ঢাকা, শুক্রবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৮ ৩:০৭:৪৮

ট্রেনে কাটা পড়ে প্রাণ গেলো মা-ছেলের

ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলায় ট্রেনে কাটা পড়ে শিশুসন্তানসহ লিজা আক্তার (২৫) নামে এক গৃহবধূ নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার ধামাইল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, নিহত লিজা আক্তারের স্বামীর নাম রাজীব মিয়া। পুলিশ ধারণা করছে, দুই বছর বয়সী ছেলে ইয়াসিনকে নিয়ে ওই গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। গফরগাঁও রেল পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, ধামাইল এলাকায় ময়মনসিংহ-ঢাকাগামী আন্তঃনগর যমুনা ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত হয়েছে তারা। সন্তানকে নিয়ে মা আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করছেন তিনি। তদন্তের পর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে জানান শফিকুল ইসলাম। একে// এআর

নেত্রকোণায় বোরো ধান কাটার উৎসব [ভিডিও]

নেত্রকোণার হাওর অঞ্চলে শুরু হয়েছে বোরো ধান কাটা উৎসব। এ’নিয়ে কৃষকদের মাঝে আছে উৎসব আমেজ, একইসঙ্গে আছে প্রাকৃতিক দুর্যোগ এড়িয়ে ফসল ঘরে তোলা নিয়ে কিছুটা শংকাও। নিরাপদে ফসল তুলতে মসজিদ-মন্দিরে চলছে দোয়া ও প্রার্থনা। আবহাওযা  অনুকুলে থাকলে এবার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে মনে করছে কৃষি বিভাগ। প্রতিনিধি মনোরঞ্জন সরকারের তথ্য ও ছবিতে আরো জানাচ্ছেন মিজানুর রহমান। কোন ধর্মসভা নয়, প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে নিরাপদে ফসল ঘরে তুলতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে হাওড় অঞ্চলের বিভিন্ন উপাসনালয়ে চলছে প্রার্থনা। এটাই এ এলাকার প্রথা। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুম এলেই বাঁধ ভেঙ্গে তলিয়ে যায় হাওড় অঞ্চলের কৃষকের স্বপ্ন। দুর্ভোগ এড়াতে সৃষ্টিকর্তার শরণাপন্ন কৃষকরা। শষ্য ভাণ্ডার খ্যাত নেত্রকোনা জেলায় ১ লাখ ৮৪ হাজার-৫ শ ৩০ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে বোরো ধান। হাওরে বর্ষার পানি ঢোকার আগেই পাকা ধান কাটতে শুরু করেছেন কৃষকরা। আবহাওযা অনুকুলে থাকলে এবারে ফসল উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে জানান আশা করছে কৃষি বিভাগ। নিরাপদে ফসল ঘরে তুলতে প্রার্থনার পাশাপাশি সকলের সহযোগিতা চেয়েছেন হাওরবাসী। ভিডিও: 

ময়মনসিংহে এসআইকে ছুরি হামলাকারী ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে এসআই আসাদুজ্জামন আসাদকে (৩৭) ছুরিকাঘাত করে আহত করার ঘটনায় দায়ের করা মামলার প্রধান আসামি উজ্জ্বল মিয়া কথিক বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দিবাগত রাত দুইটার দিকে বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি আশিকুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। ওসি আশিকুর রহমান জানান, মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে উপজেলা সদরের জেলখানা মোড় এলাকায় মামলার প্রধান আসামি উজ্জ্বলকে গ্রেফতারে অভিযান চালালে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে উজ্জ্বল ও তার সহযোগীরা পুলিশের ওপর বোমা নিক্ষেপ ও গুলি ছুড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশও আত্মরক্ষার্থে গুলি ছুড়লে গুলিতে উজ্জ্বল আহত হয়। পরে তাকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। উল্লেখ্য, গত ২৮ মার্চ রাতে গৌরীপুর পৌর এলাকার জেলখানা মোড়ে মাদক ব্যবসায়ীদের আটক করতে যান এসআই আসাদ। এসময় মাদক ব্যবসায়ী উজ্জ্বল পেছন থেকে এসআই আসাদকে ছুরিকাঘাত করলে গুরুতর আহত আসাদকে উদ্ধার করে প্রথমে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা সিএমএইচে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এই ঘটনায় গৌরীপুর থানায় মামলার দায়েরের পর তদন্তের দায়িত্ব পায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।  এ ঘটনার পর থেকেই উজ্জলকে গ্রেফতারে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছিল পুলিশ। একে// এআর

ময়মনসিংহে সড়ক দুর্ঘটনায় নিতহ ২

ময়মনসিংহ শহরের বাইপাস মোড়ে ট্রাকের সঙ্গে প্রাইভেট কারের ধাক্কায় দুজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন চালকসহ আরও দুজন। মঙ্গলবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম। নিহতদের মধ্যে প্রাইভেট কার যাত্রী পল্টুর (৩০) নাম জানা গেছে। তবে তার স্ত্রীর নাম জানা যায়নি। আহতরা হলেন ময়মনসিংহ শহর ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন আরিফ (২৭) ও রাজিব (২৯)। ওসি মাহমুদুল বলেন, ময়মনসিংহ শহরগামী প্রাইভেট কারের সঙ্গে একটি তেলবাহী ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে চারজন আহত হন। তাদেরকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে আহত অপর দুজনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওসি। একে// এআর

ময়মনসিংহের স্থলবন্দর পিকনিক স্পটে দর্শনার্থীদের ভিড়(ভিডিও)

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটের কড়ইতলী স্থলবন্দর পিকনিক স্পটে দর্শনার্থীদের ভিড় লেগেই থাকে। প্রতিদিন নানা বয়সী দর্শনার্থীরা আসেন সীমান্ত ঘেঁষা এই এলাকার নয়নাভিরাম সৌন্দর্য উপভোগ করতে। রাস্তাঘাটের উন্নয়নসহ অবকাঠামোগত সুবিধা বাড়ানোর দাবি দর্শনার্থীদের। আধুনিক মানের পিকনিক স্পট গড়ে তোলার কথা জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। মেঘালয়ের কোলঘেঁষা হালুয়াঘাট কড়ইতলী স্থল বন্দর। এর পাশেই ২০১৭ জানুয়ারীতে সাড়ে তিন একর জমির উপর ব্যক্তি মালিকানায় গড়ে উঠে হালুয়াঘাট পিকনিক স্পট। নয়নাভিরাম এই স্পটে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শনার্থীরা আসেন, উপভোগ করেন নৈসর্গিক সৌন্দর্য্য। শিশুদের জন্য আধুনিক মানের রাইডস আর হোটেল রেস্টুরেন্টসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা বাড়ানোর দাবি দর্শনার্থীদের। সরকারের সহায়তা পেলে ভবিষ্যতে আধুনিক মানে পরিণত করার কথা জানায় পিকনিক স্পট কর্তৃপক্ষ। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যময় স্পটটিকে আধুনিক মানে গড়ে তোলা গেলে, এটি হয়ে উঠতে পারে সম্ভাবনাময় একটি পর্যটন কেন্দ্র।

ভালুকায় বধ্যভূমি সংরক্ষণ ও শহীদদের স্বীকৃতি দাবি (ভিডিও)

স্বাধীনতার ৪৬ বছরেও ময়মনসিংহের ভালুকায় একাত্তরে গণহত্যায় শহীদ হওয়া ব্যক্তিদের স্বীকৃতি মেলেনি। অযত্ন, অবহেলায় পড়ে থাকা বধ্যভুমিগুলোও বিলীন হওয়ার পথে। মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাঁথা ও ইতিহাস নতুন প্রজন্মের মাঝে ছড়িয়ে দিতে বধ্যভূমিগুলো সংরক্ষণ, স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণসহ শহীদদের স্বীকৃতি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন শহীদ পরিবারের সদস্যসহ মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয়রা। ১৯৭১ সালের ১৮ জুলাই রাতে ভালুকার মল্লিকবাড়ী, ভান্ডাব গ্রামের আব্দুস ছামাদ ডাক্তারের বাড়ীতে রাজাকারও পাক বাহিনীর সদস্যরা হানা দেয়। রাতভর পরিবারের সদস্যদের উপর চালায় পৈশাচিক নির্যাতন। আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়া হয় বসতবাড়ী। গ্রেনেডের আঘাতে ক্ষত বিক্ষত বাড়ীর গাছ পালা ও বসতঘরের পোড়া টিন আজও বয়ে বেড়াচ্ছে সেই স্মৃতি। কিন্তু শহীদ পরিবার হিসেবে আজো রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পায়নি পরিবারের সদস্যরা। মল্লিকবাড়ী ছাড়াও সাতেঙ্গা, পাড়াগাঁও, বিরুনীয়া, ভাওয়ালিয়াবাজুসহ উপজেলার আরো কয়েকটি স্থানে পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা গণহত্যা চালায়। সংরক্ষণের অভাবে হারিয়ে যেতে বসেছে বধ্যভূমিগুলো। ভালুকার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংরক্ষণের বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও ভালুকা উপজেলা নির্বাহী অফিসার। ভাওয়ালিয়াবাজুতে একটি স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মাণ এবং বধ্যভুমিগুলো সংরক্ষণের দাবী স্থানীয়দের ।  

রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পাননি নেত্রকোনোর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান (ভিডিও)

২৫ মার্চ কাল রাতে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে হানাদারদের হামলার খবর ওয়ারলেসের মাধ্যমে সারাদেশ জানিয়ে দেন পুলিশ কনস্টেবল শাহ্জাহান মিয়া। পরবর্তীতে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন তিনি। স্বাধীনতার এতোবছর পরও রাষ্ট্রীয় কোনো স্বীকৃতি পাননি নেত্রকোনোর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান মিয়া। বীরমুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ শাহজাহানমিয়ার বাড়ি নেত্রকোনার কেন্দুয়া রচিরাং ইউনিয়নের বাট্টা গ্রামে। ৭১’এ পুলিশ কনস্টেবল শাহ্জাহান রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সের ওয়্যারলেস অপারেটর হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ২৫ মার্চ রাতে পাক হানাদারদের আক্রমণের খবর ওয়্যারলেসের মাধ্যমে তিনিই জানিয়েছিলেন। তাঁর সাহসী ভূমিকায় দেশের সব পুলিশ স্টেশনসহ সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে গিয়েছিল নিরীহ বাঙালিদের ওপর পাকিস্তানিদের হত্যাযজ্ঞের খবর। পুলিশের কাছে পর্যাপ্ত অস্ত্র না থাকলেও পাকিস্তানিদের সঙ্গে লড়াই করার জন্য মনোবল ছিলো মূলশক্তি। আর বঙ্গবন্ধু’র ৭ মার্চের ভাষণই ছিলো অনুপ্রেরনা। সারারাত যুদ্ধ শেষে ভোরে শাহজাহান মিয়াসহ ১শ জন বন্দি হন। অমানুষিক নির্যাতন সহ্য করে ২৮ মার্চ মুক্ত হয়ে গ্রামে ফিরেই যোগ দেন মুক্তিযুদ্ধে। পুলিশের পক্ষ থেকে মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান মিয়াকে সহযোগিতা দেয়া হয় বলে জানালেন পুলিশ সুপার। জীবন সায়াহ্নে এসে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি চান মুক্তিযোদ্ধা শাহ্জাহান মিয়া ।

ময়মনসিংহে বহুতল ভবনে বিস্ফোরণ, নিহত ১, আহত ৩(ভিডিও)

ময়মনসিংহের ভালুকায় একটি বহুতল ভবনের তৃতীয় তলায় বিস্ফোরণে একজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে তিনজন। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। বিস্ফোরণের পর থেকে বাড়িটি ঘেরাও করে রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। গত রাত ১২টার দিকে ভালুকার মাস্টারবাড়ি এলাকায় আর এস টাওয়ার নামে ছয় তলা একটি আবাসিক ভবনের তৃতীয় তলায় বিস্ফোরণ ঘটে। বিকট শব্দে জেগে ওঠে আশপাশের মানুষ। পরে ভবনটি থেকে ধোয়া বের হতে দেখা যায়। বিস্ফোরণের পর বাড়িটি ঘিরে ফেলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। র‌্যাব জানিয়েছে, ওই ফ্ল্যাটে চার তরুণ থাকতেন। তারা খুলনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স শেষ বর্ষের ছাত্র। একটি টেক্সটাইল মিলে ইন্টার্ন করছিলেন তারা। কয়েক দিন আগে ওই শিক্ষার্থীরা এক মাসের জন্য বাসাটি ভাড়া নেন। সকাল সাড়ে নয়টার দিকে গোয়েন্দা পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা ওই কক্ষে প্রবেশ করে তৌহিদ তপু নামে একজনের মৃতদেহ উদ্ধার করেন। এর আগে আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানান চিকিৎসক। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি। এটি জঙ্গিদের আস্তানা ছিল কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।  

ময়মনসিংহ শহরের জন্য চলছে ভূমি অধিগ্রহণ (ভিডিও)

নানা বাধা আর সংকট পেরিয়ে ময়মনসিংহ বিভাগ প্রতিষ্ঠার প্রায় আড়াই বছর পর ব্রহ্মপুত্রের চরাঞ্চলে নতুন বিভাগীয় শহরের জন্য চলছে ভূমি অধিগ্রহণের কাজ। তবে ন্যায্য মূল্যসহ নতুন শহরে বাসস্থানের দাবি জানিয়েছেন জমি মালিকরা। বিভাগীয় কমিশনার আশ্বস্ত করেছেন, ক্ষতিপূরণসহ মালিকদের আবাসনের জন্য প্লট বরাদ্দ দেওয়া হবে। ময়মনসিংহ সদরের চর ঈশ্বরদিয়া গ্রামের কৃষক সৈয়দ আলী। পৈতৃক সূত্রে পাওয়া ৭০ শতাংশ জমির ওপর প্রায় ৫০ বছর ধরে বাস করছেন। নতুন বিভাগীয় শহরের জন্য তার জমিটুকু অধিগ্রহণের আওতায় পড়ার নোটিশ পেয়েছেন। স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে নতুন এই শহরে থাকতে পারবেন কি-না এ নিয়ে চিন্তিত সৈয়দ আলী। বিভাগীয় প্রশাসনিক কার্যালয় ও শহর গড়ে তুলতে ব্রহ্মপুত্রের পূর্বপাড়ের ৮টি মৌজায় চরাঞ্চলে ৪ হাজার ৩শ’ ১৫ একর জমি অধিগ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। এর প্রতিবাদে বসতভিটা রক্ষার দাবিতে প্রায় দেড় বছর ধরে আন্দোলন-সংগ্রাম করে চরাঞ্চলবাসী। নানা সংকট কাটিয়ে অবশেষে চলতি বছর ফেব্র“য়ারির শেষ দিকে জমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু হয়। তবে কৃষক সৈয়দ আলীর মতো সবারই দাবি ন্যায্য মূল্যসহ বাসস্থানের। ভূমি অধিগ্রহণ কাজের অংশ হিসেবে নোটিশ প্রদানের শুরুর দিকে আন্দোলনকারীদের বাধা পেলেও এখন স্বাভাবিকভাবেই কাজ করতে পারছেন বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। এদিকে, বিভাগীয় কমিশনার বলছেন, তিনগুণ ক্ষতিপূরণসহ নতুন শহরে বাসস্থানের জন্য প্লটও পাবেন ভূমি মালিকরা। বাপ-দাদার ভিটেমাটিতে গড়ে ওঠা নতুন শহর আগামি প্রজন্মের জন্য শান্তির নীড় হবে, এমনটাই প্রত্যাশা স্থানীয়দের।  

ময়মনসিংহের উন্নয়নে নানা প্রকল্প (ভিডিও)

ময়মনসিংহ বিভাগ প্রতিষ্ঠার প্রায় আড়াই বছরেও লাগেনি উন্নয়নের ছোঁয়া। প্রত্যাশা আর প্রাপ্তির মিল খুঁজে না পেয়ে হতাশ সাধারণ মানুষ। কাঙ্খিত উন্নয়ন না হওয়ার জন্য রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবকে দায়ি করছেন এলাকার বিশিষ্টজনরা। তবে বিভাগীয় কর্মকর্তারা জানান, এরই মধ্যে ২২টি বিভাগীয় কার্যালয়ের কার্যক্রম শুরুসহ নানা উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।  ২০১৫ সালের ১৩ অক্টোবর যাত্রা শুরু হয় অষ্টম প্রশাসনিক বিভাগ ময়মনসিংহের। কিছু সরকারি স্থাপনা ও ব্যক্তি মালিকানার বাসা ভাড়া নিয়ে চলছে ২২টি বিভাগীয় কার্যালয়ের কার্যক্রম। সাধারণ মানুষের  অভিযোগ, দীর্ঘ প্রায় আড়াই বছরেও উন্নয়নের তেমন ছোঁয়া লাগেনি ময়মনসিংহ বিভাগীয় শহরসহ আশপাশের জেলাগুলোতে। শহরে রাস্তাঘাটের কোনো উন্নয়ন হয়নি; বেড়েছে যানজট। আশপাশের জেলার সাথে যোগাযোগের উন্নয়নে পুরনো ব্রহ্মপুত্রের উপর একাধিক ব্রিজ স্থাপনসহ ফোরলেন সড়ক নির্মাণের কথা থাকলেও তা না হওয়ায় বেড়েছে হতাশা। আর এজন্য রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবকেই দুষছেন বিশিষ্টজনরা। নতুন বিভাগের উন্নয়নে কিছুটা সময় লাগবে দাবি করে বিভাগীয় কমিশনার বলছেন, নানামুখী উদ্যোগ নেয়ার কথা। বিভাগীয় প্রশাসনিক কার্যালয় ও শহর গড়ে তুলতে ব্রহ্মপুত্রের পূর্বপাড়ের চরাঞ্চলে ৮টি মৌজায় জমি অধিগ্রহণের সিদ্ধান্তের কথাও জানান তিনি। 

জামালপুরের সংস্কার নেই গণকবর ও বধ্যভূমির

স্বাধীনতার ৪৬ বছর পরও সংরক্ষণ করা হয়নি জামালপুর জেলায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিভিন্ন গণকবর, সংস্কার করা হয়নি বধ্যভূমি। গোয়ালঘর আর গোবরের লাকড়ি শুকানোর স্থান হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে পাকিস্তানী সৈন্যদের টর্চার সেল আর কসাইখানা। মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানী হানাদাররা জামালপুরের বেলটিয়া থেকে পাথালিয়া পর্যন্ত রাস্তার দু’পাশের বাড়ি-ঘর অতর্কিতে পুড়িয়ে দেয়। শুরু করে গণহত্যা।   শহরের পিটিআই, পানি উন্নয়ন বোর্ড অফিস ছিল হানাদার বাহিনীর হেড কোয়ার্টার। সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজের ডিগ্রি হোষ্টেলটি ছিল টর্চার সেল এবং লম্বা টিনের ঘরটি ছিল কসাইখানা। এখানে সাধারণ মানুষ, মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারের সদস্যদের নির্যাতনের পর হত্যা করা হতো। স্বাধীনতার ৪৬ বছর পরও সংরক্ষণ করা হইনি বধ্যভূমি ও টর্চারসেল। পরবর্তী প্রজন্মের স্বার্থে জামালপুরের গণকবর ও বধ্যভূমি সংরক্ষণের দাবি জানিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধারা।  

ময়মনসিংহে কুমির চাষে সম্ভাবনা (ভিডিও)

বাংলাদেশ এখন দক্ষিণ এশিয়ার তৃতীয় কুমির রফতানিকারক দেশ। এ অর্জনের পেছনে ভূমিকা রেখেছে ভালুকার বেসরকারি কুমির চাষ প্রকল্প রেপটাইলস ফার্ম লিমিটেড। নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি করলে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি সম্ভাবনাময় খাত হিসেবে গড়ে উঠতে পারে কুমির চাষ। ভালুকার হাতীবেড়ি গ্রামে কুমির চাষ প্রকল্পটির শুরু একযুগেরও বেশি সময় আগে। ৫ কোটি টাকা বিনিয়োগে রেপটাইলস ফার্ম লিমিটেডের বাণিজ্যিক কুমির চাষ শুরু হয়। উদ্যোক্তা রাজিব সোম ১৩ একর জমিতে ৭৫টি মা কুমির নিয়ে শুরু করেন খামারটি। প্রতিষ্ঠার পর থেকে ৩ দফায় ১ হাজার ৩০টি কুমির রপ্তানীর পরও খামারে এখন কুমিরের সংখ্যা প্রায় ৫ হাজার। বর্তমানে ১৬ একরে বিনিয়োগ দাড়িয়েছে ৩০কোটিতে। প্রজনন উপযোগীঅনুকূল পরিবেশে প্রকল্পটি কাংখিত লক্ষ্য অর্জন করেছে। এই ফার্মের কুমির যাচ্ছে জার্মান ও জাপানে। বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের কুমিরের চাহিদাও আছে বেশ। বেসরকারি উদ্যোক্তারা এগিয়ে আসলে এ খাতেও সম্ভাবনা উকি দিচ্ছে বলে জানালেন প্রাণিবিদরা। সরকার সঠিক পরিকল্পনা নিলে কুমিরও অন্যতম রপ্তানী খাত হিসেবে গড়ে উঠবে বলে আশাবাদী সংশ্লিষ্টরা|

রাত্রীকালীন আবর্জনা অপসারণ শুরু ময়মনসিংহে

দীর্ঘদিনের দাবির মুখে রাত্রীকালীন আবর্জনা অপসারণের কাজ শুরু হয়েছে ময়মনসিংহ পৌরসভায়। উদ্যোগ সফল করতে জনসচেতনতা বাড়াতে মাঠে নেমেছেন মেয়র-কাউন্সিলররাও। জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া পৌর কর্তৃপক্ষের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন নগরীর নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ। পহেলা জানুয়ারি থেকে রাতের বেলা ময়লা-আবর্জনা অপসারণের কাজ শুরু করেছেন ময়মনসিংহ পৌরসভার পরিচ্ছন্নকর্মীরা। সচেতনতা বাড়াতে ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের নিয়ে লিফলেট বিতরণ এবং মাইকিং করে প্রচারণাও চালানো হচ্ছে। পৌর কর্তৃপক্ষের উদ্যোগকে স্বাগত জানালেও শহরের অলি-গলিতে এর বাস্তবায়ন দেখতে পাচ্ছেন না বলে অভিযোগও আছে। স্থানীয় বিশিষ্টজন-নাগরিক নেতারা উদ্যোগটিকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন। তবে সফল বাস্তবায়নে লোকবল বাড়ানোর পাশাপাশি পরিচ্ছন্নকর্মীদের আর্থিক সুবিধা বাড়ানো দরকার বলে মনে করেন তারা। আয়তনের প্রথম শ্রেণির এই পৌরসভার ২১ ওয়ার্ডে প্রতিদিন গড়ে জমা হয় ১৫০ মেট্রিক টন ময়লা-আবর্জনা। নগরবাসীকে সচেতন করার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় লোকবল ও ময়লাবাহী যানের সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে উদ্যোগ সফল করার আশা পৌর মেয়রের। ভিডিও লিংক: 

স্কুলের বরাদ্দের টাকা না দেওয়ায় প্রধান শিক্ষিকাকে মারধরের অভিযোগ

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য আসা বরাদ্দের ৫০ হাজার টাকা উত্তোলন করে পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও আওয়ামী লীগ নেতার হাতে তুলে না দেওয়ায় প্রধান শিক্ষিকাকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত বুধবার ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার চরশ্রীরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা পরদিন বৃহস্পতিবার বিকেলে এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। এতে ডৌহাখলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ ও তার ছেলে বাবু মিয়ার বিরুদ্ধে প্রধান শিক্ষিকা মারধরের অভিযোগ করেছেন বলে জানিয়েছেন গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তারিকুজ্জামান। ওসি আরও জানান, প্রধান শিক্ষিকার অভিযোগ আদালতে পাঠানো হয়েছে। আদালতের নির্দেশনা পেলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আবু সাঈদ গৌরীপুর উপজেলার মোজাফ্ফর আলী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি তিনি চরশ্রীরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি। অভিযোগের বরাত দিয়ে ওসি তারিকুজ্জামান জানান, প্রধান শিক্ষিকা ১৫ দিন আগে স্কুলে যোগদান করেন। গত বুধবার বিকেলে পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মো. আবু সাঈদ স্কুলে যান। তিনি স্কুলের নামে সরকারি অনুদানের ৫০ হাজার টাকা উত্তোলন করে তাকে দিতে প্রধান শিক্ষিকাকে বলেন। কাজ না করে সরকারি টাকা উত্তোলন এবং সভাপতিকে দিতে অস্বীকার করেন প্রধান শিক্ষিকা। ওই শিক্ষিকা অভিযোগ করেন, ‘এ সময় উত্তেজিত হয়ে সভাপতি আবু সাঈদ প্রধান শিক্ষিকাকে কিল-ঘুষি ও চর-থাপ্পড় দিতে থাকেন। মারধরের মুখে প্রধান শিক্ষিকা নিজ কার্যালয় থেকে বের হয়ে আত্মরক্ষার চেষ্টা করেন। তখন আবু সাঈদের ছেলে বাবু মিয়া (২৫) শিক্ষিকার ওপর চড়াও হন। তিনিও প্রধান শিক্ষিকাকে কিল-ঘুষি, চড়-থাপ্পড় মারা শুরু করেন। মারধরের একপর্যায়ে প্রধান শিক্ষিকা মাটিতে পড়ে যান। শিক্ষিকার চিৎকারে লোকজন এলে সাঈদ ও তার ছেলে দুজনই স্কুল ত্যাগ করেন। তবে বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আবু সাঈদ বলেন, আমার সঙ্গে প্রধান শিক্ষিকার ঘটনাটি মিটমাট হয়ে গেছে। এ বিষয়ে ডৌহাখলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল হক বলেন, আবু সাঈদ স্কুলের দাতা সদস্য। প্রধান শিক্ষিকা ১৫ দিন হলো যোগদান করেছেন। আসলে পরিচালনা কমিটির সভাপতি হিসেবে কিছু নিয়ম-নীতি মেনে চলতে হয়। তিনি সেটা না মানায় সমস্যা তৈরি হয়েছিল। তার বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শনিবার আমরা বসেছিলাম, প্রাথমিকভাবে বিষয়টি মিটমাট করেছি। ময়মনসিংহ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মোফাজ্জাল হোসেন জানান, পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি প্রধান শিক্ষিকাকে মারধর করে ঠিক করেননি। এসএইচ/

নেত্রকোণায় শহীদদের পরিবাররা কোনো সহযোগিতা পায়নি [ভিডিও]

স্বাধীনতার ৪৬ বছর পার হয়ে গেলেও নেত্রকোণায় শহীদ পরিবারগুলো সরকারি-বেসরকারি কোন সহযোগীতা পায়নি। নেয়া হয়নি বুদ্ধিজীবী হত্যার স্থানগুলো সংরক্ষণের কোনো উদ্যোগ। একাত্তরের ২৯ এপ্রিল হানাদার বাহিনী নেত্রকোনায় প্রবেশ করেই, মহকুমা প্রশাসকের কার্যালয়ে স্থানীয় রাজাকারদের সঙ্গে নিয়ে হত্যাযজ্ঞের নীল নকশা করে। প্রথম দিনই মোক্তারপাড়া’র সেন পরিবারের ডাক্তার মিহির সেনসহ ৬ সদস্যকে গুলি করে হত্যা করে। সেই বিভীষিকাময় ক্ষণটি আজো ভুলতে পারেনি পরিবারের সদস্যরা।  শুধু তাই নয় পর্যায়ক্রমে নেত্রকোণায় নির্বিচারে গণহত্যা চলে। ত্রিমোহনী ব্রীজ, মোক্তারপাড়া ব্রীজসহ ১৫টি স্থানে পড়ে থাকে কয়েক হাজার মুক্তিকামী জনতার মৃতদেহ। এদিকে এতো বছরেও বধ্যভূমিগুলো সংরক্ষিত না হওয়ায় ক্ষুব্ধ মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা। বধ্যভূমিগুলো সংরক্ষণ এবং শহীদ পরিবারকে অর্থনৈতিক সহযোগিতাসহ স্বীকৃতির ব্যবস্থার আশ্বাস দিয়েছে জেলা পরিষদ। একাত্তরের গণহত্যার বধ্যভূমিগুলো সংরক্ষণ ও শহীদ পরিবারকে সহযোগিতার আশ্বাস বাস্তবায়ন চান মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের মানুষেরা।

জামালপুরে ভাষা সৈনিকদের স্মৃতি চিহ্ন নেই

জামালপুরে ভাষা সৈনিকদের নামে কোন স্মৃতি চিহ্ন বা নামফলক নেই। তবে, ব্যক্তি উদ্যোগে এখানে গড়ে উঠেছে ভাষা সৈনিকের নামে একটি লাইব্রেরি। এখানে এসে নতুন প্রজন্ম ভাষা সৈনিক ও ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস সম্পর্কে কিছুটা হলেও জানতে পারছে। নতুন প্রজন্মকে ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস জানাতে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়ার দাবি জানিয়েছে স্থানীয়রা। শুধু রাজধানী নয়, ৫২’র ভাষা আন্দোলনের উত্তাপ ছড়িয়েছিলো সারা পূর্ব বাংলায়। রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই শ্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠেছিল জামালপুর। আন্দোলনে অংশ নিয়েছিলেন জামালপুরের সৈয়দ আব্দুস সুবহান, সৈয়দ আব্দুস সাত্তার, দিদারুল আলম খুররম, মুখলেছুর রহমান ফকির এবং মতি মিয়াসহ আরও অনেকে। জামালপুরে ভাষা আন্দোলনে অংশ নেওয়া কেউ এখন বেঁচে নেই। একমাত্র শহীদ মিনার ছাড়া তাদের স্মরণে কোন নামফলক বা স্মৃতি চিহ্ন তৈরি হয়নি আজও। শুধুমাত্র ব্যক্তি উদ্যোগে তিন বছর আগে শহরের দেওয়ানপাড়ায় গড়ে উঠেছে ভাষা সৈনিক মতি মিয়া ফাউন্ডেশন লাইব্রেরি। ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধকে জানতে এই লাইব্রেরি রাখছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। লাইব্রেরি থেকে প্রতি বছর একুশে ফেব্রুয়ারিতে মুক্তিযুদ্ধ এবং ভাষা সৈনিকদের ওপর নতুন বই প্রকাশিত হচ্ছে। নতুন প্রজন্মের জন্য ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস ও ভাষা সৈনিকদের স্মৃতি সংরক্ষণে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জামালপুরবাসী। এসএইচ/

শেরপুরে ব্যবসায়ীকে গলা কেটে হত্যা

  শেরপুর শহরের দীঘারপাড় এলাকায় একটি ধানখেত থেকে মাহবুব ইসলাম রাজু মিয়া (২৮) নামে এক ব্যবসায়ীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহত মাহবুব ইসলাম রাজু শহরের শেখহাটি এলাকার আব্দুল কুদ্দুস মিয়ার ছেলে। তিনি শহর বিএনপির আহ্বায়ক সাবেক ভারপ্রাপ্ত পৌর চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নানের ছোট ভাই বলে জানা গেছে। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নজরুল ইসলাম জানিয়েছেন, নিহত রাজুকে গলাকাটা এবং গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় পাওয়া যায়। নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার একটু পরে কেউ একজন ফোন করে পাওনা টাকা দেওয়ার কথা বলে রাজুকে বাড়ি থেকে ডেকে নেয়। বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর থেকেই তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। আজ শুক্রবার সকালে তার লাশ পড়ে আছে এমন খবর পেয়ে শনাক্ত করা হয়। একে//এসএইচ/

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি