ঢাকা, সোমবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ৬:৪৮:২৪

বৃষ্টিতে ফুসছে নদী : বন্যার আশঙ্কা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৭:০৭ পিএম, ১৩ আগস্ট ২০১৭ রবিবার | আপডেট: ১০:৩৫ পিএম, ১৪ আগস্ট ২০১৭ সোমবার

মেঘনা ও তিস্তা অববাহিকার প্রধান নদ-নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় এ অববাহিকার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এ অবনতিশীল পরিস্থিতি রোববার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় অপরিবর্তিত থাকবে। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবি) বন্যা পূর্বভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তি বলা হয়, ব্রহ্মপুত্র-যমুনার বাংলাদেশ অংশে আগামী ৭২ ঘণ্টায় ৭০ সে.মি পর্যন্ত পানি বাড়তে পারে। গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধির প্রবনতাও আগামী ৭২ ঘণ্টা অব্যাহত থাকবে।

শনিবার সকাল ৯টা থেকে রোববার সকাল ৯টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় কুড়িগ্রাম ধরলা নদীর পানি ১১২ সেন্টিমিটার, কানাইঘাটে সুরমা নদীর পানি ১০৬ সেন্টিমিটার এবং জারিয়া ঝঞ্জাইলে কংস নদীর পানি ১৭৬ সেন্টিমিটার বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

অপর বিজ্ঞপ্তি বলা হয়, দেশের নদ-নদী সমূহের ৯০টি পয়েন্টের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী ৭৭টি পয়েন্টে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ১২টিতে হ্রাস পেয়েছে। এরমধ্যে ২৫টি পয়েন্টের পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ সময় ৭টি পয়েন্টে ১০০ মি.লি এবং ২০টি পয়েন্টে ৫০ মিলিলিটারের উপরে বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ব্রহ্মপুত্র-যমুনা, পদ্মা ও গঙ্গা এবং সুরমা-কুশিয়ারা নদীসমুহের পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। ব্রহ্মপুত্র-যমুনা এবং গঙ্গা ও পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি আগামী ৭২ ঘন্টায় অব্যাহত থাকতে পারে।

আরকে/ডব্লিউএন

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি