ঢাকা, শনিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৮ ১৪:১১:০৫

Ekushey Television Ltd.

ফেসবুক বিজ্ঞাপনে আসছে ব্যাপক পরিবর্তন

শাওন সোলায়মান

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৭:৩৭ পিএম, ১৪ মে ২০১৮ সোমবার | আপডেট: ১২:০৭ পিএম, ১৫ মে ২০১৮ মঙ্গলবার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক তাদের বিজ্ঞাপন নীতিমালায় ব্যাপক পরিবর্তন এনেছে। ফেসবুকের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেওয়া যাবে মেসেঞ্জারেও। আর বিজ্ঞাপন ও বিজ্ঞাপন দাতার তথ্য উন্মুক্ত থাকবে ফেসবুকের কাছে। ফেসবুক প্রয়োজনে তা শেয়ার করতে পারবে কোনো দেশের সরকারের সাথে।

বিগত সপ্তাহ থেকেই বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা বিজনেস অ্যাকাউন্টগুলোতে (যে অ্যাকাউন্ট দিয়ে বিজ্ঞাপন দিতে হয় ফেসবুকে) পর্যায়ক্রমে নিজেদের বিজ্ঞাপন নীতি পরিবর্তন সংক্রান্ত ঘোষণা দিতে থাকে ফেসবুক। এসব পরিবর্তনের মধ্যে অন্যতম পরিবর্তন হলো এই যে, এখন থেকে ফেসবুকের তাৎক্ষণিক বার্তা আদান প্রদান বা চ্যাটিং প্ল্যাটফর্ম মেসেঞ্জারেও বিজ্ঞাপন দেওয়া যাবে। এর আগে শুধু ফেসবুক সাইট ও ইন্সটাগ্রামে বিজ্ঞাপন দেওয়া যেতো।

‘সেলফ সার্ভ অ্যাডভার্টাইজিং টার্মস’ বা ‘সেলফ সার্ভ অ্যাড টার্ম’ নামক ক্যাটেগরির বিজ্ঞাপনের জন্য এসব নীতিমালা প্রযোজ্য হবে বলে জানায় ফেসবুক। নতুন বিজ্ঞাপন নীতি অনুযায়ী,  বিজ্ঞাপন দাতার ব্যক্তিগত ও ব্যবসায়িক সকল তথ্য দিতে হবে ফেসবুককে। এছাড়াও বিজ্ঞাপন দাতা, বিজ্ঞাপনের বিষয়বস্তু এবং যে পেইজের জন্য বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে তার সকল তথ্য কোন দেশের সরকার অথবা অন্য কোন সংস্থাকেও তা দিতে পারে ফেসবুক।

এছাড়াও নতুন বিজ্ঞাপন নীতিতে যা থাকছে

১) ফেসবুকের নিজস্ব বিজ্ঞাপন নীতির পাশাপাশি বিজ্ঞাপনের বিষয়বস্তু বিজ্ঞাপন যে দেশ থেকে দেওয়া হচ্ছে তার স্থানীয় আইন অনুযায়ী বৈধ হতে পারে।

২) যে কোন কারণে কোন বিজ্ঞাপন ফেসবুক প্রকাশ করা থেকে নিজেদের বিরত রাখবে অথবা প্রকাশিত কোন বিজ্ঞাপন বন্ধ করে দিতে পারে ফেসবুক।

৩) বিজ্ঞাপন দাতা যখন বিজ্ঞাপন দিবেন তখন অথবা তার পরে যে কোন সময় ফেসবুক যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দাতার ব্যক্তিগত ও ব্যবসায়িক তথ্যাদি সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করবে।

৪) বিজ্ঞাপনী অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তার কোন ধরনের দায় দায়িত্ব নেবে না ফেসবুক। গ্রাহককেই এর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

৫) নতুন এই নিয়মের ফলে, কোন বিজ্ঞাপন দাতা পূর্বে প্রকাশিত কোন বিজ্ঞাপন নির্ধারিত সময়ের আগেই বন্ধ করতে পারবেন। তবে বিজ্ঞাপন বন্ধ করার সময় থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টা সেই বিজ্ঞাপন প্রকাশিত অবস্থায় থাকতে পারে। এই ২৪ ঘণ্টার অর্থ বিজ্ঞাপন দাতাকে পরিশোধ করতে হবে।

৬) ফেসবুকের বিভিন্ন বিজ্ঞাপনী ব্যয়ের সাথে এখন থেকে কর বা শুল্ক আরোপ করা হবে।

৭) বিজ্ঞাপনের অথবা বিজ্ঞাপনের কোন বিষয়বস্তু ফেসবুক তার নিজস্ব বিপণন (মার্কেটিং) কাজে ব্যবহার করতে পারবে।

৮) ফেসবুকের সাথে বিজ্ঞাপনদাতার সম্পর্ক ও কার্যকলাপ সম্পর্কে ফেসবুকের পূর্ব অনুমতি ব্যতীত গণমাধ্যমে কোন তথ্য দেওয়া যাবে না। গণমাধ্যমে এ বিষয়ে কোন মন্তব্য বা বিজ্ঞপ্তিও দিতে পারবেন না একজন বিজ্ঞাপন দাতা।

৯) কোন কারণে ফেসবুক যদি কোন অ্যাড অ্যাকাউন্ট থেকে তার বকেয়া আদায় করতে না পারে তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে ফেসবুক। আইনানুগ ব্যবস্থাও নিতে পারে তারা। আর এমন ক্ষেত্রে পাওনা বিলের ওপর ১ শতাংশ হারে জরিমানাও আদায় করবে বিশ্বের সব থেকে বড় এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি। ফেসবুকের আগের নিয়মে এমন কোন নীতিমালা ছিল না। কোন বিজ্ঞাপন দাতার কাছে বিল বকেয়া থাকলে তার অ্যাকাউন্টটি স্থগিত করে দিত ফেসবুক।

১০)  বিজ্ঞাপনের আকার এবং কোন কোন মাধ্যমে (যেমনঃ নিউজ ফিড, ইন্সট্যান্ট আর্টিকেল, রাইট কলাম ইত্যাদি) বিজ্ঞাপন প্রকাশিত হবে তাও এখন ফেসবুক নির্ধারণ করবে। আগে এসব বিষয় নির্ধারণ বিজ্ঞাপন দাতার এখতিয়ারে ছিল।

১১) বিজ্ঞাপন দিলেই তা প্রকাশিত হবে এমন অবস্থারও পরিবর্তন আনছে ফেসবুক। বিজ্ঞাপন প্রকাশের অর্ডার দেওয়ার পর সময় ফাঁকা থাকা সাপেক্ষে তা ব্যবহারকারীদের উদ্দেশ্যে প্রকাশ করবে ফেসবুক। এমনকি ‘চলমান বিজ্ঞাপন’ বা কন্টিনিউয়াস অ্যাড-ও বন্ধ হতে পারে ফেসবুকে।

১২) কোন ব্যক্তি অন্য কারও পেইজের জন্য যদি বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকেন আর তিনি যদি কোন নীতিমালা ভঙ্গ করেন তাহলে এর জন্য ঐ পেইজের মালিককেও দায়ী করবে ফেসবুক। তার পেইজ অথবা অ্যাকাউন্ট স্থগিত করে দিতে পারে প্রতিষ্ঠানটি।

তবে এতকিছুর পরেও, বিজ্ঞাপন প্রচারের ব্যাপকতা নিয়ে কোন ধরনের নিশ্চয়তা দেয়নি ফেসবুক। কোন একটি বিজ্ঞাপন ঠিক কত জন মানুষের কাছে প্রকাশ করা হবে অথবা সেই বিজ্ঞাপনে কতজনকে আকৃষ্ট করা যাবে তা ‘অনিশ্চিত’ তালিকায় রেখেছে অনলাইনে প্ল্যাটফর্মে অন্যতম বড় এই মার্কেটপ্লেস।

এছাড়াও, নতুন এই নিয়মের পরীক্ষামূলক কাজের জন্য কারও কারও বিজ্ঞাপনের প্রকাশ ও ফলাফলে সমস্যা হতে পারে বলেও জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

চলতি মাসের ২৫ তারিখ থেকে সব নিয়ম কার্যকরী হবে ফেসবুকে।

প্রসঙ্গত, ফেসবুকের বিজ্ঞাপন নীতিমালায় বড় ধরনের পরিবর্তন আনার ঘোষণা আগেই দিয়েছিলেন ফেসবুকের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জুকারবার্গ। বিশেষ করে ‘ক্যামব্রিজ অ্যানালেটিকা ডাটা’ কেলেংকারির পর ফেসবুক তার বিজ্ঞাপনী কার্যক্রম নিয়ে বিশ্বব্যাপী নিন্দার মুখে পরে। এর জন্য মার্কিন সিনেটে উপস্থিত হয়ে প্রশ্নের উত্তরও দিতে হয় তাকে।

টিকে



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি