ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৭ ৩:১১:৪৭

ডিআরইউ’র নতুন কমিটির দায়িত্ব গ্রহণ

ডিআরইউ’র নতুন কমিটির দায়িত্ব গ্রহণ

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) নতুন কমিটির সদস্যরা দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ডিআরইউর সাগর-রুনী মিলনায়তনে বিদায়ী কমিটির কাছ থেকে ২০১৮ কার্যমেয়াদের জন্য নতুন নির্বাচিতরা দায়িত্ব গ্রহণ করেন। সদ্য বিদায়ী কমিটির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মুরসালিন নোমানীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন নবনির্বাচিত সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শুকুর আলী শুভ ও বিদায়ী কমিটির সহ-সভাপতি আবু দারদা যোবায়ের, যুগ্ম সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন ও সাংগঠনিক সম্পাদক জিলানী মিলটন। অনুষ্ঠানে বিদায়ী কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সব সদস্যরা নবনির্বাচিতদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় নবনির্বাচিত সভাপতি সাইফুল ইসলাম সংগঠন পরিচালনায় বিদায়ী কমিটির সদস্যসহ সংগঠনের সব সদস্যের সহযোগিতা কামনা করেন। উল্লেখ্য, গত ৩০ নভেম্বর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) কার্যনির্বাহী কমিটি-২০১৮ এর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে সভাপতি নির্বাচিত হন বৈশাখী টেলিভিশনের প্রধান বার্তা সম্পাদক সাইফুল ইসলাম আর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) সিনিয়র রিপোর্টার সৈয়দ শুকুর আলী শুভ। এছাড়া সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন গ্যালমান শফি, যুগ্ম-সম্পাদক মো. মঈন উদ্দিন খান, অর্থ সম্পাদক মানিক মুনতাসির, সাংগঠনিক সম্পাদক নূরুল ইসলাম হাসিব, দফতর সম্পাদ মো. জেহাদ হোসেন চৌধুরী, নারী বিষয়ক সম্পাদক ঝর্ণা মনি, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল হক ভূঁইয়া, প্রশিক্ষণ ও গবেষণা সম্পাদক মো. মহসিন হোসেন, ক্রীড়া সম্পাদক আরাফাত দাড়িয়া, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মিজান চৌধুরী, আপ্যায়ন সম্পাদক কামাল উদ্দিন সুমন ও কল্যাণ সম্পাদক কাওসার আজম। কার্যনির্বাহী সদস্য পদে নির্বাচিত হয়েছেন আব্দুল্লাহ আল কাফি, মাহমুদা ডলি, জান্নাতুল ফেরদৌস পান্না, মো. জাফর ইকবাল, আবদুল হাই তুহিন, কামাল মোশারেফ এবং এস এম এ কালাম।   আর
ডিআরইউ সভাপতি সাইফুল সম্পাদক শুভ

পেশাদার সাংবাদিকদের সংগঠন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) কার্যনির্বাহী কমিটির বার্ষিক নির্বাচনে সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছেন সাইফুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন সৈয়দ শুকুর আলী (শুভ)। নির্বাচনে বৈশাখি টেলিভিশনের সাইফুল ইসলাম ৬০৭ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হন। আর সাধারণ সম্পাদক পদে সংবাদ সংস্থা বাসসের সৈয়দ শুকুর আলী (শুভ) ৫০২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ডিআরইউ প্রাঙ্গণে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে। পরে সন্ধ্যায় নির্বাচনের ফল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশনার একুশে টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল। এবারের নির্বাচনে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ কার্যনির্বাহী পরিষদের মোট ২১টি পদে ৩৫ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৫ প্রার্থী নির্বাচিত হন। নির্বাচনে মোট ভোটার ছিল এক হাজার ৫২১ জন। কার্যনির্বাহী কমিটির ২১টি পদের মধ্যে পাঁচটি পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। তারা হলেন, সহ-সভাপতি পদে গ্যালমান শফি, অর্থ সম্পাদক পদে মানিক মুনতাসির, নারী বিষয়ক সম্পাদক পদে ঝর্ণা মনি, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে আমিনুল হক ভূঁইয়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে মিজান চৌধুরী। বাকি ১৬টি পদের বিপরীতে ৩৬ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। সভাপতি পদে অন্য প্রার্থীদের মধ্যে এটিএন বাংলার আবু দারদা যুবায়ের (৩৪৩) ও ইন্ডিপেনডেন্ট পত্রিকার রফিকুল ইসলাম আজাদ (২৯৩) ভোট পেয়েছেন। সাধারণ সম্পাদক পদে মুরসালিন নোমানী (২৭৯), শেখ মুহাম্মদ জামাল হোসাইন (২৫৪), রেজাউল করিম (৫৪), শামছুদ্দীন আহমেদ (১৫৮) ভোট পেয়েছেন। যুগ্ম-সম্পাদক পদে ৫৪২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন দৈনিক নয়াদিগন্তের মো. মঈন উদ্দিন খান। এই পদে অমরেশ রায় (৩৫৭), হালিম মোহাম্মদ (১১৪) ও মেহেদী আজাদ মাসুম (২০৯) ভোট পেয়েছেন। সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন বিডিনিউজ ২৪ ডটকমের নুরুল ইসলাম হাসিব (৪৬১)। একই পদে বাংলাদেশের খবরের আফজাল বারী (৪১২), জিটিভির এস এম গাউসুল আজম বিপু (৩৫৯) ভোট পেয়েছেন। দপ্তর সম্পাদক পদে মো. জেহাদ হোসেন চৌধুরী (৫৮৮) ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। একই পদে মোরসালিন আহমেদ (৫০৬) ভোট পেয়েছেন। প্রশিক্ষণ ও গবেষণা সম্পাদক পদে মো. মহসিন হোসেন (৫৬২) ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। একইপদে আহমেদ সিরাজ পেয়েছেন (৪৫৯) ভোট। ক্রীড়া সম্পাদক পদে আরাফাত দাড়িয়া (৭৬৮) ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। একইপদে মাকসুদা লিসার প্রাপ্ত ভোট (৪১৮)। আপ্যায়ন সম্পাদক পদে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন কামাল উদ্দিন সুমন। তিনি পেয়েছেন ৬৮২ভোট। একই পদে সাইফুল ইসলাম মন্টু পেয়েছেন (৪১৯) ভোট। কল্যাণ সম্পাদক পদে (৭৩২) ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন কাওসার আজম। একইপদে মো. এমদাদুল হক খান (২৫১) ভোট পেয়েছেন। কার্যনির্বাহী সদস্য পদে নির্বাচিত হয়েছেন সাতজন। ক্রমানুসারে আব্দুল্লাহ আল কাফি (৮৮৭), মাহমুদা ডলি (৬৩৯), জান্নাতুল ফেরদৌস পান্না (৬০২), মো. জাফর ইকবাল (৫৪১), আব্দুল হাই তুহিন (৫৩০), কামাল মোশাররফ (৫১৪), এস এম এ কামাল (৫০৫)। একই পদে মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম (৫০১), মো. শাহাবুদ্দিন মাহতাব (৪০৮), এহসানুল হক জসীম (৩৭৭) ভোট পেয়েছেন।   আর/টিকে

সাংবাদিকদের জগলুল সম্মাননা দেওয়া হবে: খাদ্যমন্ত্রী

খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেছেন, জগলুল আহমেদ চৌধুরী শুধু একজন সাংবাদিক নন, তিনি বড় মাপের মানুষ ছিলেন। তার অকাল মৃত্যুতে আমরা শোকাহত। তার স্মরণে আগামী বছর থেকে আমরা তিনজন সাংবাদিককে জগলুল আহমেদ সম্মাননা দেবো। সেই সাথে দুই জন সাংবাদিককে ফেলোশিপ দেওয়ারও ইচ্ছা রয়েছে। এ জন্য আমরা একটি ফান্ড তৈরি করছি। বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বিশিষ্ট সাংবাদিক জগলুল আহমেদ চৌধুরীর তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী আরও বলেন, আজকে যে উদ্যোগটা আমরা নিয়েছি, তা আরও আগে নেওয়া উচিৎ ছিল। এ জন্য আমরা দুঃখিত। আমরা সবাই মিলে চেষ্টা করছি, জগলুল আহমেদ চৌধুরীর জন্য কিছু করতে। স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ১৯৫৬ সাল থেকে জগলুল আহমেদের সঙ্গে আমার সম্পর্ক। আমরা তখন ক্লাস টু`তে পড়তাম। আমাদের বন্ধুত্ব এমন ছিল, যা ভাঙ্গার সুযোগ ছিল না। কোনো দিন এ সম্পর্কে ফাটল ধরেনি। প্রতি রমজানের পর সব বন্ধুরা মিলে দু’ঘণ্টা করে আড্ডা দিতাম। এখন জগলুল নাই, সেই আড্ডাও আর হয় না। তিনি বলেন, পুরান ঢাকায় আমরা পাশাপাশিই থাকতাম। একসঙ্গেই বড় হয়েছি। তাকে নিয়ে কত স্মৃতি আছে। আজকে সে আমাদের মাঝে নেই। আমরা চেষ্টা করছি, জগলুলের যত লেখা রয়েছে সেসব নিয়ে একটি সংকলন করার। সাংবাদিকদের পুরস্কারসহ সব কিছু জগলুল আহমেদ স্মৃতি ট্রাস্টের মাধ্যমে করা হবে। আগামী বছর থেকে জগলুল সম্মাননা পুরস্কার দেওয়া হবে। গত তিন বছরে আমরা তেমন কোনো প্রোগ্রাম করতে পারি নি। এবার থেকে নিয়মিত করা হবে। স্মরণ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, প্রেসক্লাবের সভাপতি সফিকুর রহমান, ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম, সাংবাদিক শ্যামল দত্ত ও জগলুল আহমেদ পরিবারের সদস্যসহ অনেকে। অনুষ্ঠানে সবাই জগলুল আহমেদের স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন।   /ডিডি/টিকে

ডিআরইউ ‘বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন ২৯ সাংবাদিক

২৭টি ক্যাটাগরিতে মোট ২৯ জনকে ডিআরইউ ‘বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করা হয়েছে। আজ রোববার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) স্বাধীনতা হলে ‘বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড-২০১৭’ অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। বিজয়ীদের ক্রেস্ট ও নগদ পঞ্চাশ হাজার টাকা মূল্যমানের চেক তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, জুরিবোর্ডের চেয়ারম্যান শাহজাহান সরদার ও সংগঠনটির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন। পুরস্কার বিজয়ী সাংবাদিকেরা হলেন ক্রীড়া বিষয়ক প্রতিবেদনের জন্য প্রথম আলোর মাসুদ আলম, অপরাধ ও আইন-শৃঙ্খলাবিষয়ক প্রতিবেদনে প্রথম আলোর রোজিনা ইসলাম, শিক্ষায় নয়াদিগন্তের মেহেদী হাসান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে ডেইলি স্টারের মোহাম্মদ আল মাসুম মোল্লা, অবজেকটিভ ইকোনমিকে ঢাকা ট্রিবিউনের ইব্রাহিম হুসাইন, নগরীর সমস্যা ও সম্ভাবনায় ডেইলি স্টারের হেলিমুল আলম, সংসদ ও নির্বাচন বিষয়ে কালের কণ্ঠের কাজী হাফিজ, বিদ্যুৎ ও জ্বালানিতে ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেসের আজিজুর রহমান রিপন, বৈদেশিক কর্মসংস্থানে যৌথভাবে ডেইলি স্টারের শাখাওয়াত হোসেন লিটন ও ইনাম আহমেদ, স্বাস্থ্য খাতে ডেইলি স্টারের পরিমল পালমা, রাজনীতি, প্রশাসন ও বিচারব্যবস্থায় সমকালের আবু সালেহ রনি, কৃষি ও পানি ব্যবস্থাপনায় জনকণ্ঠের কাওসার রহমান, ইতিহাস ও ঐতিহ্যে মানবকণ্ঠের এম মামুন হোসেন, ব্যাংক ও পুঁজিবাজারে ভোরের কাগজের মরিয়ম মনি সেঁজুতি, নারী ও শিশু ক্যাটাগরিতে যৌথভাবে যুগান্তরের শিপন হাবীব এবং সমকালের সাজিদা ইসলাম পারুল। টেলিভিশন বিভাগে অর্থনীতি ক্যাটাগরিতে চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের ফারুক আহমেদ মেহেদী, নগরীর সমস্যা ও সম্ভাবনায় মাছরাঙা টেলিভিশনের বদরুদ্দোজা বাবু, অপরাধ ও আইনশৃঙ্খলায় ৭১ টেলিভিশনের পারভেজ নাদির রেজা, তথ্য ও যোগাযোগে এনটিভির এম এম ইসলাম মইদুল, ক্রীড়ায় এস এ টিভির শফিকুল ইসলাম শিপলু, সুশাসন ও দুর্নীতিতে ইনডিপেনডেন্টের মাহবুবুল আলম লাবলু, নারী, শিশু ও মানবাধিকারে চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের মাসউদুর রহমান, স্বাস্থ্যে এনটিভির হাসান জাবেদ। অনলাইন বিভাগে নারী, শিশু ও মানবাধিকার ক্যাটাগরিতে বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোরের সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, উন্নয়ন ও সম্ভাবনায় রাইজিং বিডির রফিকুল ইসলাম মন্টু, তথ্য, যোগাযোগ প্রযুক্তি ক্যাটাগরিতে বিজয়ী হয়েছেন জাগো নিউজের সাঈদ শিপন এবং অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে বিবিসির আহরার হোসেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাসানুল হক ইনু বলেন, গণতন্ত্র ও গণমাধ্যম একই মুদ্রার এপিঠ–ওপিঠ। এ জন্যই গণমাধ্যমকে একটি রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ বলা হয়। গণতন্ত্র যখনই বিপন্ন হয়েছে বা সংকটে পড়েছে, তখনই গণমাধ্যম তাকে উদ্ধার করেছে। এ জন্য গণমাধ্যমকর্মীদের অনুসন্ধানী ও গঠনমূলক প্রতিবেদন তৈরির আহ্বান জানান তিনি। মন্ত্রী বলেন, সরকার শিগগিরই সাংবাদিকদের জন্য নবম ওয়েজবোর্ড ঘোষণা করতে যাচ্ছে। /ডিডি/

নবীন সদস্যদের বরণ করলো ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি

নতুন সদস্যদের আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করেছে পেশাদার সাংবাদিকদের সংগঠন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ)। শনিবার বিকালে ডিআরইউ’র সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ১৯২ সাংবাদিককে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন সংগঠনের বর্তমান ও সাবেক নেতাকর্মীরা। ডিআরইউর সাংগঠনিক সম্পাদক জিলানী মিলটনের সভাপতিত্বে নবীন-বরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা, সাধারণ সম্পাদক মুসালিন নোমানী, দফতর সম্পাদক নয়ন মুরাদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনা করেন কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য হাবীবুর রহমান। সাখাওয়াত হোসেন বাদশা বলেন, ২২ বছরের শ্রম ও মেধায় ডিআরইউ আজ এ পর্যায়ে এসেছে। এটি একটি সুশৃঙ্খল সংগঠন। এটি গঠনতন্ত্র মেনে চলে। আশা করি আপনারাও গঠনতন্ত্র অনুযায়ী চলবেন। তিনি বলেন, আমরা ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্য, এ বিষয়টি মাথায় রেখেই পেশাগত দক্ষতা বাড়ানোর দিকে দৃষ্টি দিতে হবে। মুরসালিন নোমানী বলেন, ১৯৯৫ সালে ২৬ মে এ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) প্রতিষ্ঠা পায়। সে হিসেবে আমাদের প্রাণের এ সংগঠন এখন পরিপূর্ণ যৌবনে পদার্পণ করেছে। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এটি অরাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে এগিয়ে যাচ্ছে। সামনের দিনগুলোতে একতা নিয়েই আমরা এগিয়ে যেতে চাই।   আর/টিকে

বিশ্ব টেলিভিশন দিবসে প্রডিউসার্স অ্যাসোসিয়েশনের আনন্দ সমাবেশ

বিশ্ব টেলিভিশন দিবস উদযাপন করলো টেলিভিশন প্রডিউসার্স অ্যাসোসিয়েশন-টিপিএ। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় একুশে টেলিভিশনের সামনে থেকে টিপিএ’র উদ্যোগে আনন্দ র‌্যালী বের হয়ে এফডিসি পর্যন্ত সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে কারওয়ান বাজারস্থ সার্ক ফোয়ারায় এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত  হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন টেলিভিশন ক্যামেরাপারসন অ্যাসোসিয়েশন-টিসিএর সভাপতি তানভীর হোসেন, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া মার্কেটিং অ্যাসোসিয়েশন-ইমমা’র প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক মনিরুল ইসলাম মনি, ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট ও উপস্থাপক মঞ্জুরুল আলম পান্না, ভিডিও এডিটর অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য শওকত আলী রানা, আলী হাসান রুপম, টেলিভিশন প্রডিউসার্স অ্যাসোসিয়েশন-টিপিএ’র সংগঠক কামরুজ্জামান রঞ্জু, জিটিভি’র নির্বাহী প্রযোজক অনন্ত জাহিদ, নাগরিক টিভির উষ্ণীষ চক্রবর্তী, এনটিভি’র প্রযোজক মৃণাল দত্ত, দীপ্ত টিভি’র প্রযোজক সাইদুর রহমান পাভেল, এটিএন বাংলার সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার আসলাম শিকদার, সময় টিভি’র প্রযোজক ইসরাফিল শাহীন, এশিয়ান টিভি’র প্রযোজক বাবুল আখতার, চ্যানেল টুয়েন্টি ফোরের প্রযোজক শামীম আহসান, বাংলা টিভি’র প্রযোজক শাওন রায় চৌধুরী, একুশে টিভি’র প্রযোজক সোহাগ মাসুদ, চ্যানেল নাইনের প্রযোজক সাজ্জাদ শুভ, যমুনা টিভি’র প্রযোজক সরকার পাপ্পু, একাত্তর টিভির প্রযোজক আরিফুর রহমান, আরটিভি’র প্রযোজক আমীর খসরু, ইনডিপেন্ডেন্ট টিভির প্রযোজক রাশেদুল আহসান, প্রযোজক ও নাট্য নির্মাতা দীপু হাজরা, দুরন্ত টিভির আরাফাত সেতু, নিউজ টুয়েন্টিফোরের মেহমুদ খোকন, এসএ টিভি’র প্রযোজক রেজা করিম রেজা, মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের প্রযোজক কাজী জাহিদ, প্রযোজক বিকাশ সরকার, কাজী চপল ও মাসুদুল হাসান রনি প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা অবিলম্বে জাতীয় সম্প্রচারনীতিমালা বাস্তবায়নের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান। বিশ্ব টেলিভিশন দিবসে টিপিএ সকল শিল্পী, কলাকুশলী, বিজ্ঞাপনদাতা ও দর্শকদের শুভেচ্ছা জানান। / এআর /

উৎপল দাসের সন্ধানে সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিবৃতির দাবি

গত ৪১ দিন ধরে নিখোঁজ থাকলেও তরুণ সাংবাদিক উৎপল দাসকে উদ্ধার করতে পারেনি আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। এবার তার সন্ধান চেয়ে সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের বিবৃতি দাবি করেছেন জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান (সুনামগঞ্জ-৪)। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের ১৮তম অধিবেশনে আজ সোমবার সন্ধ্যায় পয়েন্ট অব ওর্ডারে দাঁড়িয়ে এ দাবি জানান তিনি। পীর ফজলুর রহমান বলেন, ‌`গত দুই মাসে ১০ জন মানুষ নিখোঁজ হয়েছে। এরমধ্যে একজন মাত্র ফেরৎ এসেছে বলে পত্রিকায় খবর বেরিয়েছে। সাংবাদিক উৎপল দাস এক মাসের অধিককাল নিখোঁজ রয়েছেন। কিন্তু আইন শৃঙ্খলা বাহিনী তাকে উদ্ধার করতে পারছে না। একজন মানুষ যদি নিখোঁজ হয়, তা বের করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। ওই ব্যক্তি যদি কোন আইনের পরিপন্থি কাজ করেন, তা হলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রয়োগ করা যেতে পারে। কিন্তু একটা তরুণ সাংবাদিক এক মাসের অধিক নিখোঁজ, কিন্তু আমাদের আইন শৃঙ্খলা বাহিনী তাকে উদ্ধার করতে পারে না, এটি বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে হয় না। আমি এই মহান সংসদে এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর ৩০০ বিধিতে বিবৃতি দাবি করছি।` পূর্ব-পশ্চিম অনলাইন পোর্টালে কর্মরত সাংবাদিক উৎপল দাস গত ১০ অক্টোবর নিখোঁজ হন। ওই দিন দুপুরে রাজধানীর মতিঝিলে অফিস থেকে বের হওয়ার পর আর বাসায় ফিরেন নি। ওইদিন থেকে তার ব্যবহার করা মোবাইল নম্বরও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। নিখোঁজের ১২ দিন পর তার সন্ধান চেয়ে মতিঝিল থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে অনলাইন পোর্টাল কর্তৃপক্ষ। পরের দিন আরেকটি জিডি করেন সাংবাদিক উৎপলের বাবা চিত্তরঞ্জন দাস। উল্লেখ্য, এর আগে উৎপল দাস দৈনিক যায়যায়দিন, ভোরের পাতা সহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে কাজ করেছেন।   /ডিডি/টিকে

পূর্বকোণ সম্পাদক তসলিম উদ্দিন চৌধুরী আর নেই

চট্টগ্রামের দৈনিক পূর্বকোণ সম্পাদক স্থপতি তসলিম উদ্দিন চৌধুরী আর নেই। তিনি বুধবার সকাল পৌনে ৭টায় ঢাকার ধানমন্ডি রেনেসাঁ হাসপাতাল অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। তিনি দীর্ঘদিন ধরে দুরারোগ্য ব্যাধিতে ভুগছিলেন। বুধবার বাদ এশা নাসিরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নামাজে জানাজা শেষে তাকে রাউজান উপজেলা সদরের হাজীবাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৪ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে, এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। রোববার (১২ নভেম্বর) রাত ১২টায় শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে প্রথমে নগরীর সিএসসিআর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সোমবার রাত ২টায় তাকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়। একদিন পর বুধবার সেখানে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তসলিম উদ্দিন চৌধুরী দৈনিক পূর্বকোণ এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মরহুম মোহাম্মদ ইউসুফ চৌধুরী ও মরহুমা জহুরা বেগম চৌধুরীর বড় ছেলে। তার অপর দুই ভাইয়ের মধ্যে জসিম উদ্দিন চৌধুরী দৈনিক পূর্বকোণ-এর প্রকাশক ও পরিচালনা সম্পাদক এবং ডা. ম. রমিজ উদ্দিন চৌধুরী নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। মরহুম তসলিম উদ্দিন চৌধুরী ১৯৫৪ সালের ১ জানুয়ারি নগরীর আন্দরকিল্লার রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতালে (সাবেক মেটারনিটি হাসপাতাল) জন্মগ্রহণ করেন। স্থপতি তসলিম উদ্দিন চৌধুরী জীবদ্দশায় তিনি চিটাগাং স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেডের পরিচালক, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) নগর উন্নয়ন কমিটির সদস্য, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য, চিটাগাং মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ স্থপতি ইন্সটিউট চট্টগ্রাম চাপ্টারের সাবেক সভাপতি ছাড়াও বহু শিক্ষা, সামাজিক, বাণিজ্যিক সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন।   এসএইচ/ এআর

ঢাকাস্থ গাজীপুর সাংবাদিক ফোরামের কমিটি গঠিত

রাজধানী ঢাকায় কর্মরত গাজীপুর জেলার সাংবাদিকদের নিয়ে ‘গাজীপুর সাংবাদিক ফোরাম’-এর আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর কারওয়ান বাজারের একটি রেস্তোরাঁয় এ কমিটি গঠন করা হয়। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের ফয়সাল আলমকে আহ্বায়ক ও দৈনিক দিনকালের রাশেদুল হককে সদস্য সচিব করে নয় সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- শেখ মঞ্জুর বারী মঞ্জু (দৈনিক উন্নয়ন বার্তা), আনিছুর রহমান তপন (দৈনিক আমাদের অর্থনীতি), মাসুদ আলম (দৈনিক আমাদের অর্থনীতি), কামরুন্নাহার (ফিন্যন্সিয়াল এক্সপ্রেস), সোহেল মামুন (ঢাকা ট্রিবিউন), এস এম নূর মোহাম্মদ (দৈনিক আমাদের অর্থনীতি) ও সাইফুল ইসলাম (সরাসরি)। আহ্বায়ক কমিটি আগামী তিন মাসের মধ্যে একটি সাধারণ সভার মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করবেন বলে সভায় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন-সিনিয়র সাংবাদিক শেখ মঞ্জুর বারী মঞ্জু।   টিকে  

ডিআরইউ পারিবারিক ক্রীড়া উৎসবের পুরস্কার বিতরণী

দ্বিতীয়বারের মতো আয়োজিত ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) ‘পারিবারিক ক্রীড়া উৎসব-২০১৭’-এ বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে। এ সময় ইনডোর গেমসেরও উদ্বোধন করা হয়। পুরস্কার বিতরণ ও ইনডোর গেইমসের উদ্বোধন উপলক্ষে ডিআরইউ সাগর-রুনী মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে সভাপত্বি করেন সংগঠনের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মুরসালিন নোমানী। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. শ্রী বীরেন শিকদার এমপি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডিআরইউ’র ক্রীড়া সম্পাদক মো. মজিবুর রহমান। প্রধান অতিথির ড. শ্রী বীরেন শিকদার বলেন, অতীতের মত ডিআরইউ’র ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আয়োজনে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ ও মন্ত্রণালয় থেকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে। এবারের আয়োজনটি সত্যিই প্রশংসা পাওয়ার যোগ্য। ডিআরইউ আয়োজিত সকল ক্রীড়া প্রতিযোগিতার সাফল্য কামনা করে তিনি ভবিষ্যতেও সব ধরনের সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন। ডিআরইউ’র সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা বলেন, এ বছর আমরা দ্বিতীয়বারের মত সাঁতার প্রশিক্ষণ, পারিবারিক ক্রীড়া উৎসব, মিডিয়া কাপ হ্যান্ডবল টুর্নামেন্ট ও মিডিয়া কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করেছি। এবার আমরা প্রথমবারের মত মিডিয়া কাপ ভলিবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করতে যাচ্ছি। সাধারণ সম্পাদক মুরসালিন নোমানী বলেন, ডিআরইউ’র সফল ক্রীড়া সম্পাদকের নেতৃত্বে আমরা বেশ কয়েকটি ইভেন্ট সফলভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছি। ভবিষ্যতে ডিআরইউর ক্রীড়া কার্যক্রমে একটি ভিন্নমাত্রা যোগ করতে চাই। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখনে ক্রীড়া সম্পাদক মো. মজিবুর রহমান। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বিভাগে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এছাড়া ইনডোর গেইমসের উদ্বোধন করা হয়। এতে অন্যদের মধ্যে উপস্থতি ছিলেন ডিআরইউ অর্থ সম্পাদক মানিক মুনতাসির, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ জিলানী মিলটন, নারী বিষয়ক সম্পাদক দিনার সুলতানা, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মিজান চৌধুরী, আপ্যায়ন সম্পাদক কামাল উদ্দিন সুমন, ক্রীড়া উপ-কমিটির সদস্য সচিব হাফিজ আল আসাদ (সাঈদ খান), কার্যনির্বাহী সদস্য সাখাওয়াত হোসেন সুমন ও মাইনুল হাসান সোহেল, ক্রীড়া উপ-কমিটির সদস্য কাজী শহীদুল আলম ও সাহাবউদ্দিন সাহাব।   প্রেস বিজ্ঞপ্তি / এমআর / এআর

বাংলাদেশের সাংবাদিক হত্যাকারীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে : সিপিজে

বাংলাদেশে সাংবাদিক ও ব্লগারদের হত্যাকারীরা এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে। গত এক দশকে বাংলাদেশে সাত সাংবাদিক নিহত হলেও মাত্র একটি মামলায় সাজা হয়েছে হত্যাকারীদের। বাকি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশ কোনো অভিযোগ এখন পর্যন্ত গঠন করতে পারেনি। গতকাল মঙ্গলবার প্রকাশিত ১০ম গ্লোবাল ইমপিউনিটি ইনডেক্স-২০১৭ শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্টস (সিপিজে)। সিপিজের প্রতিবেদন অনুসারে, সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় সূচকে দশম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। শীর্ষে রয়েছে সোমালিয়া। ভারত রয়েছে ১২তম অবস্থানে। আর পাকিস্তানের অবস্থান সপ্তম। প্রতিবেদন অনুসারে, গত এক দশকে ৭ সাংবাদিক প্রাণ হারিয়েছেন। এসব হত্যাকাণ্ডে চরমপন্থী ও অপরাধী গোষ্ঠী জড়িত। হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন সেক্যুলার ব্লগার ও মাদক পাচার নিয়ে প্রতিবেদন করা সাংবাদিকরা। তদন্তের অগ্রগতি হিসেবে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছর নভেম্বর মাসে পুলিশ জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের এক সদস্যকে গ্রেফতার করে। ওই সদস্য দুই ব্লগার নিলয় নীল ও ফয়সাল আরেফিন দীপন হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। ২০১৫ সালের পর থেকে ব্লগার ও সম্পাদকদের উপর হামলার ঘটনায় বেশ কয়েকজন সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুধু ২০১৩ সালে নিহত আহমেদ রাজিব হায়দার হত্যা মামলায় ক্ষেত্রে হত্যাকারীদের সাজা হয়েছে। সিপিজের প্রতিবেদনে ২০১৫ সালে ব্লগার অভিজিৎ রায় হত্যাকাণ্ডের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। বলা হয়েছে, বেশ কয়েকজন সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করা হলেও কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়নি। দীর্ঘ দিন ধরে গৃহযুদ্ধ কবলিত সোমালিয়ায় গত এক দশকে দুই ডজন সাংবাদিক হত্যা করা হয়েছে। ৬ বছরের গৃহযুদ্ধে সিরিয়া সাংবাদিক নির্যাতনে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইরাক। গত কয়েক বছর আফগানিস্তানের নাম প্রথমদিকে থাকলেও এবার দেশটির নাম নেই।   এমআর/ডব্লিউএন

নতুন প্রত্যয়ে অষ্টম বছরে পদার্পণ করলো ডেইলি সান

সংবাদ প্রকাশে ‘নতুনত্ব’ আনার প্রত্যয়ে প্রকাশনার সপ্তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করছে দেশের অন্যতম ইংরেজি সংবাদপত্র ‘ডেইলি সান’। আজ (মঙ্গলবার) ২৪ অক্টোবর অষ্টম বছরে পদার্পণ করেছে সংবাদপত্রটি। দুদিনের বিশেষ আয়োজন ও বর্ধিত কলবরে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ক্রোড়পত্র প্রকাশনার মাধ্যমে বর্ষপূর্তি উদযাপন করছে গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানটি। ২০১০ সালের ২৪ অক্টোবর আত্মপ্রকাশ করে ডেইলি সান। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় পত্রিকার প্রধান কার্যালয়ে দিনভর শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। দৈনিকটি প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিশেষ বার্তায় শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আব্দুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, গৃহায়নমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা,বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব বরকতুল্লাহ বুলু,সমকাল সম্পাদক গোলাম সরওয়ার,বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম,বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার প্রধান সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ,জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন,নাগরিক ঐক্য আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না প্রমুখ। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন,বর্তমান সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে। বর্তমান সরকারের মেয়াদের সাংবাদিকদের জন্য অষ্টম মজূরী কাঠামো ঘোষণা করেছে। তথ্য মন্ত্রনালয়ের পক্ষ থেকে নবম ওয়েজবোর্ডের খসড়া প্রস্তুত করা হয়েছে। মালিক পক্ষের সাথে আলোচনা চলছে। খুব শীঘ্রই নবম ওয়েজবোর্ড ঘোষণা করা হবে। গৃহায়নমন্ত্রী মোশারফ হোসেন বলেন,বাংলাদেশের ইংরেজি সংবাদপত্র জগতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে ডেইলি সান। ইতিবাচক ও গঠনমুলক সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে নির্ভিক সাংবাদিকরার নিদর্শন স্থাপন করেছে কাগজটি। বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী বলেন, দেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশ তৈরীতে মুখ্য ভুমিকা পালন করছে সংবাদপত্র।ডেইলি সান গত সাত বছর ধরে সাধারণ মানুষের মুখপত্র হিসেবে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছে। ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেন, বাংলাদেশের মুখপাত্র হিসেবে ডেইলি সান আমাদের কাছে নিয়মিত বস্তুনিষ্ঠ খবর পরিবেশন করছে। বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার প্রধান সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ বলেন, বাংলাদেশের ইংরেজি সংবাদপত্র জগতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে ডেইলি সান। সাধারণ মানুষের অন্তর্ভুক্তি মুলক প্রতিবেদন এই কাগজটিকে অন্যদের থেকে আলাদা করে তুলেছে। সাধারন মানুষের অংশগ্রহনের ডেইলি সানের প্রতিবেদন আরো শক্তিশালী হবে বলে আশা করছি। এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় পত্রিকাটির কার্যালয়ে কেক কাটার মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আয়োজনের সূচনা করেন গণমাধ্যমটির মালিকানা প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফিয়াত সোবহান ও সাফওয়ান সোবহান। ডেইলি সানের সম্পদক এনামুল হক চৌধুরী বলেন- দেশের সংবাদপত্র জগতে বস্তুনিষ্ট সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে ডেইলি সান গত সাত বছরে পাঠকের মনে স্থান করে নিয়েছে।প্রযুক্তির সম্প্রসারণের সাথে সাথে ডেইলি সানের সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রেও প্রযুক্তি নির্ভরতা বেড়েছে। সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন সম্পাদক বলেন, ডেইলি সানকে আরও সমৃদ্ধ করার মধ্য দিয়ে দেশের শীর্ষ ইংরেজি পত্রিকার স্থানে নিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যেই তিনি কাজ করছেন। ডেইলি সানের নির্বাহী সম্পাদক শিয়াবুর রহমান বলেন, ইংরেজি ভাষার মুদ্রিত সংস্করনের পাশাপাশি ইন্টারনেটে বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে দ্বিভাষিক মাধ্যমে হিসেবে সংবাদ প্রকাশের কলেবর বাড়িয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।   / কে আই

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি