ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২৩:৪৪:৩০

৩৪তম বিসিএস ফোরামের সভাপতি আজিজ সম্পাদক ইলিয়াছ

৩৪তম বিসিএস ফোরামের সভাপতি আজিজ সম্পাদক ইলিয়াছ

৩৪তম বিবিএস ফোরামের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর সভাপতি হয়েছেন বান্দরবনের সহকারী কমিশনার মো. আজিজুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. ইলিয়াছ হোসেন। 
৩৬তম বিসিএসে ক্যাডার হলেন আরও ২০ জন

৩৬তম বিসিএসে ক্যাডার হলেন আরও ২০ জন। বৃহস্পতিবার সকালে পিএসসি এ–সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। এ নিয়ে এই বিসিএসে দুই হাজার ৩৪৩ জন ক্যাডার হলেন। পিএসসি সূত্র জানায়, প্রসাশনে আট জন, পুলিশে তিন জন, সহকারী সার্জন পদে দুই জন, তথ্য ও কর ক্যাডারে এক জন করে, বিভিন্ন শিক্ষা ক্যাডারে পাঁচ জনসহ মোট ২০ জনকে নতুন করে ক্যাডার হিসেবে সুপারিশ করা হয়েছে। সব মিলে এই বিসিএসে ক্যাডার সংখ্যা হলো দুই হাজার ৩৪৩। ৩৬তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষায় পাঁচ হাজার ৯৯০ জন উত্তীর্ণ হন। প্রথম শ্রেণির দুই হাজার ১৮০ জন গেজেটেড কর্মকর্তা নিয়োগ দিতে ২০১৫ সালের ৩১ মে ৩৬তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। গত বছরের ৮ জানুয়ারি প্রিলিমিনারি পরীক্ষা হয়। দুই লাখের বেশি পরীক্ষার্থী এতে অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হন মাত্র ১৩ হাজার ৬৭৯ জন। গত বছরের সেপ্টেম্বরে তাদের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেন ১২ হাজার ৪৬৮ জন। চাকরিপ্রার্থীরা মৌখিক পরীক্ষা দেওয়া শুরু করেন ১২ মার্চ থেকে। তা শেষ হয় ৭ জুন। এসএইচ/

বিশেষ বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি চলতি মাসেই

গত ২৯ ডিসেম্বর ৩৮ তম বিসিএসসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। চলছে ফল তৈরির কাজ। এ মাসেই ৩৯তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছে সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি)।  সূত্রে জানাগেছে, ৩৯তম বিসিএস চিকিৎসকদের জন্য বিশেষ বিসিএস। এতে ৪ হাজার ৫৪২ জন সহকারী সার্জন আর ২৫০ জন সহকারী ডেন্টাল সার্জন নেওয়া হবে। এই বিশেষ বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ক্ষেত্রে আইনের কিছু সংশোধন করতে হবে। তাই তার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে পিএসসির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক বলেন, ৩৯তম বিসিএসের বিষয়টি সচিব কমিটিতে গিয়েছে। সেখান থেকে হয়তো দুই সপ্তাহের মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজ আমাদের কাছে আসবে। সেটি হলেই আমরা এই বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে পারব। এই মাসের মধ্যেই হয়তো ৩৯তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা যাবে বলে জানান তিনি। পিএসসি সূত্র জানায়, গত ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ৩৮তম প্রিলিমিনারির ফলাফল তৈরির কাজ আগামী সপ্তাহে শুরু হতে পারে। এ ক্ষেত্রে ফেব্রুয়ারিতে এই বিসিএসের ফল প্রকাশ হতে পারে। পিএসসিসর ওই সূত্র আরও জানায়, ৩৮ ও ৩৯তম বিসিএসের পাশাপাশি ৩৬তম বিসিএসের নন–ক্যাডারদের নিয়োগ ও ৩৭তম বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়ার কাজ করছে পিএসসি।  

৩৮তম বিসিএস’র প্রিলিমিনারি পরীক্ষা সম্পন্ন

দেশের ২৮৩টি পরীক্ষা কেন্দ্রে একযোগে অনুষ্ঠিত হয়েছে ৩৮তম বিসিএস’র প্রিলিমিনারি পরীক্ষা। শুক্রবার সকাল ১০টায় শুরু হয়ে ১২টায় শেষ হয় বহুনির্বাচনী ধরনের এ পরীক্ষা। এতে অংশ নেয় মোট তিন লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন প্রতিযোগী। বিসিএস পরীক্ষাগুলোর মধ্যে এবারই সবচেয়ে বেশি আবেদন জমা পরে। সকাল থেকেই পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রের বাইরে ভিড় করতে দেখা যায়। প্রায় সকল কেন্দ্রেই সকাল সাড়ে নয়টায় পরীক্ষার্থীদের প্রবেশ করতে দেয়া হয়। এবছর অনেক পরীক্ষার্থীই প্রশ্ন ফাঁসের আশংকা করলেও এখন পর্যন্ত এমন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক গণমাধ্যমকে বলেন, “কোনভাবেই যেন প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ না আসে এ বিষয়ে আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক ছিলাম। কোন ধরনের সমস্যা ছাড়াই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে”। নতুন কোন বিজ্ঞপ্তি না আসলে এটিই হবে বর্তমান সরকারের মেয়াদকালে শেষ সাধারণ বিসিএস পরীক্ষা। এস এইচ এস/ এএ

৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা শুক্রবার

৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা আগামীকাল শুক্রবার (২৯ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত হবে। এদিন দেশের ২৮৩টি কেন্দ্রে একযোগে সকাল ১০ থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এবার প্রিলিমিনারিতে মোট তিন লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ প্রতিযোগী অংশ নেবেন। ২৮৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ঢাকায় রয়েছে ১৬২টি কেন্দ্র। বিবিএস পরীক্ষার এবার আবেদন পড়েছে সর্বোচ্চ। ৩৭তম বিসিএসে অংশ নেয় দুই লাখ ৪৩ হাজার ৪৭৬ জন। বাংলাদেশ কর্ম কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক গণমাধ্যমকে বলেন, সব অনিয়ম এড়াতে সর্তক থাকবে পিএসসি। এবার সর্বোচ্চ আবেদনকারী হওয়ায় প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা আয়োজনে পিএসসির সদস্যসহ সকল কর্মকর্তা সার্বক্ষনিক কেন্দ্র পরিদর্শনে থাকবেন। অন্য বারের চেয়ে অনেক বেশি সতর্কতা অবলম্বন করতেই এসব ব্যবস্থা নেয় পিএসসি। আসন বিন্যাস দেখতে এখানে ক্লিক করুন আর

‘নিজের ওপর বিশ্বাস রাখতে হবে’

৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার আর মাত্র  দুদিন বাকী। দেশের প্রায় সাড়ে তিন লাখ চাকরি প্রার্থী এই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছেন।  এই দুদিনকে সামনে রেখে পরীক্ষার জন্য  এবং পরীক্ষার হলে কি করণীয় এ বিষয়ে  গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিয়েছেন ৩৬তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত মোহাম্মদ ইমরুল। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এপ্লাইড ক্যামিস্ট্রি অ্যান্ড ক্যামিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পড়াশোনা করেছেন। তার পরামর্শগুলো একুশে টেলিভিশন অনলাইনের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো- ১) এ অল্প সময়ে বিস্তারিত পড়ার যেহেতু সময় নেই তাই বিস্তারিত না পড়ে আগের পড়াগুলো ভালোভাবে রিভাইস দিন। ২) এ সময়ে শুধু প্রশ্ন এবং উত্তরগুলো পড়ে যান। ৩) শেষ সময়ে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়া যাবে না। নিজের ওপর বিশ্বাস রাখতে হবে। ৪) প্রশ্নপত্র পাওয়ার পর ভালো করে দেখে নিন এবং সেট কোডটি ভালোভাবে পুরন করুন। ৫) নিশ্চিত না হয়ে কোনো প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার দরকার নেই। ৬) আমি পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নিতে পারি না, আমাকে দিয়ে হবে না, আমি পারব না  এবং আমি সবচেয়ে কম প্রস্তুতি নিয়েছি এ সব চিন্তধারা মাথা থেকে বাদ দিতে হবে। ৭) এক প্রশ্নের উত্তরের জায়গায় অন্য প্রশ্নের উত্তরপত্রের বৃত্ত বরাট করা যাবে না। ৮) প্রশ্নের সিরিয়াল অনুযায়ী বৃত্ত ভরাট শুরু করুন। ৯) দাগানোর সময় যে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন তা ছোট করে মার্ক করে রাখুন। এতে পুনরায় রিভাইস দেওয়া সময় আপনার জন্য সুবিধা হবে। ১০) এ অল্প কয়েকদিনে যেহেতু গণিত বিস্তারিত করার সুযোগ নেই তাই সূত্রগুলো ভালোভাবে দেখে যান। এতে আপনার আত্মবিশ্বাসের লেভেল বৃদ্ধি পাবে। ১১) মোবাইল, ক্যালকুলের, ঘড়ি এবং ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস নিয়ে পরীক্ষার হলে যাবেন না। ১২)আপনাদের যে বিষয়গুলো একটু কঠিন মনে হবে সে বিষয়গুলো ভালোভাবে পড়ে যান ।   এম/এসএইচ

৩৮তম বিসিএসের আসনবিন্যাস প্রকাশ

৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার আনসবিন্যাস প্রকাশ করেছে পিএসসি। ২৯ ডিসেম্বর সকাল ১০ টা থেকে সকাল ১২টা পর্যন্ত ২০০ নম্বরের এমসিকিউ পরীক্ষা হবে। পিএসসি জানিয়েছে, এ বছর ৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নিতে ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী আবেদন করেছেন। এ প্রার্থীরাই প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নেবেন। ৩৮তম বিসিএস পরীক্ষার আবেদন গ্রহণের প্রক্রিয়া গত ১০ জুলাই শুরু হয়, শেষ হয় ১০ আগস্ট। পিএসসি সূত্রে জানা গেছে, ৩৮তম বিসিএসের মাধ্যমে জনপ্রশাসনে ২ হাজার ২৪ জন ক্যাডার কর্মকর্তা নিয়োগ করা হবে। প্রশাসন ক্যাডারের ৩০০, পুলিশ ক্যাডারের ১০০টি পদসহ ৩৮তম বিসিএসে সাধারণ ক্যাডারে মোট ৫২০টি, কারিগরি ও পেশাগত ক্যাডারে ৫৪৯টি এবং শিক্ষা ক্যাডারে ৯৫৫টি পদ থাকছে। আসন বিন্যাস দেখতে এখানে ক্লিক করুন     এসএইচ/

‘মানসিক চাপ নেবেন না, রিলাক্স থাকুন’

৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা একেবারে সন্নিকটে। এ মাসের ২৯ তারিখেই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মহা গুরুত্বপূর্ণ এ পরীক্ষা। যারা ৩৮তম বিসিএস পরীক্ষা দিবেন তাদের উচিত সময়কে সঠিকভাবে কাজে লাগানো। এবারের বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় আবেদন করেছেন তিন লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন শিক্ষার্থী। এ সব পরীক্ষার্থীদের মধ্যে এগিয়ে থাকতে আপনি শেষ সময়ে কীভাবে পড়বেন এ বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন ৩৬তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক-প্রশাসনের স্নাতক পার্থ প্রতীম বিশ্বাস। এই অল্প সময়ে যেহেতু বিস্তারিত পড়া সম্ভব নয়। তাই পূর্বের পড়াগুলো ভালোভাবে রিভাইস দিতে হবে। শেষ সময়ে নিজের উপর বিশ্বাস হারানো যাবে না। বিশেষ করে পরীক্ষার হলে নিজেকে শান্ত রাখাই সবচেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ। যার যার দূর্বলতা অনুযায়ী নিজের মত করে শেষ সময়ে প্রস্তুতি নেওয়াটা খুবই জরুরি। এ সময়ে শুধু প্রশ্ন এবং উত্তর একবার করে দেখে যান। আর গণিতের ক্ষেত্রে শেষ সময়ে এসে শুধু সূত্রগুলো পড়ার চেষ্টা করবেন। শেষ সময়ে এসে মানসিক দক্ষতা, গণিত, বিজ্ঞান, সাহিত্য ও কম্পিউটারের ক্ষেত্রে বিগত বিসিএস এবং পিএসসির বিভিন্ন পরীক্ষায় আসা প্রশ্নগুলো রিভাইস দিন । একটি কথা মনে রাখতে হবে যে, প্রশ্ন সহজ হলে সবার জন্যই সহজ হবে এবং কঠিন হলে সবার জন্যই কঠিন হবে। তাই এ নিয়ে চিন্তা করবেন না। পরীক্ষার হলের ২ ঘন্টার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে। পরীক্ষার হলে কোনোভাবেই না জানা প্রশ্নের উত্তর দেওয়া যাবে না। এক প্রশ্নের উত্তরের জায়গায় অন্য প্রশ্নের উত্তরপত্রের বৃত্ত বরাট করবেন না। সর্বোপরি পরীক্ষার আগে কোনভাবেই মানসিক চাপ নেওয়া যাবে না, রিলাক্স মুডে থাকার চেষ্টা করুন।   এম/এমআর

আগের পড়াগুলো যেভাবে দ্রুত রিভাইস দেবেন

৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। এ পরীক্ষার জন্য তিন লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী আবেদন করেছেন। এতো প্রার্থীদের মধ্যে আপনি যদি সফল হতে চান, আপনাকে অবশ্যই কৌশলী হতে হবে। এই অল্প কয়েকদিন সামনে রেখে পরীক্ষার জন্য কিভাবে প্রস্তুতি নিবেন সে বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিয়েছেন ৩৬তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত রাজন সাহা। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে আইটি বিভাগে পড়ালেখা করেছেন। তার পরামর্শ নিয়ে লিখেছেন একুশে টেলিভিশন অনলাইনের রিপের্টার মাহমুদুল হাসান। ৩৮ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা দোড়গোড়ায়। সময় রয়েছে মাত্র এক সপ্তাহ। এই অল্প সময়ে নতুন করে পড়ার দরকার নেই। পূর্বে যা পড়েছেন তা ভালোভাবে রিভাইস দিতে থাকুন। শেষ মুহূর্তে এসে বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়গুলোর প্রতি জোর দিন। এছাড়া বাংলা সাহিত্য ও ইংরেজি সাহিত্যের প্রতিও জোর দিতে পারেন। কেননা শেষ মুহূর্তে ঝালাই দিতে পারলে এ বিষয়গুলোতে পূর্ণ নাম্বার পাওয়া সম্ভব। শেষ মুহূর্তে এসে মাথা ঠান্ডা রাখা খু্বই জরুরি। কোনোভাবেই চাপ নেওয়া যাবে না। এছাড়া পরীক্ষার হলে না জানা প্রশ্নের উত্তর দেওয়া যাবে না। পরীক্ষার হলের সময়টুকু ভালোভাবে কাজে লাগান। জয় আপনার হবেই । সবশেষে আবারো বলব পূর্বের পড়াগুলো ভালোভাবে রিভাইস দিন এবং নিজের উপর বিশ্বাস রাখুন। কোনোভাবেই আত্মবিশ্বাস হারাবেন না। সবার জন্য শুভ কামনা রইল।  

শেষ সময়ে প্রিলির জন্য পড়বেন যেভাবে

৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার আর মাত্র অল্প কয়েকদিন বাকি। দেশের প্রায় সাড়ে তিন লাখ চাকরি প্রার্থী এই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছেন।  এই অল্প কয়েকদিন সামনে রেখে পরীক্ষার জন্য কিভাবে প্রস্তুতি নিবেন সে বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিয়েছেন ৩৬তম বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত রাজিব হোসেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজবিজ্ঞান বিভাগে পড়ালেখা করেছেন। তার পরামর্শ নিয়ে লিখেছেন একুশে টেলিভিশন অনলাইনের রিপের্টার মাহমুদুল হাসান। আপনার মনে হতে পারে, এতো বড় সিলেবাস এই অল্প সময়ে শেষ করা সম্ভব নয়। কিন্তু আপনাকে রিভাইস দেওয়ার মাধ্যমে মনের দুর্বলতা দূর করতে হবে। এখন নতুন করে কিছু না পড়ে  আগে যা পড়েছেন তা ভালোভাবে রিভাইস দিতে থাকুন। যার যার দূর্বলতা অনুযায়ী নিজের মত করে শেষ সময়ে প্রস্তুতি নিতে হবে। এক্ষেত্রে শেষ সময়ে এসে বাংলাদেশ এবং আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি, বাংলা সাহিত্য এবং ইংরেজি সাহিত্য এ ৪টি বিষয়ের উপর জোর দিতে হবে। যেহেতু বিস্তারিত পড়ার সময় নেই তাই শেষ সময়ে বিস্তরিত পড়ার কোনো দরকার নেই। শুধু প্রশ্ন এবং উত্তর একবার করে দেখে যান। আর গণিতের ক্ষেত্রে শেষ সময়ে এসে শুধু সূত্রগুলো পড়ার চেষ্টা করবেন। যেনো কোনোভাবেই সূত্র ভুল না হয়। এ অল্প কয়েকদিনে যেহেতু গণিত বিস্তরিত করার সুযোগ নেই তাই সূত্রগুলো ভালোভাবে দেখে যান। এতে আপনার আত্মবিশ্বাসের লেভেল বৃদ্ধি পাবে। মেন্টাল এবিলিটি, নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সুশাসন বিষয়ে শেষ সময়ে তত বেশি জোর দেওয়ার দরকার নেই। এ সকল বিষয়ের উপর এমন কিছু প্রশ্ন থাকে যা পরীক্ষার হলে ভালোভাবে চিন্তা করেলে উত্তর দেওয়া সম্ভব। তবে এ বিষয়গুলোতে উত্তর দেওয়ার সময় সাবধান থাকতে হবে। কোনোভাবেই ভুল উত্তর দাগানো চলবে না। আপনাদের যে বিষয়গুলো একটু কঠিন মনে হবে সে বিষয়গুলো ভালোভাবে পড়ে যান এবং বাকি বিষয়গুলো প্রশ্ন এবং উত্তর দেখে যান। শেষ সময়ে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়া যাবে না। নিজের উপর বিশ্বাস রাখেতে হবে। আমি মনে হয় প্রর্যাপ্ত প্রস্তুতি নিতে পারি নি, আমাকে দিয়ে হবে না, আমি পারব না  এবং সবচেয়ে কম প্রস্তুতি নিয়েছি  এ সকল চিন্তধারা মাথা থেকে বাদ দিতে হবে। একটি করে মডেল টেস্ট দিতে পারেন। মডেল টেস্ট দিয়ে শুধু দেখবেন কয়টা প্রশ্নের  উত্তর হয়েছে। কয়টা পারলাম আর কয়টা পারলাম না এ বিষয়ে চিন্তা করা যাবে না। সর্বোপরি, বিসিএস প্রিলিমিনারিতে উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য নিশ্চিত হয়ে ১৩০-১৪০ টি প্রশ্ন দাগানোই বুদ্ধিমানের কাজ।     এম/এমআর            

বিসিএস প্রিলির পরীক্ষার হলে করণীয়

আগামী ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা। এ পরীক্ষায় তিন লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী আবেদন করেছেন। এতো প্রার্থীদের মধ্যে আপনি যদি সফল হতে চান, আপনাকে অবশ্যই কৌশলী হতে হবে। এ জন্য যথাযথভাবে কাজে লাগাতে হবে সামনের দিনগুলোকে। এছাড়াও পরীক্ষার পূর্বের কয়েক দিন এবং পরীক্ষার হলে আপনার কী করণীয় এ ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিয়েছেন ৩৬তম বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এস এম জামাল হোসেন। তার দেওয়া টিপস নিয়ে লিখছেন একুশে টেলিভিশন অনলাইনের রিপোর্টার মো. মাহমুদুল হাসান । ১) কোনোভাবেই না জানা প্রশ্নের উত্তর দেওয়া যাবে না। ২) প্রশ্নের ধরণ অর্থাৎ সহজ বা কঠিনের উপর ভিত্তি করে ১০০ থেকে ১২০ মত মার্কস পেলেই উত্তীর্ণ হওয়া যাবেন। তাই নিশ্চিত হয়ে বৃ্ত্ত বরাট করতে হবে। ৩) মনে রাখতে হবে প্রিলিমিনারি পরীক্ষাতে উত্তীর্ণ হলেই চলবে এখানে প্রথম বা দ্বিতীয় হওয়ার কিছু নেই। ৪) আর যে ক’দিন সময় রয়েছে পূর্বের পড়াগুলো ভালোভাবে রিভিশন দেওয়ার চেষ্টা করুন। ৫) সৃষ্টিকর্তার উপর সব সময় আস্থা ও বিশ্বাস রাখতে হবে। ৬) নিজের উপর সম্পূর্ণ বিশ্বাস রেখে পরীক্ষার হলে প্রবেশ করতে হবে। ৭) কোনো প্রশ্নের উত্তর না দিতে পারলে হতাশ হওয়া যাবে না। ৮) দৃঢ় বিশ্বাস রাখতে হবে যে, যা আমি নিজে পারব না, তা অন্য আর কেউ পারবে না। ৯) OMR-এ নিজের রেজিস্ট্রেশন নম্বর অত্যন্ত সর্তকতার সাথে পূরণ করতে হবে। ১০) প্রশ্নপত্রের সেট কোডটি ভালোভাবে পূরণ করতে হবে। ১১) প্রথমেই সহজ এবং কমন পাওয়া প্রশ্নগুলোর উত্তর দিতে হবে। ১২) এক প্রশ্নের উত্তরের জায়গায় অন্য প্রশ্নের উত্তরপত্রের বৃত্ত বরাট করা যাবে না। ১৩) একটু পুরাতন মোটা কালির বলপয়েন্ট কলম নিয়ে যাবেন। ১৪) পিএসসি অনুমোদন করে না এমন জিনিস পরীক্ষার হলে নিয়ে যাবেন না। যেমন, মোবাইল, ক্যালকুলের, ঘড়ি ইত্যাদি। ১৫) পাশের কারো ওপর নির্ভরশীল হওয়ার দরকার নেই। এতে হিতে বিপরীত হতে পারে। ১৬) সময়ের ব্যাপারে সতর্ক থাকবেন। ১৭) প্রশ্নের সিরিয়াল অনুযায়ী বৃত্ত ভরাট শুরু করুন। গণিত ও মানসিক দক্ষতা শেষে উত্তর করা ভালো। ১৮. Attendance Sheet এ অবশ্যই Sign করবেন। ১৯. অন্যের উপকার করতে যাবেন না। ২০. পরীক্ষার আগের রাতে বেশিক্ষণ জাগবেন না।     এম/এমআর      

৩৭ তমের ভাইবায় যেসব বিষয়ে প্রশ্ন করা হচ্ছে

গত ২৯ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে ৩৭তম বিসিএসের ভাইভা বা মৌখিক পরীক্ষা। এ পরীক্ষায় ২০০ নম্বর বরাদ্দ রয়েছে। প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর ভাইভা বা মৌখিক পরীক্ষা হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ একটি ধাপ। আর এ পরীক্ষায় নানা ধরনের প্রশ্ন করা হয়ে থাকে। কি ধরণের  প্রশ্ন করা হয় এ নিয়ে রয়েছে ভাইভা পরীক্ষার্থীদের কৌতুহল। তাই এবারের ৩৭তম বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষা দিয়ে বের হওয়া কয়েকজন পরীক্ষার্থীর সঙ্গে কথা হয়েছে একুশে টেলিভিশন অনলাইনের এ রিপোর্টারের।পাঠকদের জন্য তা নিম্নে তুলে ধরা হলো- কথা হয় গাজীপুর  থেকে আসা একজন শিক্ষার্থীর সঙ্গে যিনি বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেবরিক মেনুফ্যাকচারিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পড়াশোনা করেছেন। তার প্রথম পছন্দের বিষয় ছিল পররাষ্ট্র ক্যাডার। তাকে ৩৭তম বিসিএস ভাইভায় যে সব প্রশ্ন করা হয় তার চুম্বক অংশ এখানে তুলে ধরা হলো। তার কাছে প্রথমে পরিচিতি সম্পর্কে বলতে বলা হয়। গাজীপুরের তিন জন বিখ্যাত ব্যক্তির নাম বলুন? রোহিঙ্গাদের উত্থান সম্পর্কে বলুন? রোহিঙ্গারা কিভাবে বাংলাদেশে আসছে? মূলত রোহিঙ্গারা কোন দেশীয়? রাখাইনে মুসলমানদের কিভাবে উৎপত্তি ঘটে? মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের সঙ্গে মূল ভূখণ্ডের একটি পর্বত রয়েছে সেটার নাম বলুন? আপনার বিষয়ের সঙ্গে পররাষ্ট্রের সম্পর্ক তুলে ধরুন। জিডিপিতে টেক্সটাইলের ভূমিকা কতটুকু? আপনি পররাষ্ট্র ক্যাডারে কেন আসতে চাচ্ছেন? আপনাকে যদি পররাষ্ট্র ক্যাডারে নিয়োগ দেওয়া হয় তাহলে আপনি কিভাবে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। লালমনিরহাট থেকে আসা একজন শিক্ষার্থী যিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজবিজ্ঞান বিভাগে পড়াশোনা করেছেন।তার প্রথম পছন্দের বিষয় ছিল প্রশাসন ক্যাডার। বিষয়ের সঙ্গে আপনার প্রথম পছন্দের সম্পর্ক তুলে ধরুন। স্থানীয় সরকার কি? প্রধানমন্ত্রীর কম্বোডিয়া সফর সম্পর্কে আপনি কি জানেন? ব্লু ইকোনমি কি? এটি কেন দরকার? একজন প্রশাসন ক্যাডারের প্রধান দায়িত্ব কি কি? দিনাজপুর  থেকে আসা একজন শিক্ষার্থী যিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে পড়াশোনা করেছেন। তার প্রথম পছন্দের বিষয় ছিল পররাষ্ট্র ক্যাডার। তাকে ইংরেজিতে প্রশ্ন করা হয়। তাকে যে যে বিষয়ে প্রশ্ন করা হয় তা বাংলায় তুলে ধরা হলো। আপনি এ ক্যাডারে কেন আসতে চান? ভিয়েনা কনভেনশন সম্পর্কে আপনি কি জানেন? ডিপ্লোমেসি কি? ফরেন পলিসি কি? এই দুটি বিষয়ের মধ্যে পার্থক্য তুলে ধরুন। আপনাকে যদি মালয়েশিয়ায় দূতাবাস প্রধান করে পাঠানো হয়, তাহলে আপনি কিভাবে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন? বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় কত? বগুড়া থেকে আসা একজন শিক্ষার্থী যিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগে পড়াশোনা করেছেন। তার প্রথম পছন্দের বিষয় ছিল পুলিশ ক্যাডার। তাকে যে যে বিষয়ে প্রশ্ন করা তার গুরুত্বপূর্ণ অংশ তুলে ধরা হলো। বগুড়ার দুজন বিখ্যাত ব্যক্তির নাম বলুন? বগুড়া কোন নদীর তীরে অবস্থিত? নওগাঁয় কোনো ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ আছে কি না? পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার সম্পর্কে আপনি কি জানেন? বাংলাদেশে মোট কতটি ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ আছে? আপনি তো এখন শিক্ষা ক্যাডারে আছেন এ ক্যাডারে আসতে চাচ্ছেন কেন? পুলিশ ক্যাডারে নিয়োগ দেওয়ার মত আপনার কি কি যোগ্যতা আছে? আমি বগুড়ার ছাওয়াল (ছেলে) এর ইংরেজি করুন? এর আগে যারা বিসিএস ভাইভায় বা মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন তারা আরও জানান, ভাইভাতে নিজ পরিবার সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়, জানতে চাওয়া হয় জেলা ও উপজেলা সম্পর্কে। যে বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভাগে পড়েছেন সে  সম্পর্কে  প্রশ্ন করা হয়। বিসিএস পরীক্ষায় যে সব বিষয় পছন্দক্রম দেওয়া হয়েছে সেগুলোর মধ্য থেকে প্রথম তিনটি বিষয় সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়। এছাড়া প্রতিটি ক্যাডারের দায়িত্ব ও কর্তব্য এবং এ ক্যাডারের মাধ্যমে আপনি কিভাবে দেশকে এগিয়ে নিতে চান তার যৌক্তিক ব্যাখ্যাও তুলে ধারতে বলা হয়। ১৯৪৭ সাল থেকে শুরু করে মহান মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত আলোচিত বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ বই, উপন্যাস, কবিতা এবং যে সব বুদ্ধিজীবী, কবি ও সাহিত্যিক মুক্তিযুদ্ধে অবদান রেখেছেন তাদের সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। দেশের বাজেট, জিডিপি এবং ২০২১ সাল এবং ২০৪১ সালের রুপরেখা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ কতটা স্বয়ংসম্পূর্ণ তা জানতে চাওয়া হয়। দেশের বিখ্যাত ব্যক্তি, কবি এবং সাহিত্যিক সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। সংবিধানের গুরুত্বপূর্ণ ধারা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। অনেক ক্ষেত্রে ভাইভায় ইংরেজিতে প্রশ্ন করা হয়। এছাড়াও বর্তমানে চলমান বিভিন্ন রাজনীতির বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়। এসএইচ/  

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি