ঢাকা, সোমবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ৬:৪৭:৪১

জাতীয় শোক দিবসে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা দিবে ডিএমপি

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৬:৩৫ পিএম, ১৩ আগস্ট ২০১৭ রবিবার

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসকে ঘিরে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা দিবে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ।

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত প্রেস ব্রিফিংয়ে উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের একথা বলেন ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বিপিএম (বার), পিপিএম।

১৫ আগস্টে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কমিশনার বলেন, আগস্ট আমাদের শোকের মাস। সারাদেশে যথাযথ মর্যাদা ও গভীর ভাব-গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালন করা হবে আমাদের জাতীয় শোক দিবস। বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর কেন্দ্রিক বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন অনুষ্ঠান দুই ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। প্রথমভাগে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করবেন ভিভিআইপি, ভিআইপি এবং ঊধ্বর্তন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ। দ্বিতীয়ভাগে ভিভিআইপি, ভিআইপি এবং ঊধ্বর্তন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করার পর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, দল, সংগঠন এবং সর্বসাধারণ জন্য শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের লক্ষ্যে উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন বেদী।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা দিতে ডিএমপি’র পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। জাতীয় শোক দিবসকে ঘিরে প্রতিটি অনুষ্ঠানে আমাদের সাধ্যমত আমরা নিরাপত্তা দিবো। ধানমন্ডি ৩২ নং ও তার আশপাশ এলাকায় থাকবে পর্যাপ্ত সিসিটিভি ক্যামেরা। দুইটি কন্ট্রোলরুম থেকে সার্বক্ষণিক সিসি ক্যামেরা মনিটরিং করা হবে।

প্রতিটি প্রবেশ গেটে থাকবে আর্চওয়ে। প্রত্যেক দর্শনার্থীকে আর্চওয়ে ও নিরাপত্তা বেষ্টনির মধ্য দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে হবে। জাতীয় শোক দিবসে ধানমন্ডি ৩২ নং এ মহামান্য রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, মন্ত্রীবর্গ ও সাংসদ সদস্য ছাড়াও বিভিন্ন ভিআইপিরা উপস্থিত থাকবেন। ভিআইপিরা চলে যাবার পর সর্বস্তরের মানুষের জন্য বেদী খুলে দেয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর এবং বনানী কবরস্থানে ভিভিআইপি, ভিআইপি ও বিদেশি কূটনৈতিক মিশনের কর্মকর্তাসহ জনসমাগম হওয়ার সম্ভাব্য স্থানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। পোশাকে ও সাদা পোশাকে মোতায়েন থাকবে পর্যাপ্ত সংখ্যক পুলিশ। পুলিশের ও র‌্যাবের ডগ স্কোয়াড দিয়ে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর এবং ঢাকার বনানীস্থ কবরস্থান সুইপিং করা হবে। আরও থাকবে ফায়ার টেন্ডার, এ্যাম্বুলেন্স ব্যবস্থা।

নগরবাসীর প্রতি অনুরোধ জানিয়ে কমিশনার বলেন, জাতীয় শোক দিবসের নিরাপত্তার স্বার্থে কোনো প্রকার ট্রলিব্যাগ, ব্যাকপ্যাক, টিফিন ক্যারিয়ার, ফ্লাক্স, ছুরি, চাকু, দার্হ্য পদার্থ, গ্যাসলাইট, অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আসা যাবে না। রাস্তায় বিভিন্নস্থানে পুলিশি তল্লাশীর মাধ্যমে আপনাকে ধানমন্ডি ৩২ ও বনানী কবরস্থানে আসতে হবে। দ্রুততম সময়ে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে অন্যকে সুযোগ দেওয়া ও জাতীয় শোক দিবসের ভাব-গাম্ভীর্য বজায় রাখার আহবান জানান ডিএমপি কমিশনার।

আরকে/ডব্লিউএন

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি