ঢাকা, শুক্রবার, ২০ জুলাই, ২০১৮ ১৩:০৭:২৪

Ekushey Television Ltd.

জাদুঘর হচ্ছে থাইল্যান্ডের সেই গুহা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৬:২২ পিএম, ১২ জুলাই ২০১৮ বৃহস্পতিবার

থাইল্যান্ডের গুহা থেকে কিশোর ফুটবল দলকে বের করে আনতে উদ্ধারকারীদের দুঃসাহসিক অভিযানের স্বীকৃতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। থাইল্যান্ড সরকার বলছে, শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানের নেপথ্যের নায়কদের কাজের স্বীকৃতি দিতে এ গুহাটিকে জাদুঘর হিসেবে তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, কিশোর ফুটবল দল উইল্ড বোরের সদ্যস্যদের উদ্ধারে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গুহার ভেতরে কাজ করা উদ্ধারকারী, ডুবুরি ও চিকিৎসকদের নায়কোচিত অভিযানকে কেন্দ্র করে সিনেমা তৈরি করতে থাইল্যান্ডে হলিউডের একটি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান পৌঁছেছে।

কিশোরদের গুহা থেকে নাটকীয় উদ্ধারের ভিডিও ফুটেজ বুধবার প্রকাশ করা হয়েছে। এতে দেখা যায়, গুহায় আটকা ১১ থেকে ১৬ বছর বয়সী ওই কিশোরদের স্ট্রেচারে শুইয়ে গুহার প্রবেশমুখ থেকে বাইরে নিয়ে আসছেন থাই নেভি সিলের সদস্যরা।

আরেকটি ভিডিওতে দেখা যায়, থাই কিশোররা হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে আছে। তাদেরকে হাসপাতালের আলাদা ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে গুহায় থাকার কারণে তাদের শরীরে কোনো ধরনের ইনফেকশন হয় কি-না তা সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করছেন চিকিৎসকরা। বুধবার হাসপাতালের চিকিৎসকরা বলেছেন, কিশোররা সুস্থ্য রয়েছে। তবে ১৭ দিন অন্ধকার গুহায় অনাহারে থাকায় তাদের ওজন দুই কেজি করে কমেছে।


উদ্ধার মিশনের প্রধান ও চিয়াং রাই প্রদেশের গভর্নর ন্যারংস্যাক ওসোত্তানাকর্ন বলেছেন, থ্যাম লুয়াং গুহাকে জাদুঘরে রূপান্তর করা হবে। নাটকীয় উদ্ধারের সময় উদ্ধারকারী দলের সদস্যদের ব্যবহৃত কাপড়, অন্যান্য সরঞ্জাম সেখানে প্রদর্শিত হবে।

তিনি বলেন, আমার বিশ্বাস, এটা থাইল্যান্ডের অপর একটি পর্যটন কেন্দ্র হবে। পর্যটকরা এটি দেখতে আসবেন।

থাই ন্যাশনাল পার্ক রেঞ্জারের কর্মকর্তা পিনিটপং ওংমা বলেছেন, এখনো গুহায় ৫০ জনের মতো কাজ করছেন। আগামী রোববার পর্যন্ত এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে প্রত্যাশা করেছেন তিনি। তিনি বলেন, উদ্ধার মিশন শেষ হওয়ার পর থেকে গুহায় পানি বাড়ছে। এছাড়া সেখানে এখনো অনেক সরঞ্জাম রয়েছে। যে কারণে গুহার ভেতরে কাউকে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না।

তথ্যসূত্র: বিবিসি।

এসএইচ/

ফটো গ্যালারি



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি