ঢাকা, শুক্রবার, ২২ জুন, ২০১৮ ১৭:৩৪:০৫

নড়াইলে কেমিক্যাল মিশ্রিত ৩০ মণ আম জব্দ

নড়াইল সদর উপজেলার আফরা গ্রামে কেমিক্যাল মিশ্রিত ৩০ মণ আম জব্দ করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে এ আম জব্দ করা হয়। এ সময় আম ব্যবসায়ী মালেক ফারাজী (৪০) ও সোহরাব মোল্লাকে (৬০) আটক করে পুলিশ। পরে তাদের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সালমা সেলিম। নড়াইল সদর থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শেখহাটি ইউনিয়নের আফরা গ্রামের আম ব্যবসায়ী মালেক ফারাজীর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে কেমিক্যাল মিশ্রিত ৩০ মণ আম জব্দ করে তা জনসম্মুখে ধ্বংস করা হয়।  তারা বিভিন্ন মৌসুমি ফলে বিষাক্ত কেমিক্যাল মিশিয়ে বাজারে বিক্রি করে আসছিল বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সদর ইউএনও সালমা সেলিম জানান, মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর কেমিক্যাল ব্যবহার করার অপরাধে দুই আম ব্যবসায়ীকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া জব্দকৃত আম ও এক বোতল কেমিক্যাল জনসম্মুখে ধ্বংস করা হয়। এ সময় শেখহাটী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বুলবুল আহম্মেদসহ এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন। এদিকে নড়াইলের সচেতনমহলসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ বলেন, আমের বিভিন্ন আড়তসহ ব্যবসায়ীদের মাঝে এ ধরনের অভিযান চালানো প্রয়োজন। পাশাপাশি সবার মাঝে ব্যাপক জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। একে//

যশোরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক বিক্রেতা নিহত

যশোরের অভয়নগর উপজেলায় দুই দল মাদক ব্যবসায়ীর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শহীদুল ইসলাম (৩৮) নামে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। অভয়নগর থানার ওসি শেখ গনি মিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। সোমবার ভোরে উপজেলার নওয়াপাড়া পৌর এলাকার শেষপ্রান্ত চেঙ্গুটিয়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধের’ এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত শহীদুল ইসলাম উপজেলার বুইকারা গ্রামের নূর ইসলামের ছেলে বলে জানা গেছে।  তার বিরুদ্ধে একাধিক মাদক মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ওসি শেখ গনি মিয়া জানান, সোমবার ভোরে নওয়াপাড়া পৌর এলাকার শেষপ্রান্ত চেঙ্গুটিয়ায় দু’দল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক বিক্রেতারা পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে স্থানীয়রা নিহতের নাম-পরিচয় শনাক্ত করে।  নিহত শহীদুল একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী বলে জানান ওসি। একে//

খুলনা সার্কিট হাউজ ময়দানে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত

যথাযোগ্য মর্যাদা এবং ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে খুলনায় পবিত্র ঈদুল ফিতরের প্রধান নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। নামাজ শেষে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া করা হয়। শনিবার সকাল সাড়ে ৮টায় খুলনা সার্কিট হাউজ ময়দানে প্রধান ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। জামাতে ইমামতি করেন খুলনা টাউন জামে মসজিদের খতিব আলহাজ্ব মাওলানা মোহাম্মদ সালেহ।  ঈদ জামাতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা, প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা অংশগ্রহণ করেন। পরে মুসল্লিরা পরস্পর ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এদিকে নগরীতে ঈদের দ্বিতীয় ও শেষ জামাত সকাল সাড়ে নয়টায় খুলনা টাউন জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও নগরীর ৩১টি ওয়ার্ডের বিভিন্ন মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে, ঈদ উপলক্ষে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সব সরকারি, আধাসরকারি, বেসরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়েছে। মহানগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ঈদ মোবারক খচিত ব্যানারে সজ্জিত করা হয়। একে//

চুয়াডাঙ্গায় ছুরিকাঘাতে ‘মাদক ব্যবসায়ী’ নিহত

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলায় মাদকের টাকা ভাগাভাগির সময় ভাগনের ছুরিকাঘাতে সব্দুল হোসেন (৩২) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ভাগনে সুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার ভোরে উপজেলার সিংনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জীবননগর থানার ওসি মো. মাহমুদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। নিহত সব্দুল হোসেন সিংনগর গ্রামের মৃত রমজান আলীর ছেলে বলে জানা গেছে।  তিনি চি‎হ্নিত মাদক ব্যবসায়ী বলে জানিয়েছে পুলিশ। সূত্র জানিয়েছে, ভাগনে সুজন (৩০) ও সব্দুল হোসেন শুক্রবার রাত ১ টার দিকে ওই গ্রামের পুরাতন মসজিদের সামনে মাদক ব্যবসার টাকা ভাগাভাগি করছিলেন। টাকা ভাগাভাগি করাকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ভাগনে সুজন তার কাছে থাকা ছুরি দিয়ে মামা সব্দুলের পেটে আঘাত করেন। এতে সব্দুল গুরুতর আহত হন। পরে প্রতিবেশিরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। একে//

নড়াইলে মাশরাফির ঈদ উদযাপন

ঈদ এলেই নড়াইলে বাড়িতে ছুটে যান মাশরাফি বিন মর্তুজা। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। বরাবরের মতোই নড়াইলে নিজের এলাকায় ঈদ উদযাপন করেন জাতীয় ক্রিকেট দলের (ওয়ানডে) অধিনায়ক।শনিবার সকালে নড়াইলের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে ঈদের নামাজ পড়েন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ খ্যাত মাশরাফি। সাদা পাঞ্জারি পরে ঈদগাহে আসেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন ছোট ভাই সিজার, মামা নাহিদুল ইসলামসহ পরিবারের সদস্যরা। নড়াইল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম ম ম শফিউল্লাহর ইমামতিতে এই নামাজ শেষে দেশ-জাতির কল্যাণ কামনায় মোনাজাতে হাত তোলেন মাশরাফি।উল্লেখ্য, নড়াইল থেকে মাশরাফির নির্বাচনে অংশ নেওয়ার গুঞ্জন সম্প্রতি জোরাল হয় পরিকল্পনামন্ত্রীর কথায়। তবে এই ক্রিকেটার মুখ খুলতে চান না রাজনীতির বিষয়ে।এসএ/

যশোরে ‘মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে গোলাগুলিতে’ নিহত ১

যশোরের শার্শা উপজেলায় ‘দুই দল মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে গোলাগুলিতে’ অজ্ঞাত (৪২) একজন নিহত হয়েছেন। শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি এম মশিউর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। শুক্রবার ভোরে উপজেলার উলাশি ইউনিয়নের হাড়ীখালী নামক একটি মাঠে এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। ওসি এম মশিউর রহমান জানান, শুকবার সকালে শার্শার উলাশি ইউনিয়নের হাড়ীখালী নামক মাঠের মধ্যে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে গ্রামবাসী থানায় খবর দেয়। দু’দল মাদক ব্যবসায়ীদের গোলাগুলিতে এ নিহতের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। নিহতের নাম পরিচয় এখনও জানা যায়নি। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি। একে//

মেহেরপুরে কাঁঠালের বাম্পার ফলন

এবার জেলায় কাঁঠালের বাম্পার ফলন হয়েছে। কাঁঠাল বাগান ও জেলার সরকারি রাস্তার দু‘পাশে সরকারি বেসরকারীভাবে লাগানো কাঁঠাল গাছগুলোতে কাঁঠালে ভরে গেছে। মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার গাংনী- হাটবোয়ালিয়া সড়কের দু’পাশে কাঁঠালের সারিবদ্ধ গাছ পথচারিদের মুগ্ধ করে। প্রায় ১০ কি.মি রাস্তা জুড়ে এই কাঁঠালের গাছে কাঁঠাল ঝুলে আছে। দেখভালের নেই কোন লোকজন। কেউ একটি কাঁঠালও চুরি করে না। পথচারীরা চলার পথে একটু দাঁড়িয়ে মুগ্ধ হয়ে দেখছে সারিবদ্ধ ভাবে লাগানো এসব গাছের কাঁঠাল। আঠালো এই ফলটি সাইজে খুব একটা বড়ো না হলেও স্বাদে অনন্য। চলতি মৌসুমে জেলায় সাড়ে তিন হাজার হেক্টর জমিতে ২৫ হাজার ৫৭৩ মেট্রিক টন কাঁঠালের ফলনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে জেলা কৃষি বিভাগ। কৃষি বিভাগ বলছে, অনুকূল আবহাওয়ায় গাছে ব্যাপক কাঁঠাল ধরেছে। তবে মৌসুমের শুরু থেকে প্রয়োজনীয় বৃষ্টিপাতের কারণে এবার কাঁঠাল ভালো হয়েছে। বাজারে পাকা কাঁঠালও বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া সবজি হিসেবে বাজারে কাঁঠাল বিক্রি হচ্ছে। কাঁঠাল উৎপাদনে কোনো খরচ না থাকায় চাষীরা লাভের মুখ দেখতে শুরু করেছেন। জেলার চাহিদা মিটিয়ে প্রচুর কাঁঠাল রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করা হবে বলে আশা করছেন চাষীরা। গাংনীর রায়পুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ গোলাম সাকলাইন জানান, তার ইউনিয়নের গাংনী-হাটবোয়ালিয়া সড়কসহ ইউনিয়নের বিভিন্ন সড়কে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় লাগানো বিভিন্ন গাছের মধ্যে অন্তত ১০ হাজার কাঁঠাল গাছ রয়েছে। এসব গাছের ফল রাস্তার পার্শ্ববর্তী মানুষ ভোগ করে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে জেলার ৩টি উপজেলার সাড়ে ৩ হাজার হেক্টর জমিতে কাঁঠাল চাষ হয়েছে। তবে সরকারি রাস্তার দু‘পাশে সরকারিভাবে বনায়ন ও বেসরকারীভাবে লাগানো কাঁঠাল গাছ এই পরিসংখ্যানের বাইরে। জেলার ১৮টি ইউনিয়নের সর্বত্রই অনেক কাঁঠাল গাছ রয়েছে, যার আনুপাতিক সংখ্যা অন্তত ২ লক্ষাধিক এবং একটি কাঁঠাল গাছে গড়ে ২০ থেকে ৭০টি পর্যন্ত কাঁঠাল ধরেছে। প্রতিটি কাঁঠালের আকার ও চেহারাভেদে ২০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। আষাঢ়ের শেষে ও মাসের প্রথম দিকে কাঁঠাল পাকার উৎকৃষ্ট সময়। তবে এবার জ্যৈষ্ঠ মাসেও পর্যাপ্ত পরিমাণে কাঁঠাল বাজারে বেচা কেনা হচ্ছে। প্রতিটি মানুষের সুস্থ-সবল স্বাস্থ্যের জন্য ভিটামিনের অভাব পূরণেসুস্বাদু কাঁঠাল খাওয়ার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদরা কৃষকরা জানান, কাঁঠালের একটি বড় গুণ হলো এর কিছুই ফেলে দেওয়া লাগে না। কাঁঠালের বিঁচি বা আটি এবং কাঁচা কাঁঠালের মোচা দিয়ে তরকারি রান্না করে খাওয়া যায়। কাঁঠালের খোলস ও পাতা গরু-ছাগলের প্রিয় খাবার। এ ছাড়া কাঁঠালের কাঠ থেকে আসবাবপত্র তৈরি করা ভালো হয়। পাকা কাঁঠালে ১ দশমিক ৮ মিলিগ্রাম প্রোটিন, দশমিক ৩০ মিলিগ্রাম ফ্যাট, ২৬ দশমিক ১ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ১ দশমিক ৭ মিলিগ্রাম লৌহ, দশমিক ১১ মিলিগ্রাম ভিটামিন বি-১ রয়েছে। তাছাড়া কাঁঠালে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ,বি,ও ই রয়েছে। এছাড়া পাকা কাঁঠালের বিচি দিয়ে সুস্বাদু তরকারি রান্না করা হয়। জেলা কৃষি সস্ম্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ড. আখতারুজ্জামান জানান, জেলায় এবছর কাঁঠালের ফলন ভাল হয়েছে। জেলার বিভিন্ন সড়ক ও মহাসড়কের পাশে ব্যক্তিগত উদ্যোগে শত শত গাছ লাগানো হয়েছে। এছাড়াও ব্যক্তিগতভাবে বাড়ির আঙিনায় কাঁঠাল চাষ করা হচ্ছে। কাঁঠাল চাষীদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এছাড়া সারা বছর যাতে কাঁঠালের চাষ করা যায় তার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। সূত্র : বাসস এসএ/

নতুন দুই জাতের ধান উদ্ভাবন করলেন দুই কৃষাণী (ভিডিও)

ধান চাষে অভাবনীয় সাফল্য দেখিয়েছেন দুই নারী কৃষক। বাগেরহাটের ফকিরহাটের ফাতেমা বেগম ও গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে দুলালী বেগম দু’টি নতুন জাতের ধান উদ্ভাবন করেছেন। তাদের নামেই পরিচিতি পেয়েছে জাত দু’টি। গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে কৃষক দুলালী বেগম বেগুনী রংয়ের ধান চাষ করে চমক দেখিয়েছেন। অন্যান্য জাতের চেয়ে এই ধানের ফলনও বেশি। এরিমধ্যে জাত সংগ্রহে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন অন্য চাষীরা। এই ধান পরিচিতি পেয়েছে দুলালী সুন্দরী নামে। বিশেষ ধরনের এই ধান চাষে ফলন বাড়বে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ। এদিকে, দু’বছর আগে ধানক্ষেতে অন্যরকম তিন ছড়া ধান খুঁজে পান বাগেরহাটের ফকিরহাটের ফাতেমা বেগম। এ’বছর ৭৫ শতাংশ জমিতে ওই নতুন জাতের ধানবীজ রোপন করেন তিনি। ফাতেমা ধান নামে পরিচিত উচ্চ ফলনশীল এই জাতের সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে কৃষকের মুখে মুখে। এই ধান অনেক বেশি লবণসহিষ্ণু বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এরিমধ্যে এই দুই জাতের ধানের চাহিদা আসার কথা জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।

মেহেরপুরের ভাটপাড়া কুঠিবাড়িতে ইকো পার্ক (ভিডিও)

ঐতিহাসিক মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ভাটপাড়া কুঠিবাড়িতে গড়ে তোলা হচ্ছে ইকো পার্ক। অযতœ, অবহেলা আর দখলদারদের হাত থেকে মুক্ত করে ঐতিহ্য ধরে রাখার পাশাপাশি বিনোদনের ব্যবস্থা হচ্ছে স্থানীয়দের। দ্রুত পার্কটির কাজ শেষ হলে কর্মসংস্থানও হবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। প্রত্মতাত্তিক নিদর্শন মেহেরপুরের ভাটপাড়া নীলকুঠি। যা আজও ব্রিটিশ বেনিয়াদের নির্যাতনের সাক্ষী হয়ে রয়েছে। অযতœ, অবহলায় কুঠিবাড়ির কাঁচারিঘর, জেলখানা, মৃত্যুকুপ ও ঘোড়ার আস্তাবল হারিয়ে যাবার পথে। খোয়া গেছে ভবনের অধিকাংশ ইট-পাথরও। ১৮১৮ থেকে ১৮২০ সালের মধ্যবর্তী সময়ে মেহেরপুরর বেশ কয়েকটি স্থানে নীলকুঠি স্থাপন করে বিট্রিশরা। এরমধ্যে অন্যতম ভাটপাড়ার এই কুঠিটি। কাজলা নদীর তীরে প্রায় ৩৩ একর জমির ওপর ৮০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৭০ ফুট প্রস্থের কুঠিবাড়ী নির্মিত হয়। দখলদারদের কবল থেকে কুঠিবাড়িটি মুক্ত করে ২০১৭ সালের শুরু করা হয় ইকো পার্কের কাজ। ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৬০ লাখ টাকা। ঐতিহ্য রক্ষার পাশাপাশি বিনোদনের ব্যবস্থা হওয়ায় সন্তোষ জানান স্থানীয়রা। সংগ্রামী বাঙ্গালির বীরগাথা নতুন প্রজন্মকে জানাতে স্মৃতিস্তম্ভ  স্থাপনের পরিকল্পনার কথা জানালেন সংশ্লিষ্টরা। দর্শনীয়স্থানের পাশাপাশি কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে বলে জানালো জেলা প্রশাসন। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ঐতিহাসিক স্থাপনা রক্ষার আহ্বান সচেতন মহলের।

লাইসেন্স-ছাড়পত্র ছাড়াই দেদারসে চলছে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি(ভিডিও)

মেহেরপুরে বিস্ফোরক অধিদপ্তরের লাইসেন্স ও ফায়ার সার্ভিসের ছাড়পত্র ছাড়াই গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। নিয়ম মানছেন না বেশিরভাগ ব্যবসায়ী। এ অবস্থায় দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছে বিস্ফোরক অধিদপ্তর ও জেলা প্রশাসন। মেহেরপুরে ৬০ থেকে ৬৫টি সিলিন্ডার গ্যাস বিক্রির দোকান থাকলেও, নিয়ম মেনে গ্যাস বিক্রি হচ্ছে মাত্র ১০ থেকে ১২ টি দোকানে। বাকিগুলোতে নেই কোন অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা। বিস্ফোরক লাইন্সেস ও অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা না থাকার কথা স্বীকার করেছেন খুচরা বিক্রেতারা।   লাইসেন্সবিহীন ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি ডিলারদের। আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার তাগিদ দিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এরইমধ্যে ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় থানাকে নিদের্শ দেওয়া হয়েছে বলে জানালেন এই কর্মকর্তা। ভ্রাম্যমান আদালতের  মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন জেলা প্রশাসন। নিয়ম অনুযায়ী সরকারী লাইসেন্স ছাড়া একজন ব্যক্তি ১০০ কেজি অর্থাৎ ১২ কেজি ওজনের ৮টি অথবা ২৩/২৪ কেজি ওজনের ৪টি গ্যাস ভর্তি সিলিল্ডার সংরক্ষণ করতে পারবে।

গুলি কেনার অনুমতি পাননি ডিআইজি মিজান

বহুল সমালোচিত পুলিশের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানের ব্যক্তিগত পিস্তলের গুলি কেনার আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন মাগুরার জেলা প্রশাসক। গেল ২৮ মে একজন দেহরক্ষী পাঠিয়ে পিস্তলের গুলি কেনার জন্য মাগুরা জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেন। আবেদনপত্রে তিনি নিজেকে মাগুরার সাবেক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে পরিচয় দেন।নারী কেলেঙ্কারির কারণে বিতর্ক ডিআইজি মিজানুরের আবেদনে ৪০ রাউন্ড গুলি কেনার ইচ্ছা পোষণ করেন। কিন্তু মাগুরার জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুর রহমান তার এই আবেদনটি নাকচ করে দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে মাগুরার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আকতারুন্নাহার বলেন, ব্যক্তিগত গুলির জন্যে মিজানুর রহমানের আবেদনের বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়। যেটি নিয়ে বিভিন্ন সামাজিক ও গণমাধ্যমে নেতিবাচক প্রচারণা ছাড়াও সার্বিক দিক বিবেচনায় তার আবেদনটি নামঞ্জুর করা হয়েছে।ডিআইজি মিজানুর রহমান ১৯৯৭ সালের ৩০ জানুয়ারি থেকে ১৯৯৮ সালের ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত মাগুরায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সে সময় তিনি ব্যক্তিগতভাবে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি বেরেটা মডেলের (DDAA4983318 Beretta) পিস্তলের লাইসেন্স পান এবং ১০ রাউন্ড গুলিও ক্রয় করেন।এসএ/  

যশোরে মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে গোলাগুলি, নিহত ১

যশোর-মাগুরা সড়কের ভাটার আমতলা নামক স্থান থেকে মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত এক যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। একই সঙ্গে ঘটনাস্থল থেকে ৩ কেজি গাজা, ২০০ পিস ইয়াবা, একটি ওয়ান শ্যুটারগান ও দুইটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে বলে দাবি করেছে বাঘারপাড়া থানা পুলিশ।বৃহস্পতিবার ভোর রাত ৪টা ১৫ মিনিটে লাশটি যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় বলে হাসপাতালে থাকা লোকজন জানায়। বাঘারপাড়া থানার এসআই নাসিরুল হক খান জানান, বুধবার দিবাগত মধ্যরাতের পর যশোর-মাগুরা সড়কের ভাটার আমতলা নামক স্থান দুদল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে গোলাগুলির খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে যায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থলে তল্লাশিকালে গুলিবিদ্ধ এক ব্যক্তিকে পড়ে থাকতে দেখে তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার ওই ব্যক্তিকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি আরও জানান, ঘটনাস্থল থেকে ৩ কেজি গাজা, ২০০ পিস ইয়াবা, একটি ওয়ান শুটারগান ও দুইটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে।হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার আব্দুর রশিদ জানান, হাসপাতালে নেওয়ার আগেই ওই যুবকের মৃত্যু হয়। তার মাথায় গুলি লাগায় চেহারা বিকৃত হয়ে গেছে। এসএ/

যশোরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ মাদক ব্যবসায়ী, গণপিটুনীতে ১ ডাকাত নিহত

যশোরে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত দুইজন ও পিটুনীতে নিহত একজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার দিবাগত মধ্যরাতের পর লাশ তিনটি উদ্ধার করা হয়। গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত দুজন মাদক ব্যবসায়ী এবং পিটুনীতে নিহত ব্যক্তি ডাকাত বলে পুলিশ দাবি করেছে।যশোর কোতয়ালী থানার ওসি আজমল হুদা বলেন, যশোর শহরের চাঁচড়া রায়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে দুই দল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে গোলাগুলিতে নিহত হন ওই এলাকার সেকেন্দার আলীর ছেলে মানিক (২৭) ও সদর উপজেলার মণ্ডলগাতি গ্রামের জাহান আলীর ছেলে আহসান আলী (৫৬)। নিহত দুজনই চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী বলে জানান ওসি। তিনি বলেন, মানিকের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় ৯টি ও আহসান আলীর বিরুদ্ধে ১১টি মাদক মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে দুইটি দেশি পিস্তল, দুই রাউন্ড গুলি ও ৫টি গুলির খোসা এবং ৬শ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। এদিকে এর আগে সদর উপজেলার নোঙ্গরপুর এলাকা থেকে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। যশোর কোতয়ালী থানার ওসি আজমল হুদা জানান, একদল ডাকাত গাছ কেটে সড়ক ডাকাতির প্রস্তুতি নেওয়ার সময় গ্রামবাসী তাদের ধাওয়া দেয়। এসময় ডাকাতদের একজনকে ধরে ফেলে গণপিটুনী দেয় তারা। খবর পেয়ে পুলিশ ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ওসি জানান, গণপিটুনীতে নিহত ব্যক্তির নাম বুলি (৫৬), তার বাড়ি সদর উপজেলার হাশিমপুর গ্রামে। তার বিরুদ্ধে ১৪টি ডাকাতির মামলা রয়েছে বলেও ওসি জানান। এসএ/  

ঝিনাইদহে গোলাগুলিতে মাদক ব্যবসায়ী নিহত

ঝিনাইদহ সদর উপজেলায় দুদল মাদক ব্যবসায়ীর গোলাগুলিতে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। তবে নিহতের নাম-পরিচয় জানাতে পারেনি পুলিশ। ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক শেখ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। রোববার দিবাগত রাত ২টার দিকে উপজেলার জাড়গ্রাম নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে ১টি পিস্তল, ২ রাউন্ড গুলি, ২০ বোতল ফেন্সিডিল ও ১টি কার্তুজ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওসি এমদাদুল হক শেখ জানান, রোববার রাত ২টার দিকে ঝিনাইদহ-চুয়াডাঙ্গা মহাসড়কের পাশে জাড়গ্রাম এলাকায় দুদল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সেখান থেকে অজ্ঞাত পরিচয় যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে। একে//  

বাগেরহাটে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১

বাগরেহাটের চিতলমারী উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মিটুল বিশ্বাস (৪৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। চিতলমারী থানার ওসি অনুকুল চন্দ্র সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। শনিবার রাতে উপজেলার কলাতলা ইউনিয়নের চিংগুড়ি গ্রামে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে শুটারগান, দুই রাউন্ড গুলি, দুই কেজি গাঁজা ও ১০০টি ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত মিটুল বিশ্বাস উপজেলার কলাতলা ইউনিয়নের চিংগুড়ি গ্রামের খোকা বিশ্বাসের ছেলে বলে জানা গেছে। তার বিরুদ্ধে নয়টি মাদক, একটি হত্যা, তিনটি পুলিশের ওপর হামলার মামলাসহ মোট ২০টি মামলা রয়েছে। ওসি অনুকুল চন্দ্র সরকার জানান, চিতলমারী উপজেলার কুনিয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে শনিবার রাতে মিটুলকে আটক করে তাকে নিয়ে উপজেলার কলাতলা ইউনিয়নের চিংগুড়ি গ্রামে মাদক উদ্ধারে গেলে মিটুলের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি করলে মিটুলের সহযোগীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে মিটুলের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়। একে//

মেহেরপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক ব্যবসায়ী নিহত

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলায় দু’দল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ হাফিজুল ইসলাম ওরফে হাফি (৪৫) নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। গাংনী থানার ওসি হরেন্দনাথ সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। শনিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার কাথুলি ইউনিয়নের গাঁড়াবাড়িয়া বাথান মাঠ এলাকায় ‘বন্দুকযুদ্ধের’ এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশি পিস্তল ও ১১২ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত হাফিজুল ইসলাম গাংনী ডিগ্রি কলেজপাড়া এলাকার শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হারেজ উদ্দীনের ছেলে বলে জানা গেছে। হাফিজুল ইসলামের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসার অভিযোগে গাংনী থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানান ওসি। ওসি হরেন্দনাথ সরকার জানান, শনিবার রাতে গাঁড়াবাড়িয়া গ্রামের বাথান মাঠ এলাকায় দুদল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হচ্ছে এমন সংবাদ পেয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গেলে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। পরে গুলিবিদ্ধ হাফিজুল ইসলামকে উদ্ধার করে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। একে//

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি