ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৭ ২:৩৬:১৭

নাইজারে বন্দুকধারীদের হামলা: ১৩ পুলিশ নিহত

নাইজারে বন্দুকধারীদের হামলা: ১৩ পুলিশ নিহত

নাইজারে বন্দুকধারীদের হামলায় ১৩ আধা-সামরিক পুলিশ নিহত ও পাঁচজন আহত হয়েছেন।  নাইজারের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে মালি সীমান্তে এই ঘটনা ঘটে। হামলার ঘটনাটি নিশ্চিত করেছেন নাইজারের সামরিক কর্মকর্তারা। এর আগে অক্টোবরের শুরুতে এই সীমান্তে অভিযানে চার নাইজার ও মার্কিন সেনা নিহত হয়েছিলো।  এ প্রসঙ্গে দেশটির নিরাপত্তা সূত্রগুলো গণমাধ্যমকে জানান, শনিবার ওই বন্দুকধারীরা পিকআপ ট্রাক ও মোটরসাইকেলে করে এসে আধা-সামরিক পুলিশের ঘাঁটিতে হামলা চালায়। হামলাকারীরা মালি থেকে সীমান্ত অতিক্রম করে নাইজারের প্রায় ৪০ কিলোমিটার ভেতরে ঢুকে আয়োরোউ গ্রামের ওই ঘাঁটিতে হামলা চালায়।  এ ব্যাপারে ঘটনাস্থলে থাকা এক নিরাপত্তা কর্মকর্তা জানান, হামলাকারীদের কাছে রকেট লঞ্চার ও মেশিনগান ছিল। চারটি গাড়িতে করে তারা এসেছিল, আর প্রত্যেকটি গাড়িতে প্রায় সাত জন করে যোদ্ধা ছিল। ওই নিরাপত্তা কর্মকর্তা আরো জানান, হামলার সময় গোলাগুলিতে এক হামলাকারী নিহত হলেও বাকীরা নাইজার সেনাবাহিনীর চারটি সামরিক যান নিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।   পরে অতিরিক্ত বাহিনী এসে হামলাকারীদের  সীমান্ত অতিক্রম করার সময় আটকালে উভয় পক্ষের মধ্যে বন্দুক লড়াই শুরু হয়।তারা মালিতে চলে যেতে সক্ষম হলেও তাদের অনুসরণ করা হচ্ছে বলে জানান এক কর্মকর্তা । তবে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোহামেদ বাজুম বলেন, ‘এ হামলায় ১২জন সেনা নিহত হয়েছেন। আমরা বন্দুকধারীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছি।’ সর্বশেষ তথ্য মতে-এখন পর্যন্ত এ হামলার দায় কেউ স্বীকার করেনি। সূত্র: রয়টার্স ও আল-জাজিরা / এম / এআর
মুগাবের নিয়োগ ‘পুনর্বিবেচনা’ করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার শুভেচ্ছা দূত করা হয়েছে জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবেকে । তাঁকে মনোনীত করার পর সমালোচনার ঝড় উঠেছে। মুগাবেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার শুভেচ্ছা দূত হিসেবে ঘোষণার পর ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্র হতাশা ব্যক্ত করেছে। বিস্ময় প্রকাশ করে ব্রিটেন বলেছে, রবার্ট মুগাবেকে দূত নিয়োগ করার ফলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনেক ভালো কাজ আড়াল হয়ে যাওয়ার আশংকা আছে। সমালোচকেরা বলছেন, জিম্বাবুয়ের মানুষের অধিকারের যে অবস্থা তা বিবেচনা করলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এমন গুরুত্বপর্ণ পদে  মুগাবেকে মনোনয়ন দেয়াটা হতাশাজনক সিদ্ধান্ত । এতে সংস্থাটির ঐতিহ্য ম্লান হতে পারে বলেও আশঙ্কা করছে কেউ কেউ। জিম্বাবুয়ের বিরোধী দল ও ক্যাম্পেইন গ্রুপগুলো বলছে এমন সিদ্ধান্ত এক ধরনের রসিকতা। এমন সমালোচনার প্রেক্ষাপটে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বলেছেন - জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে`কে তাদের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে নিয়োগের সিদ্ধান্তটি পুনর্বিবেচনা করে দেখা হচ্ছে। তবে,  মুগাবের এই মনোনয়নটিকে রবার্ট মুগাবের জন্য একটি ইতিবাচক বিষয় বলে ব্যাখ্যা করেছেন মুগাবের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের মুখপাত্র মাজি-উইসা। তিনি বলেন, বিভিন্ন ধরণের অর্থনৈতিক অবরোধ আর নিষেধাজ্ঞায় জর্জরিত দেশের প্রায় ভেঙে পড়া অর্থনৈতিক বাস্তবতার মধ্যেও স্বাস্থ্য সুরক্ষায় তিনি একজন অবিসংবাদিত নাম। বিভিন্ন রকমের কঠিন পরিস্থিতিতেও তার সাধ্যের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে তিনি সবচেয়ে ভালো করার চেষ্টা করেছেন । জিম্বাবুয়ের মানবাধিকার পরিস্থিতির ক্রমাবনতি ও অর্থনৈতিক দুর্দশার জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্র দীর্ঘদিন ধরে মুগাবেকে দায়ী করে আসছে। দেশটির স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থাপনাও সন্তোষজনক নয় বলে সমালোচকরা বলে আসছেন। মুগাবের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে। সমালোচকরা বলছেন,জিম্বাবুয়ের স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থাপনা সন্তোষজনক নয় । যদিও এসব আমলে নেন নি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নতুন প্রধান ড. টেড্রোস গেব্রেইয়াসুস। জনস্বাস্থ্য বিশেষ করে সংক্রামক নয় এমন রোগ ঠেকাতে ও `সার্বজনীন স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতে` জিম্বাবুয়ের সরকারের নেওয়া বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করেছেন তিনি। ইথিওপিয়ার নাগরিক টেড্রোস আফ্রিকা থেকে নির্বাচিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রথম শীর্ষ নির্বাহী। বুধবার তিনিই সংক্রামক নয় এমন রোগ ঠেকাতে অবদান রাখায় মুগাবেকে সংস্থার শুভেচ্ছা দূত হিসেবে নিয়োগ দেন। জাতিসংঘ সাধারণত শুভেচ্ছা দূত হিসেবে পৃথিবীখ্যাত মানুষদেরই বেছে নেয়। যেমন- চলচ্চিত্র তারকা অ্যাঞ্জেলিনা জোলি, টেনিস তারকা রজার ফেদেরার জাতিসংঘের শুভেচ্ছা দূত হয়ে কাজ করেছেন। কিন্তু ৯৩ বছর বয়সী রবার্ট মুগাবের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় নিয়োগের ঘোষণার পর অনেকেই মনে করছেন , একনায়কতান্ত্রিক শাসক আর মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য পশ্চিমা জগতে যার দুর্নাম রয়েছে, তাকে শুভেচ্ছা দূত করাটা যথার্থ সিদ্ধান্ত হয়নি। সূত্র: বিবিসি / এম / এআর

সোমালিয়ায় বোমা বিস্ফোরোণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৭৬

সোমালিয়ায় গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৭৬ জনে। বিস্ফোরণে আহত হয়েছে আরও ৩০০ জন। এখনও উদ্ধার কাজ চলছে। রাজধানী শহর মোগাদিসুর রাস্তায় পড়ে আছে বহু মানুষের দেহের ছিন্নভিন্ন অংশ। দেশটির তথ্য মন্ত্রনালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। গত শনিবার ভয়াবহ গাড়ি বোমা বিস্ফোরণ হয় মোগাদিসু শহরের ‘শারাফি’ নামে একটি হোটেলের প্রবেশ পথে। এ হোটেলের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে রাখা ছিল বিস্ফোরক। বিস্ফোরণের কারণে সেই হোটেলের একাংশও ভেঙে পড়ে। চাপা পরে প্রাণ হারান বহু মানুষ। মোগাদিসুর এক বাসিন্দা জানান, ২০০৭ সাল থেকে সন্ত্রাসবাদের শিকার হয়ে আসছে সোমালিয়া। তবে এতো বড় নাশকতা আগে কখনও  দেখিনি। প্রাথমিক পর্যায়ে মনে করা হচ্ছে এই বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট। কিন্তু, আইএসের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত এই বিষয়ে কোন বিবৃতি প্রকাশ করা হয়নি বা দায় স্বীকার করেনি। সূত্র:এপি এবং সিএনএন।   এম  

ভয়াবহ বোমা হামলায় মোগাদিসুতে ৮৫ জন নিহত

ভয়াবহ বোমা হামলায় সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিসুর একটি ব্যস্ত এলাকায় কমপক্ষে ৮৫ জন লোক নিহত হয়েছেন। একটি হোটেলের প্রবেশ পথের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা একটি বিস্ফোরক ভর্তি ট্রাক দিয়ে এই বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এতে বহু লোক আহতও হয়েছে। অপরদিকে শহরের মদিনা এলাকায় আরো একটি বোমা হামলা হয়। যাতে আরো ২ জন নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে পুলিশ। এই বোমা হামলা কারা চালিয়েছে তা এখনও স্পষ্ট হওয়া যায়নি। তবে সোমালিয়ায় আল-কায়েদা সংশ্লিষ্ট আল-শাবাব গোষ্ঠী সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত এবং মোগাদিসু তাদের নিয়মিত টার্গেট। বিবিসির খবরে জানা যায়, সাফারি নামের হোটেল ভবনটি ভেঙে পড়েছে এবং আশংকা করা হচ্ছে বহুলোক ধ্বংসস্তুপের নিচে চাপা পড়ে আছে। শহরের একজন বাসিন্দা বলেছেন, বিস্ফোরণে পুরো এলাকাটি ধ্বংস হয়ে গেছে। বলা হচ্ছে, মোগাদিসুতে এর আগে যত হামলা হয়েছে তার মধ্যে এটি বৃহৎ আকারের বোমা হামলা। সূত্র : বিবিসি বাংলা এসএ/ডব্লিউএন

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি