ঢাকা, রবিবার, ২২ এপ্রিল, ২০১৮ ৭:১২:৩০

ব্যর্থতায়ও পুরস্কার!

ব্যর্থতায়ও পুরস্কার!

কেবল সফল হলেই পুরস্কার পাওয়া যায়। কিন্তু এ নিয়ম ভেঙেছে কানাডায়। সেখানে চার শিক্ষার্থী পেয়েছেন ব্যর্থতার পুরস্কার্। আর এ চারজনের সবাই বাংলাদেশি। এ পুরস্কার দিয়েছে দেশটির মেমোরিয়াল ইউনিভার্সিটি নিউফাউন্ডল্যান্ডের। পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন- সাইফ আহমেদ (২৩), মেহনাজ তাবাসসুম (২১), আদিব রহমান (১৮) ও মাহমুদুল ইসলাম (২০)। পুরস্কার হিসেবে তারা পেয়েছেন ১ হাজার কানাডীয় ডলার। মেহনাজ তাবাসসুম জানান, তারা একটি ব্যবসায়িক প্রকল্প নিয়ে কাজ করছিলেন। কিন্তু এতে তারা ব্যর্থ হন। তাদের এ ব্যর্থতায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মেমোরিয়াল সেন্টার ফর এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ তাদের ফেল টেল কাপের জন্য মনোনীত করে। ব্যর্থ হওয়ার পরও শিক্ষার্থীরা যাতে তাদের চেষ্টা অব্যাহত রাখেন, সে জন্যই এই পুরস্কার চালু করা হয়েছে। সূত্র: সিবিসি একে// এআর
৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ পেয়েছে নিহতের পরিবার

মালয়েশিয়ার জোহরবারুর ফরেস্ট সিটিতে নির্মাণাধীন ভবনে লিফটের তার ছিড়ে নিহত তিন প্রবাসী বাংলাদেশির পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিচ্ছে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ ওয়েজ আর্নার্স ওয়েল ফেয়ার। গত ১৩ এপ্রিল সুটেরা উতামা স্কোডাই কোম্পানির কর্তৃপক্ষ ওয়েজ আর্নার্স ওয়েল ফেয়ার বোর্ডের নামে নিহত তিন বাংলাদেশির পরিবারকে ২৫ হাজার করে মোট ৭৫ হাজার রিঙ্গিতের ক্ষতিপূরণের চেক হস্থান্তর করেছেন দূতাবাসের শ্রমকাউন্সেলর মো. সায়েদুল ইসলামের কাছে। টাকার হিসেবে ১ রিঙ্গিতে ২০ টাকা হারে মোট ৫ লাখ টাকা করে পেয়েছেন নিতদের পরিবার। চলতি মাসের ৮ এপ্রিল মালয়েশিয়ার জোহরবারুর ফরেস্ট সিটিতে নির্মাণাধীন ৫০ তলা একটি ভবনের কাজ চলাকালীন সময়ে লিফট তৈরির জন্য অ্যালুমিনিয়ামের কাজ চলছিলো, এসময় ৩২ তলা থেকে লিফট ছিড়েঁ নিচে পড়লে ঘটনাস্থলেই মারা যান।   এ তিন বাংলাদেশি। নিহতরা হলেন- যশোরের বেনাপোলের ধান্যখোলা গ্রামের আয়নাল হকের ছেলে তরিকুল ইসলাম তরিক (৩২), শার্শার শ্যামলাগাছি গ্রামের আবু তালেবের ছেলে আজমিন হোসেন (২৬) ও ঝিকরগাছা উপজেলার ছোট-পোদেউলিয়া গ্রামের নুরুল হকের ছেলে সালাউদ্দিন (৪২)। এ বিষয়ে দূতাবাসের শ্রম কাউন্সিলর সায়েদুল ইসলাম জানান, দূতাবাস হচ্ছে শ্রমিক বান্ধব।  যার কারণে দূর্ঘটনার খবর পাওয়ার সাথে সাথে দূতাবাসের শ্রম শাখার কর্মকর্তারা কোম্পাণীর মালিক পক্ষের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রেখে নিহতদের ক্ষতিপূরণ আদায়ে সচেষ্ট থাকায় দ্রুততম সময়ের মধ্যে ক্ষতিপূরণ পাওয়া গেছে। প্রশাসনিক কাজ সম্পন্ন করে দু-একদিনের মধ্যে ঢাকাস্থ ওয়েজ আর্নার্স বোর্ড অফিসে ক্ষতি পূরণের চেক পাঠানো হবে।  সেখান থেকে নিহতদের পরিবারের কাছে ক্ষতিপূরণে টাকা হস্তান্তর করা হবে। এক প্রশ্নের জবাবে শ্রম কাউন্সিলর বলেন, আমাদের প্রবাসী বাংলাদেশি কর্মীরা যাতে কোনো ধরনের হয়রানির শিকার না হন তার জন্য সকল ক্ষেত্রে সজাগ দৃষ্টি রাখা হয়েছে। টিকে

সৌদিতে দগ্ধ আরেক বাংলাদেশির মৃত্যু   

সৌদিতে অগ্নিকান্ডে আরেক বাংলাদেশি আজ মারা গেলেন। অনেক চেষ্টার পরও আনিসুর রহমান বাবুলকে বাঁচাতে পারেননি চিকিৎসকরা। হাইল জেলায় এক দিন আগে ঘটে যাওয়া এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মোট সাত বাংলাদেশির মৃত্যু হল।  বুধবার ভোররাতে রিয়াদ থেকে প্রায় এক হাজার কিলোমিটার দূরে হাইল জেলার হোলাইফা শহরের এক বাসায় ওই অগ্নিকাণ্ড হয়। ঘটনাস্থল থেকেই উদ্ধার করা হয় ছয় বাংলাদেশির লাশ। ওই বাসার আরেক বাসিন্দা আনিসুর রহমানকে দগ্ধ অবস্থায় ভর্তি করা হয় হাইলের কিং খালিদ হাসপাতালের আইসিইউতে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে তার বড় ভাই আব্দুল লতিফ বিষয়টি নিশ্চিত করেন। আনিসের গ্রামের বাড়ি ফেনী জেলার গাংরা গ্রামে, তার বাবার নাম খলিলুর রহমান। নিহত বাকি ছয়জন হলেন- বসন্তপুর গ্রামের আবদুল হকের দুই ছেলে এমরানুল হক সোহেল (৩৪) ও ইমামুল হক মুন্না (২২); চৌদ্দগ্রামের গুণবতী ইউনিয়নের দক্ষিণ শ্রীপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে মো. সোহেল (৩০), ফেনীর বিরিঞ্চি এলাকার ইলিয়াস মেম্বারের বাড়ির রফিকুল ইসলামের ছেলে মহিউদ্দিন রাশেদ (৩৫) এবং লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার করইতোলা বাজার সংলগ্ন চর লরেন্স গ্রামের নেছার আহম্মদের দুই ছেলে জসিম উদ্দিন (২৬) ও মো. ইব্রাহিম (২৩)। জানা যায়, সাত বাংলাদেশি একই বাসায় ভাড়া থেকে শহরে চাকরি করতেন। মঙ্গলবার রাতে রান্না ও খাওয়া শেষে একই ঘরে তারা ঘুমিয়ে পড়েন। কেউ একজন রুমের বারান্দায় সিগারেট খেয়ে ফেলে দেয়। আর ওই আগুন বিদ্যুতের তারে লেগে পুরো রুমে ছড়িয়ে পড়লে এই দূর্ঘটনা ঘটে।    এসি  

সৌদিতে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ৩জনের মৃত্যু

সৌদি আরবে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের দুইভাইসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার দুপুরে নিহতের স্বজনরা গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নিহতরা হলেন- উপজেলার বাতিসা ইউনিয়নের বসন্তপুর গ্রামের আবদুল হকের ছেলে এমরানুল হক সোহেল (৩৪), ইমামুল হক মুন্না (২২) ও গুণবতী ইউনিয়নের দক্ষিণ শ্রীপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে সোহেল রানা (৩০)। নিহতদের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সৌদি আরবের হাইল জেলার হোলাইফা শহর এলাকায় চাকরি করতেন এমরানুল হক, মুন্না ও সোহেল। প্রতিদিনের ন্যায় মঙ্গলবার রাতের খাবার খাওয়া শেষে একই রুমে সাত বাংলাদেশি ঘুমিয়ে পড়েন। তবে বুধবার ভোরে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটলে তাদের মৃত্যু হয়। এমজে/

ভিসা ছাড়াই চীন ভ্রমণের সুযোগ

ভিসা ছাড়াই চীনের দক্ষিণাঞ্চলীয় হাইনান দ্বীপে ভ্রমণের অনুমতি দিচ্ছে দেশটি। বুধবার বেইজিংয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানানো হয়। এ প্রদেশটি চীনের শষ্যভাণ্ডার নামে পরিচিত। চীনের রাষ্ট্রীয় অভিবাসন প্রশাসনের উপ-পরিচালক কু ইনহাই বলেন, নতুন এই নীতিমালা আগামী মে মাস থেকে চালু করা হবে। এর আওতায় বিশ্বের ৫৯টি দেশের পর্যটকরা ভিসা ছাড়াই ৩০ দিনের জন্য হাইনান সফরের সুযোগ পাবেন। চীনের সরকারি বার্তা সংস্থা সিনহুয়া জানায়, এই কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে এমন আরো দেশের মধ্যে রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, ব্রিটেন ও জার্মানির নাম রয়েছে।নতুন নিয়মে চীনের বাকি অংশের তুলনায় হাইনান সফরে ভিসা জটিলতা সহজ হবে। এ ছাড়া এই আইনে বিদেশে চীনের কনস্যুলেটের মাধ্যমে ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন পর্যটকরা।এএফপি আরকে//টিকে

মালয়েশিয়ায় প্রথমবারের মতো মঙ্গল শোভাযাত্রা    

‘আজি নতুন রতনে ভূষণে যতনে/ প্রকৃতি সতীরে সাজিয়ে দাও’- আজ নব আলোর কিরণশিখা শুধু প্রকৃতিকে নয়, রঞ্জিত করে নবরূপে সাজিয়ে যাবে প্রত্যেক বাঙালির হৃদকোণও। নব আলোর শিখায় প্রজ্বলিত হয়ে শুরু হবে আগামী দিনের পথচলা। আজ প্রভাতে পূর্বাকাশে লাল টকটকে সূর্যের কিরণচ্ছটার মধ্যদিয়ে মালয়েশিয়ার অন্যতম বাণিজ্যিক রাজধানী জহুর বারুর ইউনিভার্সিটি টেকনোলজির বাংলাদেশী ছাত্র-ছাত্রীদের আয়োজনে প্রথমবারের মত গোড়াপত্তন হল মঙ্গল শোভাযাত্রার। সকালে শোভাযাত্রাটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ শেষে পান্তা-ইলিশ ও নানা রকম বাহারী বৈশাখী খাবারসহ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। মূলত বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে শুক্রবার সন্ধ্যা থেকেই সানাই বেজেছে মালয়েশিয়াতে। গতকাল শুক্রবার `বিশ্বায়নের বাস্তবতায় শিকড়ের সন্ধান` প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে বর্ষবরণের অনুষ্ঠান করে মালয়েশিয়ার কোতা দামানসারা সেগী ইউনিভার্সিটির হসপিটালিটি এন্ড ট্যুরিজম মেনেজমেন্টের বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা। বাহারি রংয়ের পোশাক আর সুর-ছন্দ ও তাল-লয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নেয় তারা। অনুষ্ঠানে গান, কবিতা আর বাদ্যযন্ত্রের মুর্ছনায় আগত বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীরা মুগ্ধ হন। অনেকে শিল্পীদের সঙ্গে সুর মিলিয়ে অনুষ্ঠানস্থল মুখরিত করে তোলেন। অনুষ্ঠানে ছিল পান্তা-ইলিশ ও বাহারী রকমের বৈশাখী খাবার। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর মো: সায়েদুল ইসলাম। এছাড়া সেগী কলেজের অপারেশন প্রধান ইদা চিনি, ডিপার্টমেন্ট অফ হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম বোনি লোপেজ, সাংবাদিক আহমাদুল কবির ও কমিউনিটির তরুন নেতা শাখাওয়াত হক জোসেফ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে, মালয়েশিয়ার অন্যান্য জায়গায়ও সকাল থেকে বাংলাদেশী নানা সংগঠনের উদ্যেগে উদাযাপিত হয়েছে বাংলা নববর্ষ। বিকেলে বাংলাদেশী এক্সপার্টস ইন মালয়েশিয়া ও আমরা প্রবাসী যুব সংঘের উদ্যেগে কুয়ালালামপুর এ আয়োজন করা হয় বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের। বাংলাদেশি মালিকানাধীন রেস্টুরেন্ট গুলোতেও চলে পান্তা-ইলিশসহ বাহারী বৈশাখী খাবারের মেলা। দ্বীপ প্রদেশ সারাওয়াকেও চলছে বর্ষবরণের অনুষ্ঠান প্রস্তুতি। ইউনিভার্সিটি সারওয়াক এর শিক্ষার্থী সিফাত উল্যাহ তুহিন এই প্রতিবেদককে মুঠোফোনে জানান, ইউনিভার্সিটি সারওয়াক এর বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের আয়োজনে আগামী ৯ই বৈশাখ বাংলা নববর্ষ ১৪২৫ উপলক্ষ্য আয়োজন করা হচ্ছে বর্ষবরণের নানা অনুষ্ঠানের। তাছাড়া ১৫ই বৈশাখ শনিবার বাংলাদেশ ফোরাম মালয়েশিয়া এবং ১৭ই বৈশাখ সোমবার বাংলাদেশ দূতাবাস মালয়েশিয়ার উদ্যেগে থাকছে বর্ষবরনের জমজমাট আয়োজন। এসি  

মালয়েশিয়ায় ৩০ বাংলাদেশি আটক

অবৈধভাবে সাগরপথ পাড়ি দেওয়ায় ৩০ বাংলাদেশিসহ ৩২ জনকে আটক করেছে মালয়েশিয়ার পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে বারোটার দিকে মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন ও মেরিন পুলিশ তাদের আটক করে। আটকদের মধ্যে ৩০ বাংলাদেশি ও দুই জন ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক রয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির পুলিশ। মেরিন পুলিশের কমান্ডার (পিপিএম) সহকারী কমিশনার রোজমান ইসমাইল বলেন, আটকরা ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে ট্রলারে করে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করে। আটকদের বিরুদ্ধে বেআইনি রুটের মাধ্যমে মালয়েশিয়ায় প্রবেশের জন্য অভিবাসী কর্মীদের অ্যান্টি-মাইগ্রেশন অ্যাক্ট (এটিটিসওম) ২০০৭ এবং ইমিগ্রেশন ১৯৫২-৬৩ অনুচ্ছেদ ৫(২) এন্ট্রি ট্র্যাফিকিংয়ের ধারা ৬ এ তদন্ত করা হচ্ছে। এমজে/

মালয়েশিয়ায় ৩৯ শ্রমিকের মানবেতর জীবন যাপন   

দীর্ঘদিন মালয়েশিয়ায় শ্রমবাজার বন্ধের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চেষ্টায়, সরকারের মন্ত্রী ও কূটনীতিকদের তৎপরতায় শ্রমবাজারটি পুনরায় খুললেও রিক্রুটিং এজেন্সির ষঢ়যন্ত্রে মালয়েশিয়ায় সরকারিভাবে কর্মী পাঠানোর বর্তমান পদ্ধতি জিটুজি (গভর্নমেন্ট টু গভর্নমেন্ট) আবারও প্রশ্নের মুখে পড়েছে।   জানা গেছে, পরিবারের মুখে হাসি ফোঁটাতে মালয়েশিয়ার মেলাক্কা শহরের জালান টেক, তামান আয়ের কেরাহ হাইট এলাকার মোহামেদ রেশা বেরাকাত এসডি এন বিএইচডিতে কাজের আশায় ৩৯ জন শ্রমিক বাংলাদেশ থেকে আসে বুক ভরা স্বপ্ন নিয়ে। কিন্তু মালিক পক্ষের অমানবিক আচরণে তাদের সে স্বপ্ন আজ দু:স্বপ্নে পরিণত হতে শুরু করেছে। জানা গেছে, জনশক্তি রফতানিকারক আল ইসলামকে প্রত্যেক ব্যক্তি সাড়ে ৪ লাখ টাকা করে দিয়ে তারা মালয়েশিয়া এসেছে। বর্তমানে বাড়ীতে টাকা পাঠানো দূরে থাক, থাকা খাওয়ারও তাদের ব্যবস্থা নেই। কর্মহীন থেকে দিনে একবেলা করে খাবার দেওয়ায় তাদের শরীর হয়ে গেছে দূর্বল। এক রকম বন্দীর মতো তাদের জীবন কাটছে।  এমন বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেতে ৩৯ জনের মধ্যে ২৮ জন ১২ এপ্রিল রাতের আঁধারে পালিয়ে এসে আশ্রয় নিয়েছে মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে। পালিয়ে আসা ব্যক্তিরা হলেন, বি-বাড়িয়ার জসিম উদ্দিন, আমিনুল ইসলাম, মো: বশির মিয়া, কুমিল্লার ফারুক, নাসু মিয়া, শামীম, সজীব, তোতা মিয়া, ফয়সল সুমন, ভোলার আজাদ, শরিফ, জাকির, আব্দুস সাওার, পাবনার আইনুল, যশোরের তবিকুর, ফারুক, চাঁদপুরের মমিন মিয়া, চুয়াডাঙ্গার আব্দুর রহিম, হাবিবুর সুহেল, নাসিম, বাগের হাটের জাহাঙ্গীর, নোয়াখালীর নাসির চট্টগ্রামের হেফাজ উদ্দিন, কিশোরগঞ্জের শফিকুল ইসলাম। জিটুজি প্লাস প্রক্রিয়ায় মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়ার সরকার-নির্ধারিত খরচ ৪০ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হলেও তাদের মালয়েশিয়াতে আসতে খরচ হয়েছে প্রায় ৪ লাখ টাকার ওপরে। যা নির্ধারিত খরচের আট থেকে দশ গুণ বেশি। ভুক্তভোগীর বলছেন, খরচের বিষয়ে তাদের মুখ খুলতে নিষেধ করা হয়েছে। তাদের আসার আগেই বলা হয়েছিল মুখ খুললে তাদেরকে আর মালয়েশিয়া পাঠানো হবে না। এমন কি যে টাকা দেওয়া হয়েছে সেটাও ফেরত পাবেনা। তাই সবাই ৪০ হাজার টাকার বেশি কাউকে বলতে চায় না। এদিকে বি-বাড়িয়ার জসিম উদ্দিনের বাবা আরু মিয়া ঢাকাস্থ জনশক্তি কর্মসংস্থান ব্যুরো অফিসে লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে ১৩৬০ স্মারকে ১১/০৪/২০১৮ইং তারিখে কর্মসংস্থানের পরিচালক (যুগ্ম-সচিব) মুহাম্মদ আতাউর রহমান এই ৩৯ জন কর্মীর ৫ মাসের বেতন ভাতা না দেয়ার কারণ ও অসহায় কর্মীদের কাজের ব্যবস্থা সহ গৃহীত পদক্ষেপ নিতে দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলরের কাছে লিখিত নোটিশ পাঠিয়েছেন। এসি  

বৈশাখকে স্বাগত জানাতে মালয়েশিয়ায় ব্যাপক প্রস্তুতি

একদিন বাদেই বাঙালির প্রাণের উৎসব বাংলা নববর্ষ।  পুরনো বছরকে বিদায় জানিয়ে নতুন বছরের প্রথম দিন নব উল্লাসে মেতে উঠবে কোটি বাঙালি।  এ দিনটিতে পুরনোর জীর্ণতা, গ্লানি, ভেদাভেদ ভুলে নতুনকে আহ্বান জানাতে মালয়েশিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশিরা বর্ষবরণে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে।  "এসো হে বৈশাখ এসো এসো" বাংলা নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে ১৪২৪ বাংলাকে বিদায় জানিয়ে ১৪২৫ কে স্বাগত জানাতে পর্যটন নগরী মালয়েশিয়ায় প্রতিবারের ন্যায় বাঙালি কমিউনিটির মধ্যে চলছে তাই বর্ষবরণের ব্যাপক প্রস্তুতি। আর সেই চিরায়ত ঐতিহ্যকে বরণ করতে রাত-দিন নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন মালয়েশিয়ার বিভিন্ন কলেজ, ইউনিভার্সিটির বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন প্রবাসী সংগঠনগুলো।  নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে উন্মুখ মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশি প্রবাসী অঙ্গণ।  বাঙালির প্রাণের এই উৎসব মূলত ইতিহাস-ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও জাতিসত্তার প্রতীকী উপস্থাপনা। প্রবাসীদের আয়োজনে মালয়েশিয়ায় এবারও বর্ষবরণের অনুষ্ঠান আয়োজনে প্রস্তুত বেশ কয়েকটি সংগঠন।  সময়ের পরিক্রমায় গত কয়েক বছর ধরে মালয়েশিয়ায় বৃহৎ ও সার্বজনীন এক উৎসবে পরিণত হয়েছে বাংলা বর্ষবরণ।  অন্যান্য বারের চেয়ে এবার আরো সাড়ম্বরে নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বলেও জানান বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা। এবার বাংলা নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ দূতাবাস, মালয়েশিয়া বাংলাদেশ এসোসিয়েশন (এমবিএ), বাংলাদেশ স্টুডেন্ট ইউনিয়ন মালয়েশিয়া, আমরা প্রবাসী যুব সংঘ মালয়েশিয়াসহ বেশ কয়েকটি সংগঠন। এছাড়া বাংলাদেশি মালিকানাধীন রেস্টুরেন্টগুলোতে পান্তা ইলিশসহ হরেক রকম খাবারের পসরা সাজানো থাকবে প্রতিবারের ন্যায়।  এদিকে ২৮ এপ্রিল কুয়ালালামপুরের ক্রাফ্ট কালচারাল কমপ্লেক্সে বাংলাদেশ ফোরাম অ্যাসোসিয়েশন (এমবিএ) দিনব্যাপী থাকছে পান্তা ইলিশ ভোজন এবং  বাউল গানের আসর।  বাংলাদেশের কৃষ্টি কালচার, ইতিহাস ও ঐতিহ্য এ অনুষ্ঠানে তুলে ধরা হবে বলে জানান আয়োজকরা।  থাকছে র‌্যাফেল ড্র সহ আরো নানা আয়োজন।  ২৯ এপ্রিল বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃক পহেলা বৈশাখ পালন করা হবে। অনুষ্ঠানটি সফল করতে গত ৩ এপ্রিল ‘বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব অব মালয়েশিয়া’র কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন অ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ। টিকে

মালয়েশিয়ার পার্লামেন্ট নির্বাচন ৯মে

মালয়েশিয়ায় আগামী ৯ মে বুধবার দেশটির  পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে নির্বাচন কমিশন (ইসি) চেয়ারম্যান তান-শ্রী মোহাম্মদ হাশিম আব্দুল্লাহ সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘোষণা দেন। ইসি চেয়ারম্যান বলেন, নির্বাচনী প্রচারণার জন্য সব রাজনৈতিক দলগুলোকে ১১ দিনের সময় দেওয়া হয়েছে। তবে ২২ এপ্রিল থেকে ২৮ এপ্রিল পৰ্যন্ত ৫৮৭ টি  আসনের জন্য মনোনয়ন পত্র সংগ্রহের করতে পারবেন প্রার্থীরা।  ৫ মে সামরিক ও পুলিশ কর্মকর্তাদের পাশাপাশি বিদেশে বসবাসকারী ভোটারদের ভোটগ্রহণ করা হবে । তান-শ্রী মোহাম্মদ হাশিম বলেন, ২০১৩ সালের শেষ সাধারণ নির্বাচনে ১৩ কোটি দুই লাখ ৬৮ হাজার ২ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এবারের নির্বাচনে  ১৪ কোটি ৯ লাখ ৪০ হাজার ৬২৭ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ১৪তম সাধারণ নির্বাচনকে শান্তিপূর্ণ করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মোট  দুই লাখ ৫৯ হাজার ৩৯১ জন কর্মী দায়িত্ব পালন করবে। মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৮ হাজার ৮৮৯ টি  ভোটকেন্দ্রে।  এর মধ্যে ২৮ হাজার ৯৯৫ জন  ভোটকেন্দ্রে পোলিং স্ট্রিম হিসেবে কাজ করবেন। ভোটিং এবং  নির্বাচনের  তফসিল ঘোষণার জন্য নির্বাচন কমিশনের আট সদস্যের একটি প্যানেল সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার তান-শ্রী মোহাম্মদ হাশিম। এ সময় তিনি আরো বলেন, ইসি নির্বাচনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় বিভিন্ন বিষয় বিবেচনা করে  ৯ মে-কে নির্বাচনের জন্য নিধারণ করা হয়েছে। কোনো উল্লেখযোগ্য সাংস্কৃতিক বা ধর্মীয় অনুষ্ঠানের সাথে কোন সংঘর্ষের ঘটনা যাতে না ঘটে সে বিষয়টি ইতিমধ্যে নিশ্চিত করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক ৭ এপ্রিল শনিবার পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দেওয়ার গোষণার তিন দিন পরে গতকাল মঙ্গলবার সকালে নির্বাচন কমিশন এ সিদ্ধান্ত  জানান।  সূত্র: দ্যা স্টার অনলাইন   টিকে

মালয়েশিয়ায় ৩ বাংলাদেশি নিহত

মালয়েশিয়ায় লিফটের তার ছিড়ে তিন প্রবাসী বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন তরিকুল, আজমিন ও সালাউদ্দিন। সোমবার বিকেল ৫টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জানা যায়, মালয়েশিয়ায় একটি বিল্ডিংয়ে কাজ করার সময় লিফট ছিঁড়ে এই তিন বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। মালয়েশিয়ায় কর্মরত অন্য বাংলাদেশীরা বিষয়টি তাদের পরিবারে জানানোর পর থেকে তাদের স্বজনদের আহাজারিতে এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া। বাক রুদ্ধ হয়ে পড়েছে স্ত্রী সন্তানসহ স্বজনেরা। নিহত তিন জনই যশোরের সন্তান। নিহতরা হলেন-যশোরের বেনাপোলের ধান্যখোলা গ্রামের আয়নাল হকের ছেলে তরিকুল ইসলাম তরিক (৩২), শার্শার শ্যামলাগাছি গ্রামের আবু তালেবের ছেলে আজমিন হোসেন (২৬) ও ঝিকরগাছা উপজেলার ছোট-পোদেউলিয়া গ্রামের নুরুল হকের ছেলে সালাউদ্দিন (৪২)। নিহতদের স্বজনরা জানান, মালয়েশিয়ার জোহরবারু ফরেস্ট সিটিতে নির্মাণাধীন ৫০ তলা বিল্ডিংয়ে লিফট তৈরির জন্য অ্যালোমিনিয়ামের কাজ করছিল। ৩২ তলায় লিফটের কাজ করার সময় লিফট ছিড়ে তারা তিন জনই ঘটনাস্থলে মারা যান। নিহতদের মরদেহ দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য মালয়েশিয়াতে কাজ চলছে বলে জানান স্বজনরা। বেনাপোলের বাহাদুরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান ও শার্শা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেনও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তারা দ্রুত মরদেহ ফেরত আনার জন্য প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করছেন বলে জানান। এদিকে মৃত্যুর খবর পেয়ে নিহতদের গ্রামের বাড়িতে যান শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডলসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক ব্যক্তিত্বরা। এসময় ইউএনও দুর্ঘটনার কারণ সম্পর্কে খোঁজখবর নেন। এছাড়া মরদেহ বাড়িতে আনতে সরকারিভাবে সার্বিক সহযোগিতা করা হবে বলে জানান তিনি। টিকে

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি