ঢাকা, শনিবার, ২০ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৩:২৬:২০

প্রতিরক্ষা নীতিতে বড় পরিবর্তন আনতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

প্রতিরক্ষা নীতিতে বড় পরিবর্তন আনতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

চীন বা রাশিয়ার মত পরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্রের জন্য হুমকি হতে পারে, তাই তাদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সামরিক শক্তি বাড়ানো উচিত বলে মনে করছে যুক্তরাষ্ট্র। নতুন প্রস্তাবিত সামরিক নীতি ঘোষণার পর যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস মাটিস বলেছেন, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অর্থ ব্যয় না করে সামরিক শক্তিবৃদ্ধির দিকে যুক্তরাষ্ট্রের মনোযোগ দেওয়া দরকার।
২০১৭ সাল বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উষ্ণতম বছর

২০১৭ সালকে পৃথিবীর ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উষ্ণতম বছর হিসেবে শনাক্ত করেছে বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা (ডব্লিউএমও)। কার্বন নির্গমণের ফলে পৃথিবীর উষ্ণতা আশ্চর্যজনকভাবে বাড়ছে বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি। পৃথিবীর গড় উষ্ণতার উপর নজর রাখা এ সংস্থাটি জানায়, ২০১৫ সালের মতো ২০১৭ সালেও পৃথিবীর উষ্ণতা মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষ করে ২০১৫ সালটি ছিল পৃথিবীর ইতিহাসে সর্বোচ্চ উষ্ণতম বছর। তবে ২০১৬ সালে বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা কিছুটা নিচে নেমে এসেছিল বলেও জানায় সংস্থাটি। বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা জানায়, ১৮৮০ সালের তাপমাত্রাকে ভিত্তি ধরে প্রতিবছরই বিশ্বের জলবায়ুর উপর প্রতিবেদন প্রকাশ করে সংস্থাটি। সংস্থাটি জানায়, পৃথিবীর এ তাপমাত্রা ২০১৭ সালে বৃদ্ধি পেয়েছে ০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিকে পৃথিবীর উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে সমুদ্রের পানির উচ্চতা বাড়ছে বলেও সতর্ক করে দিয়েছে সংস্থাটি। শুধু বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থাই নয়, মহাকাশ গবেষনা সংস্থা নাসা, নোয়া, যুক্তরাজ্যের আবহাওয়া গবেষণা প্রতিষ্ঠান এবং জাপানের আবহাওয়া সংশ্লিষ্ট এজেন্সি জানিয়েছে ২০১৭ সালটি পৃথিবীর ইতিহাসে দ্বিতীয় অথবা তৃতীয় সর্বোচ্চ উষ্ণতম বছর। এদিকে পৃথিবীপৃষ্ঠ থেকে আট কিলোমিটার উচ্চতা পর্যন্ত একই ধরণের উষ্ণতা বিরাজ করছে বলে জানিয়েছে নাসা। এদিকে সমুদ্রের পানি ও বাতাসের তাপমাত্রার প্রভাবের কারণে বরফ গলে থাকে বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি। ২০১৭ সালে পৃথিবীর যে এলাকাগুলোতে বরফ রয়েছে, তা আগের বছরের তুলনায় বেশিমাত্রায় গলেছে বলে জানিয়েছে নাসা। এদিকে একবিংশ শতাব্দীতে পৃথিবীর তাপমাত্রা যাতে আর বাড়তে না পারে সে ব্যাপারে বিশ্বের কার্বণ নিঃসরণকারী দেশগুলো একমত হলেও সে পরিকল্পনা বাস্তবায়ণে তাদের অনীহা দেখা গেছে। ২০১৫ সালে করা মারাক্কাশ সম্মেলন ও প্যারিস চুক্তি জলবায়ু সুরক্ষায় কোন কাজে আসছে না বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি।   ওই চুক্তিতে বলা হয়, এই শতকে পৃথিবীর তাপমাত্রা যাতে ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি বাড়তে না পারে সে ব্যাপারে পৃথিবীর দেশগুলোকে নজর দিতে হবে। কিন্তু ১৯ বছর না যেতেই দেখা গেছে পৃথিবীর তাপমাত্রা ওই লেভেলের চেয়ে বেশি মাত্রায় বাড়ছে। এদিকে আবহাওয়া সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলি বলছে, পৃথিবীর এই তাপমাত্রা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ মানুষের অপরিণামদর্শী কার্যক্রম। আর পৃথিবীর এই তাপমাত্রা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ জ্বালানি তেলের অনিয়ন্ত্রিত ব্যবহার। জ্বালানি তেল পোড়ানোর ফলে পৃথিবীতে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ বেড়েই চলছে। বাতাসে বর্তমানে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ ৪০৭ পিপিএম (পার্টস পার মিলিয়ন) ছাড়িয়েছে। তবে ১৮৮০ সালে বাতাসে এর পরিমাণ ছিল মাত্র ২৮০ পিপিএম। বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা এমন একটি সময় এ রিপোর্ট প্রকাশ করেছে যখন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জলবায়ু ইস্যুতে দেশটির দেওয়া অর্থ তহবিল বন্ধের ঘোষণা দিয়েছেন। এছাড়া আগামী সপ্তাহে সুইজার‌ল্যান্ডের রাজধানী জেনেভাতে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের সম্মেলন হওয়ার কথা রয়েছে, যেখানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। সুত্র: আল-জাজিরাএমজে/

দেয়াল নির্মাণের দৃষ্টিভঙ্গি বদলায়নি : ট্রাম্প

মেক্সিকোর সীমান্ত বরাবর দেয়াল নির্মাণ নিয়ে দৃষ্টিভঙ্গি বদলে গেছে বলে প্রচারিত খবরকে অস্বীকার করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর আগে ফক্স নিউজের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে হোয়াইট হাউজের চিফ অফ স্টাফ জন জানান, দেয়াল নির্মাণ নিয়ে ট্রাম্পের দৃষ্টিভঙ্গি বদলে গেছে। মেক্সিকো বরাবর দেয়াল নির্মাণের প্রশ্নে নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দেওয়ার সময় বিষয়টি সম্পর্কে ট্রাম্পের ধারণা পরিষ্কার ছিল না বলে তিনি মন্তব্য করেছিলেন বলে যে খবর বেরিয়েছে, কেলি তাও অস্বীকার করেননি। মার্কিন সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, বুধবার ইমিগ্রেশন নিয়ে এক বৈঠকের সময় কেলিকে এই মন্তব্য করতে শোনা যায়। ইমিগ্রেশন নিয়ে মার্কিন সংসদ এবং হোয়াইট হাউজের মধ্যে যে বিবাদ শুরু হয়েছে তার জেরে সরকারের কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হতে পারে। কেলি ওই সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, মার্কিন প্রশাসন এখন যে দেয়াল নির্মাণের পরিকল্পনা করছে সেটির দৈর্ঘ্য হবে এক হাজার ৩০০ কিলোমিটার। আগে পরিকল্পনা ছিল তিন হাজার ১০০ কি.মি. দেয়াল নির্মাণের। তিনি জানান, এর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে দুই হাজার কোটি ডলার। ট্রাম্প প্রাথমিকভাবে মনে করেছিলেন, এই দেয়াল নির্মাণে এক হাজার থেকে এক হাজার ২০০ কোটি ডলার ব্যয় হবে। নির্বাচনী প্রচারাভিযানের সময় ট্রাম্প জোর দিয়ে বলেছিলেন, এই ব্যয়ের পুরোটা আদায় করা হবে মেক্সিকোর কাছ থেকে। তবে এই দেয়াল তৈরিতে কোনও অর্থ দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট এনরিকে পেনা নিয়েতো। প্রতিবছর কাজ বা ভাল জীবনের খোঁজে হাজার হাজার মেক্সিকান অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করে। এটি সবসময়ই মার্কিন রাজনীতির একটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু। সূত্র: বিবিসি। একে//এসএইচ

ট্রাম্পের গোপন সম্পর্কের তথ্য ফাঁস

সম্প্রতি  ট্রাম্পের  সাথে সাবেক এক পর্নস্টারস্ট্রোরমি ডানিয়েল এর সাথে গোপন সম্পর্কের তথ্য ফাঁস হয়েছে। পর্নো তারকা স্টোরমি ড্যানিয়েলের সঙ্গে গল্‌ফ খেলার সময় ২০০৬ সালে সাক্ষাৎ হয় ট্রাম্পের। এরপর তার সাথে গোপন সম্পর্ক হয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের । ২০১৬ সালে ঐ পর্ন তারকা মার্কিন টিভি চ্যানেল এবিসি নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্পের সঙ্গে তার বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্কের কথা প্রকাশ করেন। এর পরই তার মুখ বন্ধ রাখার জন্য ট্রাম্পের দীর্ঘদিনের আইনজীবী মাইকেল কোহেন ওই নারীকে এক লাখ ৩০ হাজার ডলার অর্থ প্রদান করেন। যদিও গোটা বিষয়টিকে গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছেন ওই আইনজীবী। একই দাবি সেই পর্নস্টারেরও। পর্নস্টারস্ট্রোরমি ডানিয়েল এর সাথে গোপন সম্পর্ক ফাঁস হওয়ার পর অভিনেত্রী কারা ইয়ং, কাইলি ব্যাকস, রাওয়ান ব্রিওয়ার লেন, গ্যাব্রিয়েল সাবাতিনি, ক্যান্ডিস বার্গেন, কার্লা ব্রুনি এবং  এনা নিকোল স্মিথ আলিসন গিয়ানিনি সহ আরোও কয়েকজনের সাথে তার গোপন সম্পর্কের কথা ফাঁস হয়। সূত্র: দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল ও নিউজ ইউক এম/টিকে  

নেতানিয়াহুর জবাবে ট্রাম্প: এক বছরেও সরানো হচ্ছে না দূতাবাস

তেল-আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তরে আপাদত কোনো পরিকল্পনা নেই বলে জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শুধু তাই নয়, আগামী এক বছরের মধ্যে তেল-আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে সরানো হবেনা বলেও তিনি ঘোষণা দিয়েছেন। এর আগে ভারত সফররত ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু জানান, এক বছরের মধ্যেই জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তর করা হবে। তবে নেতানিয়াহু যাই বলেন না কেন, আগামী এক বছরের মধ্যে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তর করা হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন ট্রাম্প। একইসঙ্গে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর দাবিকে নাকচ করে দেন তিনি। নেতানিয়াহুর বক্তব্য প্রসঙ্গে ট্রাম্প বলেন, বিভিন্ন পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র কথা বলছে। এখনই দূতাবাস হস্তান্তরের দিকে নজর দেয়া হচ্ছে না। উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরে জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেন ট্রাম্প। তার ওই ঘোষণায় যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র দেশগুলো ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সরব হয়ে ওঠে। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে মার্কিন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হয়। ট্রাম্পের ওই ঘোষণার পর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলার জানিয়েছেন, তেলআবিব থেকে জেরুজালেমে দূতাবাস স্থানান্তরে অন্তত তিন বছর সময় লাগবে। তাই নেতানিয়াহুর বক্তব্যের সঙ্গে মার্কিন কোন সম্পর্ক নেই বলেও মত দেন তিনি। সুত্র: বিবিসিএমজে/

নাইজেরিয়ায় মার্কিন-কানাডিয়ান নাগরিক অপহৃত

নাইজেরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় শহর কাদুনায় দুই মার্কিন ও দুই কানাডিয়ান নাগরিককে অপহরণ করেছে সন্ত্রাসীরা। এসময় নাইজেরিয়ার পুলিশের সঙ্গে ওই সন্ত্রাসীদের গুলাগুলিতে দুই পুলিশ নিহত হয়েছেন। ওই সন্ত্রাসীরা মার্কিন ও কানাডিয়ান চার নাগরিককে অপহরণের উদ্দেশে ওই হামলা চালায় বলে নাইজেরিয়ার পুলিশ জানিয়েছে। নাইজেরিয়ার পুলিশ জানিয়েছে, সন্ত্রাসীরা দুইটি যানবাহনে করে ওই ব্যক্তিদের উপর হামলা উদ্দেশে কাদুনাতে আসে। এদিকে এখন পর্যন্ত ওই নাগরিকদের উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। শুধু তাই নয়, কে বা কারা ওই অপহরণের ঘটনা ঘটিয়েছে সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। এদিকে কানাডার দূতাবাস জানিয়েছে, তাদের নাগরিকদের অপহরণের বিষয়টি ইতোমধ্যে তারা জেনেছে। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট জানিয়েছে, তাদের এক নাগরিক অপহরণের শিকার হয়েছেন নাইজেরিয়াতে। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি স্টেট ডিপার্টমেন্টের কোন কর্মকর্তা। এদিকে গত বছরে নাইজেরিয়াতে দুই জার্মান ভূতাত্ত্বিকও অপহরণের শিকার হয়েছিলেন। সুত্র: বিবিসিএমজে

ইয়েমেনে একমাসে নিহত ৪৫৯

যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেনে কেবল এক মাসের ব্যবধানে অন্তত ৪৫৯ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন কয়েক হাজার মানুষ। আর উদ্বাস্তু জীবন বরণ করেছেন ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ। জানা যায়, ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে অন্তত ৪৫০ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ২৭৯ জন নিহত হয়েছেন সৌদি জোটের বিমান হামলায়। এছাড়া ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীদের হামলায় নিহত হয়েছেন ১২১ জন। বুধবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভাভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা এসএএম অর্গানাইজেশন ফর রাইটস অ্যান্ড লিবার্টিজ-এর এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হত্যাকাণ্ড ছাড়াও শারীরিক নিপীড়ন, সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ, নির্যাতন ও নির্বিচারে আটকের মতো ঘটনা ঘটেছে। হুথি মিলিশিয়া, সৌদি জোটের বিমানবাহিনী, জঙ্গিগোষ্ঠী এবং বৈধ সরকারের প্রতি অনুগত দলগুলোর হাতে এসব হত্যাকাণ্ড ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেছে। আর এসব হামলায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে নিরপরাধ মানুষজন। এদিকে ইয়েমেনে এ বছরই ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ নেমে আসতে পারে বলে সতর্ক করেছে ত্রাণ সংস্থাগুলো। দুর্ভিক্ষ নিয়ে কাজ করা মার্কিন সংস্থা ফেমিন আর্লি ওয়ার্নিং সিস্টেম নেটওয়ার্ক বলছে, ইয়েমেনে লোহিত সাগরের দুই বন্দরে সৌদি জোটের অবরোধ চলতে থাকলে দেশটিতে দুর্ভিক্ষ নেমে আসতে পারে। এর আগে ইয়েমেনে ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ অপেক্ষা করছে বলে জাতিসংঘ আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল। উল্লেখ্য, মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইয়েমেনে ২ কোটি ৮০ লাখ মানুষের বাস। যুক্তরাষ্ট্রের অবরোধের ফলে দেশটির ৮৫ শতাংশ আমদানি ব্যহত হচ্ছে বলেও জানায় সংস্থাটি। এতে দেশটিতে খাবার ও ওষুধের সংকট দেখা দিয়েছে। ইয়েমেনে অন্তত ৩৩ লাখ মানুষ অপুষ্টিতে ভুগছে, জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলোর বিভিন্ন গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। সুত্র: আল-জাজিরাএমজে/

চীনা গুপ্তচর বৃত্তির অভিযোগে সিআইএ সদস্য গ্রেফতার

গোপন তথ্য ফাঁসের অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ-এর সাবেক এক কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে দেশটির আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। দেশটির অভিযোগ, চীনের হয়ে গুপ্তচর বৃত্তি করছিলেন জেরি চুন শিং লি নামের সাবেক ওই সিআইএস কর্মকর্তা। মার্কিন গণমাধ্যম জানিয়েছে, সোমবার জেরি চুন শিং লিকে হংকংয়ে রওনা হওয়ার আগে নিউ ইয়র্কের জেএফকে বিমানবন্দর থেকে আটক করা হয়েছে। চীনে সিআইএ’র একটি ব্যর্থ গোয়েন্দা অপারেশন ঘিরে ওই তদন্ত শুরু হয়। গোয়েন্দা ব্যর্থতার অন্যতম এই ঘটনায় গত দুই বছরে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার অন্তত ২০ কর্মীকে জেলে ঢোকানো হয়। তবে কারা তথ্য ফাঁস করছে তার হদিস করতে পারেনি তদন্তকারীরা। জেরি চুন শিং লি ১৯৯৪ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত সিআইএ’র হয়ে কাজ করেছেন। ২০১২ সালে শুরু হওয়া এফবিআই’র একটি তদন্তের সূত্র ধরে তাকে আটক করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক রিপোর্টে বলা হয় ২০০৭ সালে লি যখন সিআইএ ছেড়ে যান, তখন যারা তাকে চিনতেন তারা বলেছিলেন লি ক্যারিয়ার নিয়ে অসন্তুষ্ট হয়ে ওই সংস্থা ছেড়ে যান। এদিকে শিং লির কাছ থেকে অন্তত দুইটি ডায়েরি উদ্ধার করা হয়েছে। ডায়েরি দুটিতে সিআইএর গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নাম ও পূর্ণাঙ্গ ঠিকানা পাওয়া গেছে। এছাড়া ওই ডায়েরিতে মার্কিন সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নামের তালিকা পাওয়া গেছে বলেও জানা গেছে। মার্কিন বিচার বিভাগের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এফবিআই এজেন্ট হাওয়াইয় ও ভার্জিনিয়াতে তার হোটেল রুমে তল্লাশি চালিয়ে গোপন রেকর্ডসহ দুটি বই খুঁজে পায়। এসব বইয়ে হাতে লেখা বিস্তারিত নোট ছিলো। তাতে লেখা ছিলো পরিবর্তিত সিআইএ কর্মী আর সম্পদের আসল নাম আর ফোন নম্বর। সুত্র: নিউইয়র্ক টাইমসএমজে/

শতাধিক বার ধর্ষণ করেছে ল্যারি নাসের

মিডিয়া মোঘল হার্ভে ওয়েইনস্টেইনের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ যখন আদালতে বিচারাধীন তখন আরেক মার্কিন ‘মনস্টারের’ বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির তথ্য উঠে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের নারী জিমন্যাস্ট দলের সাবেক স্বাস্থ্য পরীক্ষক ল্যারি নাসেরের বিরুদ্ধে শতাধিক নারী মুখ খুলেছেন। স্বাস্থ্য পরীক্ষক ল্যারি নাসেরের বিরুদ্ধে আদালতে বিচার চলছে। এই সময় কয়েক ডজন নারী জিমন্যাস্ট তার বিরুদ্ধে আদালতে স্বাক্ষী দিয়েছেন। এই সময় অনেককে কান্নায় ভেঙ্গে পড়তে দেখা গেছে। ৫৪ বছর বয়সী নাসের কিভাবে তাদের যৌন নির্যাতন করেছেন সে বিষয়ে তারা বর্ণনা দেন। এসময় তারা নাসেরের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান। এক নারী জিমন্যাস্ট বলেন, নাসের আমাকে শতাধিক বার যৌন নির্যাতন করেছে। শুধু তাই নয়, আমার ফিটনেস ঠিক নয়, এমন ঘোষণা দিয়ে আমাকে দল থেকে বাদ দেওয়ার হুমকি দিয়ে আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে সে। সে আমাকে অন্ধ করে দেওয়ারও হুমকি দিয়েছিল। সে এভাবে আমাকে শতাধিক বার ধর্ষণ করেছে। এইসময় নাসেরের যৌন নির্যাতনের স্বীকার হওয়া এক নারী সদস্যের মা অভিযোগ করে বলেন, আমার মেয়ে ২২ বছর বয়স থেকে তার যৌন নির্যাতনের স্বীকার। বেঁচে থাকলে তার বয়স বর্তমানে ৩২ বছর হতো। সে প্রতিদিনই আমার কাছে এসে নাসেরের যৌন নির্যাতন বিষয়ে বলতো আর কাঁদতো। ইতোমধ্যে তার যৌন নির্যাতনের স্বীকার হয়ে আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে। আরেক জিমন্যাস্ট অভিযোগ করে বলেন, নাসের তার শরীরের স্পর্শকাতর জায়গায় ম্যাসেজ করতো। কিছু বললে, সে তাকে ফিটনেসহীন দেখিয়ে দল থেকে বাদ করে দেওয়ার হুমকি দিত বলেও অভিযোগ করেন তিনি। এসময় শুনানিতে অংশ নিয়ে প্রতিটি নারীই তার সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান। সুত্র: বিবিসিএমজে/

ব্যাননের বিরুদ্ধে সমন জারি

মার্কিন প্রেসিডেন্টের সাবেক চিফ স্ট্র্যাটেজিস্ট স্টিভ ব্যাননকে তলব করা হয়েছে। তাকে গ্র্যান্ড জুরির শুনানিতে হাজির হতে সমন জারি করা হয়েছে। ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনে ট্রাম্পের প্রচার শিবিরের সঙ্গে রাশিয়ার যোগসাজশের অভিযোগ নিয়ে ব্যাননকে তলব করা হলো। খবর বিবিসির।যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, নির্বাচনে ট্রাম্পের প্রচার শিবিরের সঙ্গে রাশিয়ার যোগসাজশের অভিযোগ নিয়ে তদন্ত চলছে। তদন্তের নেতৃত্ব দিচ্ছেন এফবিআইয়ের সাবেক প্রধান রবার্ট মুলার। তিনিই ব্যাননকে তলব করেছেন বলে জানা গেছে। কংগ্রেসেরও একটি কমিটিও আলাদাভাবে ওই বিষয়ে তদন্ত করছে। ব্যানন স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সেই কমিটির শুনানিতেও হাজির হন। ট্রাম্পের কাছের কোনো ব্যাক্তিদের মধ্যে ব্যাননই প্রথম কোনো জবাবদিহির মুখোমুখি হলেন।  ট্রাম্পের ভোটের প্রচারে ‘আমেরিকা ফার্স্ট’ দর্শনকে একটি আকৃতি দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্রাইবার্ট নিউজ নেটওয়ার্কের সাবেক নির্বাহী চেয়ারম্যান ডানপন্থি জাতীয়তাবাদী ব্যাননের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। নির্বাচনে জয়ের পর ট্রাম্প তাকে পুরস্কৃত করেছিলেন হোয়াইট হাউজের চিফ স্ট্র্যাটেজিস্টের পদ দিয়ে। কিন্তু হোয়াইট হাউজে ক্ষমতার দ্বন্দ্বে জড়িয়ে গত অগাস্টে ওই পদ হারান ব্যানন। এরপর জানুয়ারির শুরুতে প্রকাশিত ‘ফায়ার অ্যান্ড ফিউরি: ইনসাইড দ্য ট্রাম্প হোয়াইট হাউজ’ বইয়ে ট্রাম্পের ছেলেকে নিয়ে মন্তব্যের কারণে তাকে ব্রাইবার্টের শীর্ষ পদও ছাড়তে হয়। / এআর /

ফিলিস্তিনিদের সাহায্য কমিয়ে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র

ফিলিস্তিনিদের সহায়তার জন্য গড়া জাতিসংঘ তহবিলে প্রতিশ্রুত আর্থিক সহায়তার পরিমাণ অর্ধেক করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বাকি অর্থও দেয়া হবে কি না, তা ভবিষ্যতে বিবেচনা করা হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। মার্কিন এই সিদ্ধান্তের ফলে ফিলিস্তিনে চলমান ত্রাণ কার্যক্রম অর্থসংকটে পড়বে বলে আশঙ্কা করছেন জাতিসংঘের কর্মকর্তারা। এ বছর ফিলিস্তিনিদের অর্থনৈতিক সহায়তা হিসেবে সাড়ে বারো কোটি মার্কিন ডলার দেয়ার কথা ছিলো। কিন্তু এখন তার বেশির ভাগ অর্থ না দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। যুক্তরাষ্ট্র বলছে, জাতিসংঘকে ৬০ মিলিয়ন ডলার পাঠাবে। কিন্তু বাকি ৬৫ মিলিয়ন ডলার দেয়া হবে কি না, তা ভবিষ্যতে বিবেচনা করবে তারা। যুক্তরাষ্ট্রের এমন সিদ্ধান্তে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুটেরেস। এক সংবাদ সম্মেলনে জাতিসংঘের মহাসচিব বলেছেন, জাতিসংঘ ফিলিস্তিনে যে সব অতি প্রয়োজনীয় ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করছিলো সেগুলো চালিয়ে যেতে না পারলে, গুরুতর সংকট তৈরির আশঙ্কা রয়েছে। ফিলিস্তিনিদের জন্য জাতিসংঘের ত্রাণ কার্যক্রমের প্রায় ৩০ শতাংশ অর্থ আসে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে। সূত্র: বিবিসি একে//

মার্কিন ‘বিএসএফ’ পরিকল্পনার তীব্র সমালোচনা

সিরিয়ার পূর্ব উপকূলে মার্কিন-সমর্থিত মিলিশিয়াদের নিয়ে একটি নতুন বাহিনী গঠনের জন্য যুক্তরাষ্ট্র যে পরিকল্পনা করছে তার সমালোচনা করেছে সিরিয়ার সরকার ও তার মিত্র রাশিয়া, এবং তুরস্ক। প্রায় ৩০ হাজার সদস্য নিয়ে এই বাহিনীটি গঠিত হবে এবং এতে বিপুল সংখ্যায় থাকবে কুর্দি যোদ্ধা। আমেরিকানদের নেতৃত্বে যে কোয়ালিশন সিরিয়ায় বিরোধীদের সাহায্য করছে, তারা রোববার ঘোষণা করে যে তুরস্কের দক্ষিণ সীমান্ত লাগোয়া অঞ্চলে একটি সীমান্তরক্ষী বাহিনী তৈরির প্রক্রিয়া তারা শুরু করেছে। এই বাহিনীর নাম দেওয়া হয়েছে, বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ)। আর এই বাহিনীর কম্যান্ড বা নেতৃত্বে থাকবে প্রেসিডেন্ট আসাদের বিরোধী সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ফোর্সেস বা এসডিএফ। আর আমেরিকানদের এই পরিকল্পনা জানার পর তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়েছে রাশিয়া, তুরস্ক এবং সিরিয়ায়। সিরিয়া বলছে, এধরনের বাহিনী তৈরি করাটা হবে সিরিয়ার সার্বভৌমত্বের গুরুতর লঙ্ঘন। রাশিয়া বলছে, এই বাহিনী সিরিয়ার বিভক্তি ডেকে আনতে পারে। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান বলেছেন, তার ভাষায় `সন্ত্রাসী` এই বাহিনীকে আঁতুড়ঘরেই ধ্বংস করে দেয়া হবে। সূত্র: বিবিসি একে/টিকে

ভেনেজুয়েলার সেই পাইলটকে গ্রেফতারে অভিযান শেষ: বহু হতাহত

ভেনেজুয়েলায় পুলিশের একটি হেলিকপ্টার নিয়ে পালিয়ে গিয়ে কয়েকটি সরকারি ভবনে হামলা চালানো সেই কর্মকর্তাকে গ্রেফতারে অভিযান চালিয়েছে দেশটির আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। এতে দুই পুলিশসহ বহু হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। ২০১৭ সালের জুনের পর থেকে ওই কর্মকর্তা ও হেলিকপ্টারের পাইলট ওসকার পেরেজকে খোঁজছে দেশটির পুলিশ। ওই সময় বেশ কয়েকজন সন্ত্রাসীর সাহায্যে দেশটির সর্বোচ্চ আদালতে গ্রেনেড হামলা চালায় ওই কর্মকর্তা। এরপরই দেশটির অভ্যন্তর বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি ছোঁড়ে ওই কর্মকর্তা। তবে ওই হামলায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। গত সোমবার পাইলট পেরেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও পোস্ট করেন, যেখানে তিনি ও তার অনেক সহযোগীর আহত হওয়ার চিত্র তুলে ধরেন। এর আগে পুলিশের সঙ্গে তাদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে বলেও দাবি করেন পেরেজ। পেরেজ ওই ভিডিওতে বলেন, পুলিশ আমাদের ঘিরে ফেলার পর আমরা আত্মসর্পণের ঘোষণা দিই, কিন্তু তারা তা মেনে নেয়নি। আমাদের লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। তারা আমাদের মেরে ফেলতে চেয়েছিল। তবে ভেনেজুয়েলার পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, পেরেজদের গ্রেফতার করতে গেলে তারা পুলিশের উপর হামলা চালায়। এরপরই পুলিশ হামলার জবাব দিতে তাদের লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছোঁড়ে। ওই সময় পেরেজের বাহিনী, একটি যানভর্তি বোমা বিস্ফোরণের চেষ্টা চালায়। এতে দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ বহু লোকজন নিহত হয়েছেন। তবে ঠিক কতজন নিহত হয়েছেন, সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। অভ্যন্তর বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানায়, এ ঘটনায় ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে পেরেজকে আটক করা যায়নি। সন্ত্রাসী ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় পেরেজ বাহিনীকে দায়ি করেছে ওই মন্ত্রণালয়। এর আগে ২০১৭ সালের জুনে হেলিকপ্টারে করে অভ্যন্তরীণ মন্ত্রণালয়, সুপ্রিম কোর্টে হামলার পর সরকারি কর্মকর্তা পেরেজ ঘোষণা করেছিলেন, প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর শাসনের বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা বাহিনীর যে কয়জন সদস্য বিদ্রোহ ঘোষণা করেছেন, তিনি তাদের একজন। মাদুরোকে ক্ষমতা থেকে উৎখাতে তিনি সব ধরণের পদক্ষেপ নিবেন বলেও তখন ঘোষণা করেন। এরপরই তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় রেড এলার্ট জারি করা হয়। তাকে গ্রেফতারে মাঠে নামে রাষ্ট্রের সব গোয়েন্দা সংস্থাসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। সুত্র: বিবিসিএমজে/

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি