ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭ ১৯:৫৬:০৫

ভোলার আধুনিক ও দৃষ্টিনন্দন নিজাম-হাসিনা মসজিদ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১২:৩৯ পিএম, ৩০ অক্টোবর ২০১৭ সোমবার | আপডেট: ১১:৩১ পিএম, ২০ নভেম্বর ২০১৭ সোমবার

মানবতার কল্যাণে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে নিজাম-হাসিনা ফাউন্ডেশন। সমাজসেবক ও সাংবাদিক নিজাম উদ্দিন আহমদ এ ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। অসহায়, অনাথ, এতিম ও নিঃস্বদের যাহায্য করাই এ ফাউন্ডেশনের মূল উদ্দেশ্য। ফাউন্ডেশনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা হচ্ছে নিজাম-হাসিনা ফাউন্ডেশন মসজিদ। সমজিদটি ভোলায় নির্মিত হয়েছে। এ মসজিদটিকে দক্ষিণাঞ্চলের সর্ববৃহৎ আধুনিক মসজিদ হিসেবে মনে করা হয়। 

জানা গেছে, মানবতার কল্যাণে নিজাম-হাসিনা ফাউন্ডেশন একটি চক্ষু হাসপাতাল, ১৫টি মসজিদ, এতিমখানা, একটি বৃদ্ধাশ্রম এবং একাধিক  শিক্ষাপ্রতিষ্ঠাসহ অসংখ্য সামাজিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেছে। এগুলোর মধ্যে নিজাম-হাসিনা মসজিদটি প্রায় দেড় একর জমির ওপর নির্মিত ফাউন্ডেশনের আর্থিক সহযোগিতায়। বাহারি কারুকাজ আর সৌর্ন্দযমণ্ডিত মসজিদটি দেখতে রোজ হাজার হাজার মানুষ ভিড় জমান এখানে।

মারবেল পাথরসহ বিভিন্ন পাথরে কারুকাজে নির্মিত দ্বিতল এই মসজিদে রয়েছে পুরুষ ও নারীদের জন্য আলাদা অজুখানা ও নামাজের স্থান। ২০১৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর,শুক্রবার জুমার নামাজ আদায়ের মাধ্যমে এ  মসজিদে নিয়মিত নামাজ আদায় শুরু।

ফাউন্ডেশন সূত্র জানায়, ২০১০ সালের ১ লা জুন মাসে মসজিদের নির্মাণকাজ শুরু হয়। ৫২ হাজার শ্রমিকের মসজিদটি নির্মাণ করতে সময় লেগেছে প্রায় সাত বছর। আর্কিটেক্ট ফোরামের ডিজাইনার কামরুজ্জামান লিটন মসজিদটির নকশা করেন।

১২০ ফুট উচ্চতার মিনার এবং প্রায় ৬০ ফুট উচ্চতার গম্বুজ রয়েছে মসজিটিতে। মসজিদের ভেতরে রয়েছে লাইব্রেরি, হিফজখানা, ক্যালিগ্রাফি ও আল্লাহু ডিজাইনের ফোয়ারা। এ ছাড়া মসজিদের চার পাশে ফুলের বাগান তৈরি করা হয়েছে। মসজিদে একসঙ্গে দুই হাজার পাঁচশ’ জন মুসল্লি একই সময়ে নামাজ আদায় করতে পারেন।

২৪ ঘণ্টা বিদ্যুৎ ও পানির সুবিধার পাশাপাশি রয়েছে নিজস্ব জেনারেটরব্যবস্থা। রয়েছে এসি ও ফ্যান। এছাড়া বিছানো হয়েছে শ্বেত পাথরের টাইলস ও কার্পেট। রাতের বিভিন্ন রং ও বর্ণের আলোকসজ্জা মসজিদটির সৌন্দর‌্য বাড়িয়ে দেয় কয়েকগুন।

স্থানীয়রা জানান, দক্ষিণাঞ্চলে এটি প্রথম কোনো আধুনিক মসজিদ, যা দ্বীপজেলা ভোলা শহরের প্রাণকেন্দ্র উকিলপাড়ায় অবস্থিত। দৃষ্টিনন্দন এ মসজিদটিকে ঘিরে মানুষের আগ্রহের শেষ নেই। নিজাম-হাসিনা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট সমাজ সেবক, নিজাম উদ্দিন আহমেদ মসজিদ নির্মাণের ব্যাপারে বলেন- ‘পরিচিতির জন্য নয়, আল্লাহর সন্তুটির জন্যই এ সেবামূলক কাজটি করেছি।’

/ এম / এআর


 
 

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি