ঢাকা, শুক্রবার, ২৭ এপ্রিল, ২০১৮ ১২:১৩:৪৬

Ekushey Television Ltd.

বসের মধ্যে যে ৫টি গুণ খোঁজেন কর্মীরা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১২:০৬ পিএম, ২৭ এপ্রিল ২০১৮ শুক্রবার

সাধারণত অফিসের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা অধস্তন কর্মীদের মাঝে কিছু গুণ খুঁজে থাকেন তার ওপর ভিত্তি করেই তাদের চাকরি হয় কিন্তু একজন কর্মীও তার উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বা বসের মাঝে কিছু গুণাবলী খুঁজে থাকেন আনুষ্ঠানিকভাবে না হলেও ভেতরে ভেতরে কর্মীরা তাদের চান তাদের বসের মধ্যে নির্দিষ্ট কিছু বিষয় থাকুক

বিভিন্ন খাতে কর্মরত এমন পাঁচজন কর্মী কথা বলেছেন টাইমস অব ইন্ডিয়ার সাথে। কেমন বস তারা চান জানিয়েছেন সে বিষয়ে। তাই আপনিও অফিসে যদি কারও বস হয়ে থাকেন তাহলে চর্চা করুন এই সাতটি বিষয়।

১) সবসময় কূটনৈতিক হবেন না

অফিসের বসদের মধ্যে কূটনৈতিক আচরণ সবথেকে বেশি দেখা যায়। কর্মীদের সাথে নমনীয় হয়ে কূটনৈতিক আচরণ করেন তারা। কোন বিষয়ে তাদের সোজাসাপ্টা কোন বক্তব্য নেই। নেই কোন নির্দিষ্ট অবস্থান। এমন কূটনৈতিক বসদের কর্মীরা খুব একটা পছন্দ করেন না। কারণ এর ফলে এমন বসের ওপর কর্মীদের আস্থা থাকে না।

২) সবার জন্য অনুকরণীয় হোন

বসদের মধ্যে এমন কিছু বিষয় থাকা উচিত যার ফলে অধস্তনদের কাছে তিনি হয়ে উঠবেন অধস্তন। কর্মীদের ওপর একগাদা কাজ চাপিয়ে নিজে যদি গায়ে হাওয়া লাগিয়ে বেড়ান তাহলে এমন বস কর্মীরা চায় না।

তবে অনুকরণীয় মানে এমন না যে, প্রতি মুহুর্তে আপনি কর্মীদের উপদেশ দেবেন তারা যেন আপনাকে অনুসরণ করে। কর্মীদের আপনি নির্দেশনা, উপদেশ ঠিকই দেবেন তবে বারবার তা মনে করিয়ে দেবেন না। আপনি দক্ষতার সাথে কাজ করে গেলে আপনার কর্মীরাও তা দেখে অনুপ্রাণিত হবে। তাদের জন্য অনুকরণীয় হবে এমন উদাহরণ রাখুন।

৩) কর্মীদের প্রতি সহায়ক আচরণ করুন

বস হিসেবে অফিসে আপনি কঠোর হবেন এটা স্বাভাবিক। তবে মাঝে মাঝে আপনাকে কঠোরতার সেই লাগাম টেনেও ধরতে হবে। কর্মীদের প্রয়োজনে তাদের কিছুটা সুবিধা দিন। যেমন কোন কর্মী যদি অসুস্থ বোধ করেন তাহলে তাঁকে ছুটি দিতে কার্পণ্য করবেন না। বিভিন্ন কর্মজীবী মানুষের ওপর এক গবেষণা থেকে দেখা যায় যে, নিজেদের প্রয়োজনে যেসব কর্মী অফিস থেকে সাহায্য পায় তারা পরবর্তীতে অফিসের কাজে আরও বেশি দক্ষতার পরিচয় রাখে।

৪) কর্মীর ব্যক্তিগত জীবনের গুরুত্ব দিন

আপনার কর্মীদের দাপ্তরিক জীবনের পাশাপাশি তাদের একটি ব্যক্তিগত জীবনও আছে। সেদিকে খেয়াল রাখুন। অফিসের কাজ শেষে সে তার ব্যক্তিগত কাজ করবে এটাই স্বাভাবিক। তাই খুব একটা প্রয়োজন না হলে অফিস আওয়ারের পর কর্মীকে অফিসে ব্যস্ত রাখবেন না অথবা তাঁকে অফিসে আটকে রাখবেন না। অফিসে বেশিক্ষণ থাকা মানেই কর্মীর দক্ষতা প্রকাশ করে না। বরং কর্মীদের অযথা অথবা বেশি কাজের চাপ দিয়ে অফিসে আটকে রাখলে কর্মীর ওপর তা নেতিবাচক প্রভাব পরে।

৫) নেতার মতো আচরণ করুন

বলা হয়ে থাকে নেতৃত্বের গুণ কারো মধ্যে দেওয়া যায় না। নেতৃত্ব এমন একটি বিষয় যা কারো মধ্যে সহজাতভাবে থাকে। অফিসে বস মানে আপনি একজন নেতা আর তাই আপনার আচরণও হতে হবে নেতার মতো। উঁচু পদে বসা থাকলেই নেতার দায়িত্ব পালন শেষ হয়ে যায় না।

আপনার দলের সদস্যরা যখন কোন সমস্যায় পরবে অথবা দাপ্তরিক কোন কাজের সমাধান পাচ্ছেন তখন আপনি এগিয়ে আসুন। চেয়ার ছেড়ে উঠে এসে প্রয়োজনের কর্মীর ডেস্কে এসে তার সাথে আলাপ করুন। দুই জনে ক্যান্টিনে গিয়ে চাও খেয়ে আসতে পারেন। তার সাথে নিজের অভিজ্ঞতা ও জ্ঞান শেয়ার করুণ। আপনার এমন পদক্ষেপ কর্মীর মধ্যে আত্মবিশ্বাস বাড়াবে।

আর



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি