ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৮ ২৩:৫৪:৪২

ভুটানকে উড়িয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ   

ভুটানকে উড়িয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ   

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালে স্বাগতিক ভুটানকে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করে ফাইনালে জায়গা করে নিল বাংলাদেশের মেয়েরা। ভুটানের রাজধানী থিম্পুর চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে এদিন বাংলাদেশকে গোলের দেখা পেতে খুব বেশি সময় অপেক্ষা করতে হয়নি। ম্যাচের ১৮ মিনিটে লক্ষ্যভেদ করে আনাই মোগিনি।      
প্রথমার্ধে তিন গোলে এগিয়ে বাংলাদেশের মেয়েরা

ধারাবাহিকভাবে দারুণ ফুটবল খেলা উপহার দিচ্ছে বাংলাদেশের মেয়েরা। দুই ম্যাচে ১৭ গোল করে শেষ চারে উঠে আসছে তারা। সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফানালেও চমৎকার নৈপুণ্য দেখাচ্ছে লাল সবুজের মেয়েরা। আজ স্যন্ধ্যায় স্বাগতিক ভুটানের বিপক্ষে প্রথমার্ধ শেষে তিন গোলে এগিয়ে আছে মারিয়া-মনিকারা। ভুটানের রাজধানী থিম্পুর চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে এদিন বাংলাদেশকে গোলের দেখা পেতে খুব বেশি সময় অপেক্ষা করতে হয়নি। ম্যাচের ১৮ মিনিটে লক্ষ্যভেদ করে আনাই মোগিনি। ঠিক ২০ মিনিট পর ম্যাচের ব্যবধান দ্বিগুণ করে আনুচিং মোগিনি। ডি-বক্সের বাইরে থেকে চমৎকার শেটে বল জালে জড়ায় সে। ম্যাচের ৪৩ মিনিটে বাংলাদেশ দলের গোল ব্যবধান আরো বড় করে তহুরা খাতুন। দলের পক্ষে তৃতীয় গোল করে বড় জয়ের আশা জাগিয়ে তোলে। এর আগে গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানকে একরকম উড়িয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। জিতেছিল ১৪-০ গোলে। আর দ্বিতীয় ম্যাচে নেপালকে ৩-০ গোলে হারায়। গত ডিসেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টের প্রথম আসরের ফাইনাল খেলেছিল বাংলাদেশ ও ভারত। ফাইনালে ভারতকে ১-০ গোলে হারিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার সেরা হয় বাংলাদেশ। টিআর/

সেমিফাইনালে স্বাগতিক ভুটানের মুখোমুখি বাংলাদেশ   

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ টুর্নামেন্টের প্রথম সেমিফাইনালে ভুটানের মুখোমুখি বাংলাদেশ। বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাতটায় চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে মাঠে নামে বাংলাদেশের মেয়েরা৷    বাংলাদেশ ও ভুটানের মেয়েরা এর আগে সিনিয়র ও বয়সভিত্তিক পর্যায়ে সবমিলিয়ে চারবার মুখোমুখি হয়েছে। সবক`টিতেই জয় পেয়েছে বাংলাদেশ৷ ২০১০ সালে কক্সবাজারে সাফ গেমসে প্রথমবার তাদের বাংলাদেশ হারিয়েছিল ৯-০ ব্যবধানে৷ এরপর ২০১২ সালে কলম্বোয় ১-০ গোলে জেতে বাংলার মেয়েরা৷ নেপালে ২০১৫ সালে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৪ আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়নশিপে ১৬-০ গোলের বিরাট ব্যবধানের জয়ের পর গত বছর ঢাকায় সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ টুর্নামেন্টে জেতে ৩-০ গোলে৷ এবারও ভুটানে সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ টুর্নামেন্টে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েরা এখনো অপরাজিত৷ শুরুটা পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৪-০ গোলের বিশাল জয় দিয়ে৷ এরপর দ্বিতীয় ম্যাচে নেপালকে ৩-০ গোলে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন৷ অন্যদিকে, ভুটানও আগের চেয়ে ভালো দল৷ শ্রীলঙ্কাকে প্রথম ম্যাচে তারা হারিয়েছে ৬-০ গোলে৷ এটি তাদের ইতিহাসের প্রথম জয়৷ পরের ম্যাচে অবশ্য ভারতের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে তারা৷ কিন্তু খেলেছে দুর্দান্ত৷ এসি    

মাশরাফির কারণেই ঘুরে দাঁড়ায় দলের পরিবেশ : তামিম

ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে টেস্ট সিরিজে ২-০ ব্যবধানে নাকাল হয়ে পড়ে টাইগররা। কিন্তু ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি সিরিজে অবিশ্বাস্যভাবে ঘুরে দাঁড়ায় দলটি। যে দলটি টেস্ট সিরিজে ক্যারিবীয়দের সামনে দাঁড়াতেই পারলো না সেই দলটিই ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতলো হেলেখেলে। কিভাবে এটা সম্ভব হলো। দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল তা জানালেন, মাশরাফি বিন মর্তুজা ওয়ানডে সিরিজে যোগ দেওয়ার পরই বদলে গিয়েছিল দলের পরিবেশ। ঘুরে দাঁড়ানোর পেছনে মাশরাফির অবদানের কথা সামনে এনে তামিম ইকবাল বলেন, স্বাভাবিকভাবেই টেস্ট সিরিজের পর আমরা ভেঙে পড়েছিলাম। ওয়ানডে সিরিজটা খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কারণ এই ফরমেটেই আমরা সবচেয়ে বেশি স্বচ্ছন্দ্য পাই। মাশরাফি ভাই আসলেন। আমাদের ঘুরে দাঁড়ানোয় তার বিশাল অবদান ছিল। হয়তো তিনি কারও হাতে ধরে তাকে ব্যাটিং বা বোলিং করিয়ে দেননি। তবে তিনি দলের পরিবেশটা বদলে দিয়েছিলেন। ওই সিরিজের প্রথম ওয়ানডে জয়ের পর দ্বিতীয়টি অল্পের জন্য হাত ফস্কে যায়। টাইগাররা হেরে যায় মাত্র ৩ রানে। তৃতীয় ওয়ানডে ছিল সেন্ট কিটসে, যেখানে ক্যারিবীয়দের সাফল্যের পাল্লা ভারি। তবে মাশরাফি ছিলেন বলেই ওসব নিয়ে দল ভাবার সুযোগ পায়নি, জানিয়েছেন তামিম। এসএইচ/

২০ বছর পর ফিফার র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষে ফ্রান্স

রাশিয়া বিশ্বকাপে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের মর্যাদা অর্জন করে ফ্রান্স। তবে ২০ বছর আগেও তারা একবার বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের মর্যাদা পেয়েছিল। এবার বিশ্বকাপে সবার সেরা হলেও দলটি ফিফার নতুন র‌্যাংকিংয়েও সবার সেরা। অন্যদিকে চার বছর আগের বিশ্বকাপের দুই ফাইনালিস্ট আর্জেন্টিনা ও জার্মানি ছিটকে গেছে শীর্ষ দশের বাইরে। বাংলাদেশের অবস্থানে কোনও পরিবর্তন হয়নি, ১৯৪ নম্বরে রয়েছে দলটি। এর আগে সবশেষ ২০০২ সালে র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে উঠেছিল ফরাসিরা। দ্বিতীয় শিরোপা জিতে নতুন র‌্যাংকিংয়ে ৬ ধাপ এগিয়ে গেলো এই দলটি। সেরা পাঁচে ফ্রান্সের পর আছে বেলজিয়াম, ব্রাজিল, ক্রোয়েশিয়া ও উরুগুয়ে। তাদের পরে শীর্ষ দশে আছে ইংল্যান্ড, পর্তুগাল, সুইজারল্যান্ড, স্পেন ও ডেনমার্ক। বিশ্বকাপের ৮০ বছরের ইতিহাসে প্রথমবার গ্রুপ পর্বে ছিটকে যাওয়া জার্মানি ১৪ ধাপ নেমে গেছে। র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে থেকে রাশিয়ায় যাওয়া দলটির অবস্থান এখন ১৫ নম্বরে। ২০০৬ সালের পর প্রথমবার সেরা দশের বাইরে জার্মানরা। শেষ ষোলোতে ফ্রান্সের কাছে উড়ে যাওয়া আর্জেন্টিনাও ছিটকে গেছে শীর্ষ দশ থেকে। ৬ ধাপ নেমে তারা এখন ১১তম। র‌্যাংকিংয়ে সবচেয়ে উন্নতি হয়েছে রাশিয়ার। কোয়ার্টার ফাইনালে ক্রোয়েটদের কাছে হেরে যাওয়া দলটি ২১ ধাপ এগিয়েছে। ৭০ নম্বর থেকে এখন তারা র‌্যাংকিংয়ের ৪৯তম দল। সবচেয়ে অবনতি হয়েছে মিশরের। গ্রুপের তিন ম্যাচই হেরে যাওয়া মিশরীয়রা ৪৫ নম্বর থেকে ২০ ধাপ নেমে এখন ৬৫ তে। তথ্যসূত্র: ফিফা, গোল ডটকম। এসএইচ/

চ্যাম্পিয়নস লিগ জিততে সবকিছু করতে রাজি মেসি

আগামী চ্যাম্পিয়নস লিগ জিততে সম্ভাব্য সবকিছু করতে চাই আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসি। গত মৌসুম শেষে আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা বার্সা ছেড়ে চলে যান জাপানিজ ক্লাবে। পরে চলতি মৌসুমে মেসিকে আনুষ্ঠানিক অধিনায়ক করা হয়। যেখানে কার্লোস পুয়োল, জাভি ও ইনিয়েস্তা পরবর্তী কাতালানদের ইউরোপের সেরা ট্রফিটি এনে দিতে তৈরি তিনি। মেসির অধীনে বার্সা ইতোমধ্যে দুটি শিরোপা জয় করেছে। সেভিয়ার বিপক্ষে স্প্যানিশ সুপার কাপের পর বোকা জুনিয়র্সের বিপক্ষে জিতলো হুয়ান গাম্পার ট্রফি। যেখানে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম দাবি করেছে চলতি বছর তিনি জাতীয় দল আর্জেন্টিনার হয়ে খেলবেন না। মেসি বলেন,‘প্রথমেই আমি বলতে চাই এখানের অধিনায়ক হওয়াটা আমার জন্য বেশ গর্বের। আমি জানি বার্সার দলনেতা হওয়ার মানেটা কী? তবে আমি শিক্ষক হিসেবে পুয়োল, জাভি ও ইনিয়েস্তার মতো গ্রেটদের পেয়েছিলাম, যাদের এই মৌসুমে মিস করবো। গত মৌসুমে রোমার বিপক্ষে হেরে চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বিদায় নিয়েছিল বার্সা। প্রথম লেগে ঘরের মাঠ ক্যাম্প ন্যু’তে ৪-১ গোলে এগিয়ে থেকেও দ্বিতীয় লেগের বাজে হারে ছিটকে যেতে হয় আর্নেস্তো ভালভার্দের শিষ্যদের। এপ্রসঙ্গ নিয়ে পাঁচবারের ব্যালন ডি অর জয়ী আরও বলেন, এ বছর আমাদের রোমাঞ্চকর কিছু করার জন্য দারুণ সময় হাতে রয়েছে। দলে এমন কয়েকজন এসেছে যারা ভালো করতে মুখিয়ে আছে। যদিও গত বছর আমরা লা লিগা ও কোপা দেল রে’র শিরোপা ঘরে তুলেছিলাম। কিন্তু চ্যাম্পিয়নস লিগটায় বাজে সময় কেটেছিল। তবে নিশ্চিত করে বলতে পারি ক্যাম্প ন্যু’তে এই সুন্দর কাপটি ফেরাতে সম্ভাব্য সবকিছুই করবো। টিআর/

এশিয়া কাপে কি খেলবেন সাকিব?

সংযুক্ত আরব আমিরাতে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে এশিয়া কাপ শুরু হতে যাচ্ছে। এশিয়ার ক্রিকেট দলগুলোর সবচেয়ে বড় এই আয়োজনে অস্ত্রোপচারের জন্য বাংলাদেশের জার্সিতে মাঠে নামা হচ্ছে না সাকিব আল হাসানের। যদিও অস্ত্রোপচারের বিষয়টি এখন পর্যন্ত আলোচনাধীন। গত জানুয়ারিতে ঘরের মাঠে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল ম্যাচ খেলতে গিয়ে বাম হাতের আঙুলে চোট পান অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। সেই চোট সারিয়ে মাঠে ফেরেন এক মাস পর। কিন্তু এখনও আহত আঙুল নিয়ে বিপাকে রয়েছেন তিনি। তাই প্রয়োজন অস্ত্রোপচারের। গত মঙ্গলবার বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানালেন, সাকিবের অস্ত্রোপচার লাগবে, সেটা বোর্ড জানে না। উইন্ডিজ সিরিজের শেষের দিকে বিষয়টি তারা টের পেয়েছেন। তিনি বলেন, হজে যাওয়ার আগে সে আমাকে ফোন দিয়েছিল। তাকে আমি বলেছি, যদি তোমার মনে হয় অস্ত্রোপচার দরকার, তাহলে করে ফেলো। আর যদি মনে হয় অস্ত্রোপচার না করেও এশিয়া কাপ খেলতে পারবে, তাহলে টুর্নামেন্টের পরে করো, দলের জন্য ভালো হবে। সিদ্ধান্ত তোমার। পাপনের ওই বক্তব্যের পরও সাকিব যে এশিয়া কাপের আগেই অস্ত্রোপচার করতে চান, তা জানা গেছে বিসিবি ও কোচ স্টিভ রোডসের বৈঠকে। কোচ বিসিবিকে জানিয়েছেন, সাকিব এখনই অস্ত্রোপচার করতে চান। আর শুধু কোচ নয়, বিসিবির চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরীও জানিয়েছেন, উইন্ডিজের বিপক্ষে দুই টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে আর তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টির পূর্ণাঙ্গ সিরিজ সাকিব খেলেছেন ব্যাথানাশক ওষুধ খেয়ে। তাই সব মিলিয়ে এটাই ধরে নেওয়া হচ্ছে, সাকিব চাইছেন এশিয়া কাপের আগেই ছুরি কাঁচির নিচে যেতে। আর এশিয়া কাপের আগে অস্ত্রোপচার করলে মোটামুটি ছয় সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হবে সাকিবকে। সে ক্ষেত্রে এশিয়া কাপ নয়, অক্টোবরের জিম্বাবুয়ে সিরিজে চোখ থাকবে তার। একে//

কোহলিরা দায়িত্বজ্ঞানহীন!

বিশ্বের এক নম্বর টেস্ট দল কস্মিনকালেও এমন নিন্দা শোনেনি, যা  এখন তাদের শুনতে হচ্ছে। গত চার বছরে (কোহলি টেস্ট অধিনায়ক হওয়ার পর থেকে) যে টেস্ট দল ৩৯টি ম্যাচে হেরেছে মাত্র ৭টি-তে, সেই দলকে ‘মাথামোটা’, ‘নির্বোধ’, ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন’ এবং ‘শিশুসুলভ’-র বলে অপমান করা হচ্ছে। হ্যাঁ, এটা শোনার পর আপনি আঁতকে উঠলেও সত্যটা হজম করতেই হবে। কারণ বিরাটের দলকে এভাবে যিনি গালমন্দ করলেন, তিনি ব্রিটিশ ক্রিকেট তো বটেই বিশ্ব ক্রিকেটের কেউকেটাদের মধ্যে অন্যতম একজন, কিংবদন্তী জিওফ্রে বয়কট। এখনও পর্যন্ত ৩৭ টেস্টে ভারতকে নেতৃত্ব দিয়েছেন বিরাট। তার মধ্যে ২১টি-তে জয় এসেছে। হার হয়েছে ৭টি ম্যাচে আর ড্র হয়েছে ৯টি ম্যাচ। জয় ৫৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ ম্যাচেই। যা ভারতীয় অধিনায়কদের মধ্যে সর্বকালের সেরা রেকর্ড। বিরাটের এই নজিরের সঙ্গে একমাত্র তুলনা চলে প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক সৌরভ আর ধোনিরই। ৪৯ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে ভারতকে ২১ ম্যাচে জয় এনে দিয়েছেন প্রিন্স অব কলকাতা। ধোনির নেতৃত্বাধীন ভারত ৬০টি ম্যাচের মধ্যে জিতেছে ২৭টি-তে। এই বিচারে বিরাট কিছুটা এগিয়ে থাকলেও বর্তমান ভারত অধিনায়কের বেশিরভাগ টেস্ট জয়ই এসেছে ঘরের মাঠে। ক্যারিবিয়ান সিরিজ জিতলেও উপমহাদেশের বাইরে ব্যর্থ হয়েছেন বিরাট। দক্ষিণ আফ্রিকায় টেস্ট সিরিজ ২-১-এ হেরেছে তারা। যদিও বিরাটদের লড়াই প্রশংসিত হয়েছিল। যা দেখার পর, ধরে নেওয়া হয়েছিল ক্রিকেট ইতিহাসে ‘সব চেয়ে দুর্বলতম ইংল্যান্ড দলের’ বিরুদ্ধে এই ভারতীয় দল বেশ ভারী পড়বে। কিন্তু বাস্তবের ছবিটা একেবারে উল্টো। সোয়ান, স্ট্রস, বেল, কেভিন পিটারসন, ফ্লিনটফ ছাড়া একটা আধা অভিজ্ঞ ইংল্যান্ড দল নাকানিচোবানি খাওয়াচ্ছে ভারতকে। যা দেখে জিওফ্রে বয়কট বলছেন, ‘ভারত ঔদ্ধত্য নিয়ে এখানে (ইংল্যান্ড) এসেছিল। ওরা ভেবেছিল একই রকমভাবে (উপমহাদেশের মতো) ব্যাট করবে এবং জিতবে। পরিস্থিতি মোতাবেক পরিকল্পনা না করলে যে দুর্ভোগে পড়তে হয়, সেটা টের পাচ্ছে ভারত। ওদের এমন শাস্তি দরকার ছিল’। বিশ্বের এক নম্বর টেস্ট দলের ব্যাটিংকে তীব্র সমালোচনা করে ব্রিটিশ কিংবদন্তী আরও বলেন, ‘ভারতীয়দের ব্যাটিং শিশুসুলভ, দায়িত্বজ্ঞানহীন’। ১০৮ টেস্ট খেলা এই ব্রিটিশ ব্যাটসম্যানের শ্লেষ, বিরাটরা হতবুদ্ধির মতো ক্রিকেট খেলছে! যদিও বয়কটের এই ব্যজস্তুতির পাল্টা কোনও জবাব দেয়নি ভারত। আর মুখে জবাব দেওয়ার মতো কোনও নজির গড়তে পারেনি ইংরেজদের মহল্লায়। বিরাট বাদ দিয়ে গোটা দলের ব্যাটিং লাইন আপ দুই অঙ্কের রান করতে হিমশিম খাচ্ছে সেখানে এমন তীব্র আক্রমণ মাথা নীচু করে ‘ডাক’ করা ছাড়া উপায়ই বা কি আছে! তবে হাতে রয়েছে এখনও তিনটি টেস্ট। জবাব দেওয়ার সময় ফুরোয়নি বিরাটদের...   সূত্র: জিনিউজ একে//

গাম্পার ট্রফি বার্সার

মূল মৌসুম শুরুর আগ ঘরের মাঠ ক্যাম্প ন্যু’তে প্রথম প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে হুয়ান গাম্পার ট্রফি ঘরে তুললো আর্নেস্তো ভালভার্দের শিষ্যরা। ক্লাবের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা হুয়ান গাম্পারের স্মরণে প্রতি বছর এই প্রীতি ম্যাচ খেলে থাকে বার্সা। বুধবার রাতে মাঠে নামে বার্সা-জুনিয়র্স। নিজেদের মাঠে বার্সেলোনার লিওনেল মেসি জ্বলেছেন নিজের মতো করেই। একটি করেছেন, আরেকটি করিয়েছেন। মেসি এবং দুই ব্রাজিলিয়ান ম্যালকম ও রাফিনহার গোলে বোকা জুনিয়র্সকে ৩-০ ব্যবধানে হারায় বার্সা। বার্সেলোনার অধিনায়ক হওয়ার পর টানা দুই ম্যাচে দুটি শিরোপা এনে দিয়েছেন মেসি। প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, সাবেক ফুটবলার ও সভাপতি হুয়ান গাম্পারের স্মরণে ১৯৬৬ সাল থেকে প্রতিবছর আগস্টে এই ম্যাচটি আয়োজন হয়ে আসছে। যেখানে ৫৩তম এই আসরে ৪১তম ট্রফি উচিয়ে ধরলো কাতালানরা। টানা জয় পেল ৬বার। ম্যাচের ১৮তম মিনিটে ম্যালকমের গোলে এগিয়ে যায় বার্সা। মেসি থেকে পাস পেয়ে কোনাকুনি শটে গোলটি করেন এই মিডফিল্ডার। বিরতির আগে ৩৯তম মিনিটে মেসি নিজেই গোল করে স্কোর লাইন ২-০ করেন। ২-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বার্সা। বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের ৬৭তম মিনিটে দারুণ এক গোল করে দলের জয় নিশ্চিত করেন রাফিনহা। বদলি হিসেবে নেমে লুইস সুয়ারেজের সঙ্গে বল দেওয়া নেওয়া করে গোলটি করেন তিনি। ম্যাচের বাকি সময় আর কোনও গোল না হলে শেষ পর্যন্ত ৩-০ ব্যবধানের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে বার্সা। আগামী শনিবার আলাভেসের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে লা লিগা মিশন শুরু করবে গতবারের চ্যাম্পিয়নরা। প্রস্তুতির জন্য তাই মেসি, কুতিনহো, পিকেসহ শক্তিশালী একাদশই মাঠে নামিয়েছিলেন বার্সা কোচ। প্রীতি ম্যাচ হওয়ায় দ্বিতীয়ার্ধে পরিবর্তন এনেছিলেন ১১টি। সূত্র: গোলডটকম একে//

স্বাধীনতা দিবসে সানিয়া-মালিকের শুভেচ্ছা

ভারত-পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস ছিল যথাক্রমে ১৪ ও ১৫ আগস্ট। আর এ দিবসে দুই দেশের মানুষকে শুভেচ্ছায় ভাসিয়েছেন জনপ্রিয় খেলোয়ার দম্পতি সানিয়া মির্জা ও শোয়েব মালিক। মঙ্গলবার ভারতীয় টেনিস তারকা সানিয়া মির্জা পাকিস্তানের স্বাধীনতা নিয়ে টুইটে লিখেছিলেন, আমার পাকিস্তানি অনুরাগীদের স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা। ভারতীয় ভাবীর পক্ষ থেকে তোমাদের অনেক অনেক অভিনন্দন এবং ভালোবাসা। এই টুইটের পরই নেটিজেনদের রোষানলে পড়েন সানিয়া। তাঁকে এক নেটিজেন প্রশ্ন করেন ‘আপনার স্বাধীনতা দিবস কবে’? জবাবে সানিয়া বলেন, আমার এবং আমার দেশের স্বাধীনতা দিবস কাল (১৫ আগস্ট)। আশা করি আপনার ধন্দ দূর করতে পেরেছি। সানিয়া এতেই থামেন নি। খোঁচা দিয়ে লিখেন, সম্ভবত আপনার স্বাধীনতা দিবস কবে সেটি নিয়ে আপনি কনফিউজড। গতকাল ভারতের স্বাধীনতা দিবসে তেরঙ্গার রঙে সুসজ্জিত হয়েই দেশবাসীকে আজাদির শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন তিনি। একই সঙ্গে পাক ক্রিকেটার শোয়েব মালিকও ভারতের স্বাধীনতা দিবসে বিশ্বের সব ভারতীয়দের প্রতি শুভেচ্ছা জানান। শোয়েব মালিকও গিন্নি তো বটে, ভারতীয়দের স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানান। এই অলরাউন্ডারের টুইট, ‘সারা বিশ্বের ভারতীয়দের (বিশেষ করে যে একজন ঘরে আছে, তাকেও) স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা।’ সেই শুভেচ্ছা বার্তা আবার রিটুইট করেন সানিয়া। এ দিন একটি ভিডিও পোস্টও করেছেন এই ভারতীয় টেনিস তারকা। সেখানে তিনি জানিয়েছেন, আমি দেশের হয়ে যে দিন প্রথম খেলেছি সেদিনই  স্বাধীনতা উপলব্ধি করেছি। বুধবার হাদরাবাদে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের সঙ্গেই তেলেঙ্গানা সরকারের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিতে অংশগ্রহন করেছেন সানিয়া। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন কূটনীতিক ক্যাথরিন হাদ্দাও। সূত্র : জিনিউজ। / এআর /

রিয়ালকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন অ্যাতলেটিকো

দিয়েগো কস্তার দ্রুততম গোল করার রেকর্ডের দিনে রিয়াল মাদ্রিদকে উড়িয়ে দিয়ে উয়েফা সুপার কাপের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ। ফলে রিয়াল মাদ্রিদকে হারিয়ে শিরোপা জয়ের আনন্দে মৌসুম শুরু করলো দিয়েগো সিমেওনের দল।এস্তোনিয়ার তালিনে বুধবার রাতে ম্যাচটি ৪-২ গোলে জিতেছে আতলেতিকো। শুরুতে পিছিয়ে পড়ার পর করিম বেনজেমা ও সের্হিও রামোসের গোলে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল রিয়াল। কিন্তু কস্তার দ্বিতীয় গোলে সমতা টানে গতবারের ইউরোপা লিগ চ্যাম্পিয়নরা। আর অতিরিক্ত সময়ে পার্থক্য গড়ে দেয় সাউল নিগেস ও কোকের গোল।দিয়েগো কস্তার দুর্দান্ত নৈপুণ্যে ম্যাচ শুরুর ৫০ সেকেন্ডের মাথায় এগিয়ে যায় আতলেতিকো। মাঝমাঠের আগে থেকে দিয়েগো গদিনের উঁচু করে বাড়ানো বল প্রথম হেডে সামনে বাড়ানোর পথে পরাস্ত করেন সের্হিও রামোসকে, দ্বিতীয় হেডে পিছনে ফেলেন রাফায়েল ভারানেকে আর সবশেষে ছয় গজ বক্সের বাইরে বাইলাইনের কাছ থেকে ডান পায়ের কোনাকুনি শটে গোলটি করেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড।প্রতিযোগিতার ইতিহাসে দ্রুততম গোলের আগের রেকর্ডটি ছিল এভার বানেগার দখলে। ২০১৫ সালে বার্সেলোনার কাছে ৫-৪ ব্যবধানে হারের ম্যাচে তৃতীয় মিনিটে তখনকার রেকর্ডটি গড়েছিলেন সেভিয়ার আর্জেন্টাইন এই মিডফিল্ডার।১৭তম মিনিটে ইয়ান ওবলাকের নৈপুণ্যে ব্যবধান ধরে রাখে আতলেতিকো। মার্সেলোর নিচু ক্রসে মার্কো আসেনসিওর ফ্লিক ঝাঁপিয়ে এক হাত দিয়ে ঠেকান স্লোভেনিয়ার গোলরক্ষক।টানা আক্রমণ করতে থাকা রিয়াল ২৭তম মিনিটে সমতায় ফেরে। ডান দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা গ্যারেথ বেলের দারুণ ক্রসে হেডে দূরের পোস্ট দিয়ে বল জালে পাঠান ফরাসি ফরোয়ার্ড বেনজেমা।দুই মিনিট পর এগিয়েও যেতে পারতো ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা; কিন্তু আসেনসিওর শট পোস্ট ঘেঁষে বাইরে চলে যায়।৬৩তম মিনিটে রামোসের সফল স্পট কিকে এগিয়ে যায় রিয়াল। কর্নার থেকে উড়ে আসা বল স্প্যানিশ ডিফেন্ডার হুয়ানফ্রানের হাতে লাগলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।৭৯তম মিনিটে সমতা ফেরায় আতলেতিকো। সতীর্থের বাড়ানো বলে বাইসাইকেল কিকের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন কস্তা। রিয়ালের রক্ষণ দলকে বিপদমুক্ত করতে ব্যর্থ হলে সাইড-লাইনে বল পেয়ে হুয়ানফ্রান দ্রুত ডি-বক্সে ঢুকে ছোট করে বাড়ান আনহেল কোররেয়াকে। তিনি বাড়ান ছয় গজ বক্সে; অনায়াসে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন ব্রাজিলে জন্ম নেওয়া কস্তা।নির্ধারিত সময়ের যোগ করা মিনিটের একেবারে শেষ মুহূর্তে নায়ক হতে পারতেন মার্সেলো। কিন্তু বাঁ-দিক থেকে বেলের ক্রস ডি-বক্সে ফাঁকায় পেয়ে সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি ব্রাজিলিয়ান লেফট-ব্যাক।অতিরিক্ত সময়ের প্রথম ভাগে ছয় মিনিটের ব্যবধানে দুবার বল জালে জড়িয়ে জয় অনেকটাই নিশ্চিত করে ফেলে আতলেতিকো।৯৮তম মিনিটে বাঁ-দিকের বাইলাইন থেকে ঘানার মিডফিল্ডার টমাসের ক্রসে দারুণ ভলিতে দলের তৃতীয় গোলটি করেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার সাউল নিগেস। আর ১০৪তম মিনিটে ভিতোলোর পাসে জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন আরেক স্প্যানিয়ার্ড কোকে।বাকি সময়ে তেমন কোনো সুযোগই তৈরি করতে পারেনি গত মাসে ইউভেন্তসে পাড়ি জমানো ক্লাবের সর্বোচ্চ গোলদাতা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোকে ছাড়া প্রথম কোনো প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলতে নামা রিয়াল মাদ্রিদ।প্রতি বছর নতুন মৌসুমের শুরুতে আগের মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপাজয়ী ও ইউরোপা লিগের চ্যাম্পিয়নের মধ্যে লড়াইটি হয়ে থাকে। এবারই প্রথম একই শহরের দুটি ক্লাব এই লড়াইয়ে মুখোমুখি হলো।আর প্রথম ক্লাব হিসেবে তিনবার প্রতিযোগিতাটিতে খেলার সুযোগ পেয়ে প্রতিবারই শিরোপা জয়ের কীর্তি গড়লো আতলেতিকো। এর আগে ২০১০ ও ২০১২ সালে দুবার জিতেছিল তারা। আর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে ছাড়া প্রথম কোনো প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলতে নেমে হারের মুখ দেখলো রিয়াল।এসএ/

বাংলাদেশ ও ভুটান সেমিফাইনাল আজ

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের আজ কঠিন পরীক্ষা। আজ সেমিফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভুটান। থিম্পুর চালিমিথান স্টেডিয়ামের মাঠে খেলা শুরু হবে সন্ধ্যা ৭টায়। গত বছর প্রথম সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবলে বাংলাদেশের কাছে হেরেছিল ভুটান। ৩-০ গোলের সেই হার এখনও ভুলে যায়নি তারা। আজ বাংলাদেশকে নিজেদের ঘরের মাঠে পেতে যাচ্ছে ভুটান। ঘরের মাঠের সব সুবিধা তুলে নিতেই মাঠে নামবে দলটি।সাফের দ্বিতীয় আসরে বাংলাদেশ ১৪-০ গোলে পাকিস্তানকে, দ্বিতীয় খেলায় ৩-০ গোলে নেপালকে হারিয়ে বি গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে ওঠে। ‘এ’ গ্রুপে ভুটান ৬-০ গোলে শ্রীলঙ্কাকে হারালেও দ্বিতীয় খেলায় ভারতের কাছে ১-০ গোলে হারে। শ্রীলঙ্কা গ্রুপের দুই খেলায় হেরে যাওয়ায় বিদায় নেয়। ভুটান গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে সেমিফাইনালে পৌঁছায়। ভুটানের সোনম লামহো হ্যাটট্রিক করেছিল। বাংলাদেশের ছোট সামসুন নাহারও হ্যাটট্রিক করে। দুই দলে আক্রমণে তেজ থাকলেও বাংলাদেশের শক্তিটা বেশি। গোলপোস্ট থেকে শুরু করে প্রত্যেক পজিশনে বাংলাদেশের মেয়েদের সমান শক্তি আছে। অনেক দিন ধরে এই খেলোয়াড়রা টানা অনুশীলনে রয়েছে। ক্লান্তি বাঁধা না হলে ভুটানকে হারাবে এমনটা মনে করছেন ফুটবল দলের সংশ্লিষ্টরা।গত সাফে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন, ভারত রানার্সআপ, নেপাল তৃতীয় এবং ভুটান চতুর্থ হয়। আজ বাংলাদেশ ভুটান সেমিফাইনালের আগে একই মাঠে ভারত ও নেপাল প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে।এসএ/

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি