Ekushey Television

মূদ্রা বিনিময়ে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে প্রতারণা!

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৯:১০ পিএম, ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ শুক্রবার | আপডেট: ০৪:৫৬ পিএম, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ শনিবার

মূদ্রা বিনিময়ে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে প্রতারণা!

মূদ্রা বিনিময়ে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে প্রতারণা!

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে মুনাফা করছে কতিপয় দালাল চক্র। খুব কম দামে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মূদ্রা বিনিময় করে লাভবান হচ্ছে তারা। যেখানে মিয়ানমারের ১ লাখ কিয়েটের বিনিময়ে মাত্র ৩ হাজার বাংলাদেশি টাকা দেওয়া হচ্ছে। যেখানে তাদের পাওয়ার কথা ৫ হাজার ৯৭৩ টাকা (১ টাকা = ১৬.৭৪ কিয়েট হিসেবে)।

জানা গেছে, নতুন করে পাতা এ ফাঁদে রয়েছে উঠতি বয়সী কিছু স্থানীয় দালাল। একটু অন্ধকার হলেই মিয়ানমার সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গাদের পড়তে হচ্ছে তাদের খপ্পরে। সারা বছরের উপার্জনটুকু যেন সীমানা পার হয়ে দিয়ে দিতে হচ্ছে তাদের।

নাফ নদী পার হয়ে হোয়াইক্যং এলাকার লাম্বার বিলের মাঝখান দিয়ে জনস্রোতের মতো আসা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে এমন ঘটনা দেদারছে ঘটছে। রাস্তার মাঝখানে রোহিঙ্গাদের পথ গতিরোধ করে চক্রের সদস্যরা জোরে জোরে বলছে লাখে তিন, লাখে তিন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লাম্বার বিলের মাঝখানে এমনি ঘটনা চোখে পড়ে। কাছে গিয়ে দুই যুবকের পরিচয় জানতে চাইলে প্রথমে না বলতে চাইলেও পরে জানায় তাদের একজনের নাম বাবলু এবং অন্যজন আলাউদ্দিন, বয়স আনুমানিক ২৫’র মতো। পার্শ্ববর্তী নোয়াপাড়া এলাকায় তাদের বাড়ি।

চক্রের সদস্যরা জানায়, আমরা এ টাকা কিনে নিয়ে তাদের উপকার করছি। এ বিপদে অবৈধভাবে হলেও তাদের টাকা আমরা নিচ্ছি, এটাই যথেষ্ট! হিসেবে আরও বেশি দিতে হয় এমন প্রশ্নের জবাবে তারা জানালেন, আমাদেরতো কিছু পেতে হবে।

পরে দেখা যায়, তাদের সঙ্গে আরও দুই জন রয়েছে। তাদের ভাষ্য, মিয়ানমার টাকা ভাংতি হবে। লাখে ৩ হাজার। এমন সময় একজন রোহিঙ্গা মিয়ানমারের টাকা বিক্রি করছিলেন। তার কাছে রয়েছে মিয়ানমারের ৩৩ হাজার কিয়েট। তাকে দেওয়া হলো ১ হাজার ৫০ টাকা।

আবুল হোছাইন নামের ওই ব্যক্তি জানান, মংডুর আজুহাইয়া থেকে তিনি গত রোববার বাড়ি ত্যাগ করেন। টাকার বিষয় নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কী আর করা। কঁপালে যা আছে। মৃত্যুর খুব কাছ থেকে বেঁচে আসলাম। অর্ধেক মূল্যে হলেও এ বিপদে টাকা বিক্রি করতে পেরেছি-তো।

আরকে/ডব্লিউএন