ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ২৩:০৭:৪২

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন মুক্তিযোদ্ধা আকরাম খান দুলাল

কাজী ইফতেখারুল আলম তারেক

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৮:৪০ পিএম, ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ শুক্রবার | আপডেট: ০৪:৫৬ পিএম, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ শনিবার

সকলের শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষ বিদায় জানানো হলো বিশিষ্ট শিল্পপতি, ইমপ্রেস-নিউটেক্স কম্পোজিট টেক্সটাইল লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আকরাম খান দুলালকে।

আজ শুক্রবার বাদ জুমা গুলশান সেন্ট্রাল মসজিদে জানাজা শেষে তাঁকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়।

তিনি গত ৬ সেপ্টেম্বর থাইল্যান্ডের একটি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

বেলা ১২টায় ঢাকা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পুলিশের একটি চৌকষ দল রাষ্ট্রীয়ভাবে তাঁকে `গার্ড অফ অনার` প্রদান করে। এ সময় বিউগলে বেজে ওঠে করুণ সুর।

জানাজায় অংশ নেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, সাংসদ মাহফুজুর রহমান মিতা, সন্দ্বীপ উপজেলা চেয়ারম্যান মাষ্টার শাহজাহান বি এ, চট্রগ্রাম জেলা প্রশাসক এম এ সালাম, চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, ইমপ্রেস-নিউটেক্স পরিচালক, কর্মকর্তাসহ সামাজিক রাজনৈতিক অনেক নেতাকর্মী।

দাফন শেষে সামাজিক, রাজনৈতিক অঙ্গসংগঠনের পক্ষ থেকে তাঁর কবরে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক এম এ সালাম ইটিভি অনলাইনকে বলেন, সন্দ্বীপের মানুষের কাছে আকরাম খান দুলাল শুধু একজন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন না, একজন দানবীর ও সমাজসেবক হিসেবে তিনি সমধিক জনপ্রিয় ছিলেন। দ্বীপবন্ধু মুস্তাফিজুর রহমানের পরে আরও একজন ক্ষণজন্মা কৃতিসন্তানকে হারাল সন্দ্বীপবাসী। এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বহুদিন সময় লাগবে। সংকটকালীন মুহূর্তে নেতাকর্মীদের কাছে তিনি ছিলেন বটবৃক্ষ।

উপস্থিত সকলের ভেজা চোখ আর স্মৃতিচারণের মূল আলোচ্য বিষয় ছিল- ``এমন মহৎপ্রাণ সব সময় জন্মায় না, তিনি সকলের সুখ দুঃখের সঙ্গী ছিলেন। সন্দ্বীপের মানুষের জন্য তাঁর হৃদয়ে একটা বিশাল জায়গা ছিল। নেতাকর্মীদের আপদে-বিপদে তিনি ছিলেন বটবৃক্ষ।

কেআই/ডব্লিউএন

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি