ঢাকা, শুক্রবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৮ ২:৩৩:৩৭

Ekushey Television Ltd.

রমজানে ডায়াবেটিস রোগীদের করণীয়

ডা. উম্মে সালমা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৭:০২ পিএম, ১৪ মে ২০১৮ সোমবার | আপডেট: ০২:০৯ পিএম, ১৭ মে ২০১৮ বৃহস্পতিবার

দরজায় কড়া নাড়ছে পবিত্র রমজান। এসময় সবাই কিছু নিয়ম কানুন মেনে চলা উচিত। খাবার দাবারের ক্ষেত্রেও সচেতন হওয়া জরুরি। ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের রমজানে আরেকটু বেশি সতর্ক থাকা প্রয়োজন। রমজানে ডায়াবেটিস আক্রান্তদেরকে পরামর্শ দিয়েছেন বারডেম জেনারেল হাসপাতালেরর ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ ডা. উম্মে সালমা

১. প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য সাধারণত আমরা ১৬০০- ১৮০০ ক্যালরি খাবার গ্রহণের পরামর্শ দিয়ে থাকি। যদি ১৬০০ ক্যালরির খাবারের চার্ট আমরা ফলো করি তাহলে খাদ্য তালিকা হবে- আধা কাপ ছোলা, দু`টা পেঁয়াজু, দু`টা বেগুনী, একটা খেজুর, এক গ্লাস ডাবের পানি বা শরবত, এক থেকে দেড় কাপ মুড়ি, শসা বা খিরা কয়েক পিস। চিনি ছাড়া যদি শরবত ভালো না লাগে সেক্ষেত্রে টক দই দিয়ে লাচ্ছি খাওয়া যেতে পারে।

২. বাহিরের খাবার পরিহার করা ভালো। শুধু ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য নয়, সবারই বাইরের খাবার বাদ দেওয়া উচিত। কারণ, বাইরের খাবার যে তেল দিয়ে ভাজে তা স্বাস্থ্যসম্মত নয়। ভাজা খাবার খুব খেতে ইচ্ছে করলে বাসায় তৈরি করাই ভালো।

৩. যেহেতু রমজানে পানি খাওয়া হয় না সেহেতু বিকেলের দিকে একটা ডিহাইড্রেশন দেখা দেখা দেয়। সেক্ষেত্রে রোজা ভাঙ্গার পরিমাণ মতো পানি খাওয়া উচিত। তবে হ্যাঁ, দিনে খায়নি তাই রাতে ইচ্ছে মতো খাবে এটা ঠিক না। এতে পেট ভারি হয়ে যাবে ও অস্বস্তি দেখা দিতে পারে।

৪. সেহেরি না খেয়ে রোজা রাখার একটা প্রবণতা অনেকের মধ্যে আছে। যেহেতু একটা লম্বা সময় আমাদের খাওয়া দাওয়া থেকে বিরত থাকতে হয় তাই সেহেরির ব্যাপারে কোন অবহেলা করা উচিত নয়।

৫. ভাজাপোড়া বাদ দিলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থাকার কথা না। এরপরও যদি সমস্যা হয় তাহলে গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ খেতে হবে।

আআ/টিকে



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি