ঢাকা, শুক্রবার, ২২ জুন, ২০১৮ ১৭:৩৪:১৪

আদালত থেকে বেরিয়ে নাচ-গানে মাতালেন জিম্বাবুয়ের সাবেক প্রেসিডেন্ট

ভিডিও

আদালত থেকে বেরিয়ে নাচ-গানে মাতালেন জিম্বাবুয়ের সাবেক প্রেসিডেন্ট

দুর্নীতির মামলায় আদালতে হাজিরা দিয়ে বেরিয়ে নেচে-গেয়ে  সমর্থকদের মাত করলেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমা। এই নাচ-গানের ভিডিও ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। টানা নয় বছর ক্ষমতায় থাকার পর দুর্নীতির নানা অভিযোগের মুখে দলের নির্দেশে সম্প্রতি প্রেসিডেন্টের পদ ছাড়তে বাধ্য হন জুমা; প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেন সিরিল রামাফোসা।গত ফেব্রুয়ারিতে ক্ষমতাচ্যুত ৭৬ বছর বয়সী জুমা দুর্নীতি, অর্থ পাচারের অভিযোগে ১৬টি মামলায় এখন বিচারের মুখোমুখি, যদিও এসব মামলা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে তার দাবি।শুক্রবার ডারবান হাইকোর্টে এমনই একটি মামলায় হাজিরা ছিল জুমার। এই মামলায় তার বিরুদ্ধে আড়াইশ’ কোটি ডলারের অস্ত্র কেনায় অনিয়মের অভিযোগ আনা হয়েছে। গত শতকের ৯০ এর দশকে এই সমরাস্ত্র কেনার সময় জুমা ছিলেন দেশটির উপ-রাষ্ট্রপতি।আদালতে মামলাটির বিচার শুরুর দিন ঠিক করার শুনানি যখন চলছিল, তখন বাইরে ছিল জুমার সমর্থকদের ভিড়। তারা জুমা-জুমা স্লোগানে সমর্থন প্রকাশ করছিলেন আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেসের এই নেতার প্রতি।জুমা আদালত থেকে বেরিয়ে আসার পর সমর্থকদের একটি সমাবেশে যোগ দেন। সেখানেই নেচে, গেয়ে নিজের নির্দোষিতার কথা বলেন তিনি। ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন সূত্র : ডেইলি মেইল/ এআর /
মোজাম্বিকে ছুরিকাঘাতে নিহত ৭

উত্তর মোজাম্বিকে দুবৃত্তদের ছুরিকাঘাতে অন্তত ৭ জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়ছেন আরও অন্তত ২০ জন। শুধু তাই নয়, হামলাকারীরা বেশ কয়েকটি বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে। ওই এলাকায় গত কয়েকদিন ধরেই সিরিজ হামলা হয়ে আসছে। কাবু দেলগাডো প্রদেশে গত অক্টোবর থেকেই বেসামরিক নাগরিক ও আইন-শৃঙ্খল বাহিনীর উপর হামলার ঘটনা ঘটে আসছে। পুলিশের মুখপাত্র ইনাসিও দিনা এএফপিকে বলেন, হামলার ধরণ দেখে মনে হচ্ছে, গত মে মাসে ১০ গলা কেটে যারা হত্যা করেছিল, তারাই এ হামলার সঙ্গে জড়িত। হামলাকারীরা ১৬৪টি বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে। পাশাপাশি ৪টি গাড়ি ভাঙচুর করেছে তারা। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, হামলাকারীরা জঙ্গিগোষ্ঠী আল-শাবাবের সদস্য। সূত্র: আল-জাজিরাএমজে/

প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের পর এবার সরকারব্যবস্থা সংস্কারের দাবি

জর্দানের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের পর সরকারবিরোধী আন্দোলন নতুন মোড় নিয়েছে। এর আগে শুল্ক আইন সংক্রান্ত একটি খসড়া বাতিলের দাবিতে আন্দোলনে নামলেও পরবর্তীতে তা সরকারবিরোধী বিক্ষোভে রূপ নেয়। এবার গোটা সরকার ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে মাঠে নেমেছে কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী। গত সোমবার প্রধানমন্ত্রী হানি আল মুলকি পদত্যাগ করেছেন। দেশটির অর্থনৈতিক নীতি সংক্রান্ত একটি বিল উত্থাপনের জের ধরেই তিনি পদত্যাগ করেছেন। এদিকে আজ মঙ্গলবারও দেশটিতে বিক্ষোভকারীরা আন্দোলনে নামবে বলে জানিয়েছেন বিক্ষোভ সংগঠকদের একজন। বর্তমান সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে নতুন করে সংস্কারের জন্য তারা দাবি জানাবে বলে জানা গেছে। ওডাই নোফাল নামের এক আন্দোলনকারী জানান, ‘আমরা সরকারকে নতুন বার্তা দিতে এসেছি। মনে রাখতে হবে ক্ষমতা জনগণের মধ্যে থাকে। তাই জনতার সঙ্গে কিভাবে আচরণ করতে হবে, এই বিষয়ে তাদেরকে সচেতন হতে হবে। তারা যদি দেশটিতে অর্থনৈতিক সমাধান দিতে চায়, তাহলে অবশ্যই প্রতিষ্ঠিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের উপর করারোপ করতে হবে, জনগণের উপর নয়।’ এদিকে ২০১৬ সালে ক্ষমতা গ্রহণ করলেও মাত্র ২ বছরের মাথায় ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ান মুলকি। এরপরই আন্দোলনকারীরা দেশটিতে নতুন সরকার ব্যবস্থার দাবিতে স্লোগান দেওয়া শুরু করেন। এদিকে রুটি ও তেলের উপর ভর্তুকি বাড়াতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তারা। এদিকে দিন যতই গড়াচ্ছে রাস্তায় আন্দোলনকারীদের সংখ্যাও বেড়ে চলেছে। সূত্র: আল-জাজিরাএমজে/

তিউনিসিয়ায় নৌকাডুবিতে ৪৬ জনের মৃত্যু

তিউনিসিয়ার দক্ষিণ উপকূলে নৌকাডুবিতে অন্তত ৪৬ জন অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে। ডুবে যাওয়া নৌকাটিতে অন্তত ১৮০ জন যাত্রী ছিল। এদের মধ্যে ১০০ জনই তিউনিসিয়ার। নৌকাটি কারকেন্নাহ দ্বীপ থেকে ৫ মাইল ও সাফেক্স শহর থেকে ১৬ নটিক্যাল মাইল দূরে অবস্থান করছিল। জানা গেছে, নৌকাটির একটি অংশের নিচের দিকে ছিদ্র ছিল, যা দিয়ে নৌকার মধ্যে পানি উঠে যায় এতেই নৌকাটি ডুবে যায়। তবে উপকূলবর্তী এলাকা থেকে অন্তত ৬৭ জনকে উদ্ধার করেছে দেশটির কোস্টগার্ড। সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, রোববার শেষ রাত থেকে উদ্ধার তৎপরতা বন্ধ রয়েছে। সোমবার সকাল থেকে পুনরায় উদ্ধার তৎপরতা শুরু হবে। নৌকাডুবি থেকে বেঁচে যাওয়া একজন বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানান, নৌকাটি ডুবতে শুরু করলে কোস্টগার্ডের হাত থেকে বাঁচতে ক্যাপ্টেন নৌকা চালানো বন্ধ করে দেন। তিনি আর বলেন, যারা সাতার জানত তারা লাফ দিয়েছে, বাকিরা ডুবে গেছে। তবে আমরা নৌকাতেই ছিলাম। সকাল পর্যন্ত আমরা নৌকায় মোট পাঁচজন ছিলাম। তারপর আমাদের সাহায্যের জন্য মাঝিরা আসলেন। এরপর সেনাবাহিনীর সদস্যরা আসলেন। আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা-আইওএম বলছে, চলতি বছর নৌকায় করে ৩২ হাজারের বেশি মানুষ ইউরোপে পাড়ি দিয়েছেন। এদের মধ্যে ৬৬০ জনই মারা গেছেন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইউরোপে যাবার সময়। সূত্র: আল-জাজিরা, বিবিসিএমজে/

জর্দানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও বিক্ষোভকারীদের

জর্দানে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় সরকার বিরোধী বিক্ষোভে নেমেছে বিক্ষোভকারীরা। গত চারদিন ধরেই রাজধানী আম্মানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনের রাস্তা বন্ধ করে রেখেছে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী। মূলত দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে আন্দোলনে নামলেও, আন্দোলন ক্রমান্বয়ে সরকার বিরোধী বিক্ষোভে রূপ নিয়েছে। এদিকে মন্ত্রীসভা কার্যালয়ের সামনে জড়ো হয়ে আন্দোলনকারীদের প্রধানমন্ত্রী হানি মুলকির পদত্যাগ দাবিতে স্লোগান দিতে দেখা গেছে। গত মাসে দেশটির পার্লামেন্টে শুল্ক বিল উত্থাপনের পর থেকেই দেশটিতে অসন্তোষ দেখা দেয়। আন্দোলনকারীরা বলছেন, কেবল সংসদ থেকে ওই বিল বাতিল হলেই তারা ওই এলাকা ছেড়ে যাবেন। নয়তো আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। এদিকে আন্দোলনকারীরা সরকারি ভবনগুলোর দিকে যেতে চাইলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। পুলিশের বাধা দেওয়ার ঘটনাকে লজ্জাজনক বলে আখ্যায়িত করেছেন তারা। তারা বলেন, ‘আমাদের দাবি যৌক্তিক। আমরা দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করে যাবো।’ শুধু তাই নয়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বাদশা আবদুল্লাহক (২)কে সরকারের পদক্ষেপে হস্তক্ষেপ করার দাবি জানিয়েছে তারা। আল-জাজিরা জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে অন্তত ৩ হাজার বিক্ষোভকারী অবস্থান নিয়েছে। দেশটির ট্রেড ইউনিয়নগুলো সরকারের এ বিলের বিরোধীতা করে আন্দোলনকারীদের রাস্তায় নেমে আসার আহ্বান জানানোর পরই তারা রাস্তায় নেমে আসে। সূত্র: আল-জাজিরাএমজে/

৩০ বছর পর জিম্বাবুয়েতে নির্বাচন

আগামী ৩০ জুলাই জিম্বাবুয়েতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সাধারণ নির্বাচন। দীর্ঘ ৩০ বছর পর দেশটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এই সাধারণ নির্বাচন। আজ বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে এই নির্বাচনের ঘোষণা দেন দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট এমারসন নাঙ্গাগোয়া। গত বছরের নভেম্বরে সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপে তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে দেশটির প্রেসিডেন্ট থাকা রবার্ট মুগাবে’কে সরিয়ে প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন তিনি। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পাশাপাশি সংসদের উচ্চ ও নিম্ন দুই কক্ষতেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলেও জানান এমারসন। জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া এক ভাষণে তিনি বলেন, “আমি আগামী ৩০ জুলাই সোমবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পাশাপাশি হাউজ অব এসেম্বলী এবং হাউজ অব কাউন্সিলরের নির্বাচন আয়োজনের জন্য নির্বাচন কমিশনকে আদেশ দিয়েছি”। নির্বাচনে এমারসনের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হবেন নেলসন চামিসা। ৪০ বছর বয়স্ক এই রাজনৈতিক নেতা দেশটির প্রধান বিরোধী দল মুভমেন্ট ফর ডেমোক্রেটিক চেঞ্জ এর প্রধান। জিম্বাবুয়ের আসন্ন নির্বাচনে প্রায় ৫০ লক্ষ নাগরিক তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। সূত্রঃ আল জাজিরা  

সোমালিয়ায় ভারী বর্ষণে নিহত ৬

সোমালিয়ায় ভারী বর্ষণ ও বন্যায় অন্তত ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। দেশটির রাজধানী মোগাদিসুতে ভয়াবহ বর্ষণ ও বন্যায় শতাধিক ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে জানিয়েছে আনাদুলো নিউজ এজেন্সি। মোগাদিসুর নগরপিতা আবদিরহমান ওমার ওসমান ইয়ারিসো বলেন, ‘বন্যায় তিন শিশুসহ অন্তত ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া ৩০১ টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৩৫ মিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।’ এদিকে বন্যা পরবর্তী ত্রাণ সহায়তা পৌঁছে দিতে স্থানীয়দের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইয়ারিসো। এদিকো গত রোববার দেশটির লুঘাইয়া ও বাকি জেলায় বন্যায় অন্তত ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। উল্লেখ্য, গত ৩০ বছর ধরেই সোমালিয়াতে ভারী বর্ষণ হয়ে আসছে। সূত্র: আনাদুলো নিউজ এজেন্সিএমজে/

কঙ্গোতে ইবোলা মহামারি: নিহত ২৩

আফ্রিকার যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ কঙ্গোতে মহামারী আকার ধারণ করেছে ইবোলা ব্যাধি। মরণঘাতি এই রোগে এখন পর্যন্ত সেখানে নিহত হয়েছেন ২৩ জন ব্যক্তি। এছাড়াও ইবোলায় আক্রান্ত হিসেবে অন্তত ৪২ জনকে সনাক্ত করা হয়েছে। ইবোলার কারনে শরীরের আভ্যন্তরীণ রক্তঃক্ষরণ হয়। সঠিক সময়ে চিকিৎসা করা না হলে মরণঘাতি হতে পারে এই রোগ। খুবই ছোঁয়াচে এই রোগ মানব দেহ থেকে নির্গত সামান্য তরল কোন উপাদান থেকে ছড়িয়ে পরতে পারে। তবে এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার পরও এর লক্ষণ অনেক দেরিতে বুঝতে পারা যায়। গতকাল বুধবার কঙ্গোর মোবানডাকা জেলার দক্ষিণের একটি শহরে প্রথম ইবোলা রোগী সনাক্ত করা হয়। মৃত্যুও হয় সেই রোগীর। ইবোলা এখন সংক্রমিত হয়েছে মোবানডাকার মূল শহরে। প্রথম যে অঞ্চলটিতে ইবোলা সনাক্ত হয় তার থেকে প্রায় ১৩০ কিলোমিটার দূরে মোবানডাকার মূল শহর। আর এই কারণে উদ্বিগ্ন হয়ে পরেছে দেশটির সরকার এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)। কঙ্গোর স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের অনুমান যে, গতকাল মোবানডাকার দক্ষিণ অংশের ঐ এলাকায় ইবোলায় আক্রান্ত ব্যক্তির সৎকার অনুষ্ঠানে যোগ দেন মূল শহরের কয়েকজন ব্যক্তি। তাদের মধ্যেকার দুই বা তিন জন ব্যক্তি সেখান সংক্রমিত হয়েছিলেন। আর এর ফলে মূল শহরে চলে আসে এই ভাইরাসটি। মোবানডাকার সাথে দেশের অন্যান্য জেলাগুলোর সরাসরি সড়ক ও জলপথে যোগাযোগ রয়েছে। বিশেষ করে রাজধানী কিনাসার সাথে মোবানডাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই ভালো। এছাড়াও কঙ্গো নদীর মাধ্যমে মোবানডাকার সাথে কঙ্গো ব্র্যাজভিল এবং কেন্দ্রীয় আফ্রিকান রিপাবলিকের মতো দেশের যোগাযোগ রয়েছে। হু আশংকা করছে যে, দ্রুত এই ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রন করা না গেলে ইবোলা ছড়িয়ে পরতে পারে পুরো আফ্রিকা মহাদেশ জুড়ে। হু জানায়, ইবোলা ভাইরাসের স্পর্শে আসতে পারে এমন অন্তত ৪৩০ জন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করেছে তারা। এছাড়াও পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হচ্ছে আরও প্রায় চার হাজার মানুষকে। ইতোমধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছে কঙ্গোর স্বাস্থ্যমন্ত্রী অলি লুঙ্গা। আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উর্ধ্বতন কর্মকর্তা পিটার সালামা সার্বিক অবস্থাকে ‘মহামারি’ বলে উল্লেখ করেছেন। বার্তা সংস্থা বিবিসিকে সালামা বলেন, “পরিস্থিতি খুবই ভয়াবহ। সংক্রমণ দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর মোবানডাকা খুবই জনবহুল এবং অন্য জেলাগুলোর সাথে এর যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই ভালো হওয়ায় সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমাদেরকে আরও জোরেসোরে কাজ করে যেতে হচ্ছে”। হু এর পক্ষ থেকে পরীক্ষামূলকভাবে প্রায় চার হাজার মানুষের ঔষধ ইতোমধ্যে কঙ্গোতে পৌছেছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এসব ঔষধ আগে মোবানডাকার মানুষদের জন্য ব্যয় করা হবে। ঔষদের আরেকটি চালানও অতি শীঘ্রই কঙ্গোতে পৌছাবে বলে জানায় সালামা। এর আগে ২০১৪-১৬ সালের দিকেও ইবোলা মহামারীতে আক্রান্ত হয়েছিল আফ্রিকা। গায়ানা, সিয়েরা লিওন ও লাইবেরিয়াতে সেসময় পরিস্থিতি ছিল সবথেকে খারাপ। ঐ দুই বছরের ১১ হাজার তিনশ’র বেশি মানুষ মারা গিয়েছিল। সূত্রঃ বিবিসি //এস এইচ এস// এআর  

কুমিরের হামলা থেকে বেঁচে বিয়ের পিড়িতে

 প্রথম দেখায় আপনার মনে হবে তারা আর পাঁচজন অল্প বয়েসী জুটির মতন। বিয়ের আসরে দাঁড়িয়ে মন্ত্র পড়ছেন, আর দীর্ঘ ও সুখী এক দাম্পত্য জীবনে প্রবেশের দ্বারপ্রান্তে। কিন্তু একটু খেয়াল করলেই দেখা যাবে, কনের ডান হাতে বাহুর নিচের অংশ নেই। অবশিষ্ট অংশে সাদা ব্যান্ডেজ আটকানো। এই অনুষ্ঠানের পাঁচদিন আগে জিম্বাবুয়ের যামবেযি নদীর পাড় থেকে কুমির জ্যানেল নোলোভুকে কামড়ে ধরে টেনে পানির নিচে নিয়ে গিয়েছিল। উদ্ধার হবার পর হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে রীতিমত পাঞ্জা লড়ে ফিরে এসেছেন তিনি। কুমিরের ভয়াবহ সেই হামলা, বেঁচে ফিরে নতুন পাওয়া আত্মবিশ্বাস সবকিছু নিয়ে ২৫ বছর বয়সী জ্যানেল বিবিসির সঙ্গে কথা বলেছেন। জ্যানেল তার তৎকালীন প্রেমিক ও বর্তমানে স্বামী জেমি ফক্স দুইজন যামবেযি নদীর পাড়ে বেরাতে গিয়েছিলেন। সেখানে তারা যখন নদীতে একটি ডিঙ্গি নৌকায় করে বেরাতে নামেন, তাদের বলা হয়েছিল যে তাদের সঙ্গে এক কুমির দম্পতির দেখা হবে। কিন্তু তারা আক্রমণ করতে পারে, এমন কোনও হুশিয়ারি মোটেই দেওয়া হয়নি। সেটি তাদের ডিঙ্গিতে চড়ার আগের মুহূর্তে তোলা সেলফিতেও দেখা যায়নি। ২৭ বছর বয়সী জেমি বলছিলেন, তাদের এতই নিশ্চিন্ত সময় কাটাচ্ছিলেন যে কুমিরের আসা বা চলা কোনও কিছুরই আওয়াজ পাননি তারা। জেমি হঠাৎই একটি কুমিরের মাথা পানিতে ভেসে উঠতে দেখেছিলেন। কিন্তু তাদের দুজনেরই কয়েক সেকেন্ড সময় লেগে যায় এটা বুঝতে যে সেটি আসলেই সত্যিকারের কুমির। যতক্ষণে তারা বুঝতে পারেন, ততক্ষণে ক্যানু বা ডিঙ্গি উল্টে গেছে, আর জ্যানেলের হাত কামড়ে তাকে পানির কয়েক হাত নিচে নিয়ে গেছে কুমির। তিনি বলেন, আমি প্রথমে ভেবেছিলাম, আমি মারা যাচ্ছি। আমার রক্তে চারপাশের পানি লাল হয়ে গেছে। কিন্তু একটু পরে ভাবলাম, না! মরার আগে আমাকে লড়াই করতে হবে। এরপর পর্যটন গাইড এসে পৌঁছানোর আগ পর্যন্ত তিনি কেবল টিকে থাকার চেষ্টা করেছেন। পরে উদ্ধার করে যখন তাকে হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছিল, জ্যানেল তখনই বুঝেছিলেন, হাতটা গেছে! কিন্তু অন্যরা কনুই এর নিচ থেকে ঝুলে থাকা হাতটি লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করছিল। এদিকে বিয়ের জন্য নির্ধারিত দিন ধার্য করা ছিল মে মাসের পাঁচ তারিখ। অপারেশনের পর চিকিৎসকেরা জানালেন, কত দ্রুত জ্যানেলের জখম সারে তার ওপর নির্ভর করবে কবে ছাড়া পাবেন। তবে অপারেশনের দুই এক দিন পরই একজন চিকিৎসক জানান, তারা যদি হাসপাতালেই বিয়ে করতে চান, তাহলে কর্তৃপক্ষ হাসপাতাল চ্যাপেলে তা আয়োজন করতে পারে। এরপর সেখানেই আয়োজন হয় বিয়ের অনুষ্ঠান। দৃঢ়চিত্ত প্রেমিক যুগলের একত্রিত হওয়ার এই আয়োজনে হাসপাতালের সব মানুষ যোগ দিয়েছিল। অনেকেরেই চোখে ভিজে উঠছিল একটু পরপর। জ্যানেল বলছেন, জীবনে কোনও কিছু সম্পর্কেই আগেভাগে কিছু বলা যায় না। মানুষ ভবিষ্যতের পরিকল্পনা করে যখন, ঈশ্বর হয়ত তখন মুচকি হাসেন। যেমন বিয়ের আসরে জ্যানেলেকে দেখে অনেকেই চোখের পানি মুছেছেন। যদিও তার সবাই তাদের পরিচিত নন। কিন্তু জ্যানেল এবং জেমি দুইজনই নিজেদের নতুন জীবন নিয়ে খুব আশাবাদী। যদিও তারা বলছেন, ১০ দিনের মধ্যে তাদের জীবন বদলে গেছ আমূল, কিন্তু তারা ইতিবাচকভাবেই সব পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে চান। তথ্যসূত্র: বিবিসি। একে// এসএইচ/

আবারও ইবোলার হানা: কঙ্গোতে ১৭ জনের মৃত্যু

আফ্রিকার দেশ কঙ্গোতে আবারও আঘাত হেনেছে মহামারি ইবোলা। এ পর্যন্ত ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অন্তত ১৭ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা মারাত্মক ইবোলা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। কঙ্গোর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, পরীক্ষাগারে ২১ জন রোগীকে পরীক্ষা করে এ পর্যন্ত দুইজনের শরীরে ইবোলা ভাইরাস পাওয়া গেছে। দেশটির বিকোরো শহরের বেশ কয়েকজন রোগী তীব্র জ্বরে ভোগছে। এরপরই তাদের হাসপাতালে আনা হয়। তাদের মধ্যে ২১ জনকে ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হলে, দুজনের শরীরে ইবোলা ভাইরাস পাওয়া যায়। স্বাস্থ্য কর্মীরা প্রথমে ৫জন সন্দেহভাজন ইবোলা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর স্যাম্পল সংগ্রহ করেন। জানা গেছে, গত ৫ সপ্তাহে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে অন্তত ১৭ জনের মৃত্যু হয়। কঙ্গোর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, আমাদের দেশ আরেকটা মহামারির সামনে দাঁড়িয়ে। আন্তর্জাতিক সতর্কতাও জারি করেছে দেশটি। উল্লেখ্য, ২০১৩-২০১৬ সালের মধ্যে ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আফ্রিকার দেশ গায়ানা, সিয়েরা লিওন ও লেবাননে অন্তত ১১ হাজার ৩০০ জনের মৃত্যু হয়। সূত্র: আল-জাজিরাএমজে/

পরিবারের সদস্যদের জন্য দৌঁড়াচ্ছি

সাহারা মরুভূমির গভীরে, আলজেরিয়া সীমান্তের কাছে প্রতিবছর আয়োজন করা হয় সাহারা ম্যারাথনের। তবে এটি এখন শুধু সাধারণ কোনো প্রতিযোগিতা নয়, এটি একটি প্রতিবাদ। যারা এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেন, তারা মূলত সবাই নিজ ভূমি থেকে নির্বাসিত। ১৯৭৫ সালে পশ্চিম সাহারা মরুভূমির সাহারাউয়ি এলাকাটি নিয়ন্ত্রণে নেয় মরক্কো। তখন থেকেই অসংখ্য সাহারাউয়ি মানুষ প্রতিবেশী দেশগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে। প্রতিবছর আলজেরিয়ায় সাহারা মরুভূমিতে নিজেদের প্রতিবাদ আর মাতৃভূমির স্বাধীনতার দাবিতে একটি ম্যারাথন আয়োজন করেন তারা। ওই ম্যারাথনে অংশ নিয়েছিলেন অ্যাথলেট সালাহ আমেদান। তিনি বলেন, আমি আমার পরিবারের সদস্যদের জন্য দৌড়াচ্ছি, যাদের বহুদিন দেখতে পাই না। আমার ছোট্ট পরিবারটি দখলকৃত এলাকায় রয়ে গেছে। কিন্তু আমার সেখানে যাওয়া নিষেধ। দেড় বছর আগে আমার বাবা মারা গেছেন। তখনো আমি সেখানে যাওয়ার অনুমতি পাইনি। যাকে তিনি দখলীকৃত এলাকা বলছেন, সেই এলাকা নিজেদের দক্ষিণ প্রদেশ বলে দাবি করে মরক্কো। প্রায় ৪০ বছর আগে ১৯৭৫ সালে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর এলাকাটি নিয়ন্ত্রণে নেয় মরক্কো। সালাহ আমেদান ওই এলাকাতেই বড় হয়েছেন। বারো বছর বয়স থেকে তিনি মরক্কোয় খেলাধুলা শুরু করেন। মরক্কোর জাতীয় দলের হয়ে পুরস্কার আর আরব অ্যাথলেট পুরস্কার পেয়েছিলেন আমেদান। কিন্তু ২০০০ সালে একটি প্রতিযোগিতার পুরস্কার থেকে তাকে বঞ্চিত করা হলে, তিনি অবহেলার বিষয়টি উপলব্ধি করতে শুরু করেন। এর চার বছর পর ফ্রান্সে একটি দৌড়ানোর প্রতিযোগিতায় তিনি মরক্কোয় নিষিদ্ধ সাহারাউয়ি পতাকা উড়ান। এরপর থেকেই থেকেই তাকে মরক্কোয় নিষিদ্ধ করা হয়। আমেদান বলছেন, পতাকা ওড়ানোর সময় আমি অনেকটা স্বাধীনতার স্বাদ পেয়েছিলাম। আর প্রথমবার অনেক দায়িত্বও অনুভব করি। আমি যদিও নিজেকে আর আমার পরিবারকে ঝুঁকিতে ফেলেছি, কিন্তু আমি মনে করি আমি দখলীকৃত ভূমির মানুষজনের পাশে দাড়াতে পেরেছি। ম্যারাথনের পুরো পথ ধরে অ্যাথলেটদের পানি, খেজুর আর কমলা সরবরাহ করেন নারীরা। চার দশক আগের যুদ্ধের পর থেকেই অসংখ্য সাহারাউয়ি মানুষ প্রতিবেশী আলজেরিয়ায় আশ্রয় নিয়েছে। সেখানে ছয়টি শরণার্থী শিবিরে এখন বাস করছে লাখ লাখ মানুষ। তারাই অংশ নিয়েছেন এই ম্যারাথনে। অবশ্য মাতৃভূমির স্বাধীনতা নিয়ে এসব মানুষের স্বপ্ন এখন অনেকটা ফিকে হয়ে আসতে শুরু করেছে। কারণ ২৫ বছর আগে এই ভূখণ্ডের স্বাধীনতার প্রশ্নে গণভোট আয়োজনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল জাতিসংঘ। কিন্তু এখনো সেই ভোটের দেখা মেলেনি। আর তাই অনেক সাহারাউয়ি আবার অস্ত্র হাতে তুলে নেওয়ার কথাও ভাবছেন। সাহারাউয়ির একজন সামরিক নেতা আলী সালাম সিটি মোহাম্মেদ বলছেন, যা এক সময় জোর করে নিয়ে নেওয়া হয়েছে, সেটি ফেরত নিতে হলেও শক্তি খাটিয়েই নিতে হবে। লায়ুম ক্যাম্পের গভর্নর মোহাম্মেদ বেসাত জানান, একপক্ষের মাধ্যমে শান্তি আসবে না। মরক্কোকে বাধ্য করতে হলে তাদের উপর কোনো না কোনোভাবে চাপ তৈরি করতে হবে। সেটা আমাদের সশস্ত্র বাহিনী থেকে হতে পারে অথবা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মাধ্যমেও হতে পারে। কিন্তু আমাদের মনে হচ্ছে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এ নিয়ে খুব একটা মাথা ঘামাচ্ছে না। তিনি আরো বলেন, দরকার হলে আমরা আবার যুদ্ধে জড়াবো। কারণ আমরা সাহারাউয়ির সবাই একটি যোদ্ধা জাতি। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে মরক্কো সরকারের কেউ কথা বলতে রাজি হয়নি। ম্যারাথন শেষে সেখান আসা ভিকতোর সালাহ নামে একজন তরুণের সঙ্গে কথা হচ্ছিল। সালাহ`র কাছে জানতে চাওয়া হয় এতসব জটিলতার মধ্যে তিনি নিজেদের ভবিষ্যৎ নিয়ে কতটা আশা রাখেন? জবাবে সালাহ বলেন, আমি মনে করি, আমাদের নিজ ভূমিতে ফেরত যাওয়ার আগে সাময়িক একটি সময় আমরা পার করছি। একদিন আমরা সেখানে ফেরত যাবো বলেই আমি আশা করছি। আশা ছাড়া মানুষের জীবনের আর কি থাকে? সূত্র: বিবিসি আর/টিকে

এইডস রোগ ঠেকাতে মোজাম্বিকে এক লাখ পুরুষের খতনা

মরণঘাতী এইডস রোগ থেকে বাঁচাতে মোজাম্বিকে এক লাখ পুরুষের খতনা করানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, পুরুষদের খতনা এইচআইভি সংক্রমণের ঝুঁকি ৬০% কমাতে পারে- এর উপর ভিত্তি করেই এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মোজাম্বিকের জামবেজিয়া প্রদেশের যে সমস্ত এলাকায় খতনা করার প্রচলন তেমন নেই, সেগুলোকেই প্রচারণার টার্গেট করা হয়েছে। গত বছর এই কর্মসূচির আওতায় জামবেজিয়াতে ৮৪০০০ পুরুষের খতনা করা হয়েছিল। এবার এই লক্ষ্যমাত্রা বাড়ানো হয়েছে। প্রদেশের গভর্নর আব্দুল রাজ্জাক, যিনি নিজে পেশায় একজন ডাক্তার, এই খতনা কর্মসূচিকে সমর্থন করছেন। কাউকেই খতনা করতে জোর করা হচ্ছে না। স্বাস্থ্য কর্মীরা শুধু বোঝানোর চেষ্টা করছেন যে এতে এইডস প্রতিরোধে সাহায্য হতে পারে। দুই ধাপে খতনা প্রকল্পে খরচ হবে ৭২৮,০০০ মার্কিন ডলার। এইডস প্রতিরোধে কাজ করে যুক্তরাষ্ট্রের এমন একটি চ্যারিটি থেকে আর্থিক সাহায্য দেওয়া হচ্ছে। মোজাম্বিকের অন্যান্য প্রদেশে খতনার প্রচলন থাকলেও জাম্বেজিয়া ব্যতিক্রম। সূত্র: বিবিসি বাংলাএমজে/

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি