ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭ ৪:০১:৩৩

মানবতার পাশে তারুণ্য

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:৪৫ পিএম, ১৫ জুলাই ২০১৭ শনিবার | আপডেট: ১১:৫১ এএম, ২৬ জুলাই ২০১৭ বুধবার

কয়েকদিন ধরে রাস্তার পাশে পড়ে ছিলেন প্রায় ৭০ বছর বয়সী অসহায় এক নারী। এই প্রবীণ নারীকে উদ্ধার করে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেছে কিছু তরুণ।
 
চিকিৎসকারা জানান, অজ্ঞাত এই প্রবীণ নারীর কিডনি সমস্যাজনিত রোগে ও ডায়াবেটিসে ভুগছেন। তার সারা শরীর ও মুখের ভেতরে ঘাঁও রয়েছে। শরীরিকভাবে ভীষণ দুর্বল হয়ে পড়েছেন তিনি। তেমন কিছু খেতেও পারছেন না। স্যালাইন আর মাঝে মধ্যে কিছু তরল খাবার দেওয়া হচ্ছে তাকে।  

কথা বলতে পারছেন না বলে এখনও তার পরিচয় জানা যায়নি। ইশারা-ইঙ্গিতে কিছু বলার চেষ্টা করছেন কিন্তু পারছেন না।

জানা যায়, ঘটনার সূত্রপাত গত বুধবার রাতে। আরাফাত নামের এক তরুণ এই প্রতিবেদককে মুঠোফোনে কল করে জানান, রাজধানীর মিরপুর-১০ এ কয়েকদিন ধরে পড়ে থাকা এক বৃদ্ধাকে স্থানীয় কিছু তরুণ উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করার জন্য নিয়ে যাচ্ছেন।

তরুণদের ওই দলে ঝিলন নামের একজনের সঙ্গে যোগাযোগ করে বৃদ্ধাকে সাহায্যের মিশনে যোগ দেন এই প্রতিবেদকও। হাসাপাতালে ভর্তি করার পর মেডিক্যাল পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে জানা যায়, ডায়াবেটিক ও কিডনী সমস্যাসহ নানা রোগের উপসর্গ রয়েছে ওই প্রবীণের।

বর্তমানে তিনি সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ১০৫/এ নম্বার বেডে চিকিৎসাধীন। চিকিৎকরা জানিয়েছেন, এই প্রবীণ এই নারীর শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে কিছুটা উন্নতি হয়েছে।

ঝিলন বলেন, আমি যে বাসায় ভাড়া থাকি সে বাসার বাড়িওয়ালার মাধ্যমে আমি প্রথমে এ বিষয়ে সংবাদ দেন। এরপর একে একে ছুটে যান রাসেল, শাকিল, রিজন, শরীফ, বিধান, সৌরভ, সেতু, জেরিন ও মেহেদি নামের বেশ কিছু তরুণ।

তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পান ওই নারীর শরীরে কোনো পোশাক নেই। এসময় জেরিন তার মায়ের একটা ম্যাক্সি পড়িয়ে দেন। ধীরে ধীরৈ স্থানীয়রা অনেকেই সেখানে ভিড় করেন। অনেকেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর সায়মা নামের একজন ইন্টার্ন চিকিৎসকও এই প্রবীণ নারীর সাহায্যে এগিয়ে আসেন।

হাসপাতালে ভর্তি কয়েক রোগীর স্বজনরাও ওই নারীর সেবা করছেন। চিকিৎসক, নার্স সবাই চেষ্টা করছেন কীভাবে তাকে সুস্থ্য করা যায়।

চিকিৎসকরা জানান, দীর্ঘ মেয়াদি চিকিৎসা করলে ওই নারী সুস্থ্য হয়ে উঠতে পারেন। আমরা সাধ্যমতো সেই চেষ্টা করছি। কিন্তু এই মহুর্তে চিকিৎসার পাশাপাশি সার্বক্ষণিক একজন তার পাশে থাকা খুবই দরকার।

নারীর কাছে ছেলেমেয়ের কথা জানতে চাইলে তিনি দুই আঙুল উঁচিয়ে ইশারা করেন। স্বামী বেঁচে আছেন কিনা জানতে চাইলে, মাথা নেড়ে না সূচক জবাব দেন।

শাকিল ও রাসেল জানান, ‘আমরা সাধ্যমতো চেষ্টা করছি। ইতোমধ্যে অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন। আমরা পালাক্রমে হাসপাতালে গিয়ে তার দেখাশোনা করছি। কিন্তু কর্মব্যস্ততার কারণে সবসময় হাসপাতালে থাকা সম্ভব হচ্ছে না। সার্বক্ষণিক দেখাশুনা করার জন্য একজন মানুষ প্রয়োজন। প্রয়োজনে তাকে আমরা কিছু টাকাও দিবো। আর কেউ স্বেচ্ছায় সেবা করতে চাইলে তো খুবই ভাল। তবে কাউকে পেলেই যে তার উপর সব দায় চাপিয়ে দেব বিষয়টা এমন  না। সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত আমরা পাশে থাকবো।’

অসহায় এই নারীর চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন মহলের সহযোগিতা চেয়েছেন উদ্ধারকারী তরুণরা। যোগাযোগ-০১৭১২৯৫০২৫৩, ০১৭১৭১৭৭৫১৮২১, ০১৭১০৬৭৭৭৫৩, ০১৯৩৪৪৪৯১৫৯, ০১৯১২৩২৯২৮৯।


 
 

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি