ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭ ৮:১৫:০২

খালেদা-সুষমা বৈঠক : অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চায় ভারত

খালেদা-সুষমা বৈঠক : অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চায় ভারত

বাংলাদেশে একটি অংশগ্রহণমূলক সুষ্ঠু নির্বাচন দেখতে চায় ভারত। প্রতিবেশী হিসেবে দেশ হিসাবে ভারতের চাওয়া, এ দেশে যেন গণতান্ত্রিক চর্চা অব্যাহত থাকে। রবিবার রাতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে বৈঠকে মিলিত হন। ওই বৈঠকে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেছেন বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপির পক্ষ থেকে দেশের রাজনীতি ও নির্বাচন বিষয় সম্পর্কে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরা হয়। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিষয়গুলো শুনে বলেছেন, বাংলাদেশে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করে ভারত। নির্বাচন কমিশন যেন অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করে এবং তাতে যাতে সবাই অংশগ্রহণ করে, ভারত তেমনটাই চায়। বিএনপির মহাসচিব বলেন, দলের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গা সংকট তুলে ধরে হয়। সংকটের সমাধানে রোহিঙ্গাদের তাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়া দরকার। এ ব্যাপার ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরাও চাই রোহিঙ্গারা যাতে নিরাপদে দেশে ফিরে যেতে পারে। এ জন্য ভারতের পক্ষ থেকে চাপ অব্যাহত থাকবে। বিএনপি প্রতিনিধিদলের মধ্যে ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আবদুল মঈন খান ও আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবিহউদ্দীন আহমেদ ও রিয়াজ রহমান।   আর
যুবলীগ নেতাকে গুলি, আ’লীগ নেতা  আটক

জয়নাল আবেদিন নামে যুবলীগের এক নেতাকে গুলি করে গুরুতর আহত করেছেন আওয়ামী লীগ নেতা মঞ্জুরুল আলম।  এই ঘটনার পর পুলিশ মঞ্জুরুলকে আটক করেছে। চট্টগ্রাম আনোয়ারা উপজেলার বাসিন্দা জয়নাল দক্ষিণ জেলা যুবলীগ নেতা। তার ভাই মো. আলমগীর আনোয়ারা থেকে নির্বাচিত চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সদস্য। মঞ্জুরুল আলম চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও আলোচিত পরিবহন নেতা।এক সময় তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। যুবলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। শনিবার (২১ অক্টোবর) গভীর রাত ১২ টার দিকে নগরীর আউটার স্টেডিয়াম সংলগ্ন অফিসার্স ক্লাবের সামনে থেকে তাকে আটক করা হয়েছে।  গুলির ঘটনাটিও ঘটেছে একই এলাকায়। কোতয়ালী থানার ওসি জসিম উদ্দিন গণমাধ্যমকে জানান, রাতে দুজনই অফিসার্স ক্লাবে দীর্ঘক্ষণ ছিলেন।  সেখানে তাদের দু’জনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয় । পরে মঞ্জু পিস্তল বের করে জয়নালের পায়ে গুলি করে।” তবে কী নিয়ে জয়নালের সঙ্গে মঞ্জুর বিরোধ তৈরি হয়েছিল, সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি এই পুলিশ কর্মকর্তা। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে যায়।  এসময় মঞ্জুরুলকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।  আহত জয়নালকে রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।  অস্ত্রোপচার করে গুলি বের করা হয়েছে বলে ওসি জানান। এম  

২৫ কোটি টাকা না দিলে এমপি শওকতের জামিন বাতিল

নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) ও অর্থ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সদস্য শওকত চৌধুরী ২৫ কোটি টাকা ব্যাংকে জমা না দিলে তার জামিন বাতিল করা হবে। আগামী ৫০ দিনের মধ্যে এ টাকা জমা দিতে হবে বলে আদালত রোববার এ নির্দেশ দিয়েছেন। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা দু`টি মামলার বিষয়ে জারি করা রুলের শুনানি শেষে রোববার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন। আদালতে কমার্স ব্যাংকের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার এম সারোয়ার হোসেন। আর শওকত চৌধুরীর পক্ষে ছিলেন আইনজীবী নুরুল ইসলাম সুজন। ২০১৬ সালের ৮ ও ১০ মে শওকত চৌধুরীসহ ব্যাংকটির ৯ জন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে রাজধানীর বংশাল থানায় দু’টি মামলা করে দুদক। বাকি আসামিরা হলেন, ব্যাংকটির ফার্স্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট ও বংশাল শাখার সাবেক শাখা ব্যবস্থাপক হাবিবুল গনি, চাকরিচ্যুত অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান, ফার্স্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার শিরিন নিজামী, সাবেক সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট সফিকুল ইসলাম, সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট পানু রঞ্জন দাস, সাবেক ফার্স্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট ইখতেখার হোসেন, সাবেক অ্যাসিস্ট্যান্ট অফিসার দেবাশীষ বাউল, সাবেক এক্সিকিউটিভ অফিসার ও বর্তমানে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার আসজাদুর রহমান। বর্তমানে জামিনে আছেন এমপি শওকত। মামলার অপর আসামিরা গত বছর জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছেন। আবেদনে বলা হয়, প্রধান আসামি শওকত চৌধুরী জামিন পেয়েছেন। তাই তারাও জামিন পেতে পারেন। এরপর গত বছরের ২৪ নভেম্বর জামিন বাতিলে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। ব্যারিস্টার এম সারোয়ার হোসেন বলেন, এ রুলের শুনানি শেষে রোববার রায় ঘোষণা করা হয়। রায়ে আদেশ পাওয়ার ৫০ দিনের মধ্যে ব্যাংকে ২৫ কোটি টাকা জমা না দিলে শওকত চৌধুরীর জামিন বাতিল হয়ে যাবে। আরকে//

ফের জামিনে বিএনপি নেতা মিনার চৌধুরী

বিএনপি নেতা মাহতাব উদ্দিন মিনার চৌধুরীকে আবারও জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। মিনার ফেনীর আওয়ামী লীগ নেতা একরামুল হক হত্যা মামলার আসামী। বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ রোববার ছয় মাসের এ জামিন মঞ্জুর করেন। এর আগেও হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ মিনার চৌধুরীকে জামিন দিয়েছিল, যা গত ১৯ মার্চ আপিল বিভাগ আতিল করে দেয়।তবে এবার মিনার চৌধুরীর এ জামিন শর্ত সাপেক্ষে দেওয়া হয়েছে। আদালতে মিনার চৌধুরীর পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনসুরুল হক চৌধুরী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। সঙ্গে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল বশির আহমেদ। বশির আহমেদ পরে বলেন, আদালত শর্তসাপেক্ষে ছয় মাসের জামিন মঞ্জুর করেছে। বিচারিক আদালতে পাসপোর্ট জমা রেখে তাকে জামিনে যেতে হবে। জামিনের এ আদেশ স্থগিতের জন্য রোববারই আপিল বিভাগে আবেদন করা হয়েছে বলে সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল জানান। ছয় মাসের মধ্যে নিম্ন আদালতে এ মামলা নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়ে আপিল বিভাগের ওই আদেশে বলা হয়েছিল, ওই সময়ের মধ্যে বিচার শেষ না হলে হাইকোর্ট মিনার চৌধুরীর জামিনের বিষয়টি বিবেচনা করতে পারে। সে অনুযায়ী মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় গত রোববার আদালতে ফের জামিন আবেদন করেন মিনার চৌধুরীর আইনজীবী। সে আবেদনের শুনানি নিয়েই হাইকোর্ট রোববার রুলসহ ছয় মাসের এ জামিন দিয়েছে। ২০১৪ সালের ২০ মে ফুলগাজী যাওয়ার সময় ফেনী শহরের একাডেমী এলাকায় একরামুলকে নিজের গাড়িতে গুলি চালানোর পর পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। নিহতের বড় ভাই রেজাউল হক জসিম ওই দিনই ফেনী জেলা তাঁতী দলের আহ্বায়ক মাহাতাব উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরীর ওরফে মিনার চৌধুরীর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় আরো ৩০/৩৫ জনকে আসামি দেখিয়ে ফেনী মডেল থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলা হওয়ার পর ওই বছর ২৭ মে গোয়েন্দা পুলিশ ঢাকা থেকে মিনারকে গ্রেপ্তার করে। মাঝে একবার তিনি জামিনে কারাগার থেকে মুক্তিও পান। তবে অভিযোগপত্র দেওয়ার পর নির্দেশনা মেনে আদালতে হাজির না হওয়ার তাকে আবারও গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে গত বছরের ১৫ মার্চ এ মামলার ৫৬ আসামির বিচার শুরু করে ফেনীর আদালত। বিচার শুরুর আগেই গতবছর ২৪ নভেম্বর মিনার চৌধুরীর আবেদনে তাকে ছয় মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেয় বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও জাফর আহমেদের হাইকোর্ট বেঞ্চ। কেন তাকে স্থায়ী জামিন দেওয়া হবে না- তা জানতে চেয়ে রুলও দেওয়া হয়। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে আবেদন করলে গত মার্চে তা বাতিল হয়ে যায়। আরকে//

প্রশ্নপত্র জালিয়াতির মূল হোতা আওয়ামী লীগ : রিজভী

আওয়ামী লীগকে প্রশ্নপত্র জালিয়াতির মূল হোতা বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, `দেশজুড়ে সব প্রশ্নপত্র ফাঁস ও জালিয়াতির মূল হোতা আওয়ামী লীগ। দেশকে পরনির্ভরশীল করতেই তারা শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিচ্ছে।‘ আজ রোববার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএন‌পির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এ মন্তব্য করেন। রিজভী বলেন, ”প্রশ্ন ফাঁসের পেছনে সরকারি দলের রাঘববোয়ালরা জড়িত থাকায় কোনোভাবেই প্রশ্ন ফাঁস বন্ধ হচ্ছে না। এই শিক্ষামন্ত্রীর আমলেই প্রশ্ন ফাঁসের মতো অনৈতিক কর্মকাণ্ডের ক্রমবিস্তার আরো প্রসারিত হচ্ছে দিন দিন। গত ১০ বছরে বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন, বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন, এসএসসি, এইচএসসি, জেএসসি, পিইসি, এমনকি নার্সিং পরীক্ষার প্রশ্নপত্রও ফাঁস হয়েছে। কোনো কোনো পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসে দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি হলেও শিক্ষামন্ত্রী নির্লজ্জের মতো তা অস্বীকার করে পরে জনমতের চাপে সেই পরীক্ষা বাতিল করতে বাধ্য হয়েছেন।” প্রশ্নফাঁস ও জালিয়াতির মূল হোতারা ক্ষমতাসীন দলের লোক হওয়ায় আজ পর্যন্ত এসব ঘটনার বিচার হয়নি বলেও জানান বিএনপির এই সিনিয়র নেতা। তিনি বলেন, ”গত ১০টি বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে সব ধরনের প্রশ্ন ফাঁসে যে ক্ষমতাসীনরা জড়িত, তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হলো গত শুক্রবার ঢাবির `ঘ` ইউনিটের পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁস ও জালয়াতির অভিযোগে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহসম্পাদক রানা, হল শাখার নাট্য সম্পাদক মামুনসহ ১৫ জন গ্রেপ্তার।”   তিনি আরো বলেন, “শিক্ষা হলো জাতির মেরুদণ্ড। যে জাতি যত শিক্ষিত, সে জাতি তত উন্নত। জাতিকে ধ্বংস করার অপচেষ্টার অংশ হিসেবেই সরকার শিক্ষাব্যবস্থাকে পরিকল্পিতভাবে ধ্বংস করছে। সরকার দেশের সব প্রতিষ্ঠানকে একে একে ধ্বংস করছে। সবচেয়ে বেশি নৈরাজ্য চলছে, দলীয়করণ করে শিক্ষার মান ধ্বংস করা হচ্ছে। ঢাবিসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মেধাবীদের রেখে ঘুষ-বাণিজ্যের মাধ্যমে দলীয় ক্যাডারদের নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আবার পরীক্ষায় পাস করিয়ে দিতে বোর্ড থেকে নির্দেশনা দিয়ে দেওয়া হয় শিক্ষকদের।” সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপ‌স্থিত ছিলেন বিএন‌পির কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক শ‌হীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী, সহ-প্রকাশনা সম্পাদক মনির উদ্দিন, আবদুস সালাম প্রমুখ।   এমআর / এআর

খালেদা জিয়া-সুষমা বৈঠক রাত ৮ টায়

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে আজ (রবিবার) রাত ৮টায় রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে সাক্ষাৎ করবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।  রোবার দুপুরে ২৪ ঘণ্টার সফরে ঢাকায় এসেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার রোববার সকাল ১১টার দিকে গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। শামসুদ্দিন দিদার জানান, খালেদা জিয়ার সঙ্গে বিএনপির প্রতিনিধি দলে থাকবেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, উপদেষ্টা রিয়াজ রহমান, সাবিহ উদ্দিন আহমেদ প্রমুখ। বিএনপি নেতারা গতকাল শনিবারই জানিয়েছিলেন, সুষমার সঙ্গে বৈঠকে বর্তমানে রোহিঙ্গা সংকট, আঞ্চলিক সম্পর্ক বৃদ্ধি এবং আগামী নির্বাচন নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করবেন। শনিবার রাতে বিএনপির বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, ‘ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এর আগে যখন এসেছিলেন তখনও বিএনপির চেয়ারপারসনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন। এক বছর পরেই জাতীয় নির্বাচন। ২০১৪ সালের নির্বাচনে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন সরকারের পররাষ্ট্র সচিব সুজাতা সিংয়ের নেতিবাচক ভূমিকায় বাংলাদেশে একতরফা নির্বাচন হওয়ার অভিযোগ আছে। এছাড়া প্রায় ৬ লাখের ওপর রোহিঙ্গা নাগরিক মায়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্যাতনে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এসব ভূ-রাজনৈতিক প্রেক্ষিতে সুষমার স্বরাজের সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসনের দেখা হওয়াটাই স্বাভাবিক।’ / কে আই / এআর

সোমবার রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক

বাংলাদেশ জাতীয়তাবদী দল (বিএনপি)’র সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির বৈঠক সোমবার অনুষ্ঠিত হবে। আগামীকাল রাত সাড়ে ৮টায় বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এই বৈঠক হবে। রোববার দুপুরে বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের কর্মকর্তা শায়রুল কবীর খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেছেন, সভায় যখাসময়ে সংশ্লিষ্ট সবাইকে উপস্থিত থাকার জন্য বলা হয়েছে। তবে সভার আলোচ্যসূচি নিয়ে কোনো বক্তব্য দিতে চাননি তিনি। গত ১৫ জুলাই চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যান সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। সেখানে তিনি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ছিলেন। বড় ছেলে ও দলের জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান আগে থেকেই লন্ডনে অবস্থান করছেন। এ সময় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়। ঢাকায় ফেরার পরদিন আদালতে আত্মসমর্পণ করে দুটি মামলায় জামিন নেন বিএনপি নেত্রী। খালেদা জিয়া লন্ডনে থাকার সময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির কোনো সভা হয়নি। বিএনপির একটি সূত্র জানিয়েছে, সভায় বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিসহ আগামী দিনের আন্দোলন-সংগ্রাম নিয়ে আলোচনা হতে পারে। আরকে//এআর

রোহিঙ্গাদেরকে সরকারের সহায়তা লোক দেখানো: খসরু

রোহিঙ্গা সঙ্কট নিরসনে সরকারের নৈতিক অবস্থান নেই উল্লেখ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, শুরুতে সরকার রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী ও ইসলামী জঙ্গি অভিহিত করে মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে একযোগে অভিযানের প্রস্তাব দিয়েছিল। পরবর্তী সময়ে দেশের জনগণ ও বিশ্ব সম্প্রদায় রোহিঙ্গাদের ওপর দমন পীড়ন ও জাতিগত নিধনের বিষয়ে সোচ্চার হলে আন্তর্জাতিক পুরস্কার লাভের আশায় সরকার লোক দেখানো সহায়তার হাত বাড়িয়েছে।  শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় খসরু এই মন্তব্য করেন। ‘জিয়া পরিষদ’ এই আলোচনা সভার আয়োজন করে। মিয়ানমারে সেনাবাহিনী ও দোসরদের নির্যাতনে প্রাণভয়ে দুই মাসের কম সময়ে পাঁচ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছে। এতে বড় ধরনের মানবিক সংকট তৈরি হয়েছে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী দুই জেলা কক্সবাজার ও বান্দরবানে। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর পালিয়ে আসার এই স্রোত এখনো অব্যাহত আছে। এমন বাস্তবতায় এই জনগোষ্ঠীকে ফেরত নেওয়ার বিষয়ে দৃশ্যত কোনো সদিচ্ছা নেই মিয়ানমারের। বিষয়টি নিয়ে মিয়ানমারের কার্যত নেতা অং সান সু চি কিংবা জেনারেলদের স্পষ্ট কোনো বিবৃতি পাওয়া যায়নি। খসরু বলেন, যে সরকারটি অনির্বাচিত, যে সরকারটি ক্ষমতা জোর করে দখল করেছে এবং আবার জোর করে দখল করার পাঁয়তারা করছে, যে সরকারটি বাংলাদেশের মানুষকে প্রতিনিয়ত গুম, খুন, হত্যার মধ্যে আছে,…মানবাধিকারে বিশ্বাস করে না, আইনের শাসনে বিশ্বাস করে না, সেই সরকারের কোনো নৈতিক অবস্থান নাই আজকে এ সমস্যা সমাধানে। / এআর

৯৪ দিন পর দেশে ফিরেছেন খালেদা জিয়া

দীর্ঘ ৯৪ দিন পর বুধবার বিকাল সোয়া ৫টার দিকে বেগম খালেদা জিয়া এমিরেটসের একটি ফ্লাইটে দেশে ফিরেছেন। তাকে শুভেচ্ছা জানাতে শাহজালাল বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা। তাঁর দেশে ফেরাকে কেন্দ্র করে  বিএনপি নেতা-কর্মীদের অবস্থানের কারণে বিমানবন্দর সড়কে যানজট দেখা দেয়। গত ১৫ জুলাই লন্ডন গিয়েছিলেন খালেদা জিয়া। সেখানে বড় ছেলে তারেক রহমানের বাড়িতে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কোরবানির ঈদ উদযাপন করেন তিনি। চোখ ও হাঁটুর চিকিৎসা নিতে খালেদার এবারের সফরের কথা বিএনপি বললেও আওয়ামী লীগের নেতারা তার এই সফরের অন্য উদ্দেশ্য রয়েছে বলে দাবি করছিলেন। তার ফেরা নিয়ে সন্দেহের কথাও বলছিলেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা; যদিও বিএনপি নেতারা আওয়ামী লীগ নেতাদের বক্তব্যকে অপপ্রচার বলে উড়িয়ে দিয়েছিলেন। খালেদা জিয়া বিদেশে থাকার মধ্যেই নাশকতা ও মানহানির তিন মামলায় আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে; যার পেছনে সরকারের হাত রয়েছে বলে বিএনপি নেতাদের দাবি। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ একদিন আগেই জানান, আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রাখতে চিকিৎসা অসমাপ্ত রেখেই দেশে ফিরছেন খালেদা জিয়া, বৃহস্পতিবার আদালতে গিয়ে জামিনও নেবেন তিনি। খালেদা জিয়া বিমানবন্দরে নামার পর গাড়িতে করে সরাসরি গুলশানে তার বাড়ির পথে রওনা হন। তার সঙ্গে ছিলেন তার একান্ত সচিব এবিএম আবদুস সাত্তার ও গৃহকর্মী ফাতেমা আখতার। কেআই/ডব্লিউএন

বিমানবন্দরের ভেতরে থাকার অনুমতি পেলেন ফখরুলসহ ৪ জন

লন্ডন সফর শেষে আজ দেশ ফিরছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। বেগম জিয়াকে অভ্যর্থনা জানাতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ৪ জনকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভেতরে থাকার অনুমতি দিয়েছে বিমান কর্তৃপক্ষ। জানা গেছে, বিমানবন্দররের ভেতরে থাকার জন্য বিএনপির ৮ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের অনুমতি চেয়েছিল দলটি। তবে বিমান কর্তৃপক্ষ ৪ জনকে অনুমতি দিয়েছেন। বিমান থেকে বেগম জিয়া অবতরণ করার তারা খালেদাকে অভ্যর্থনা জানিয়ে গ্রহন করবেন। অনুমতিপ্রাপ্ত  অন্য তিনজন হলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক আইজিপি আবদুল কাইয়ুম, দেহরক্ষী মাসুদ রানা ও গুলশান কার্যালয়ের কর্মচারী জসিম। বিকাল ৫টায় এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অবতরণ  করার কথা রয়েছে বেগম খালেদা জিয়ার।   এমআর/এআর  

দলে তরুণদের প্রাধান্য দিতে হবে

দলের মধ্যে মতবিরোধ থাকতেই পারে, তবে বড় বিষয় হলো ঐক্য। মুরুব্বিদের যেমন সম্মান দিতে হবে তেমনি তরুণদেরও প্রাধান্য দিতে হবে। মনে রাখতে হবে সিনিয়রদেরও দলে প্রয়োজন আছে। লন্ডনের হি‌থ্রো বিমানবন্দর থে‌কে ঢাকার উদ্দেশে রওয়ানা দেওয়ার আগে ভিআইপি টার্মিনাল থেকে টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে এই বক্তব্য দেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এসময় নেতাকর্মীরা বিমানবন্দরের বাইরে দাঁড়িয়ে দলীয়প্রধানের বক্তব্য শুনেন। দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের উদ্দেশে খালেদা জিয়া বলেন, আপনারা তরুণদের কাজে লাগাতে চেষ্টা করবেন। এখানে যারা ছাত্র আছে, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখবেন। তাঁরা রাজনীতিতে না আসলেও দেশে গিয়ে ভোট দিতে আগ্রহ রাখবে। লন্ডনের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাত ১০টা ১৫ মিনিটে  খালেদা জিয়া এমিরেটস এয়ারলাইনসের একটি বিমানে (ইকে-৫৮৬) হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে দুবাইয়ের উদ্দেশে ছেড়েছেন। বিকেল সোয়া ৫টায় তিনি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছাবেন। দলীয় ঊর্ধ্বতন নেতাকর্মীরা সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানাবেন। বিএনপি এ নিয়ে কোনো কর্মসূচি না রাখলেও দলের নেতাকর্মীরা বিমানবন্দরের বাইরে অবস্থান নিয়ে খালেদা জিয়াকে স্বাগত জানাবেন।   আর/এআর

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি