ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৭ ০:৫৩:০২

সাপ! ওরে বাপরে বাপ!

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৫:৪৮ পিএম, ৬ অক্টোবর ২০১৭ শুক্রবার

সাপ! ওরে বাপরে বাপ! সাপ দেখে ভয়ে আঁতকে উঠেন সবাই, যদি ছোবল মারে! কিন্তু সাপ সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানা থাকলে আপনার ভয় একেবারে কমে যাবে। কারণ, সাপ প্রকৃতপক্ষে মানুষ শিকার করে না। সাপকে উত্তেজিত করা না হলে বা সাপ আঘাতগ্রস্ত না হলে তারা মানুষের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলে।

কনস্ট্রিক্টর ও বিষহীন সাপগুলো মানুষের জন্য কোনো হুমকি নয়। বিষহীন সাপের কামড় মানুষের জন্য ক্ষতিকরও নয়। কারণ তাদের দাঁত মূলত কোনো কিছু আঁকড়ে ধরা ও ধরে রাখার জন্য। বর্ষার পানি মাটির গর্তে ঢুকলে বেঁচে থাকার জন্য সাপ বের হয়ে আসে এবং মানুষকে দংশন করতে পারে।

সাপের সর্বমোট ১৫টি পরিবার, ৪৫৬টি গণ, এবং ২,৯০০টিরও বেশি প্রজাতি রয়েছে। খুব ছোট, ১০ সে.মি. (থ্রেড সাপ) থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২৫ ফুট বা ৭.৬ মিটার (অজগর ও অ্যানাকোন্ডা) পর্যন্ত হতে পারে সাপ।

সম্প্রতি আবিষ্কৃত টাইটানওবোয়া (Titanoboa) সাপের জীবাশ্ম প্রায় ১৩ মিটার বা ৪৩ ফুট লম্বা। পৃ্থিবীর বেশিরভাগ প্রজাতির সাপ বিষহীন। বাংলাদেশের প্রায় ৯৫ শতাংশ সাপ বিষহীন। আর যেগুলো বিষধর সেগুলো আত্মরক্ষার চেয়ে শিকার করার সময় বিভিন্ন প্রাণিকে ঘায়েল করতেই বিষের ব্যবহার বেশি করে। কিছু মারাত্মক বিষধর সাপের বিষ মানুষের মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকি বা মৃত্যুর কারণ ঘটায়।

সাপ যখন কাউকে আক্রমণ করে তখন তার গতি এত বেশি থাকে যে,  চোখের পলকেই চারবার ছোবল মারতে পারে। একবার ছোবল দিতে সাপের সময় লাগে ৪৪ থেকে ৭০ মি.লি সেকেন্ড। অন্যদিকে মানুষের একবার চোখের পলক ফেলতে সময় লাগে ২০০ মি.লি সেকেন্ড। এ কারণে সাপের চারবার ছোবল দিতে যত সময় লাগে সে সময়ে মানুষ একবার চোখের পলক ফেলতে পারে। মানুষ সাপের মতো এত দ্রুতগতি অর্জন করতে গেলে তাৎক্ষণিকভাবে অচেতন হয়ে পড়বে।

শুধু তাই নয়, সাপের রয়েছে দীর্ঘ সময় শিকারের জন্য ওঁত পেতে থাকার ক্ষমতা। এ সময় তারা এতটাই পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেয় যে নিজে থেকে জানান না দিলে তা অন্য কেউ বুঝতে পারে না। এসব নানা কারণে সাপ ‘অতীন্দ্রিয় ক্ষমতাধর’ বলেই মনে করছেন গবেষকরা।

বিশ্বের সবচেয়ে দক্ষ শিকারী সাপের অন্যতম হলো ওয়েস্টার্ন ডায়মন্ডব্যাক র‌্যাটলস্নেক। এটি ঘাসের জঙ্গলে অত্যন্ত দক্ষভাবে লুকিয়ে থাকতে পরদর্শী। এগুলো স্বাধীনভাবে বাঁচতে পছন্দ করে। ঝোঁপ ও জঙ্গলে লুকিয়ে থাকে এবং সুযোগ পেলে শিকারের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। তবে শিকার ধরার জন্য তারা দীর্ঘদিন অপেক্ষা করতেও পারদর্শী। কোনো কোনো সাপ শিকারের জন্য দীর্ঘ দুই বছর অপেক্ষা করতে পারে। তবে কোনো শিকার পাওয়া গেলে তারা সবচেয়ে আক্রমণাত্মক প্রাণি হয়ে উঠে।

সাপের ক্ষমতা কখনোই আকার কিংবা আকৃতির উপর নির্ভর করে না। যে সাপের গতি যত বেশি, সে সাপ তত দক্ষ। এ গতিই তাদের সবচেয়ে বড় অস্ত্র।

গবেষণায় জানা গেছে, সাপের দ্রুতগতি অর্জনের পেছনে কাজ করছে তাদের অত্যন্ত কার্যকর পেশি। মানুষের দেহে রয়েছে ৭০০-৮০০ পেশি। অন্যদিকে সাপের রয়েছে ছোট ছোট ১০,০০০ থেকে ১৫,০০০ পেশি। তবে মানুষের পেশিগুলোর তুলনায় সাপের পেশি এত কার্যকর হওয়ার কারণ কি, সেটা এখনও অনুধাবন করতে পারেননি গবেষকরা। তবে গবেষকদের ধারণা, সাপের পেশিগুলো একত্রে সংযুক্ত থাকায় তা রাবার ব্যান্ডের মতো অত্যন্ত দ্রুতগতিতে কাজ করে।

সম্প্রতি মার্কিন গবেষকরা সাপের এসব বিষয় গবেষণা করে অতীন্দ্রিয় ক্ষমতার বিষয়টি সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েছেন। ইউনিভার্সিটি অব লুইজিয়ানার গবেষক ডেভিড পেনিং এ বিষয় গবেষণার জন্য বেশ কয়েক মাস র‌্যাটলস্নেক পর্যবেক্ষণ করেন। তারা স্পিড ক্যামেরাসহ নানা আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে সাপের আক্রমণের সময়ের গতি পরিমাপ করেন।

এ বিষয়ে ডেভিড পেনিং বলেন, ‘আমরা যে প্রাণীর কথা বলছি তা তার শিকারকে আক্রমণ ও তার কাছে পৌঁছাতে এত কম সময় ব্যবহার করে যে, সে আগে বুঝতেও পারে না যে তাকে আক্রমণ করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, এটি শুধু র‌্যাটলস্নেকের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য নয়। বিশ্বের প্রায় সাড়ে তিন হাজার সাপের প্রজাতির মধ্যে সবচেয়ে পাতলা থেকে শুরু করে বিশালাকার অজগর পর্যন্ত সাপের প্রায় একই ক্ষমতা দেখা গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, কাউকে বিষধর সাপ দংশন করলে সঙ্গে সঙ্গে তার লক্ষণগুলো প্রকাশ পায়। এর মধ্যে রয়েছে­ বমি, মাথাঘোরা, কামড়ানোর স্খানে ফোলা, রক্তচাপ কমে যাওয়া, চোখে ডাবল দেখা, ঘাড়ের মাংসপেশী অবশ হয়ে ঘাড় পেছনের দিকে হেলে পড়া। এমন হলে রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করাতে হবে। হাসপাতালে নেয়ার আগে আক্রান্ত জায়গা নাড়াচাড়া করা যাবে না। হাত বা পায়ে কামড় দিলে হাতের পেছনের দিকে কাঠ বা বাঁশের চটা বা শক্ত জাতীয় কিছু জিনিস রেখে শাড়ির পাড় বা পরিষ্কার কাপড় দিয়ে স্প্লিন্ট তৈরি করে বেঁধে দিতে হবে। আক্রান্ত জায়গা কাপড় দিয়ে মুড়িয়ে দিতে হবে। লক্ষ রাখবেন বেশি টাইট করে বাঁধা যাবে না। বাঁধলে রক্ত সরবরাহ ব্যাহত হয়ে গ্যাংগ্রিন হতে পারে। বিষ শিরা দিয়ে নয়, লসিকাগ্রন্থি দিয়ে শরীরে ছড়ায়। সাপে কাটা রোগীকে ওঝা-বৈদ্য বা কবিরাজ না দেখিয়ে বিজ্ঞানসম্মত আধুনিক চিকিৎসার জন্য নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে যান। আক্রান্ত জায়গায় কাঁচা ডিম, চুন, গোবর কিছুই লাগাবেন না। এতে সেল্যুলাইটিস বা ইনফেকশন হয়ে রোগীর জীবনহানি ঘটতে পারে। সূত্র : বিবিসি।


 
 

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি