ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭ ৪:১৪:৩২

‘রোহিঙ্গাদের নির্যাতন মানবতাবিরোধী অপরাধ’

‘রোহিঙ্গাদের নির্যাতন মানবতাবিরোধী অপরাধ’

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ মানবতার এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশে সফররত কানাডার আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রী ম্যারি ক্লদ বিবেয়্যু। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে যেভাবে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ অন্যান্য মৌলিক অধিকার হরণ করা হয়েছে তা মানবতাবিরোধী অপরাধ। বৃহস্পতিবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাতে তিনি এ সব কথা বলেন। ম্যারি ক্লদ আরও বলেন, রোহিঙ্গাদের মানবেতর জীবন যাপন সরেজমিনে পরিদর্শন করেছি। তাদের আশ্রয় দিয়ে এ দেশ বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের শান্তিপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের ক্ষেত্রে জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া পাঁচ দফা বাস্তবায়নে কানাডা সব সময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে। পাশাপাশি বঞ্চিত রোহিঙ্গা নারী ও শিশুদের সার্বিক উন্নয়নে কানাডা সরকার ২৫ মিলিয়ন ডলার অনুদান দিয়েছে। এটা রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মানবিক অধিকার নিশ্চিত করতে সহায়তা করবে। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, রোহিঙ্গারা দরিদ্র জনগোষ্ঠী। মানবিক সাহায্যে তাদের পাশে আসায় তিনি কানাডা সরকারকে ধন্যবাদ জানান। সাক্ষাৎকালে তারা দ্বি-পাক্ষিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা করেন। সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত ৬৩তম কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি কনফারেন্স (সিপিসি), রোহিঙ্গা ইস্যু, টেকসই উন্নয়ন ও নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়।   আর/টিকে
মুম্বাই হামলার মাস্টারমাইন্ড হাফিজ সাঈদের মুক্তি

মুম্বাই হামলার মাস্টারমাইন্ড ‘জামায়াত-আত-দাওয়ার’ অন্যতম সদস্য হাফিজ সাঈদকে মুক্তি দিয়েছে পাকিস্তানের একটি আদালত। গত বুধবার পাকিস্তানের সর্বোচ্চ আদালত এই রায় দেয়। গত বছর হাফিজ সাঈদের বিচারকার্য্ শুরু করে দেশটির সর্বোচ্চ আদালত। এর আগে গত বছরের অক্টোবরে হাফিজকে গ্রেফতার করে পুলিশ। যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত জামায়াত-আত-দাওয়াকে পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার অঙ্গসংঠন বলে দাবি করে আসছে। একইসঙ্গে  ২০০৮ সালে ভারতে মুম্বাই হামলার জন্য সংগঠনটিকে দায়ী করে আসছে ভারত। উল্লেখ্য, ওই হামলায় কমপক্ষে ১৬০ জন বেসামরিক লোক নিহত হন, আহত হন এক হাজারেরও বেশি মানুষ। সূত্র: আলজাজিরা এমজে/এআর

২ মাসের মধ্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তন শুরু

রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর বিষয়ে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। আজ দুপুর ২টার দিকে মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোতে দেশটির রাষ্ট্রীয় পরামর্শক ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী সু চির দলীয় কার্যালয়ে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তিতে দুই মাসের মধ্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনের কাজ শুরু করার কথা বলা হয়েছে। তবে এটি কবে নাগাদ শেষ হবে সে বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। এর আগে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী এবং মিয়ানমারের পক্ষে সু চি প্রায় ৪৫ মিনিট বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে বাংলাদেশের পক্ষে এ এইচ মাহমুদ আলী এবং মিয়ানমারের পক্ষে কাইয়ো থিন সোয়ে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী জানান, শিগগির রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু করবে মিয়ানমার। এই চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে প্রথম ধাপের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন দ্বিতীয় ধাপের কাজ শুরু হবে। উল্লেখ্য, গত ২৫ আগস্ট থেকে মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে সহিংসতার শিকার হয়ে এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ছয় লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। তাদের কক্সবাজারে অস্থায়ী শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় দেওয়া হয়েছে।   সূত্র : ইউএনবি / এমআর / এআর

গণতন্ত্রের বিকাশ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে প্রথম কাজ: নানগাওয়া

সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবের অবসানের পর দায়িত্ব নিতে যাওয়া নতুন প্রেসিডেন্ট এমারসন নানগাওয়া বলেছেন, গণতন্ত্রের বিকাশ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিই হবে তার প্রথম কাজ। গতকাল দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দেশে ফিরে জিম্বাবুয়ের রাজধানী হারারেতে সমর্থকদের উদ্দেশে দেওয়া এক ভাষণে নানগাওয়া এ মন্তব্য করেন। এছাড়া অভ্যুত্থানে নেতৃত্ব দেওয়ায়  জিম্বাবুয়ের প্রতিরক্ষা বাহিনীকে ধন্যবাদ জানান তিনি। দেশের পুনর্গঠনে জনগণের সহযোগিতা চেয়ে তিনি বলেন, ‍‍‍আমরা জিম্বাবুয়েকে নতুনভাবে সাজাতে চাই, এতে আপনাদের সহযোগিতা দরকার। অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি-ই হবে আমাদের প্রথম অর্জন। এর জন্য আমাদের দরকার-কাজ, কাজ আর কাজ। উল্লেখ্য, আগামী শুক্রবারই দেশটির নতুন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন এমারসন নানগাওয়া । নানগাগওয়া আরও বলেন, আমি আপনাদের সেবক হওয়ার অঙ্গীকার করছি। আমরা সবাই একসঙ্গে কাজ করবো। এখানে কেউই কারো চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ নন। সব জিম্বাবুইয়ানদের একতাবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, মনে রাখবেন আমাদের পরিচয় একটাই- আমরা জিম্বাবুয়ের নাগরিক।  এসময় তিনি আরও বলেন, জিম্বাবুয়েতে আমরা শান্তি ফিরিয়ে আনতে চাই। দেশে বেকারত্বের হার স্মরণকালের ভয়াবহ অবস্থায় পৌছেছে দাবি করে তিনি বলেন, আমাদের প্রধান সমস্য বেকারত্ব। নাগরিকদের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টিই হবে আমার প্রথম কাজ। এর আগে গত বুধবার দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দুই সপ্তাহের ফেরারি জীবন শেষে দেশে ফেরেন প্রবীণ এই রাজনীতিক। সূত্র: বিবিসি / এমজে / এআর          

‘বসনিয়ার কসাই’ ম্লাদিচের যাবজ্জীবন

‘বসনিয়ার কসাই’ খ্যাত সাবেক বসনিয়ান সার্ব কমান্ডার রাতকো ম্লাদিচকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। যুগোস্লাভিয়ায় যুদ্ধাপরাধ তদন্তে গঠিত জাতিসংঘের ট্রাইব্যুনাল এ রায় দেয়। বসনিয়া ও হার্জেগোভিনার পূর্বাঞ্চলীয় ছোট পার্বত্য শহর স্রেব্রেনিৎসায় গণহত্যা ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের দায়ে ম্লাদিচকে গতকাল বুধবার এ সাজা দেওয়া হয়। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে জানা যায়, ম্লাদিচের বিচারের এ রায়ের মাধ্যমে বিশেষ এ ট্রাইব্যুনাল যুগোস্লাভিয়ায় যুদ্ধাপরাধের বিচার শেষ করল। এটিই ছিল ট্রাইব্যুনালের শেষ রায়। ট্রাইব্যুনাল বলেছে, ১৯৯০-এর দশকের গোড়ার দিকে স্রেব্রেনিৎসায় সামরিক সংঘাতের সময় হাজার হাজার বসনিয়ান মুসলিমের গণহত্যা সংঘটিত করতে চেয়েছিলেন রাতকো ম্লাদিচ। সারায়েভোতে বোমা বর্ষণের ক্ষেত্রেও রাতকো ম্লাদিচ ব্যক্তিগতভাবে সেই বোমা ফেলার নির্দেশ দিয়েছিলেন বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।  নিজের উচ্চ রক্তচাপের কথা বলে রাতকো ম্লাদিচ আদালতের শুনানি বন্ধ করার জন্য দাবি জানিয়েছিলেন। তবে সেই ট্রাইব্যুনাল কান দেয়নি।

বাংলাদেশ-মিয়ানমার সমঝোতা চুক্তি হতে পারে আগামীকাল

সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য ছেড়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে বাংলাদেশ এবং মিয়ানমারের মধ্যে আগামীকাল বৃহস্পতিবার সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বুধবার মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দফতরের কর্মকর্তা কিয়াও টিন্ট সুয়ের সঙ্গে আলাপের পর বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, `দুই দেশের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। সমঝোতা স্মারক সইয়ের প্রক্রিয়ার বিষয়ে ঢাকা-নেপিদো প্রায় কাছাকাছি পর্যায়ে পৌঁছেছে। আশা করছি, বৃহস্পতিবারের বৈঠকে এ বিষয়ে চূড়ান্ত ফলাফল আসবে।` এর আগে সকালে মিয়ানমারের নেপিদোতে এ সংক্রান্ত বৈঠক শুরু হয়। বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে সমঝোতা স্মারকের শর্তগুলো ঠিক করা হয়। এ সময় পররাষ্ট্রসচিব মুহাম্মদ শহিদুল হক, মিয়ানমারে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ সুফিউর রহমান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। আগামীকাল বৃহস্পতিবার অং সান সু চির সঙ্গে এ ব্যাপারে চূড়ান্ত আলোচনা করবেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।   ডিডি/টিকে

বসনিয়ার ‘কসাইয়ের’ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

গণহত্যা ও মানবতা-বিরোধী অপরাধের দায়ে বসনিয়ার সার্ব বাহিনীর সাবেক সামরিক কমান্ডার রাতকো ম্লাদিচকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে প্রাক্তন যুগোস্লাবিয়ার জন্য গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। খবর এএফপি। ট্রাইব্যুনাল বলেছে, ১৯৯০ দশকের গোড়ার দিকে স্রেব্রেনিৎসায় সামরিক সংঘাতের সময় হাজার হাজার বসনীয় মুসলিমের গণহত্যা সংঘটিত করতে চেয়েছিলেন রাতকো ম্লাদিচ। বিশ্বব্যাপী এ জন্য তিনি বসনিয়ার ‘কসাইয়’ নামে পরিচয় লাভ করেন। সারায়েভোতে বোমাবর্ষণের ক্ষেত্রেও রাতকো ম্লাদিচ ব্যক্তিগতভাবে নির্দেশ দিয়েছিলেন বলে চেম্বার প্রমাণ পেয়েছে। ম্লাদিচর বিরুদ্ধে এই রায় পড়া শুরু হওয়ার আগে ম্লাদিচকে আদালত কক্ষ থেকে বের করে নিয়ে যেতে হয়। এর আগে নিজের উচ্চ রক্তচাপের যুক্তি দিয়ে রাতকো ম্লাদিচ আদালতের শুনানি বন্ধ করার দাবি জানাচ্ছিলেন, কিন্তু ট্রাইব্যুনাল তা আমলে নেয়নি। এদিকে জাতিসংঘ ম্লাদিচের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতের এ রায়কে ন্যায়ের ঐতিহাসিক বিজয় হিসেবে অভিনন্দন জানিয়েছে। জাতিসংঘ ম্লাদিচকে ‘সাক্ষাৎ শয়তান’ বলে অভিহিত করে। জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধান জাইদ রা’দ আল হুসেইন এক বিবৃতিতে বলেছেন, এ রায় এ ধরনের অপরাধ সংঘটনকারীদের জন্য একটি সতর্কবার্তা যে, ‘তারা যতো ক্ষমতাধরই হোক বা যতো দিনই লাগুক তাদের বিচার হবেই। তাদের বিচারের সম্মুখীন হতে হবেই। ১৯৯৫ সালে যুদ্ধাপরাধে অভিযোগ ওঠার পর থেকে পালিয়ে ছিলেন ম্লাদিচ। তবে ২০১১ সালের মে মাসে সার্বিয়ার উত্তরাঞ্চল থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাঁকে বিচারের মুখোমুখি করার জন্য লেদারল্যান্ডের হেগের আদালতে পাঠানো হয়।   টিকে

কলকাতায় সংবর্ধিত হবেন ৩০ মুক্তিযোদ্ধা

বিজয় দিবস উপলক্ষে কলকাতায় ৩০ জন মুক্তিযোদ্ধা ও ছয়জন সেনা কর্মকর্তাকে সংবর্ধনা দেওয়া হবে। ভারতের ইস্টার্ন কমান্ড সদর দপ্তরে ১৪ থেকে ১৮ ডিসেম্বর এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হবে। বুধবার (২২ নভেম্বর) সচিবালয়ে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বের হয়ে ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা এ কথা জানান। সাক্ষাৎকালে তিনি বাংলাদেশি মুক্তিযোদ্ধা প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিতে গণপূর্ত মন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান। এ সময় মন্ত্রী তার আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন বলেও জানান তিনি। হর্ষবর্ধন শ্রিংলা জানান, প্রতি বছর ভারতের ইস্টার্ন কমান্ড বাংলাদেশের বিজয় দিবসে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনার আয়োজন করে থাকে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে সহযোগিতা করতে পেরে তার দেশ গর্বিত। এ সময় গণপূর্ত মন্ত্রী বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারত সরকারের অবদানের কথা কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন। তিনি বলেন, এত বিপুলসংখ্যক শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়ে সে দিন ভারত সরকার মহানুভতার পরিচয় দিয়েছে।   সূত্র : বাসস ডিডি/টিকে

সেই নানগাওয়া-ই জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট

যাকে ভাইস-প্রেসিডেন্টের পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছিলেন জিম্বাবুয়ের সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে, সেই এমারসন নানগাওয়া-ই তার উত্তরসূরী হতে যাচ্ছেন। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী শুক্রবারই প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন জিম্বাবুয়ের স্বাধীনতার আরেক মহানায়ক এমারসন নানগাওয়া। এ উপলক্ষে বুধবার তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে। ভাইস-প্রেসিডেন্টের পদ থেকে বহিস্কারের পর নানগাওয়া দক্ষিণ কোরিয়ায় আশ্রয় নেন। দক্ষিণ কোরিয়া থাকাকালে চীনসহ বিদেশি মিত্রদের সঙ্গে তার ফোনালাপ হয়েছে বলেও একটি সূত্র দাবি করেন। জিম্বাবুয়ের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশ এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানানো হয়েছে। জিম্বাবুয়ের ব্রডকাস্টিং করপোরেশন বিষয়টি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছে। নানগাওয়ার বহিস্কারাদেশের পরই সেনাবাহিনীসহ মুগাবের নিজ দল, বিরোধী দল ও জনসাধারণের তোপের মুখে পড়েন মুগাবে। এর পরই সেনাবাহিনীর তরফ থেকে ক্ষমতা ছাড়তে তাকে ক্রমাগত চাপ দেওয়া হয়। কিন্তু ক্ষমতায় ঠিকে থাকতে অনঢ় এই প্রবীণ নেতা শেষে অভিশংসনের চেয়ে পদত্যাগকেই বেঁছে নিলেন। অবশেষে মঙ্গলবার ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন ৯৩ বছর বয়সী এই নেতা। ক্ষমতাসীন দল জানু পিএফ পার্টির তরফ থেকে জানানো হয়েছে আগামী নির্বাচনের আগ পর্য্ন্ত নানগাওয়া-ই প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করবেন। জানু পিএফ এর এক মুখপাত্র দাবি করেন, বর্তমান সংসদের বাকি সময় দায়িত্ব পালন করবেন ৭১ বছর বয়সী নানগাওয়া। এদিকে এক বিবৃতিতে জিম্বাবুয়েকে পুনর্গঠিত করতে তার নাগরিকদের এক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ক্রুকুডাইল খ্যাত নানগাওয়া। সূত্র: বিবিসি এমজে/এসএইচ          

একজন টাইপিস্ট থেকে ফার্স্ট লেডি হয়ে উঠার গল্প

পদত্যাগ করেছেন জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে। জনরোষ আর বিক্ষোভের মুখে অবশেষে পদত্যাগই করতে হয়েছে ৩৭ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা প্রবীণ এই নেতাকে। তবে পদত্যাগের পরও তার প্রতি সম্মান দেখাবে জিম্বাবুয়ের সামরিক বাহিনীসহ সাধারণ নাগরিকরা, এমনই ঘোষণা দিয়েছে তারা। তবে রুখে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন গ্রেস মুগাবেকে। কেই এই গ্রেস মুগাবে ? কিভাবে একজন টাইপিস্ট থেকে ফার্স্ট লেডি হয়ে উঠলেন তিনি ? কেনই বা তাঁর বিরুদ্ধে জনতার এই রোষ আসুন জেনে নিই- ৫২ বছর বয়সী গ্রেস মুগাবের ক্ষমতা লিপ্সাই জিম্বাবুয়ের সামরিক অভ্যুত্থানের মূল কারণ হিসেবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। ১৯৯৬ সালে প্রেসিডেন্ট মুগাবেকে বিয়ের পর থেকেই ক্ষমতায় আসার লিপ্সা পেয়ে বসে। শুধু তাই নয়, মুগাবের পরবর্তী উত্তরসূরি হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে দলের মধ্যে শুরু করেন ষড়যন্ত্র। মুগাবের কাছ থেকে দূরে সরিয়ে দেন সাবেক উপ-রাষ্ট্রপতি নানগাওয়াকে। শুধু তাই নয়, নানগাওয়ার স্থলাভিষিক্ত হওয়ার জন্য ক্রমাগত মুগাবেকে চাপ দিতে থাকেন। অতঃপর উপ-রাষ্ট্রপতি পদ থেকে তাকে বহিস্কার করান। ১৯৮৬ সালে মুগাবের সঙ্গে প্রেম শুরু করার পূর্বে গ্রেস স্টেট হাউজে একজন টাইপিস্টের কাজ করতেন। ১৯৯২ সালে মুগাবের স্ত্রী মারা যাওয়ার পর ১৯৯৬ সালে মুগাবেকে বিয়ে করেন তিনি। মুগাবে ও গ্রেস দম্পতির তিন সন্তান রয়েছে। ক্ষমতার কেন্দ্রে আসতে লুলোপ এই নারী ৯৬ সালে মুগাবেকে বিয়ে করার পূর্বে তাঁর সাবেক স্বামীকে তালাক দেন। শুরু থেকেই বিলাসবহুল জীবনযাপনের জন্য সবমহলে সমালোচিত তিনি। এরপর ২০১৪ সালে মুগাবেকে বস করে ক্ষমতাসীন জানু পি-এফ পার্টির মহিলা শাখার প্রধান বনে যান। এরপর থেকে শুরু হয় তার অত্যাচার । ২০১৫ সালে জনপ্রিয় এক মডেলকে নিগ্রহ করে সমালোচনায় আসেন তিনি।   বিলাসবহুল শপিংয়ের জন্য কুখ্যাত এই নারী ২০১৬ সালে ইউনিভার্সিটি অব জিম্বাবুয়ে থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। ক্ষমতার অপব্যবহার করে, তিনি এই ডিগ্রি লাভ করেন বলে সর মহলে অভিযোগ উঠে। এদিকে আগামী ডিসেম্বরে তার ভাইস-প্রেসিডেন্ট হওয়ার কথা ছিল । তবে মুগাবের পদত্যাগের পর তাঁর কি দশা হয়, তাই দেখার বিষয় এখন। / এআর /

দ্বৈত নাগরিকত্ব : সদস্যপদ হারাচ্ছেন অস্ট্রেলিয়ার আরেক এমপি

দ্বৈত নাগরিকত্বের দায়ে অস্ট্রেলিয়ার পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ সিনেটের আরেক সদস্য তাঁর সদস্যপদ হারাতে যাচ্ছেন। দ্বৈত নাগরিকত্বের দায়ে এখন পর্য্ন্ত ৮ জন সদস্য তাঁদের সংসদ সদস্য পদ হারিয়েছেন বলে জানা গেছে। নবম সদস্য হিসেবে এবার সিনেটের সদস্যপদ হারাতে যাচ্ছেন  অস্ট্রেলিয়ান-ব্রিটিশ নাগরিক স্কাই কাকুচি-মুর। কাকুচি মুরের মা সিঙ্গাপুরের জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ইতোমধ্যে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। কাকুচি-মুর ছোট দল নিক জেনোফোন পার্টির সদস্য। একই দলের আরও দুই সদস্য পদত্যাগ করতে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এদিকে ওই দুই আসনে ডিসেম্বরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে টার্নবুল আসন দুটি পুনরুদ্ধার করতে পারবে বলে মনে করা হচ্ছে। এর আগে গত ২৭ অক্টোবর সর্বোচ্চ আদালত এক রায়ে দ্বৈত-নাগরিকত্ব আছে এমন সংসদ সদস্যদের বহিস্কারের নির্দেশ দেন। উচ্চ আদালতের রায়ের পর ৮ জন সদস্য তাঁদের সদস্যপদ হারিয়েছেন। মুর দাবি করেন, তিনি ও তাঁর পরিবার মনে করছেন, তাঁরা যুক্তরাজ্যের নাগরিকত্ব পাওয়ার যোগ্য নয়। তাদের যুক্তরাজ্যের নাগরিকত্ব নেই। একইসঙ্গে যুক্তরাজ্য থেকে তাঁর নাগরিকত্ব বিষয়ে যে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, তা খুব হতাশাজনক বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তাই তাঁকে এ সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। এর আগে গত ২৭ অক্টোবর তিনিসহ আরও ৮ জন সংসদ সদস্যের পদে থাকা অবৈধ ঘোষণা করেন সর্বোচ্চ আদালত। রায়ের পরপরই ৪ জন সদস্য পদত্যাগ করেন। দ্বৈত নাগরিকত্ব বিষয়ে সব দিক থেকে যখন চাপ আসছিল, তখন প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুল সব সংসদ সদস্যের নাগরিকত্বের বিষয়টি জনসম্মুখে প্রকাশ করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন। এদিকে ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে সংসদ সদস্যদের নাগরিকত্বের বিষয়টি খোলাসা করতে সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে সরকার। পদত্যাগ করাদের একজন সিনেট প্রেসিডেন্ট স্টিফেন প্যারি । তার বাবা একজন ব্রিটিশ নাগরিক। অস্ট্রেলিয়ার ১১৬ বছরের পুরানো সংবিধান অনুসারে, অস্ট্রেলিয়ার সংসদে দ্বৈত নাগরিকত্ব অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। সূত্র: বিবিসি / এমজে / এআর     

উ. কোরিয়ার পালিয়ে আসা সেই সৈন্যের জ্ঞান ফিরেছে

উত্তর কোরিয়া থেকে পালিয়ে আসা গুলিবিদ্ধ সেই সৈনিকের অবশেষে জ্ঞান ফিরেছে বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার চিকিৎসকরা। জ্ঞান ফেরার পর তিনি টেলিভিশন দেখতে চাইছেন। এর আগে ১৩ নভেম্বর উত্তর কোরিয়ার সেনামুক্ত এলাকা দিয়ে পালিয়ে আসার সময় উত্তর কোরিয় সৈন্যরা তাকে ৪০ রাউন্ডের মতো গুলি করে। তাঁর শরীর থেকে ৫টি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন একজন চিকিৎসক। এর আগে ১৭ নভেম্বর চিকিৎসকরা দাবি করেন, পলাতক ওই সৈন্যের শরীরে অস্বাভাবিক মাত্রায় কৃমি বাস করছে, যা ক্ষতস্থানকে ক্রমশই সংক্রমিত করছে। এদিকে ওই সৈনিকের অবস্থা এখনো সংকটাপন্ন বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা। যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। সেনাবাহিনীর গুলি চালানোর ঘটনায় ওই সৈনিক মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছে। তাঁর মনোবল বাড়াতে হাসপাতালের দেয়ালে একটি দক্ষিণ কোরিয় পতাকা টানিয়ে দেওয়া হয়েছে। সূত্র: বিবিসি এমজে/ এআর  

ত্রিপুরায় পূর্ব শত্রুতার জেরে সাংবাদিককে গুলি করে হত্যা

ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে পূর্ব শত্রুতার জেরে স্থানীয় এক সাংবাদিককে গুলি করে হত্যা করেছে পুলিশ। নিহতের নাম সুদীপ দত্ত ভৌমিক (৫০)। তিনি স্থানীয় একটি বাংলা দৈনিকের পুলিশ বীটে কর্মরত ছিলেন। জানা গেলে, মঙ্গলবার আগরতলা উপকণ্ঠে ত্রিপুরা স্টেটের (টিএসআর) দ্বিতীয় বাহিনীর সদর দপ্তর আর কে নগরে এ ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার ত্রিপুরা সরকারের ওই বাহিনীর সদর দফতরে দরপত্র-সংক্রান্ত গোলমালের খবর সংগ্রহ করতে যান সুদীপ। সেখানে পুলিশের গুলিতে তিনি প্রাণ হারান। তবে আরেকটি সুত্র বলছে, পুলিশ কর্মকর্তা তপন দেববর্মার সঙ্গে সুদীপের পূর্ব শত্রুতা ছিল। এসময় তাকে ঠাণ্ডা মাথায় খুন করা হয়েছে, বলে ওই সুত্র দাবি করে। এ ঘটনার জেরে ত্রিপুরায় সাংবাদিকদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। সাংবাদিক সমাজ এর তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। সাংবাদিক নেতাদের দাবি সুদীপকে ঠাণ্ডা মাথায় খুন করা হয়েছে। অবিলম্বে অপরাধীকে আইনের অাওতায় আনার জন্য তারা আলটিমেটাম দেন। / এআর /  

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি