ঢাকা, বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১১:২৯:০৭

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পুলিশের আয়োজনে সঙ্গীতানুষ্ঠান

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় কর্মরত পুলিশ সদস্যদের মাঝে ঈদের আনন্দ ছড়িয়ে দিতে অনুষ্ঠিত হলো সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা। গত বৃহস্পতিবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ লাইন অডিটোরিয়ামে এ সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন- চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ সুপার টি. এম মোজাহিদুল ইসলাম, বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী সামিউল হক লিটন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( সার্কেল) ওয়ারেশ আলী মিঞা, সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সাবের রেজা আহম্মেদ, গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মাহবুব, সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) চৌধুরী জুবায়ের, পরিদর্শক (অপারেশন) আতিকুল ইসলাম, উপ- পরিদর্শক রনি সাহা, গোলাম রসুল, রশিদুল ইসলাম, আইয়ুব আলীসহ তাদের পরিবারের সদস্যরা। নাচ ও গানের পরিবেশনায় মুগ্ধ দর্শকরা অনুষ্ঠানটি উপভোগ করেন। অনুষ্ঠানটির মূল আকর্ষণ ছিল দি ব্যান্ড আফটার রেইনের সংগীত পরিবেশনা। ব্যান্ড দলের ভোকাল পুলিশ সার্জেন্ট আব্দুল আলিম খানের অসাধারণ প্রতিভা মুগ্ধ করে তোলে অতিথিদের। পুলিশ সদস্যের মাঝে এই অনন্য প্রতিভার কারণে অসংখ্যবার পুরস্কৃত হন তিনি। আরকে/ডব্লিউএন

নাটোরে মাছচাষিকে গলা কেটে হত্যা

নাটোরের সালামত মোল্লা (৪৫) নামের এক মাছচাষিকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। আজ বৃহস্পতিবার সকালে জেলার সিংড়া উপজেলায় একশিং তারাই গ্রাম থেকে তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় বাড়ির পাশের পুকুর দেখার কথা বলে বের হন সালামত। পরে তিনি আর ফিরে আসেননি। বৃহস্পতিবার সকালে গ্রামের একটি রাস্তার পাশে তাঁর গলাকাটা মরদেহ দেখতে পায় এলাকাবাসী। পরে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। সিংড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল মামুন গণমাধ্যমকে বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পূর্বশত্রুতার জের ধরে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আর/ডব্লিউএন

চোরকে চিনে ফেলায় বগুড়ায় মা-মেয়েকে হত্যা

বগুড়ায় চোরকে চিনে ফেলায় মা-মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনার মামলার প্রধান আসামি রেজাউল করিম (৪০) আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। সোমবার বিকালে অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় প্রধান আসামি রেজাউল। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বগুড়া সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) আসলাম আলী গণমাধ্যমকে বলেন, গত ২৮ আগস্ট রাতে শহরতলির নামুজা ভান্ডারিপাড়ায় গৃহবধূ কাপিয়া আকতার ও তার শিশুকন্যা আয়েশা খাতুন খুন হন। পরদিন রাতে ঘর থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় মামলার পর পুলিশের তদন্তে নামুজা ভান্ডারিপাড়ার মাদকসেবী রিকশাচালক রেজাউল করিমের নাম আসে। ৩ সেপ্টেম্বর রোববার গোপনে খবর পেয়ে কাহালু উপজেলার বনবোনাই গ্রামে শ্বশুরবাড়ি থেকে রেজাউলকে গ্রেফতার করা হয় তাকে। তবে তদন্তের স্বার্থে পুলিশ অন্য ঘাতকদের নাম, পরিচয় প্রকাশ করতে রাজি হয়নি। //আর//এআর  

বাবার পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত রূপা

বাবার কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন রূপা খাতুন। সিরাজগঞ্জের তাড়াশে আসানবাড়ী নিজ গ্রামে পুলিশি পাহারায় বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানের কর্মী রূপা খাতুনকে সমাহিত করা হয়েছে। বন্যার কারণে নিজ বাড়িতে জানাজা করা সম্ভব হয়নি রূপার। পরে রাত ৮টার দিকে আসানবাড়ী গ্রামের আলামিন নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে রূপার জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এরপর আসানবাড়ী মসজিদ সংলগ্ন সামাজিক কবরস্থানে বাবার কবরের পাশেই তার দাফন সম্পন্ন করা হয়। এ সময় বারুহাস ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোক্তার হোসেন, তাড়াশ উপজেলা বিএনপির সভাপতি খন্দকার সেলিম জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক আফসার আলী, উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান টুটুল ও পুলিশ প্রশাসনসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। টাঙ্গাইল থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রূপার মরদেহ তাড়াশের আসানবাড়ী গ্রামের বাড়িতে পৌঁছালে সেখানে এক হৃদয় বিদারক পরিবেশ তৈরি হয়। ভাই-বোন আত্মীয়-স্বজনসহ গ্রামের লোকজন কান্নায় ভেঙে পড়েন। এলাকাবাসী অপরাধীদের দ্রুত শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ করেন। বগুড়া থেকে ময়মনসিংহ যাওয়ার পথে গত ২৫ আগস্ট শুক্রবার রাতে চলন্ত বাসে রূপাকে ধর্ষণের পর ঘাড় মটকে হত্যা করেন পরিবহন শ্রমিকেরা। মরদেহ টাঙ্গাইলের মধুপুর বন এলাকায় ফেলে যায় তারা। পুলিশ ওই রাতেই রূপার মরদেহ উদ্ধার করে। পরের দিন শনিবার টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রূপার মরদেহের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। ওইদিনই টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় কবরস্থানে বেওয়ারিশ মরদেহ হিসেবে তাকে দাফন করা হয়। গত সোমবার রূপার বড় ভাই মধুপুর থানায় গিয়ে সেখানে সংরক্ষিত রূপার ছবি ও কাপড় দেখে মরদেহ শনাক্ত করেন। রূপার মরদেহ টাঙ্গাইল থেকে তাদের বাড়ি সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় নিয়ে যাওয়ার জন্য রূপার ভাই হাফিজুল মধুপুর থানায় গত বুধবার আবেদন করেন। পুলিশ আবেদনটি টাঙ্গাইল বিচারিক হাকিম আদালতে পাঠিয়ে দেয়। জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম গোলাম কিবরিয়া বৃহস্পতিবার রূপার মরদেহ তুলে পরিবারের কাছে হস্তান্তরের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আদেশ দেন। বৃহস্পতিবার বেলা ৩টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও টাঙ্গাইল সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবদুর রহিম সুজন ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কাইয়ুম খান সিদ্দিকী টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় কবরস্থান থেকে মরদেহ তোলেন। পরে মরদেহটি রূপার ভাই হাফিজুলের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। বেলা সাড়ে ৩টার দিকে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় কবরস্থান থেকে মরদেহ বুঝে নিয়ে ভাই হাফিজুল ইসলাম প্রামাণিক বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন। এ ঘটনায় ছোঁয়া পরিবহনের বাসটির চালক, সুপারভাইজার ও তিন সহকারীসহ মোট পাঁচজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তারা সবাই ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। ডব্লিউএন

গোসল করতে নেমে ক্রিকেটার পাইলটের বাবার মৃত্যু

জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলটের বাবা সাবেক ফুটবলার শামসুল ইসলাম মোল্লা পুকুরে গোসল করতে নেমে মারা গেছেন। রোববার রাজশাহীর সাগরপাড়া এলাকায় বাড়ির সামনের পুকুরে গোলস করার সময় তার মৃত্যু হয়। পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, বেলা ১১টার দিকে শামসুল ইসলাম পুকুরে গোসল করতে গিয়ে অনেক দেরি করায় বাড়ির সামনের পুকুরে গিয়ে খোঁজ করা হয়। এসময় পানির নিচে তার লাশ পাওয়া যায়। উল্লেখ্য, শামসুল ইসলাম মোল্লা সাবেক ফুটবলার ছিলেন। তিনি পাকিস্তান আমলে পাকিস্তান যুব দলের হয়ে রাশিয়ায় খেলেছেন। স্বাধীনতার পর মোহামেডান এবং আবাহনীর হয়ে খেলেছেন তিনি। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি ডাইরেক্টরও ছিলেন।//আর//এআর

বগুড়ায় সমাজকল্যাণ সংগঠনের ত্রাণ বিতরণ

স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বানভাসী মানুষের কষ্ট লাঘবে ‘দেশ সমাজ কল্যাণ সংগঠন’ নামে একটি সামাজিক সংগঠন গত ২৪ ও ২৫ আগস্ট বগুড়ার চারটি স্থানে ত্রাণ বিতরণ করেছে। বগুড়ার ধনুট, কামালপুর, রাহাদাও সহ চারটি স্থানের পানিবন্দি অসহায় মানুষকে শুকনো খাবার ও খাবার স্যালাইন বিতরন করা হয় সংগঠনটির পক্ষ থেকে। ৪০ জনের টিম এ ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন। সকলের সহযোগিতায় প্রায় ১৩শ মানুষের হাতে ত্রান পৌঁছে দিয়েছে “দেশ সমাজ কল্যাণ সংগঠন”। যমুনা নদীর ওপারে রাহাদাও এলাকায় দেশ সমাজ কল্যাণ সংগঠন ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছে বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দা পারুল বেগম। সামান্য কিছু ত্রাণ নিতে বহু দূর থেকে শত শত মানুষকে নৌকা, টলারে ছুটে আসতে দেখা গেছে। দেশ সমাজ কল্যাণ সংগঠনের সভাপতি নূরে আলম জীবন বলেন, মানুষের সেবা করার সুযোগ পেয়ে রাব্বুল আলামিনের কাছে অশেষ শুকরিয়া জানাচ্ছি। সকলের সহযোগিতায় আমরা ত্রাণ পৌঁছে দিতে পেরেছি। অনেকের কাছেই আমাদের হাত পেতে চাইতে হয়েছে, নিজের জন্য নয়, মানবতার জন্য। আল্লাহর অশেষ রহমতে অনেকেই আমাদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। আমরা এখানে যে ত্রাণ নিয়ে গিয়েছি তা যেন তাদের কষ্টময় জীবনের কাছে কিছুই না। তাই সমাজের সকলের কাছে অনুরোধ, যার যার সামার্থ মত যেন তাদের পাশে দাঁড়াতে পারেন। এ ত্রাণ কার্যক্রমে এলিট ফোর্স সিকিউরিটিসহ সংগঠনের সাইফুল ইসলাম বুলবুল, মো. হাসান, রবিন হোসেন, সাইফুল ইসলাম সুফল, মো. মুন্না, জাকারিয়া, ফারুক হোসেন শ্রাবণ, মাজহারুল ইসলাম আকাশ, ইকবাল হোসেন, রাসেল হোসেন সহযোগিতা করেছে। আরকে/ডব্লিউএন

ধর্ষণের বিচার চাইতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার!

বগুড়ার ধুনট উপজেলার সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানসহ চারজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এক নারী বাদী হয়ে বগুড়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর আদালতে মামলাটি করেন। শুনানি শেষে আদালত ওই নারীর অভিযোগ এজাহার হিসেবে নিতে থানার পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে,  মামলার অভিযোগ ও আদালতে করা মামলার এক নম্বর আসামি ধুনটের মাঠপাড়া গ্রামের লিমন হোসেনের (২০) সঙ্গে প্রায় তিন মাস আগে মুঠোফোনে টাঙ্গাইলের এক নারীর প্রেমের সম্পর্ক হয়। ১৪ আগস্ট ওই নারী প্রেমের টানে লিমনের কাছে চলে যান। লিমন ওই নারীকে শেরপুর উপজেলার সকাল বাজার এলাকার একটি বাসায় নিয়ে যান এবং বিয়ের কথা বলে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। পরদিন সকালে লিমন ওই নারীকে তাঁর নিজ গ্রাম ধুনট সদর ইউনিয়নের মাঠপাড়ায় নিয়ে যান। এরপর ওই নারীকে লিমন তাঁর গ্রামের দুই বন্ধু ইব্রাহীম হোসেন (২৪) ও মুকুল হোসেনের (২০) হাতে তুলে দিয়ে পালিয়ে যান। ইব্রাহীম ও মুকুল ওই নারীকে একটি বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে পালিয়ে যান। পরে ওই নারী বিচারের জন্য সন্ধ্যার দিকে সদর ইউপির চেয়ারম্যান লাল মিয়ার বাড়িতে যান। এ সময় লাল মিয়া এ অভিযোগের বিচার করবেন বলে আশ্বাস দিয়ে ওই নারীকে তাঁর বাড়িতে রেখে ধর্ষণ করেন। পরদিন সকালে ওই নারী ধুনট থানায় গিয়ে মামলা করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। শেষ পর্যন্ত ওই নারী গতকাল দুপুরে বগুড়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর আদালতে গিয়ে চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। শুনানি শেষে ট্রাইব্যুনালের ভারপ্রাপ্ত বিচারক ইমদাদুল হক থানার পুলিশকে এজাহার হিসেবে নেওয়ার নির্দেশ দেন। অভিযোগের বিষয়ে ধুনট সদর ইউপির চেয়ারম্যান লাল মিয়া বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে আদালতে করা মামলার এক নম্বর সাক্ষী ইউসুফ আলীর বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতি, মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অভিযোগে থানায় ১০-১২টি মামলা রয়েছে। আমি চেয়ারম্যান হিসেবে এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে মাদকসহ ইউসুফ আলীকে কয়েকবার আটক করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেছি। ইউসুফ জেল থেকে ছাড়া পেয়ে আবারও মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। ইউসুফ তার ভাড়া করা এক নারীকে দিয়ে এই মিথ্যা মামলা করিয়েছে।’ ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, ‘চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আদালতে ধর্ষণ মামলা করার কথা মৌখিকভাবে শুনেছি। তবে আদালতের কোনো আদেশ এখনো পাইনি। আদেশ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ ওসি দাবি করেন, ওই নারী কখনো তাঁর থানায় কোনো অভিযোগ নিয়ে যাননি। পুলিশের বিরুদ্ধে আদালতে তিনি মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছেন। কেআই/ডব্লিউএন

শনিবার গাইবান্ধা ও বগুড়া যাবেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী শনিবার গাইবান্ধা ও বগুড়া সফর করবেন। এ সময় বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন ও বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করবেন তিনি । বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান মজনু সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। মজিবুর রহমান মজনু জানান, প্রধানমন্ত্রীর বগুড়া সফর উপলক্ষে মঙ্গলবার সারিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদের হলরুমে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামানের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাহাদারা মান্নান, উপজেলা চেয়ারম্যান মাছুদুর রহমান হিরু মণ্ডল প্রমুখ।   আরকে/ডব্লিউএন

সাংবাদিক শিমুল হত্যা : ৭ আসামির আত্মসমর্পণ

দৈনিক সমকালের শাহজাদপুর প্রতিনিধি শিমুল হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত পলাতক সাত আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করেছে। মঙ্গলবার দুপুরে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর আমলী আদালতে আত্মসমর্পণ করে তারা জামিনের আবেদন জানান। পরে বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাসিবুল হক তাদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। এদিকে, এ মামলার অন্যতম প্রধান আসামি শাহজাদপুর পৌরসভার বহিষ্কৃত মেয়র হালিমুল হক মিরু এবং তার দুই সহোদর হাবিবুল হক মিন্টু, হাসিবুল হক পিন্টু এবং তাদের একান্ত সহযোগী এম নাসিরসহ ১৪ জনকে শাহজাদপুর থানা পুলিশ এরই মধ্যে গ্রেফতার করেছে। মিরু বাদে সকলেই উচ্চ আদালত থেকে জামিনে ছাড়া পেয়েছেন। মঙ্গলবার একই আদালতে মেয়রের সহোদর মিন্টু ও পিন্টুসহ ১৩ জন আসামিই নিয়মিত হাজিরা দেন। আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর এ মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেন আদালত। আত্মসমর্পণকারী আসামিরা হলেন- শাহজাদপুর উপজেলার নলুয়া গ্রামের হাজী মোকছেদ আলীর ছেলে আব্দুর রাজ্জাক (৪০), খাগদিয়ার গ্রামের মৃত খবির উদ্দিনের ছেলে সাইফুল ইসলাম (৪৫), আন্দার কোঠাপাড়ার আব্দুল জব্বারের ছেলে আজিজুল হক আপন (৫৫), চুনিয়াহাটির মৃত দুলালের ছেলে আবু হানিফ (৪৫), দরগাহপাড়ার মৃত আজাদ প্রামানিকের ছেলে শাহান আলী (৪৫), পুকুরপাড়ের হাজী ইসমাইল হোসেনের ছেলে হুমায়ন ইসলাম (৪৭) ও রামবাড়ির মৃত আবুবক্কার সিদ্দিকের ছেলে মাহবুবুল আলম আকন্দ ওরফে সোহেল (৩৬)। শাহজাদপুর আমলী আদালতের জেনারেল রেকর্ড অফিসার (জিআরও) মো. আতাউর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। উল্লেখ্য, গত ২ ফেব্রুয়ারি শাহজাদপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি বিজয় মাহমুদকে মেয়র হালিমুল হক মিরুর সহোদর হাসিবুল হক পিন্টু অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে হাত-পা ভেঙে দেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মেয়রের বাড়ি ঘেরাও করেন। এ সময় মেয়রের শর্টগান থেকে গুলি ছোড়ার খবর আসে গণমাধ্যমে। সংঘর্ষের খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে মেয়রের ছোড়া গুলিতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান সমকালের শাহজাদপুর প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুল। শিমুল হত্যার ঘটনায় তার স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগম বাদী হয়ে মেয়রসহ ১৮ জনকে আসামি করে মামলা করলেও এজাহারভুক্ত ও ঘটনার সময়ের ভিডিও ফুটেজ থেকে সনাক্ত করে মোট ৩৬ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। কেআই/ডব্লিউএন

প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসায় কবিতা লেখায় যুবকের মাথা ন্যাড়া

সামাজিক যোগাযোগে ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করে কবিতা লেখায়’ বগুড়ার শাজাহানপুরে এক মাদ্রাসা ছাত্রকে মারধর ও মাথা ন্যাড়া করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। আবারও হামলার ভয়ে পালিয়ে থাকছেন ওই তরুণ। শুক্রবার গভীর রাতে জেলার শাজাহানপুর উপজেলার মাঝিড়া ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে বলে ওই মাদ্রাসাছাত্র ও তার পরিবারের সদস্যরা জানান। ১৮ বছরের ওই তরুণ এ বছর ডোমনপুকুর আমিনিয়া সিনিয়র কামিল মাদ্রাসা থেকে আলিম পাস করেছেন। তার গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার মিরের দেউলমুড়াহাট। তার পরিবারের সঙ্গে তিনি থাকেন বগুড়ার শাজাহানপুরে। এ ঘটনায় ওই তরুণের বাবা বাদী হয়ে সোমবার রাতে শাজাহানপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের পর পুলিশ এখনও কাউকে আটক করতে পারেনি। পুনরায় হামলার ভয়ে পালিয়ে থাকা ওই তরুণ গণমাধ্যমকে জানায়, গত বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তার ফেইসবুক পাতায় ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে অসাধারণ একটি কবিতা’ শীর্ষক একটি কবিতা পোস্ট করেন। এর পর শুক্রবার গভীর রাতে প্রতিবেশী আবু বক্কর সিদ্দিকের ছেলে শরিফুল ইসলাম (দূর সম্পর্কের মামাত ভাই) তার সহযোগীদের নিয়ে কৌশলে বাড়ি থেকে ডেকে নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। পরে হাত বেঁধে মারধর করে। তরুণ বলেন, শরিফুল বলে ‘ফেইসবুকে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে পোস্ট দিয়েছিস কেন? পোস্টটি ডিলিট করতে হবে। আর কখনও এ ধরনের পোস্ট দিবি না, দিলে যেখানেই থাকিস খুঁজে বের করে জানে মেরে ফেলব’। এক পর্যায়ে তারা তাকে মারধর করে মাথার অর্ধেক চুল ন্যাড়া করে দেয়। শাজাহানপুর থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর/ডব্লিউএন

সিরাজগঞ্জে কলেজ ছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা

সিরাজগঞ্জ সদরে এক কলেজছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার গভীর রাতে উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়নের জগতগাঁতী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সাথী আক্তার (১৮) জগতগাঁতী গ্রামের সাইদুর রহমান বাদলের মেয়ে। তিনি এবার শিয়ালকোল আবদুল্লাহ আল-মাহমুদ মেমোরিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষার্থী ছিলেন। স্থানীদের বরাত দিয়ে সদর থানা সূত্রে জানা যায়, রোববার বিকালে সাথীকে বাড়িতে রেখে পাশের গ্রামে আত্মীয়ের বাড়ি যান তার বাবা মা। তাঁরা রাতে বাড়ি এসে দেখেন, সাথী বাড়িতে নেই। অনেক খোঁজাখুঁজির পর বাড়ি থেকে প্রায় ১০০ গজ দূরের একটি বাঁশঝাড়ে সাথীর গলাকাটা মরদেহ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে পুলিশ আজ সোমবার ভোরে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।   //আর//এআর

সিরাজগঞ্জে বাসচাপায় প্রাণ গেল ৩ জনের

সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরে বাসচাপায় তিন অটোরিকশার যাত্রী নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছে আরও ছয় শিক্ষার্থী।রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সিরাজগঞ্জ-এনায়েতপুর সড়কের বেতিল বাজারে এ দুর্ঘটনা ঘটে।   নিহতদের মধ্যে দুজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তাঁরা হলেন-এনায়েতপুর থানার আজুগাড়া গ্রামের জহুরুল ইসলামের ছেলে মোহাম্মদ আলী (৩২) ও গোফরেখি গ্রামের আবদুল আজিজ মাস্টারের ছেলে আবদুল বাতেন (৩০)। অন্যজনের পরিচয় এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আহতদের সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।এনায়েতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস গণমাধ্যমকে জানান, দুপুর ১২টার দিকে ইমরান এন্টারপ্রাইজের যাত্রীবাহী একটি বাস সিরাজগঞ্জ থেকে এনায়েতপুরে যাচ্ছিল। বাসটি সিরাজগঞ্জ-এনায়েতপুর সড়কের বেতিল বাজার এলাকায় ব্যাটারিচালিত একটি অটোরিকশাকে চাপা দেয়।এতে ঘটনাস্থলেই দুজন নিহত হন। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হলে আরো একজনের মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনার পর চালক ও তাঁর সহকারী বাসটি ফেলে পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী সড়কে অবস্থান নিয়ে অবরোধ করে। এতে সিরাজগঞ্জ-এনায়েতপুর সড়কের বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। //এআর

মক্কায় আরও এক বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

সৌদি আরবের মক্কা আল-মুকাররমায় আরও এক বাংলাদেশি হজযাত্রী মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মারা যাওয়া জাহাঙ্গীর কামাল (৬৬) নাটোর জেলার বাসিন্দা। তাঁর পাসপোর্ট নম্বর- বি কে ০৩৯৩৬৩৯ এবং পিলগ্রিম আইড ০৭১৯০৮১। মক্কা থেকে প্রকাশিত হজ বুলেটিন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এ নিয়ে চলতি বছর এখন পর্যন্ত মোট চার বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু হলো। এর আগে ২ আগস্ট রাজবাড়ী সদরের আবদুর রাজ্জাক (৭৫) মারা যান। তার পাসপোর্ট নাম্বার বি এন ০৬০৭০২৬। পিলগ্রিম আইডি ০৫৯৮১৫৯। এছাড়া গত ১ আগস্ট বরিশাল জেলার মুলাদি থানার মো. ফরিদ উদ্দীন (৬১) পাসপোর্ট নম্বর- বি এম ০৯৫৩৫৫৫, পিলগ্রিম নম্বর ০১৫২২১১ এবং ২৮ জুলাই নেত্রোকোনা জেলা সদরের বাসিন্দা খোন্দকার এ আর এম ইউসুফ (৭৪) মারা যান। তার পাসপোর্ট নম্বর- বি এম ০৯২৩২৫৩ ও পিলগ্রিম নম্বর ০০৩৬২১৭। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ থেকে এ বছর মোট এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজযাত্রী পবিত্র হজ পালনে সৌদি আরব যাবেন। গত ২৪ জুলাই থেকে বাংলাদেশ থেকে চলতি বছরের হজ ফ্লাইট শুরু হয়েছে।   //আর//এআর

তুফান ও মার্জিয়ার ফের রিমান্ড চায় পুলিশ

বগুড়ার ছাত্রীকে ধর্ষণ ও নির্যাতনের দুটি মামলার আসামি শ্রমিক লীগ নেতা তুফান সরকার ও মার্জিয়া আকতারকে ফের তিন দিনের রিমান্ডে নিতে চায় পুলিশ। দুই দিনের রিমান্ড শেষে  রোববার তাঁদের আদালতে হাজির করা হচ্ছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সদর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) আবুল কালাম আজাদ গণমাধ্যমকে বলেন, বগুড়ার অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম শ্যামসুন্দর রায়ের আদালতে দুজনকে হাজির করে ফের তিন দিনের রিমান্ড আবেদন জানানো হবে।মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বলেন, এর আগে তুফান সরকারকে তিন দফায় সাত দিন এবং মার্জিয়াকে দুই দফায় ছয় দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তবে তুফান নির্যাতিত ছাত্রীকে ধর্ষণ এবং নারী কাউন্সিলর মার্জিয়া নির্যাতন ও চুল কেটে দেওয়ার কথা স্বীকার করেননি। শেষ দফায় গত শুক্রবার বগুড়ার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মোহা. আহসান হাবিবের আদালত তুফান ও রুমকির দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ওই দিন একই আদালতে তুফান সরকারের সহযোগী মুন্না ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। এর আগে আদালতে দোষ স্বীকার করে স্বীকারোক্তি দেন তুফানের আরেক সহযোগী আতিক এবং নাপিত জীবন রবিদাস।১৭ জুলাই বিকেলে ওই ছাত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেন বগুড়ার শহর শ্রমিক লীগের নেতা তুফান সরকার। পরে তুফান সরকারের স্ত্রী আশা সরকার এবং তার বড় বোন নারী কাউন্সিলর এবং তুফানের ক্যাডাররা ধর্ষণের শিকার ছাত্রী ও তার মায়ের ওপর নির্যাতন চালান। এরপর দুজনেরই মাথা ন্যাড়া করে দেন। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর মা বাদী হয়ে ২৮ জুলাই রাতে মামলা করেন। এর মধ্যে এজাহারভুক্ত নয়জনসহ মোট ১১ জন আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।//এআর

রাবিতে ১১ শিক্ষকের অবস্থান ধর্মঘট

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. নাসিমা জামানের অপসারণ দাবিতে বিভাগের ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে অবস্থান ধর্মঘট করছেন ওই বিভাগের ১১ শিক্ষক। সভাপতির কক্ষে বঙ্গবন্ধুর ছবি না রাখা ও দায়িত্বে অবহেলাসহ বিভিন্ন অভিযোগ আনেন আন্দোলনকারী শিক্ষকরা। তাদের দাবি, সভাপতির অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত আজ থেকে রোজ সকাল ৯টা থেকে ১২টা পর্যন্ত অবস্থান ধর্মঘট ও ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি চলবে। আন্দোলনকারীরা গণমাধ্যমকে জানান, সভাপতি ও একজন শিক্ষিকা শিক্ষকদের সম্পর্কে ভিত্তিহীন অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে বিভাগের শিক্ষকদের মানহানি হচ্ছে ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হচ্ছে। আমরা আর কোনো উপায় থাকায় আন্দোলনে বসেছি। তবে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি হবে এমন বিষয় উল্লেখ করলে তারা জানায়, আমরা এখন যে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করছি তা পরে পুষিয়ে দেওয়া হবে। প্রয়োজনে আমরা ছুটির দিনে ক্লাস-পরীক্ষা নেব। এর আগে গত ২ আগস্ট একই অভিযোগে সভাপতির প্রতি অনাস্থা জানিয়ে উপাচার্য বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন ওই ১১ শিক্ষক। এরআগে গত ৩১ জুলাই ওই ১১ শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ ও অসদাচারণের অভিযোগ করে উপাচার্যের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক নাসিমা জামান।   //আর//এআর

সাইকেল বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রীর নাতনি

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ৯৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রীদের ৬০০ বাইসাইকেল বিতরণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের স্বামী খন্দকার মাশরুম হোসেন মিতু। বৃহস্পতিবার সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজ মাঠে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সাইকেলে চড়ে বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন মাশরুম হোসেনের মেজো মেয়ে ও প্রধানমন্ত্রীর নাতনি আলীজা হোসেন।  ‘শোককে শক্তিতে পরিণত করে নারীদের ক্ষমতায়নে বাল্যবিবাহ রোধ করতে হবে’ স্লোগানকে সামনে রেখে খন্দকার মাশরুম হোসেন মিতু এদিন বাইসাইকেল বিতরণ করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে খন্দকার মাশরুম হোসেন মিতু বলেন, নারীর ক্ষমতায়নে, বাল্যবিবাহ রোধ করে নারীদের এগিয়ে আসতে হবে। বাল্যবিবাহ সামাজিক ব্যাধি, এর বিরুদ্ধে ঘরে ঘরে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। আর এই ব্যাধিকে রুখতে হলে শুধু সরকার নয় সমাজের সব শ্রেণির মানুষকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। তিনি বলেন, ২০ বছর আগে সেনাবাহিনী ও এসএসএফে নারীর অংশগ্রহণ ছিল না। এখন নারীর অংশগ্রহণ রয়েছে। ছাত্রীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে হবে। বাংলাদেশের নারীরা এখন বিশ্বের মধ্যে উল্লেখযোগ্য স্থানে রয়েছে। যারা বেআইনিভাবে বিবাহ দিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এজন্য বেআইনি বিবাহ বন্ধে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রিয়াজ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী আলহাজ আবদুল লতিফ বিশ্বাস, মিতুর ছোট বোন শারিতা মিল্লাত রিতুর স্বামী সিরাজগঞ্জ-২ (সদর-কামারখন্দ) আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত মুন্না, সিরাজগঞ্জ-পাবনা সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা বেগম স্বপ্না, জেলা প্রশাসক কামরুন নাহান সিদ্দিকা, পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদ, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক শারিতা মিল্লাত রিতু, অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. মনোয়ার হোসেন, নবম শ্রেণির ছাত্রী হাফসা খাতুন প্রমুখ। শিক্ষার্থীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরণ শেষে কলেজ মাঠ থেকে স্কুল ছাত্রীদের বর্ণাঢ্য বাইসাইকেল র‌্যালি শহর প্রদক্ষিণ করে। আর/ডব্লিউএন  

বিলুপ্তির পথে চাঁপাইয়ের মৃৎশিল্প

চাঁপাইনবাবগঞ্জের মৃৎশিল্প নানামুখী সংকটে বিলুপ্ত হওয়ার পথে। ফলে এর উপর নির্ভরশীল পরিবারগুলোর ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। অনেকে এই পেশায় থাকলেও সংসার চালাতে পারছেন না। অভাবের তাড়নায় নিত্য সময় কাটাচ্ছেন। কুমার সম্প্রদায়ের কোনো কোনো ঘরে চুলো জ্বলে না। একবেলা আধবেলা খেয়ে দিনানিপাত করছেন মৃৎশিল্পীরা। এক সময়ের কর্মব্যস্ত কুমারপাড়ায়  এখন শুনসান নিরবতা। মাটির তৈরি সামগ্রীর চাহিদা কমতে থাকায় উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন শিল্পটি এখন বিলুপ্তির পথে। এমনকি নিশ্চিহ্ন হওয়ার পথে পুরো পাল সম্প্রদায়। দিন দিন আধুনিক জিনিসপত্রের ভীড়ে বিলিন হতে বসেছে বাঙালি জীবনের হাজার বছরের ঐতিহ্য বহনকারী মাটির তৈরী তৈজস সামগ্রী।   স্টিল, চিনামাটি, মেলামাইন ও প্লাস্টিকের জিনিসপত্র বাজারে আসার পর মানুষ আর মাটির তৈরি হাঁড়ি, থালা, গ্লাস, মসলাবাটার পাত্র, মাটির ব্যাংক ও খেলনা সামগ্রী ইত্যাদি ব্যবহার করছেন না। এখন শুধু গবাদিপশুর খাবারের জন্য গামলা, কলস ও হিন্দুদের পূজা-পার্বণের জন্য নির্মিত কিছু সামগ্রীর চাহিদা রয়েছে। গ্রামাঞ্চলের অনেক মানুষ অবশ্য এখনও দৈনন্দিন প্রয়োজনে কিছু মাটির তৈরি পাত্র ব্যবহার করেন। কিন্তু মাটির তৈরি সৌখিন জিনিসপত্রের বাজার চাহিদা তেমন একটা নেই বললেই চলে। ফলে কুমার সম্প্রদায়ের সদস্যরা বাধ্য হয়ে অন্য পেশায় জড়িয়ে পড়ছেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার বারোঘরিয়া কুমার পাড়া,নতুন বাজার, চুনারিপাড়া ও রাজারামপুর কুমার পাড়ার প্রায় ৩ শ’ পরিবার এ পেশার সঙ্গে জড়িত। মহানন্দা নদী থেকে মাটি সংগ্রহ করে ছোট বড় সবাই নাওয়া-খাওয়া ভুলে রকমারি সামগ্রী তৈরির কাজে সারাদিনই ব্যস্ত থাকতেন মৃৎ শিল্পিরা। তবে কিছু দিনের ব্যাবধানে প্রায় ৫০ টি পরিবার এ পেশা ছেড়ে ভিন্ন পেশায় যুক্ত হয়েছেন। বারোঘরিয়া নতুন বাজারের কুমার ভিকু পাল বলেন, যুগ যুগ ধরে বংশ পরম্পরায় আমরা মাটির জিনিস তৈরি করে আসছি। এ পেশার সঙ্গে আমরা জড়িত থাকলেও আমাদের উন্নয়নে বা আর্থিক সহায়তায় সরকার কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা না থাকায় বিভিন্ন এনজিও বা সমিতি থেকে ঋণ নিয়ে বাপ-দাদার আমলের স্মৃতিকে কোনোরকম ধরে আছি। তিনি বলেন, সরকার যদি সহজ শর্তে ঋণ দিত, তাহলে এই শিল্পকে উন্নয়নের পাশাপাশি আরও সমৃদ্ধ করা যেত। বারোঘরিয়া কুমার পাড়ার কুমার শিল্পি নিলু রানী পাল ও একই এলাকার সোনা পাল জনান, মহানন্দা নদী থেকে এক সময় মাটি সংগ্রহ করা গেলেও এখন মাটি ক্রয় করতে হয়। এছাড়া জালানির দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় বাড়ছে উৎপাদন ব্যয়। অন্যদিকে দিন দিন মাটির জিনিসের চাহিদা কমতে থাকায় এখন আমাদের এ পেশায় থাকা কঠিন হয়ে পড়ছে। বংশীয় রীতি মতে এ পেশায় থাকলেও নতুন প্রজন্মের ছেলে- মেয়েরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে। যুক্ত হচ্ছে ভিন্ন পেশায়। আরকে/এআর

বগুড়ায় ছাত্রী ধর্ষণের আলামত মিলেছে

বগুড়ায় নির্যাতনের শিকার ছাত্রীকে ধর্ষণের আলামত মিলেছে ডাক্তারি পরীক্ষায়। ডাক্তারি পরীক্ষার প্রতিবেদন এরইমধ্যে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হাতে পৌছেছে। বগুড়ার জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগে ছাত্রীর ডাক্তারি পরীক্ষা হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও বগুড়া সদর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) আবুল কালাম আজাদ শুক্রবার গণমাধ্যমকে ধর্ষণের আলামত পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান, চিকিৎসকদের দেয়া প্রতিবেদনে ছাত্রী ধর্ষণের আলামত মিলেছে। প্রতিবেদনে মেয়েটি প্রাপ্তবয়স্ক নয় বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।প্রসঙ্গত, ১৭ জুলাই বাড়ি থেকে ক্যাডার দিয়ে তুলে নিয়ে গিয়ে ওই ছাত্রীকে বগুড়া শহর শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক তুফান সরকার ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ করা হয়। ঘটনা ধামাচাপা দিতে দলীয় ক্যাডার এবং এক নারী কাউন্সিলরকে ধর্ষণের শিকার মেয়েটির পেছনে লেলিয়ে দেন তুফান। ২৮ জুলাই বিকেলে তাঁরা ওই ছাত্রী ও তার মাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে চার ঘণ্টা ধরে নির্যাতন চালান। এরপর দুজনেরই মাথা ন্যাড়া করে দেওয়া হয়।এ ঘটনায় এই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে ২৮ জুলাই রাতে তুফান সরকার, তাঁর স্ত্রী আশা সরকারসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগে দুটি মামলা করেন। এর মধ্যে এজাহারভুক্ত নয়জনসহ মোট ১১ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।মামলার প্রধান আসামি তুফান সরকার, তার স্ত্রী বড়বোন মার্জিয়া আকতার এবং সহযোগী মুন্নার দ্বিতীয়দফা রিমান্ড শেষে আজ আদালতে হাজির করা হচ্ছে। অন্যদিকে তুফানের স্ত্রী আশা সরকার এবং শাশুড়ি রুমি বেগমকে বৃহষ্পতিবার অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম শ্যামসুন্দর রায়ের আদালতে হাজির করে তৃতীয় দফায় পাঁচদিনের রিমান্ড চাইলেও আদালত জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দিয়ে তাদের কারাগারে পাঠান। এ মামলায় ইতিমধ্যে তুফানের সহযোগী আতিক এবং ক্ষৌরকার ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছেন।//আর//এআর

তুফানসহ আসামিদের ফের রিমান্ডে চাইবে পুলিশ

বগুড়ায় ছাত্রী ধর্ষণ এবং মাসহ ওই ছাত্রীকে নির্যাতনের মামলায় শ্রমিক লীগ নেতা তুফান সরকার, তাঁর স্ত্রী ও শাশুড়িকে নতুন করে রিমান্ডে চাইবে পুলিশ। বুধবার ধর্ষণের মামলায় তুফানের তিন দিনের ও নির্যাতনের মামলায় তুফানের স্ত্রী আশা সরকার ও শাশুড়ি রুমি বেগমের দুই দিনের রিমান্ড শেষ হচ্ছে। বগুড়া পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান গণমাধ্যমকে বলেন, আসামিরা রিমান্ডে উল্লেখযোগ্য কোনো তথ্য না দেওয়ায় তাঁদের আরও সাত দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে। বগুড়ার অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম শ্যামসুন্দর রায়ের আদালতে হাজির করে এই রিমান্ড চাওয়া হবে। প্রসঙ্গত, গত ১৭ জুলাই ওই ছাত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে বগুড়ার শহর শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক তুফান সরকার। বিষয়টি ধামাচাপা দিতে তুফানসহ তার সহযোগীরা এক নারী কাউন্সিলরের মাধ্যমে চার ঘণ্টা ধরে ছাত্রী ও তার মায়ের ওপর নির্যাতন চালায়। এরপর দুজনেরই মাথা ন্যাড়া করে দেয়া হয়। এ ঘটনায় কিশোরীর মা বাদী হয়ে ২৮ জুলাই রাতে শ্রমিক লীগ নেতা তুফান সরকার, তাঁর স্ত্রী আশা সরকার, আশা সরকারের বড় বোন বগুড়া পৌরসভার সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী কাউন্সিলর মার্জিয়া আক্তারসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগে দুটি মামলা করেন। এর মধ্যে নয়জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। //আর//এআর

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি