতে পারে। বিএনপির সামনের নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করা ছাড়া বিকল্প কিছু নাই। নির্বাচনে অংশ গ্রহণ না করলে এ দলের অস্থিত্ব থাকবে না।  

আজ শনিবার সকালে ভোলা সদর উপজেলার চরসামাইয়া ইউনিয়ন পরিষদে দরিদ্রদের মাঝে ঈদবস্ত্র ও খাদ্যসামগ্রী (চাল) বিতরণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।   

বাণিজ্যমন্ত্রী বাজেট নিয়ে বলেন, এবারের বাজেট একটা চমৎকার বাজেট হয়েছে। জনবান্ধব বাজেট হয়েছে। সকল শ্রেণির মানুষ এ বাজেট দ্বারা উপকৃত হবে। যেভাবে আমরা ভ্যাট বা করের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছি এটা যুগান্তকারী। দারিদ্র বিমোচনের জন্য আমরা এ বাজেট করেছি। যেথানে বিএনপির শাসন আমলে দরিদ্রের সংখ্যা ছিলো ৪৬ শতাংশ, সেটা এখন আমাদের সময় ২২ শতাংশ। হতদরিদ্রের সংখ্যা বারো শতাংশ। বিএনপির সময় দারিদ্রের সংখ্যা বেড়েছে আর আমাদের সময় দারিদ্রের সংখ্যা কমেছে।

বিএনপি নেতা মওদুদ আহমেদের বাজেট নিয়ে কথার প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রী আরো বলেন, তিনি বিরোধীদলের যে গতানুগতিক কথা গরিবের কোনো উপকার এ বাজেটে হবে না সে কথাই বলেছেন।

মন্ত্রী বলেন, এ বাজেট গরীবেরই উপকারসহ সকল শ্রেণির মানুষের উপকার হবে। আমাদের বিনিয়োগ বাড়বে, রপ্তানি বাড়বে, যোগাযোগ ব্যবস্থার অভূতোপূর্ব উন্নয়ন হবে, স্ব্যাস্থ খাতের উন্নয়ন হবে।

বিদ্যুৎ উৎপাদনে আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের কথা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, এ ডিসেম্বরের মধ্যে ২০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে এবং একুশ সালের মধ্যে চব্বিশ হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন করবো। বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিলো তখন তিন হাজার মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ ছিলো। এদেশের শতভাগ মানুষকে আমরা এ বছর ডিসেম্বরের মধ্যে বিদ্যুতের সুবিধা দেওয়া হবে। সুতরাং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ বাজেটের মাধ্যমে গ্রাম এখন শহর হবে, এদেশের অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধন হবে।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবদুল মোমিন টুলু, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোশারেফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, ইউনুছ মিয়াসহ আরও অনেকে।

এসি  

  



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি