ঢাকা, শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ২২:৩৭:৩৮

‘রোহিঙ্গা সেল’গঠন করল সরকার

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৩:২৮ পিএম, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ রবিবার | আপডেট: ০৪:৪৪ পিএম, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ রবিবার

বিদ্যামান রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় ‘রোহিঙ্গা সেল’ গঠন করেছে সরকার। মিয়ানমারের রাখাইনে নির্যাতনের শিকার হয়ে বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়ায় উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের এ সিদ্ধান্ত।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের অধীনে এ সেল গঠন করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত গত ৫ সেপ্টেম্বরের আদেশটি রোববার প্রকাশ করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

জননিরাপত্তা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (রাজনৈতিক) মো. সামছুর রহমান সেলের প্রধান সমন্বয়ক এবং যুগ্ম সচিব (রাজনৈতিক-২) মো. শফিকুর রহমান সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। সেলে ফোকাল পয়েন্ট হিসেবে থাকবেন উপসচিব (রাজনৈতিক-১) আবু হেনা মোস্তফা জামান। উপসচিব (রাজনৈতিক-২) মোহাম্মদ ফারুক-উজ-জামান প্রথম বিকল্প কর্মকর্তা ও উপসচিব (সীমান্ত-৩) মনির হোসেন চৌধুরী দ্বিতীয় বিকল্প কর্মকর্তা হিসবে সেলে দায়িত্ব পালন করবেন।

আদেশে বলা হয়, মিয়ানমারের অভ্যন্তরে চলমান সহিংসতা ও উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সীমান্তের ওপার হতে বাংলাদেশে ভূ-খণ্ডে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর অনুপ্রবেশের কারণে কক্সবাজার ও বান্দরবান জেলাসহ সন্নিহিত সীমান্তবর্তী এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি ও আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ, নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণসহ বিভিন্ন সংস্থার কার্যক্রমের মধ্যে সমন্বয় সাধনের সুবিধার্থে রোহিঙ্গা সেল গঠন করা হয়েছে।

আদেশে আরো বলা হয়, রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ, পুশব্যাক সম্পর্কিত তথ্যাদি সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করবে সেল। সম্প্রতি অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গাদের শুমারি (বায়োমেট্রিকসহ) ও সর্বশেষ অগ্রগতি, সন্নিহিত সীমান্তবর্তী এলাকায় সর্বশেষ পরিস্থিতি, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম সংক্রান্ত তথ্যও সংগ্রহ করবে।

সেলের কার্যপরিধিতে আরও বলা হয়েছে, চিহ্নিত ও নির্ধারিত স্থানের মধ্যে রোহিঙ্গাদের অবস্থান সীমাবদ্ধ রাখা সম্পর্কিত গৃহীত সর্বশেষ ব্যবস্থা এবং রোহিঙ্গাদের আবাসন ও মানবিক সহায়তা দেওয়া সংক্রান্ত কার্যক্রমের তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করতে হবে সেলকে।

এছাড়া মানবিক সহায়তায় নিয়োজিত বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি ও আন্তর্জাতিক সংস্থার কার্যক্রম সম্পর্কিত অগ্রগতি, মিয়ানমার সীমান্তবর্তী বাংলাদেশ অংশে বিদেশি ও আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিদের সফর সম্পর্কিত তথ্যাদি এবং মিয়ানমারের অভ্যন্তরে বিশেষ করে রাখাইন রাজ্যের অভ্যন্তরীণ আইন-শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা সম্পর্কিত তথ্যাদিও রোহিঙ্গা সেল সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করবে।

গত ২৪ আগস্ট রাতে রাখাইনের কয়েকটি পুলিশ চৌকিতে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের হামলার পর থেকে দেশটিতে সেনা অভিযান শুরু হয়েছে। নির্বিচারে সাধারণ মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে। এ অভিযানের মুখে প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে তিন লাখের মতো রোহিঙ্গা। এই প্রেক্ষাপটে ‘রোহিঙ্গা সেল’ গঠন করলো বাংলাদেশ সরকার।

ডব্লিউএন

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি