ঢাকা, শুক্রবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৮ ৮:১৪:৪১

ক্যান্সার আক্রান্ত ইতি বাঁচতে চায় 

ময়মনসিংহের ত্রিশালের দরিরামপুর খাবলাপাড়া গ্রামের ইতি আক্তার। বয়স চৌদ্দ। দুরারোগ্য ক্যান্সারে ভুগছে।  মরণব্যাধি রোগের আক্রান্ত ইতি লেখাপড়া করতে চায়। কিন্তু চিকিৎসা খরচ চালানোর মতো অবস্থা ইতির পরিবারের নেই। চার বছর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান ইতির বাবা মনু মিয়া। মা নার্গিস আক্তার বাড়ি বাড়ি ঝিয়ের কাজ করে। দু’বছর আগে প্রাথমিকের সমাপনী পরিক্ষার প্রথম দিনেই বাড়ি ফেরার পথে আকস্মিকভাবেই বা’পায়ের হাঁটুর নিচের অংশ ব্যথা অনুভব করে সে। তারপর থেকে একটু একটু ফুলতে থাকে তার পা। পরে  স্থানীয়দের সহযোগিতায় ইতির মা তাকে ময়মনসিংহের ডেলটা হেলথ কেয়ারে ভর্তি করেন। এক্সরে ও আলট্রাসনোগ্রাফি রিপোর্টে ধরা পড়ে বাম পায়ের হাঁটুর নিচের অংশের হাড় ক্ষয় হয়ে মারাত্মক ব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছে সে। ফলে ক্যান্সারে আক্রান্ত পায়ের হাঁটুর ওপর থেকে নিচের অংশ কেটে ফেলেন চিকিৎসক। ভিটেবাড়ির বাইরে কয়েক শতক জমি ছাড়া কোনো সম্পদ নেই ইতির পরিবারের। তার চাচারা সবাই দিন মজুরের কাজ করে করেন। পরিবারের পক্ষে চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন সম্ভব না হলেও ইতির চিকিৎসা করানোর মতো অবস্থা নেই। চিকিৎসার পর কিছুটা ভালো হওয়ায় স্থানীয় আলী আকবর ভূইয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হয় সে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও প্রতিটি থেরাপির জন্য প্রয়োজন সর্বনিম্ন ৩০ হাজার টাকা। এলাকার লোকজনের সহায়তায় অনেকটা মন্থর গতিতে চলছে ইতির চিকিৎসা। এখন টাকার অভাবে একবারেই বন্ধ রয়েছে চিকিৎসা। এতে সে প্রায়ই খুব অসুস্থ হয়ে পড়ে। কিন্তু থেমে নেই তার পড়াশোনা। সে এবার সপ্তম শ্রেণিতে পড়ছে। কিছুটা সুস্থতাবোধ করলেই একপায়ে ভর করে যায় স্কুলে। ইতির ইচ্ছা মরণব্যাধি রোগের কথা না জানলেও সুস্থ হতে চায় ইতি। লেখাপড়া করতে চায় সে। দেশবাসীকে পাশে চায় ইতির পরিবার। ইতিকে বাঁচাতে তার ব্যয়বহুল চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের প্রতি সাহায্যের আবেদন করেন তার পরিবার। সাহায্যের জন্য প্রয়োজনে যোগাযোগ ও বিকাশ নাম্বার - ০১৭৮২৪৩১৬৭১ সাথী আক্তার ( ইতির বড় বোন)। কেআই/এসএইচ/

জামালপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নিহত দুই

জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পিতা-পুত্রের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন পুত্রবধূ। বুধবার রাতে উপজেলার চরগোয়ালিনী ইউনিয়নের ডিগ্রিরচর ফারাজিপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ইসলামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুজ্জামান খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। নিহতরা হলেন- ডিগ্রিরচর ফারাজিপাড়া গ্রামের সনতেশ আলী (৫৫) ও তার ছেলে নিজাম উদ্দিন (৩০)। আহত পুত্রবধূ সালমা আক্তারকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চরগোয়ালিনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শহিদুল্লাহ জানান, বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ডিগ্রিরচর ফারাজিপাড়া গ্রামের কৃষক সনতেশ আলীর ঘরের বৈদ্যুতিক লাইনের তারে ত্রুটি দেখা দিলে টিনের চাল বিদ্যুতায়িত হয়। এ সময় নিজাম উদ্দিন বিদ্যুতের লাইনের তার সারাতে গেলে তিনি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। এ অবস্থা দেখে তার বাবা সনতেশ আলী ও নিজাম উদ্দিনের স্ত্রী সালমা আক্তার তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে তারাও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। কিছুক্ষণের মধ্যে সনতেশ আলী ও নিজাম উদ্দিন ঘটনাস্থলেই মারা যান। পরে গুরুতর অসুস্থ সালমা আক্তারকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। একে//

দুর্নীতির অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেলেন শেরপুরের এমপি আতিক

দুদকের অনুসন্ধানে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন শেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য হুইপ আতিউর রহমান আতিক। দুদকের উপ-পরিচালক (বি.অনু ও তদন্ত-২) মির্জা জাহিদুল আলম স্বাক্ষরিক এক পত্রে অভিযোগটি পরিসমাপ্তি করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। দুদকের পক্ষ থেকে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগকেও এ বিষয়ে চিঠি দিয়ে অবহিত করা হয়েছে। ২৯ জুলাই তারিখের স্বাক্ষরিত পত্রটি ৩০ জুলাই সোমবার দুপুরে হুইপ আতিউর রহমান আতিক এমপি হাতে পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন। উল্লেখ্য, এ বছরের ৫ এপ্রিল অবৈধ সম্পদ অর্জনের বিষয়ে অভিযোগের প্রেক্ষিতে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) শেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য হুইপ আতিউর রহমান আতিককে দুদক কার্যালয়ে তলব করেন। দুদকের তলবের প্রেক্ষিতে গত ১৭ এপ্রিল হুইপ আতিউর রহমান আতিক এমপি সশরীরে দুদক কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে সম্পদের হিসাব জমা দেন। পরবর্তিতে অনুসন্ধানের পর দুদক অভিযোগটি পরিসমাপ্তি করে। এমএইচ/ এআর  

শেরপুরে পৃথক ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ

  শেরপুরে বিদেশি পিস্তল, পিস্তলের দুই রাউন্ড গুলিসহ একজন, ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার  দায়ে একজন ও চাচীর হাত কেটে ফেলার মামলায় একজনকে আটক করেছে পুলিশ। জেলা গোয়েন্দা পুলিশ গত রাতে অভিযোগের ভিত্তিতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়। শুক্রবার দুপুরে পুলিশ জানায়, শুক্রবার রাতে জেলার শ্রীবরদী উপজেলার জুলগাঁও এলাকা থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি নওজেশ আলী মিয়ার নেতৃত্বে একটি অভিযান চালানো হয়। ওই অভিযানে একটি বিদেশি ৭.৬২ এমএম পিস্তল ও  দুই রাউন্ড গুলিসহ ওই এলাকার আলফাজ দেওয়ানীর ছেলে হযরত আলী ওরফে বাসু মেম্বারকে (৪২) আটক করে পুলিশ। বাসু এলাকার চিহিৃত চোরাকারবারী ও তার সহোদর ভাইসহ তিন মামলার আসামি। অন্যদিকে, ফেসবুকে অন্যের নামে ফেক আইডি খুলে ধর্মীয় অবমাননা করার দায়ে শাহ আলম (২৩) নামে একজনকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। শাহ আলম নরসিংদী জেলার মনহরদি উপজেলার গুদারাঘাট গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে। শুক্রবার রাতে শেরপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশ নারায়নগঞ্জের পাগলা থেকে তাকে আটক করা হয়।  এ ব্যাপারে সদর উপজেলার কুমরী গ্রামের শরিফ মিয়া নামে একজন বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। এছাড়াও নালিতাবাড়ী থানায় দায়ের করা চাচীর হাত কেটে ফেলার মামলায় ভাতিজা জাহাঙ্গীরকে (২৮) ঢাকা থেকে গ্রেফতার করছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।   এমএইচ/ এসএইচ/

নেত্রকোনায় ছোট ভাইয়ের হামলায় বড় ভাই নিহত

নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় বসতবাড়ির সীমানা নিয়ে দুই ভাইয়ের বিরোধের জেরে ছোট ভাই ও তার পরিবারের সদস্যদের হামলায় বড় ভাই নিহত হয়েছেন। একই ঘটনায় আহত হয়েছেন নিহতের স্ত্রী রোকেয়া আক্তার ও ছেলে উজ্জ্বল মিয়া। আহতরা ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। নিহত আবুল কালাম (৫০) কৈলাটি গ্রামের মৃত আব্দুল কাদিরের ছেলে। বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার রোয়াইলবাড়ি ইউনিয়নের কৈলাটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কৈলাটি গ্রামের সবুজ মিয়ার সঙ্গে তার বড় ভাই আবুল কালামের বসতবাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে গত বুধবার দুই ভাইয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এরই জেরে বৃহস্পতিবার বিকালে দুই ভাইয়ের মধ্যে পুনরায় কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ছোট ভাই সবুজ মিয়া ও তার পরিবারের লোকজন দেশীয় অস্ত্রসশস্ত্র নিয়ে আবুল কালামের ওপর হামলা করে। এতে আবুল কালাম, তার স্ত্রী রোকেয়া আক্তার ও ছেলে উজ্জ্বল মিয়া মারাত্মক আহত হয়। পরে আশংকাজনক অবস্থায় তাদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সন্ধ্যার দিকে আবুল কালাম সেখানেই মারা যান। এ ব্যাপারে কেন্দুয়া থানার ওসি ইমারত হোসেন গাজী জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আরকে//

জামালপুরের কাঁসা শিল্প বিপর্যয়ের মুখে(ভিডিও)

একসময় জামালপুরের ইসলামপুরের ঐতিহ্য ছিলো কাঁসা শিল্প। এখানকার তৈরি কাঁসার কদর ছিল মোগল আর বৃটিশ রাজ পরিবারেও। নানা সঙ্কট আর সমস্যায় সেই কাঁসা শিল্প এখন বিপর্যয়ের মুখে। কাঁচামালের মূল্য বৃদ্ধি, কারিগর অভাব এবং পূঁজির অভাবে বংশ পরম্পরায় এ পেশা ছেড়ে দিতে বাধ্য হচ্ছেন অনেকে। জামালপুরের ইসলামপুরের কাসারীপাড়ার কাঁসা শিল্পের বেশ নাম ডাক ছিলো একদা। সময়ের বিবর্তনের এই শিল্পের জৌলুস এখন অনেকটাই হারিয়ে গেছে। মেলামাইন, প্লাস্টিক, সিরামিক আর কাচের তৈজসপত্রের ভিড়ে কাঁসা প্রায় বিলীন। অবশ্য সৌন্দর্য প্রিয় মানুষ আর সনাতন ধর্মালম্বীদের কাছে কাঁসার জিনিস পত্রের কদর আগের মতই। ইসলামপুরের এই কাঁসারী পল্লীতে কয়েক বছর আগেও যেখানে ছিল ২৫/৩০টি কারখানা, নানা সঙ্কটে এখন আছে মাত্র ৬/৭টি।  কাঁসার কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত তামা আর রাং-এর দুস্প্রাপ্যতা এই শিল্পকে সঙ্কটের মূখে দাঁড় করিয়েছে। তামা দেশে কমবেশি পাওয়া গেলেও রাং আমদানী করতে হয় মালয়েশিয়া থেকে। এছাড়া বেড়েছে কয়লার দামও। এসব কারণে টিকে থাকতে পারছে না কাঁসারী পরিবারগুলো। কাঁসা শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে সমবায় মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে সহায়তার চেষ্টা চলছে- জানান ইসলামপুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।  সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ, শুল্কমুক্ত রাং আমদানীর উদ্যোগ নেয়া হলে- ঐতিহ্যবাহী এই শিল্পটি টিকে থাকার পাশাপাশি পুনর্জাগরনের সম্ভাবনাও থাকবে, এমনটা মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

শেরপুরে ট্রাক-ট্রলির সংঘর্ষে হেলপার নিহত

শেরপুর সদর উপজেলার বাতিজখিলা এলাকায় বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে একটি ধান বোঝাই ট্রলি ও ট্রাকের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। ট্রলির হেলপার মাসুম (৩০) নামে ওই যুবক ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন। নিহত ট্রলি হেলপার মাসুম নকলা উপজেলার ধনাকুশা গ্রামের বাসিন্দা। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, নকলা উপজেলা থেকে ধান বোঝাই করে ট্রলিটির চালক ও হেলপার মাসুম শেরপুর সদর উপজেলার বাজিতখিলা বাজার সংলগ্ন জনৈক নজরুল ইসলামের চাতালে (রাইছ মিল) যাবার সময় পিছন দিক থেকে আসা অজ্ঞাত নাম্বার একটি ট্রাক ধান বোঝাই ট্রলির সঙ্গে সংঘর্ষ হলে ট্রলির চালকের পার্শ্বে থাকা হেলপার মাসুম চাপা পড়লে সে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। এসময় ট্রলির চাকাসহ ইঞ্জিনটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। খবর পেয়ে শেরপুর সদর থানার এসআই রবিউল ইসলাম মাসুমের লাশ উদ্ধার করেন। এসএইচ/

গাছের গোড়া থেকে গজানো চারায় ধান উৎপাদন

শেরপুরের সীমান্তবর্তী গারো পাহাড়ের পাদদেশে বোরো আবাদের পর এখন চলছে ‘মুড়িধান’ কাটার উৎসব। পাহাড়ী এলাকার এই ধান ঘরে তুলতে ব্যস্ত চাষীরা। বোরো ধান কাটার পর পতিত জমিতে রয়ে যাওয়া গাছের গোড়া থেকে গজানো চারায় উৎপাদিত ধান আশার আলো দেখাচ্ছে শেরপুরের চাষীদের। বোরো ধান কাটার পর জমিতে রয়ে যাওয়া ধানের গোড়া থেকে গজানো চারায় হয়েছে এই ধান। বিনা খরচের এই ধান হাসি এনে দিয়েছে কৃষকের মুখে। হাইব্রিড জাতের ধান ছক্কা, বাইওনিয়ার ফোর, তেজগোল্ড, তিনপাতা, এসএলএইটএইচ এর ধানের গোড়া থেকে এই ধান উৎপাদন হয়। স্থানীয় ভাষায় এই ধানকে বলা হয় ‘মুড়িধান’। কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, আউশ আবাদের আগেই এটি কাটা যায়। অল্প সময় এবং খরচ না হওয়ায়, চাষীরা আগ্রহী হয়ে উঠছে এই ধান চাষে। কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ি, চলতি বোরো মৌসুমে জেলায় প্রায় ৯২ হাজার ৬শ’ ১০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের ধান আবাদ হয়েছে। আগামীতে মুড়িধানের জাত ছড়িয়ে যাবে দেশজুড়ে- এমনটাই প্রত্যাশা সবার।

শেরপুরে বিল থেকে তিন শিশুর মরদেহ উদ্ধার

শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলায় ডুবে তিন শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার উপজেলার ভেলুয়া ইউনিয়নের কাউনের চর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। দুপুরে এই তিন শিশু বিলে নেমে নিখোঁজ হওয়ার ৬ ঘণ্টা পর এক শিশুর লাশ উদ্ধার করে স্থানীয়রা। পরে ১০ ঘণ্টা পর রাতে  ময়মনসিংহ থেকে ডুবুরির দল এসে অপর দুই শিশুর লাশ  উদ্ধার করেছে। নিহতরা হলো- ওই এলাকার শুকুর আলীর ছেলে মোহাম্মদ আলী (৭),ফকির আলীর ছেলে নূর মোহাম্মদ (৭) ও সোহরাব আলীর ছেলে রিয়াদ মিয়া (৬)। শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল হক এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে। ওসি রেজাউল হক জানান, বুধবার ভেলুয়ার কাউনের চর বিলের ধারে তিন শিশু খেলতে যায়। একপর্যায়ে আকস্মিকভাবে তারা বিলের পানিতে নিখোঁজ হয়। সন্ধ্যার পর শিশু নূর মোহাম্মদের মরদেহ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা উদ্ধার করে। পরে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও অপর দুই শিশুর কোনো সন্ধান না পেয়ে শেরপুর দমকল বিভাগে খবর দেওয়া হয়। শেরপুর দমকল বিভাগ ও ময়মনসিংহ থেকে আসা দমকল বিভাগের ডুবুরি দল রাত সাড়ে ১০টার দিকে অপর দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে। একে//

মাদ্রাসা কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

শেরপুর পৌরসভার মুন্সিবাজার এলাকার তেরাবাজার জামিয়া সিদ্দিকীয়া মাদ্রাসার কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। এতে তিন পুলিশসহ আহত হয়েছেন ১০ জন। শনিবার দুপপুরে এ সংঘর্ষ ঘটনা ঘটে। এ সময় এক পক্ষের হাতে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. মিনহাজ উদ্দিন লাঞ্ছিত হন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৬২ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ও ৫ রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। আহতদের মধ্যে মীরগঞ্জ এলাকার ওয়াজ কুরুনির ছেলে হাসান (২৫) ও গাজীরখামার এলাকার মনিরকে (২৫) জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে হাসানকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত তিন পুলিশ সদস্যসহ অন্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দুপুরে তেরাবাজার জামিয়া সিদ্দিকীয়া মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটি গঠনের জন্য সকাল ১১টায় সাধারণ সভা আহ্বান করা হয়। কমিটির বর্তমান সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল ওয়াদুদ অদু ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মো. সাইফুল ইসলাম স্বপন । কিন্তু দীর্ঘদিন যাবত একটি পক্ষ মাদ্রাসার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সাইফুল ইসলাম স্বপনকে কমিটিতে না রাখার দাবি করে আসছিলেন। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এরই ধারাবাহিকতায় আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মিনহাজ উদ্দিন মিনাল, ফখরুল মজিদ খোকন, খন্দকার নজরুল ইসলাম ও সাংগঠনিক সম্পাদক আনোরুল হাসান উৎপল এবং জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শোয়েব আহম্মেদ শাকিলসহ শহরের পূর্বাঞ্চলের বিপুলসংখ্যক ছাত্র-জনতা মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে অবস্থান নেন। এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন কবীর রুমান, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ছানুয়ার হোসেন ছানু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. বায়েযীদ হাসানসহ শহরের পশ্চিমাঞ্চলের বিপুলসংখ্যক ছাত্র-জনতা মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে এসে হাজির হয়। এ সময় মাদ্রাসা প্রাঙ্গণ ও আশপাশের এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৬২ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ৫ রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। এতে তিন পুলিশ সদস্যসহ ১০ জন আহত হয়। আতঙ্কে আশপাশের অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মিনহাজ উদ্দিন মিনাল অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘদিন যাবত মাদ্রাসার বর্তমান কমিটির শীর্ষস্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি ক্ষমতা কুক্ষিগত করে সেখানে বিএনপি ও জামায়াত শিবিরের লোকজনকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছেন। ফলে ওই সব লোক এই মাদ্রাসা থেকে সরকার বিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ড করছেন। এর প্রতিবাদ করায় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রুমানের ছোট ভাই ইয়াকুব আলী আজ শনিবার তাকে মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে লাঞ্ছিত করে। এই অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রুমান বলেন, তার ছোট ভাই কাউকে কোন রকম লাঞ্ছিত করেনি। অপরদিকে মাদ্রাসা কমিটির বর্তমান সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ অদু বলেন, এই মাদ্রাসা একটি অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান। দলমত নির্বিশেষে সবার সাহায্য-সহযোগিতায় মাদ্রাসাটি পরিচালিত হয়। এখানে ব্যক্তি বিশেষ বা কোন দলের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড করার কোন সুযোগ নেই। এ ছাড়া কমিটি গঠনের আজকের সভা মুলতবি করা হয়েছে বলে তিনি জানান। পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৬২ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ৫ রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। অপরদিকে এই ঘটনার জের ধরে শেরপুর-জামালপুর সড়কের কুসুমহাটী বাজারে বিক্ষুব্ধ জনতা বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে রাস্তার ওপর গাছ ফেলে এবং টায়ারে আগুন ধরিয়ে রাস্তা অবরোধ করে রাখে। ফলে ওই সড়কের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে বিকেল ৪টায় অবরোধ তুলে দিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে দেন। এ ব্যাপারে শেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম জানান বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এসএইচ/

বিপুল পরিমাণ জমির পাট নষ্ট, কৃষকরা দুঃশ্চিন্তায় (ভিডিও)

বিবৈরি আবহাওয়া আর শিলা বৃষ্টিতে বিপুল পরিমাণ জমির পাট নষ্ট হয়ে যাওয়ায় অলস সময় কাটাচ্ছেন নেত্রকোণার চাষীরা।  বিকল্প ফসলেরও কোনো ব্যবস্থা না হওয়ায় পরিবার নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় তারা। বছরের এই সময়টাতে পাট কাটা, পঁচানো এবং আঁশ ছাড়ানোর কাজে চরম ব্যস্ত থাকার কথা নেত্রকোণার চাষীদের। কিন্তু স্বপ্নভাঙার বেদনায় এখন কাটছে তাদের দিন। কৃষকরা জানান, আবাদের শুরুতেই অতি বৃষ্টিসহ বৈরি আবহাওয়ার কবলে পড়ে পাটচাষ। পরে শিলা বৃষ্টিতে নস্ট হয়ে যায় সব। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে জেলার মদন ও আটপাড়া উপজেলায়। ফসল ঘরে তুলতে না পারায় পাটচাষের উপর নির্ভরশীল পরিবারগুলো রয়েছে চরম দুঃশ্চিন্তায়। তবে ক্ষতিগ্রস্ত পাটচাষীদের সহযোগিতার আশ্বাস দিলেন এই কৃষি কর্মকর্তা। চলতি বছর জেলায় প্রায় ৫ হাজার ২০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হলেও সম্পূর্ণ নষ্ট হয়েছে অন্তত ৭শ’ হেক্টর জমির পাট। আর বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ৪ হাজার প্রান্তিক কৃষক।

দেশের বিভিন্নস্থানে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি(ভিডিও)

দেশের বিভিন্নস্থানে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। সিলেট-সুনামগঞ্জে প্লাবিত হয়েছে নতুন নতুন এলাকা। এদিকে ব্রহ্মপুত্রের পানি বাড়ায় ধসে পড়েছে তীর রক্ষা বাঁধ। এছাড়া তিস্তা- যমুনার পানি বেড়ে প্লাবিত হয়েছে গাইবান্ধার চরাঞ্চল। সিলেটের কানাইঘাটে সুরমা ও অমলসীদে কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। উজানের ঢল ও বৃষ্টিতে সিলেটের উপজেলাগুলোতে পানি বাড়ছে। তলিয়ে গেছে গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, কানাইঘাট ও জকিগঞ্জের বিস্তীর্ণ এলাকা। ২০ দিনের ব্যবধানে আবারো এসব এলাকায় বন্যার আশংকা দেখা দিয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে নি¤œাঞ্চলের কয়েক হাজার মানুষ। সুনামগঞ্জ শহরের ষোলঘর পয়েন্ট দিয়ে সুরমার পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে কাজিরপয়েন্ট, নবীরনগর, বড়পাড়া ও নতুনপাড়াসহ বেশ কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। জেলার দোয়ারাবাজার, বিশ^ম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলার ৩০টি গ্রাম প্লাবিত হওয়ায় বানভাসীদের দূর্ভোগ বেড়েছে। পাহাড়ী ঢল আর অবিরাম বৃষ্টিতে বেড়েছে তিস্তা, যমুনা ও ব্রহ্মপুত্রের পানি। কুড়িগ্রামের চিলমারীতে তীর রক্ষা বাঁধ এলাকায় ৯৫মিটার ব্লক ধসে পড়ায় আতংকে রয়েছে নদী তীরবর্তী মানুষ।  গাইবান্ধায় যমুনার পানি বিপদসীমার নিচে থাকলেও সাঘাটা, ফুলছড়ি সুন্দরগঞ্জসহ চার উপজেলার চরাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

ময়মনসিংহে বিদ্যাগঞ্জ সরকারী আবাসন বসবাসের অনুপযোগী (ভিডিও)

সংস্কার ও মেরামতের অভাবে বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে ময়মনসিংহে বিদ্যাগঞ্জ সরকারী আবাসন। এক যুগ আগে নির্মিত প্রকল্পের ঘরের চালায় মরিচা ধরে টিন ছিদ্র হয়ে পানি পড়ছে। একইসঙ্গে পানীয় জলের ব্যবস্থাসহ নেই নিষ্কাশন সুবিধা। ফলে আবাসনে বসবাস করা ভূমিহীন পরিবারগুলো রয়েছে চরম দুর্ভোগে। প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্পের আওতায় ২০০৪ সালে বিদ্যাগঞ্জ রেল স্টেশনের পাশে ভূমিহীন ১৮০ পরিবারের আবাসনে বসতঘর নির্মাণ করা হয়। এরপর আর সংস্কার হয়নি। বর্তমানে অধিকাংশ বসতঘরের চালায় ছিদ্র হয়ে গেছে। বৃষ্টির দিনে পলিথিন দিয়েও রক্ষা পাচ্ছেন বাসিন্দারা। নতুন করে বসানোর কথা বলে আবাসনের সরকারি টিউবওয়েলগুলো ভূমি অফিসের কর্মচারীরা নিয়ে যাওয়ায় পানীয় জলের সংকটে আছে পরিবারগুলো। একইসঙ্গে নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় অল্প বৃষ্টিতে জমে যায় পানি। এসব ব্যাপারে প্রশাসনের কাছে ধর্না দিয়েও কাজ না হওয়ায় হতাশ ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। বরাদ্দ পেলে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানায় উপজেলা ভূমি অফিস। বর্ষায় দুর্ভোগের কথা বিচেনায় দ্রুত আবাসন প্রকল্পের ঘরগুলো মেরামতের দাবি ভুক্তভোগীদের।

ময়মনসিংহে যুবককে কুপিয়ে হত্যা

ময়মনসিংহ শহরে মিল্লাত হোসেন (২৫) নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ইন্টেলিজেন্স) মুশফিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। শুক্রবার বিকালে শহরের মাসকান্দা এলাকায় ওই যুবককে কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে রাত ১০টার দিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ঢাকায় নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। মুশফিকুর রহমান জানান, শুক্রবার বিকালে মোটরসাইকেল নিয়ে বিরোধের জের ধরে নগরীর মাসকান্দা এলাকায় প্রতিপক্ষের লোকজন মিল্লাত নামে এক যুবককে কুপিয়ে জখম করে। আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়ার পথে মিল্লাতের মৃত্যু হয়। একে//

ঘুষের টাকাসহ দুদকের হাতে অডিটর গ্রেফতার

ঘুষের টাকাসহ এক অডিটরকে হাতেনাতে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিস থেকে ওই কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির নাম মো. হাসান। তিনি ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসের অডিটর। দুদকের প্রধান কার্যালয়ের উপপরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য ওই কর্মকর্তাকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। দুদক সূত্র জানিয়েছে, রাউতনবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মোয়াজ্জেম হোসেন অভিযোগ করেন, উপজেলা শিক্ষা অফিস তার একটি বকেয়া বিল তৈরি করে গত ১৩ মে উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসে জমা দেয়। বিল পেতে দেরি দেখে তিনি উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসে যোগাযোগ করেন। তখন উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসের অডিটর মো. হাসান তার নিজের ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার জন্য ১৫ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। মোয়াজ্জেম হোসেন প্রথমে ঘুষ দিতে অস্বীকার করলেও নিরুপায় হয়ে আলোচনার মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা দিতে সম্মত হন। তিনি পরে এ বিষয়ে দুদকে অভিযোগ জানান এবং আইনি প্রতিকার চান। কমিশন সব ধরনের আইনানুগ প্রক্রিয়া অবলম্বন করে ফাঁদ মামলা পরিচালনার জন্য একটি বিশেষ দল গঠন করে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিশেষ দলের সদস্যরা উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসের চারদিকে ওত পেতে থাকেন। নিজ দফতরে বসে অডিটর হাসান যখন ঘুষের ১০ হাজার টাকা গ্রহণ করছিলেন, ঠিক তখনই কমিশনের বিশেষ দলের সদস্যরা ঘুষের টাকাসহ হাসানকে হাতেনাতে গ্রেফতার করেন। এ বিষয়ে দুদকের ময়মনসিংহের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক সাধন চন্দ্র সূত্রধর বাদী হয়ে ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা থানায় একটি মামলা করেন। এসএইচ/

নেত্রকোনায় গৃহবধূকে ছুরিকাঘাতে খুন

নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলায় ময়না আক্তার (৩০) নামে এক গৃহবধূকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। কলমাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে উপজেলার কৈলাটি ইউনিয়নের চারিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী সাইকুল ইসলামকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সাইকুল ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী ময়না শুক্রবার একই ঘরে ঘুমিয়ে ছিল। হঠাৎ ভোর ৪টার দিকে ঘরের দ্বিতীয় দরজা দিয়ে কে বা কারা প্রবেশ করে ময়নাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে ময়নার চিৎকারে পাশে শুয়ে থাকা তার স্বামী ঘুম থেকে উঠে দুর্বৃত্তদের পালিয়ে যেতে দেখেন। একে//

‘তুমি সারাদেশের মা’

ময়মনসিংহের আব্দুস সামাদ নামের এক চালকের ইজিবাইক হারানো গেলে পরে প্রধানমন্ত্রীর মুঠোফোনে বার্তা পাঠানোর পর পুলিশ প্রশাসনের সহায়তায় ইজিবাইকটি ফিরে পেয়েছেন তিনি। পুলিশ জানায়, গত ২৮ মে রাতে তারকান্দা উপজেলার একটি গ্যারেজে চার্জ দেওয়ার সময় সামাদের ইজিবাইকটি চুরি হয়ে যায়। তারপর থানায় জিডি করা হয় এবং প্রধানমন্ত্রীর মুঠোফোনে সামাদ লিখেছেন, ‘তুমি সারাদেশের মা, আমাকে একটু সাহায্য করো।’ সৈয়দ নুরুল ইসলাম (পুলিশ সুপার, ময়মনসিংহ) বলেন, ‘আব্দুস সামাদ অত্যন্ত দরিদ্র মানুষ। তিনি অটোরিকশাটি হারান গত মাসের ২৮ তারিখ। গ্যারেজে চার্জ দেওয়ার সময় তার ইজিবাইকটি হারান। এরপর থানায় জিডি করার পাশাপাশি সামাদ প্রধানমন্ত্রীর নাম্বারে এসএমএস পাঠান। সে অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা ইজিবাইকটি খুঁজে বের করার সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাই। মাত্র ছয় ঘণ্টার ভেতর আমরা ইজিবাইকটি উদ্ধারে সক্ষম হই।’ পরে প্রশাসনকিভাবে পুলিশ সুপারকে ইজিবাইক উদ্ধারের নির্দেশ দেওয়া হলে পুলিশ প্রশাসন তৎপর হয়। এক পর্যায়ে গ্যারেজ মালিক জুলহাস ফকির নতুন একটি ইজিবাইক কিনে দেয় সামাদকে। পরে সেটি পুলিশের মাধ্যমে তার কাছে হস্তান্তর করা হয়। এজন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ইজিবাইক চালক। এ সময় তিনি বলেন, ‘প্রথমেই আমি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। তিনি আমার মতো সাধারণ মানুষের কথায় সাড়া দিয়েছেন। ঘটনার দিন আমি চা খাচ্ছিলাম। আমি প্রায় খবর শুনি উনি মানুষের সেবা করছেন। আমার বিশ্বাস ছিল তিনি আমাকে সাহায্য করবেন।’ এই বিশ্বাসে আমি গুগলে সার্চ দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নাম্বার নেই। এরপর আমি তাকে বার্তা পাঠাই,‘তুমি সারাদেশের মা, তুমি অসহায়ের মা, আমাকে একটু সাহায্য করো। আজকে পুলিশ সুপারের সহযোগিতায় আমি আমার ইজিবাইকটি ফিরে পেয়েছি। পুলিশ যে অসহায়ের বন্ধু তার বাস্তব প্রমাণ আপনারা দেখছেন।’ কেআই/ এসএইচ/

শেরপুরে বন্দুকযুদ্ধে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত

শেরপুর প্রতিনিধি: শেরপুর সদর উপজেলার চুনিয়ারচর গ্রামে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আল আমীন ওরফে ফকির নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। নিহত আল আমীন সদর উপজেলার চুনিয়ারচর গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে। মঙ্গলবার দুপুর দুইটার দিকে শেরপুর সদর থানার পুলিশ মরদেহটি ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে শেরপুর সদর থানায় নিয়ে গেছে। নিহতের পরিবার জানায়, গত রাত সন্ধ্যা আনুমানিক ৭টার দিকে নিহতের মামাতো ভাই সোহাগ বাড়ি থেকে আল আমীনকে ডেকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে একসাথে বের হয়ে যায়। পরে রাত সাড়ে ৯ টার দিকে পরিবারের লোকজন শুনতে পারে সোহাগ ডাকাতকে র‌্যাব গুলি করেছে এবং আল আমীন পালিয়ে গেছে। কিন্তু মঙ্গলবার সকাল ১০ টার দিকে তার বাড়ীর পাশেই একটি হলুদ ক্ষেতে আল আমীনের মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে তার স্বজনরা। স্বজনদের দাবী আল আমীনকে র‌্যাব গুলি করে মেরেছে। তবে, র‌্যাব-১৪ জামালপুর কোম্পানি কমান্ডার রাজীব কুমার দে মোবাইল ফোনে একুশে টেলিভিশনের প্রতিনিধিকে জানান, মঙ্গলবার রাতে আমাদের একটি দল মাদকবিরোধী অভিযানে শেরপুর সদরের চুনিয়ার চর এলাকায় গিয়েছিলো। সেসময় মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। অভিযান পরিচালনা দলটি ২ রাউন্ড গুলি ছুঁড়েছিলো। তবে সেসময় কোন হতাহতের সংবাদ জানা যায়নি। বুধবার সকালে গুলিবিদ্ধ এক মাদকব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধারের সংবাদ জানা গেছে। উল্লেখ্য, নিহত আলআমীনের বাবা মজিবর রহমানের বাড়ী সদর উপজেলার বলায়েরচর গ্রামে। বাবা দুই বিয়ে করায় আল আমীন তার মা ও দুই বোনকে নিয়ে নানার বাড়ী চুনিয়ারচর গ্রামে বসবাস করতো। এ ব্যাপারে শেরপুর সদর থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এসআর/ এমজে

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি