ঢাকা, শুক্রবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৮ ১৬:৩৪:০৫

আবারও হিন্দি গানে মাহিম (ভিডিও)

আবারও হিন্দি গানে মাহিম (ভিডিও)

‘এতোদূরে কেন চলে যাওয়া, এতো ভালোবাসি তোমায়’- হিন্দিতে এমন কথামালায় ‘এই কাছে আসা ফের ভালোবাসাকে উপেক্ষা করে দূরে চলে যাওয়া’- এমন রোমান্টিক বিরহ মিশ্রিত আবহের গানের একটি ভিডিওটি প্রকাশ পায় গত বছরের শেষ দিকে। এই গানটি দিয়েই আলোচনায় আসেন মাহিম করিম। ‘ইতনা দূর’ শিরোনামের এই হিন্দি গানের ভিডিওটি বেশ প্রশংসিত হয়। সেই ধারাবাহিকতায় এবার প্রকাশ পেয়েছে মাহিমের দ্বিতীয় হিন্দি গানের মিউজিক ভিডিও। নতুন এই গানের নাম ‘এক তেরা ছায়া হো।’ এর আগের ভিডিওটি ভারতের নামী প্রতিষ্ঠান টি সিরিজ থেকে প্রকাশিত হয়েছিল। এটিও একই প্রতিষ্ঠান থেকে প্রকাশিত হয়েছে। নতুন এই গানে কণ্ঠ দিয়েছেন স্যাম ও ফারায। সঙ্গীতায়োজন করেছেন ফারায ও রুম্মান। আর মাহিমের বিপরীতে ছিলেন ভারতের উপমা। গানের কথা লিখেছেন, আবির। ইতোমধ্যে গানের ভিডিও প্রশংসা পেয়েছে। মাহিমের লুক ও মডেল প্রশংসিত হয়েছে। নতুন এই ভিডিওটি নিয়ে মাহিম বলেন, ‘গানের দৃশ্যায়নে বৈচিত্রতা বরাবরের মতোই রয়েছে। ভারতের দৃষ্টিনন্দন লোকেশন ভিডিওর জন্য চিত্র ধারণ করা হয়েছে। যার ফলে ‘এলিট কোয়ালিটি’র একটি ভিডিও শ্রোতা-দর্শকেরা উপভোগ করতে পারছে। আমি আমার লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য সর্বোচ্চ দিয়েই আমার কাজ গুলো করার চেষ্টা করছি।’ নতুন মিউজিক ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন :   এসএ/  
সংগীতশিল্পী খালিদ হোসেন গুরুতর অসুস্থ

প্রখ্যাত নজরুল সংগীত শিল্পী ও গবেষক খালিদ হোসেন গুরুতর অসুস্থ। তিনি ফুসফুস আর হৃদ্‌যন্ত্রের সমস্যায় ভুগছেন। বর্তমানে তিনি ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। জানা যায়, গুরুতর অসুস্থতার কারণে তাকে গত বৃহস্পতিবার হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। আজ সোমবার সন্ধ্যায় জানা গেছে, তার শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে। আইসিইউ থেকে তাকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়েছে। তিনি বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ আলী হোসেনের তত্ত্বাবধানে রয়েছেন। চিকিৎসক সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার খালিদ হোসেনকে যখন হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়, তখন তার শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা প্রকট ও জটিল ছিল। তবে এখন তিনি স্বাভাবিকভাবে শ্বাস নিতে পারছেন। স্বাভাবিক খাবার খেতে পারছেন। পরিচিতজনদের সঙ্গে কথা বলছেন। খালিদ হোসেন ১৯৪০ সালের ৪ ডিসেম্বর কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন। পাঁচ দশক ধরে বাংলাদেশে নজরুলসংগীতের শিক্ষক, গবেষক ও শুদ্ধ স্বরলিপি প্রণয়নে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। তার কাজের স্বীকৃতিস্বরুপ তাকে একুশে পদক দেওয়া হয়।    জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় এবং দেশের সব মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড ও বাংলাদেশ টেক্সট বুক বোর্ডে সংগীত নিয়ে প্রশিক্ষক ও নিরীক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছেন। নজরুল ইনস্টিটিউটে নজরুলসংগীতের আদি সুরভিত্তিক নজরুল স্বরলিপি প্রমাণীকরণ পরিষদের সদস্য তিনি। এসি

গানেই লিজার ব্যস্ততা

সানিয়া সুলতানা লিজা। ক্লোজআপ ওয়ান তারকা। স্টেজ, প্লেব্যাক, অ্যালবাম, মিউজিক ভিডিও সব ক্ষেত্রেই লিজার উপস্থিতি বিদ্যমান। ইতিমধ্যে বেশ কিছু জনপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন এই কণ্ঠশিল্পী। গানের বাইরে একজন উপস্থাপিকা হিসেবেও প্রশংসা কুড়িয়েছেন লিজা। বর্তমানে গান নিয়েই তার যতো ব্যস্ততা। শো নিয়ে ব্যাপক ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে তাকে। বর্তমান ব্যস্ততা নিয়ে লিজা বলেন, ‘সত্যি বলতে অনেক ব্যস্ততা যাচ্ছে। আমার শো-র ব্যস্ততা সারা বছরই থাকে। কিন্তু তার মধ্যে শীত মৌসুম এলে সেটা বেড়ে যায়। শীত মৌসুমের পর এখনও টানা শো চলছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে শো করছি। সামনেও কিছু শো রয়েছে। আসলে বর্ষা মৌসুম পর্যন্ত এই ব্যস্ততা চলবে। আর শো করতে আমার বরাবরই ভালো লাগে। কারণ এখানে শ্রোতাদের সরাসরি গান শোনানো যায়। আবার সাড়াও সরাসরি পাওয়া যায়।’ নতুন গান নিয়ে লিজা বলেন, ‘আমি নির্দিষ্ট সময় পর পর গান প্রকাশ করছি। ভিডিও আকারে সিঙ্গেলই করছি। কয়েক মাস আগে আমার সর্বশেষ গান ‘আসমানী’ প্রকাশ হয়েছে। গানটির সাড়া এখনও ভালো পাচ্ছি। নতুন বেশ কয়েকটি গানের পরিকল্পনা রয়েছে। সামনে ভিডিওসহ গানগুলো একে একে প্রকাশ করবো।’ প্লেব্যাক নিয়ে লিজা বলেন, ‘প্লেব্যাকও করছি। বেশ কিছু সিনেমাতে কাজ করেছি। এর মধ্যে সর্বশেষ বদরুল আনাম সৌদের ‘গহীন বালুচর’ সিনেমাতে গান গেয়েছি। ‘তারে দেখি আমি রোদ্দুরে’ শিরোনামের এ গানটির সুর ও সংগীতায়োজন করেছেন ইমন সাহা। বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছি এর। আর সামনেও কয়েকটি চলচ্চিত্রে গান গাওয়ার কথা রয়েছে। ব্যাটে বলে মিললে হয়তো করবো।’ এসএ/  

কথা না শুনায় অন্তঃসত্ত্বা শিল্পীকে গুলি করে হত্যা   

এক অন্তঃসত্ত্বা সংগীত শিল্পীকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশে। জানা যায়, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রদেশের লারকানা এলাকার কাঙ্গা গ্রামে একটি উৎসব অনুষ্ঠানে ওই শিল্পীকে গুলি করে হত্যা করে এক বন্দুকধারী। নিহতের নাম সামিরা (২৮)। তিনি ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। ওই বন্দুকধারীকে আটক করেছে স্থানীয় পুলিশ। তাঁর নাম তারিক জাতোই। আটক বন্দুকধারী জানান, গুলি ছোড়ার সময় দুর্ঘটনাবশত সামিরার শরীরে লেগেছে।       সামিরার স্বামী আশিক সামুর বলেন, উৎসবের সময় এক ব্যক্তি তাঁর স্ত্রীকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন। তাকে ধমক দিয়ে দাঁড়াতে ও গান গাইতে বলেন। এ সময় সামিরা জানান, তিনি অন্তঃসত্ত্বা। উঠে দাঁড়াতে পারবেন না। এ সময় ওই ব্যক্তি তাঁকে গুলি করেন। সামিরা সিন্ধুতে স্থানীয়ভাবে সংগীতশিল্পী হিসেবে জনপ্রিয়। সিন্ধি লোকগান এবং সুফি গানের ওপর তার কমপক্ষে আটটি অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে। তিনি পারিবারিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানে জীবনমুখী গান করেন। এসি  

বৈশাখে বেবী নাজনীনের ‘রাত জাগা দুটি চোখ’

জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী বেবী নাজনীন। বর্তমানে গান নিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। বিশেষ করে স্টেজ শো নিয়ে খুব ব্যস্ত এই তারকা। তবে, বেশ বেছে বেছে বড় বড় শোগুলোতে অংশ নিচ্ছেন তিনি। এদিকে নতুন গান নিয়েও চলছে তার ব্যস্ততা। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে প্রকাশ পাচ্ছে বেবি নাজনীনের নতুন একটি গান। ‘রাত জাগা দুটি চোখ’ শিরোনামের গানটি প্রকাশ করছে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সাউন্ডটেক। গানটির কথা লিখেছেন আহমেদ রিজভী। সুর করেছেন নাজির মাহমুদ। আর সংগীতায়োজন করেছেন মুশফিক লিটু। এটি প্রকাশ হবে সাউন্ডটেকের ইউটিউব চ্যানেলে। এ বিষয়ে বেবী নাজনীন বলেন, ‘রাত জাগা দুটি চোখ’ শিরোনামের গানটি বেশ ভালো হয়েছে। একেবারে মনের মতো। কথা-সুর সব মিলিয়ে আমার নিজের গাইতেও চমৎকার লেগেছে। সাউন্ডটেক থেকে পহেলা বৈশাখেই এটি প্রকাশ হচ্ছে। আমার বিশ্বাস শ্রোতাদের ভালো লাগবে গানটি।’ এদিকে এর বাইরে বেবী নাজনীন বর্তমানে ব্যস্ত রয়েছেন নিজের নতুন একক অ্যালবামের কাজ নিয়ে। এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি গানের কাজ শেষ করেছেন তিনি। খুব শিগগিরই তিনি অ্যালবামটি প্রকাশ করবেন বলে জানিয়েছেন। এসএ/  

বৈশাখে সিডি চয়েজের বিশেষ আয়োজন

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে বেশ কিছু অডিও গান, নাটক, মিউজিক ভিডিও প্রকাশ করতে যাচ্ছে সিডি চয়েজ মিউজিক। যার মধ্যে অনেক জনপ্রিয় তারকা ও শিল্পী রয়েছে। গানগুলো হচ্ছে নিপা মন্ডল এর ‘ছুঁয়ে দিয়ে মন’, ইলিয়াছ হোসাইনের ‘আমি তোমার হতে চাই’, রাকিব মোছাব্বির এর ‘বিন্দাস, ও মেয়ে শুনে যাও, গাঁও গেরামের কন্যা, সোয়েব এর বরষা, ইমন খানের ভালোবেসে করেছি কি ভুল, দ্বীন ইসলামের আয় ফিরে আয়’, ডিজে পার্টি , খেয়া ও শিবলু এর হৃদয় আকাশে, ডিসকো দিওয়ানা, ওয়ামিয়ার রং চটা দেয়াল, ফারাবি ও খোকনের তোরই আকাশে, এম এস রাহি’র বৈশাখী মেলা, মম রহমানের মেলায় যাইরে, টিআর রোমান্স এর সাজনা, ফারাবি ও শিবলু এর চোখের আড়াল, অমিত চ্যাটার্জী’র মন পাখি, ওসমান সজিবের কলিজা পুড়ায় বন্ধুরে, দরদী বুলবুলের একটা স্বপ্ন ছিলো, অরণ্য আকনের শূন্যতা, স্বরলিপি ও শশী জাফরের গোলাপী নেশা, মনোজ ও বন্যার অন্তর জমিন, জেএস জিসান এর বৈশাখ এলো, সোহাগের ভালো বাইসাছিলাম, রাশেদ এর প্রবাস থেকে বলছি, ফারাবি ও অরণ্যে যে প্রেম, সাগরের নিরজনে, দিপু রাজ এর আর কেদোনা তুমি, এ আর রাব্বীর বলনা আমাকে, সানি আজাদের ওগো বৈশাখ, সজল ও মেহজাবিন এর নাটক রোবট ভালোবাসা, আরফান মিমু, মম মোরশেদ অভিনীত ওল্ডটাউন এক্সপ্রেস। এসএ/  

এই প্রথম বৈশাখে কুমার বিশ্বজিৎ

এই প্রথম সরাসরি বৈশাখের গান নিয়ে হাজির হচ্ছেন কুমার বিশ্বজিত। সোমেশ্বর অলির লেখা এবং আহম্মেদ হুমায়ূনের সুরে এ গানটির শিরোনাম ‘ঢেউ লেগেছে বাংলা ঢোলে বৈশাখী হাওয়ায়’। গানটির রেকর্ডিংয়ের কাজ শেষে শাহবাগের চারুকলায় এর মিউজিক ভিডিও নির্মাণের কাজ শেষ হয়। মিউজিক ভিডিওটি নির্মাণ করেছেন তানিম রহমান অংশু। গানটির কম্পোজিশন করেছে ভারতের চেন্নাইয়ে অবস্থিত এআর রহমানের সংগীত প্রতিষ্ঠান কে এম ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা। গানটি প্রসঙ্গে কুমার বিশ্বজিৎ বলেন, এর আগে আমার গান একতারা বাজাইওনা-তে বৈশাখের কিছুটা আমেজ পাওয়া গেলেও এবারই প্রথম সরাসরি বৈশাখের কোনো গান গাইলাম। অলি লিখেছে চমৎকার, হুমায়ূন সুরও করেছে ভালো এবং সর্বোপরি কে এম ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা কম্পোজিশনও দারুণ করেছে। দক্ষিণ ভারতের গানে নাদাসসুয়ারাম ইনস্ট্রুম্যান্টের ব্যবহারে আমি মুগ্ধ হতাম। আর সেটা আমার এই গানেও ব্যবহার করা হয়েছে। এক অদ্ভুত কম্পোজিশন হয়েছে। সবমিলিয়ে গানটি আমার ভীষণ ভালো লেগেছে। আমার বিশ্বাস নববর্ষে শ্রোতা-দর্শকের কাছে এই গান এক অন্যরকম ভালোলাগা উপহার দেবে। কুমার বিশ্বজিৎ আরও জানান, পহেলা বৈশাখের দিনেই ‘বাংলাঢোল’-এর ইউটিউব চ্যানেলে তার গাওয়া বৈশাখের এই গানটি পাওয়া যাবে। এসএ/  

হাবিবের প্রেমিকার বাবা ফেরদৌস ওয়াহিদ

বৈশাখ উপলক্ষে নতুন গান গেয়েছেন হাবিব। ‘ঝড়’ শিরোনামের হাবিবের গানের মিউজিক ভিডিওতে মডেল হয়েছেন বাবা ফেরদৌস ওয়াহিদ। জানা গেছে, এই মিউজিক ভিডিওর গল্পে হাবিবের প্রেমিকা শার্লিনা হোসেন। ফেরদৌস ওয়াহিদ এই প্রেমিকার বাবা। মেয়েকে হাবিবের কাছ থেকে উদ্ধার করার জন্য অদিত আর তৌফিককে নিয়ে হাবিবের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। হাবিবকে রক্ষা করতে চায় তার সহকারী প্রীতম হাসান। নতুন এ ভিডিওটি নিয়ে হাবিব ওয়াহিদ বলেন, ‘গানের সঙ্গে মিল রেখে ভিডিওতে নতুন কিছু দেওয়ার চেষ্টা করছি। তার অংশ হিসেবে গল্প সাজানো হয়েছে। এবারই প্রথম আমার গানের ভিডিওতে মডেল হয়েছেন বাবা। তা-ও আবার আমার গার্লফ্রেন্ডের বাবার ভূমিকায়। মেয়েকে রক্ষা করার জন্য আমার ওপর হামলা করেন অদিত আর তৌফিককে নিয়ে। তাদের সঙ্গে মারামারির দৃশ্যটি দারুণ উপভোগ করেছি।’ ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, ‘এটা ব্যতিক্রমী একটি কাজ হয়েছে। গল্পটি পুরান ঢাকার একটি পরিবার আর একজন প্রেমিকের! আমি হাবিবের গার্লফ্রেন্ডের বাবার চরিত্রে অভিনয় করেছি। সব মিলিয়ে খুব মজার অভিজ্ঞতা হয়েছে। আশা করি, সবাই উপভোগ করবেন।’ গানটির কথা লিখেছেন সুহৃদ সুফিয়ান। সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন হাবিব নিজেই। ‘ঝড়’ গানের ভিডিওটি পরিচালনা করেছেন তানিম রহমান অংশু। গানটি তৈরি করছে গানচিল। উল্লেখ্য, শার্লিনা হোসেন এর আগে হাবিবের ‘চলো না’ গানের মডেল হয়েছেন। এসএ/  

বৈশাখী নাচে কর্নিয়া (ভিডিও)

প্রতি বছর পহেলা বৈশাখে নতুন নতুন গান নিয়ে আসেন শিল্পীরা। এবারের বৈশাখ নিয়েও অনেকে মহাব্যস্ত। তেমনি গান নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন এ প্রজন্মের জনপ্রিয় গায়িকা কর্নিয়া। প্রথমবারের মতো বৈশাখের একটি মৌলিক গানে তিনি কণ্ঠ দিয়েছেন। গানটির সঙ্গে নাচের মুদ্রাও মিলিয়েছেন কর্নিয়া নিজেই।  বাংলাঢোলের ব্যানারে ৮ এপ্রিল বেরিয়েছে ‘পাওয়ার ভয়েস’খ্যাত গায়িকা কর্নিয়ার গান ‘নববর্ষ’। অনুরূপ আইচের কথায় এতে সুর ও সংগীতায়োজন করেছেন আরফিন রুমি। এর ভিডিও তৈরি করেছেন মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ। ‘নববর্ষ’ উপভোগ করা যাচ্ছে বাংলাঢোলের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলসহ দেশের সবক’টি মোবাইলফোনের ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মে।   কর্নিয়া বললেন, ‘এটি আমার জীবনে অন্যরকম অভিজ্ঞতা। আসলে নাচের আমার কোনও প্রস্তুতি ছিল না। আমাদের কোরিওগ্রাফার ছিলেন হুমায়ূন ভাই। তিনিই সেটে দেখিয়ে দিয়েছেন। তখনই নাচগুলো তোলা। ভক্তদের জন্য এটা নববর্ষের উপহার।        এসি  

বৈশাখে আসছে সোহেল-রিক্তার দুটি মিউজিক্যাল ফিল্ম   

আসছে পহেলা বৈশাখ। এই বৈশাখ উপলক্ষে মিডিয়ায় ব্যস্ততা বেড়ে যায় শিল্পীদের। তেমনি ডাবল ধামাকা নিয়ে আসছেন এ সময়ের জনপ্রিয় মুখ সোহেল আহমেদ ও অভিনেত্রী ফারজানা রিক্তা। ‘সাঈ ও ‘ভালোই পারো’ শিরোনামের দুটি মিউজিক্যাল ফিল্মে জুটি বেধেঁ অভিনয় করেছেন তারা। মিউজিক্যাল ফিল্ম দুটি নির্মান করেছেন তরুণ নির্মাতা সাজিন খান।     ‘সাঈ’ শিরোনামের গানটি গেয়েছেন ডি এইচ আকাশ। গানটির কথা ও সুর করেছেন মনিন রনি। আর মিউজিক করছেন জেড এইচ বাবু। `ভালোই পারো` গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন ইয়াসিন খান। গানটির কথা দিয়েছেন রাফিউজ্জামান রাফি। আর মিউজিক কম্পোজিশন করছেন রেমো বিপ্লব।    সম্প্রতি মানিকগঞ্জের মনোরম লোকেশনে গানদুটির চিত্রধারন করা হয়েছে। বৈশাখ উপলক্ষে গানদুটি বাংলাদেশের স্বনামধন্য কোম্পানি থেকে প্রকাশ হওয়ার কথা রয়েছে। গান নিয়ে মডেল সোহেল বলেন,‘মিউজিক্যাল ফিল্মের গান দুটি অনেক সুন্দর লোকেশনে করা হয়েছে। এর মধ্যে বৈচিত্র রয়েছে। আশা করি মিউজিক্যাল ফিল্ম দুটি দর্শকের মনে জায়গা করে নিবে।’ গান নিয়ে অভিনেত্রী ফারজানা রিক্তা বলেন, ‘দুটো কাজই অনেক ভালো হয়েছে। আশা করছি, সবার ভালো লাগবে। রিক্তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে নির্মাতা সাজিন খান গান দুটি সম্পর্কে বলেন, ‘দুটো মিউজিক্যাল ফিল্মই দারুণ মানসম্পন্ন হয়েছে। আমি আশাবাদী মিউজিক্যাল ফিল্ম দুটো দর্শকের মন কাড়বে।’   মিউজিক্যাল ফিল্মে সোহেল-রিক্তা ছাড়াও অন্যন্য চরিত্রে ছিলেন দ্বীপক কর্মকার, সানবির খান, তামি রহমান। ক্রিয়েটিভ পরিচালক ছিলেন রাহমান রাহুল ও আদিব হাসান, ডিওপি ছিলেন সানি খান। এসি  

কণ্ঠশিল্পী লিমনের সঙ্গে মডেল তৃষ্ণার ভিডিও প্রকাশ

কণ্ঠশিল্পী লিমনের সঙ্গে জুটি হয়ে একটি গানের ভিডিওতে মডেল হলেন তৃষ্ণা। তুমি যখন হাত বাড়াও মেঘের দিকে/একা যখন মন বাড়াও আকাশ ফিকে- এমনই কথায় কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে চিত্রায়িত হয়েছে ভিডিওটি। যেখানে দেখা মিলেছে কণ্ঠশিল্পী লিমন ও মডেল এসকে তৃষ্ণা জুটিকে। টিএম সাব্বিরের কথায় বনি আহমেদের সুর-সংগীতে এতে কণ্ঠ দিয়েছেন লিমন চৌধুরী। যিনি আগেও নিজের গান-ভিডিও দিয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন দর্শক-শ্রোতাদের। সেই ধারাবাহিকতায় এবার প্রকাশ পেয়েছে তার গাওয়া ‘তুমি যখন হাত বাড়াও’ শিরোনামের গানটি। এটির ভিডিও নির্মাণ করেছেন চন্দন রায় চৌধুরী। গানটির কণ্ঠশিল্পী ও মডেল লিমন চৌধুরী বলেন, ‘আমি বরাবরই চেষ্টা করি কথা-সুর-কণ্ঠ মিলিয়ে একটা পরিচ্ছন্ন গান করার। তাই আমার গানের সংখ্যাও বেশ কম। যেমন প্রায় দুই বছর পর আমার নতুন গান-ভিডিও প্রকাশ হলো। আমি কৃতজ্ঞতা জানাই সংশ্লিষ্ট সবাইকে। বিশেষ কৃতজ্ঞতা সিডি চয়েসের সোহেল ভাইয়ের কাছে। আশা করছি এবারের গানটিও সবার ভালো লাগবে।’ উল্লেখ্য, প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সিডি চয়েসের ইউটিউব চ্যানেলে ৬ এপ্রিল প্রকাশ পেয়েছে ভিডিওটি। ‘তুমি যখন হাত বাড়াও’ গানের ভিডিও :   এসএ/

মিউজিক ভিডিও নিয়ে এলেন আমিন খান  

এক সময়ের জনপ্রিয় নায়ক আমিন খান। অসংখ্যা চলচ্চিত্রে তিনি অভিনয় করেছেন। সম্প্রতি টেলিভিশন নাটক নিয়েও তিনি ব্যস্ত রয়েছেন। তবে কোনো মিউজিক ভিডিওতে এর আগে তাকে দেখা যায়নি। এবারই প্রথম কোনও মিউজিক ভিডিওতে পারফর্ম করলেন আমিন খান। শিশুশিল্পী আতিকা রহমান মম ও লাভলুর গাওয়া গানের ভিডিওতে দেখা যাবে তাকে। ‘আমার একটাই বোন’ শিরোনামের এই গানটি লিখেছেন মনিরুজ্জামান মনির, সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন আলী হোসেন। আর গানটির কোরিওগ্রাফি ও ভিডিও নির্মাণ করেছেন মাসুম বাবুল। আমিন খানের সঙ্গে ভিডিওতে তার বোনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন গায়িকা মম নিজেই। চিত্রনায়ক আমিন খান বলেন, ‘চলচ্চিত্র ও নাটকে নিয়মিত অভিনয় করলেও কোনও মিউজিক ভিডিওতে এর আগে কাজ করা হয়নি। মম অনেক ভালো গান করে। মূলত তাকে উৎসাহিত করার জন্যই এ কাজটি করলাম। আমরা সবাই যদি যার যার অবস্থান থেকে নতুনদের উৎসাহিত করি তবে তারা অনেক ভালো কাজ করতে পারবে বলে আমার বিশ্বাস।’ শিশুশিল্পী মম বলেন, ‘উনার মতো একজন বড় তারকাকে আমার বড় ভাইয়ের চরিত্রে পেয়ে খুবই খুশি। গান ও ভিডিও দুটোই অনেক ভালো হয়েছে। আশা করি সবার ভালো লাগবে।’  জানা গেছে, সম্প্রতি বাজনাবিডির ইউটিউব চ্যানেলে ‘আমার একটাই বোন’ গানটির ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে। এসি

কনকচাঁপার নামে গ্রন্থাগার

টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার নতুন ইউনিয়ন বেরিবাইগের দক্ষিণ জাঙ্গালিয়া গ্রামের ‘আলোর ভুবন আদর্শ বিদ্যালয়’-এ প্রতিষ্ঠা করা হয় ‘কণ্ঠশিল্পী কনকচাঁপা গ্রন্থাগার’। এটা শিল্পীর প্রতি ভালোবাসার সর্বোচ্চ নিদর্শন। বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা জাহাঙ্গীর কবির আলো উদ্যোগী হয়ে কনকচাঁপার নামে এই গ্রন্থাগার প্রতিষ্ঠিত করেছেন। কনকচাঁপার ‘আমাদের খেলাঘর ইসকুল’-এরই একজন শিক্ষার্থী আলো। প্রিয় এ শিল্পীকে তিনি মা বলেই ডাকেন। তার প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার নিদর্শনস্বরূপ আলো এই গ্রন্থাগারটি প্রতিষ্ঠিত করেন। তবে শিল্পীর নামে গ্রন্থাগার প্রতিষ্ঠার বিষয়টি আলো জানান দিয়েছেন সম্প্রতি। এ বিষয়ে কনকচাঁপা বলেন, ‘আমি কণ্ঠশ্রমিক, গান গাই, গান গেয়ে দর্শকের ভালোবাসা পাই। এটা খুব স্বাভাবিক একটি বিষয়। কিন্তু আমার নামে কোথাও গ্রন্থাগার প্রতিষ্ঠিত করার বিষয়টি আমাকে সত্যিই অনেক অবাক করেছে। এই ভালোবাসা আসলে কোনো কিছুর বিনিময়ে পাওয়া যায় না। আমি কৃতজ্ঞ আলোসহ যারা এর নেপথ্যে কাজ করেছেন সবার প্রতি।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমার নামে দেশের যে প্রান্তেই হোক একটি গ্রন্থাগার আছে, এটা যখনই ভাবি তখনই আমার মনে অন্যরকম ভালোলাগা ছুঁয়ে যায়। ইচ্ছে আছে সময় করে একদিন সেই গ্রন্থাগারটি দেখতে যাওয়ার। আর বিশেষত বলতে চাই, আমাকে যারা বিভিন্ন সময়ে বই দেয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন, তারা চাইলেই এ গ্রন্থাগারের জন্য বই দিতে পারেন। আমি চাই সেই এলাকার মানুষ এ বই পড়ে আরও আলোকিত হোক।’ এসএ/  

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি