ঢাকা, বুধবার, ২৫ এপ্রিল, ২০১৮ ১৪:৫০:৫৬

৩০০ উইকেট শিকারের রেকর্ড সাকিবের

৩০০ উইকেট শিকারের রেকর্ড সাকিবের

একটি মাত্র উইকেটের জন্য তিন ম্যাচ অপেক্ষা করতে হলো বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে। অবশেষে দুই ম্যাচ অপেক্ষার পর তৃতীয় ম্যাচে এসে পেলেন সেই কাঙ্ক্ষিত উইকেটের দেখা। সাথে সাথে গড়লেন ৩০০ উইকেটের রেকর্ড।
দুর্ভাগ্যজনক আউটের শিকার সাকিব 

দলের দুঃসময়ে ব্যাটিংয়ে নেমেছিলেন সাকিব আল হাসান। তখন ৪৪ রানেই সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ৩ উইকেট চলে যায়। এর পরে দারুণ চাপে পরে সাকিবের দল। সাকিব মাঠে নামার পরে তার কাছে বাড়তি প্রত্যাশাটাও ছিল। কিন্তু সে আশা গুঁড়েবালি! চালকের আসনে যেতে পারলেন আর কই?  অবশ্য এতে সাকিবের দোষ নেই। স্ট্রাইকিং এন্ডে থাকা উইলিয়ামসন কলটা দিয়েছিলেন, পরে আবার `না` করে দেন। এতে সাকিব কল পেয়ে মাঝ পিচে পর্যন্ত গিয়ে ফিরে আসতে চাইলেও পারেননি। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের সূর্যকুমার যাদবের সরাসরি থ্রোতে ২ রান করেই প্যাভিলিয়নে ফিরতে হয় সাকিবকে। দুর্ভাগ্যজনক রান আউটের শিকার হলেন তিনি। এর আগে ১২ আর ২৭ রানের দুটি ইনিংসের পর শেষ দুই ম্যাচে সমান ২৪ রান করে করেন এই অলরাউন্ডার। এর মধ্যে একটিতে ছিলেন অপরাজিত। কেআই/এসি  

বিতর্কে এবার ভারতীয় ক্রিকেটার যুজবেন্দ্র চাহাল

ভারতীয় ক্রিকেটার মহম্মদ শামি ও হার্দিক পান্ডিয়ার রেশ কাটতে না কাটতে এবার নতুন করে বিতর্কে জড়ালেন যুজবেন্দ্র চাহাল। তারকা এ স্পিনারের বিরুদ্ধে অভিযোগ, কন্নড় এক অভিনেত্রীর সঙ্গে নাকি তিনি চুটিয়ে প্রেম করছেন। এমনকি তারা নাকি গোপনে বিয়েও করেছেন! সোশাল মিডিয়ায় তাদের প্রেম-বিয়ে নিয়ে নাকি বেশ উত্তাপ ছড়াচ্ছে। টাইমস নাউয়ের প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে। তানিশকা কাপুর নামের ওই অভিনেত্রীর সঙ্গে তার কোন ধরণের সম্পর্ক নেই বলে সাফ জানিয়ে দেন স্যোশাল  মিডিয়ায় সক্রিয় থাকা হরিয়ানার স্পিনার চাহাল। সোমবারই বিরাটের দলের ২৭ বছর বয়সী স্পিনার টুইটারে বিয়ে নিয়ে মুখ খুললেন।  টুইটে তিনি লেখেন, আমি বলতে চাই, আমার জীবনে এখন এমন কিছুই ঘটছে না। আমি বিয়ে করছি না। আমি এবং তানিশকা দু`জনেই খুব ভালো বন্ধু। আমার অনুরোধ, দয়া করে গুজব ছড়াবেন না। আমি আশা করব, সবাই আমার ব্যাক্তিগত বিষয়টি বুঝবেন। আমার বিয়ে নিয়ে পোস্ট করা বন্ধ করুন। কিছু পোস্ট করার আগে তা যাচাই করে নিন।    জাতীয় দলের এই ক্রিকেটার আইপিএলে’ বিরাট কোহলির দল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার ব্যাঙ্গালুরুর হয়ে খেলছেন। আরকে//এসি  

এবার ইনজুরিতে মাহমুদুল্লাহ

টাইগার শিবিরে আবারো ইনজুরির হানা। তামিম, মুশফিক, নাসিরের পর এবার এটির স্বীকার মাহমুদুল্লাহ। গোড়ালির ব্যথা নিয়েই বেশ কয়েক মাস খেলছিলেন তিনি। তবে বিসিএলের গত রাউন্ডে খেলার সময় ব্যথাটা বেড়ে যায়। তাই চিকিৎসকের পরামর্শেই বিসিএলের শেষ রাউন্ডে খেলছেন না তিনি। বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী বলেন,  মাহমুদুল্লাহর গোড়ালিতে আগেই ব্যথা ছিল। ও সেটা ম্যানেজ করেই শ্রীলঙ্কায় নিদাহাস ট্রফি ও বিসিএলে আগের রাউন্ডে খেলেছে। তবে বিসিএলের শেষ রাউন্ডে খেলার সময় ব্যথা অসহনীয় হয়ে ওঠে। আপাতত তাকে একটি ইনজেকশন দেওয়া হয়েছে। তিনি এখন বিশ্রামে আছেন। আশা করছি, অল্প সময়েই মধ্যেই তিনি সুস্থ হয়ে ক্যাম্প থাকবেন। প্রসঙ্গত, আগামী ১৩ মে জাতীয় দলের ক্যাম্প শুরু হবে। জুনের শুরুতে আফগানিস্তান এবং শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। বর্তমানে টাইগার শিবিরে ইনজুরিতে পড়া ক্রিকেটারদের তালিকাটা বেশ লম্বা। যাদের মধ্যে রয়েছেন মুশফিক, নাসির, তাসকিন, মোসাদ্দেক ও মিরাজ। এছাড়া পুনর্বাসন চলছে তামিম ইকবালের।   আর

নিজেকে ফিট রাখতেই প্রথম শ্রেণির ম্যাচ: মাশরাফি

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের এবারের আসরে রেকর্ড করে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হয়েছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। তাই বল হাতে দারুণ এই সময়টা নষ্ট করতে চাচ্ছেন না তিনি। আজ আবার বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) শেষ রাউন্ডের ম্যাচ খেলতে মাঠে নামছেন তিনি। মঙ্গলবার খুলনা শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে দক্ষিণাঞ্চলের হয়ে উত্তরাঞ্চলের বিপক্ষে খেলতে নামবেন মাশরাফি। এর আগে গত বছর সেপ্টেম্বরে সর্বশেষ প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছিলেন। জাতীয় লিগে বরিশালের বিপক্ষে এই মাঠেই নেমেছিলেন তিনি। গতবারের মতো এবারও ম্যাচ ফিটনেস ধরে রাখাই এই ম্যাচ খেলার লক্ষ্য বলে জানালেন বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক। তিনি গণমাধ্যমকে জানান, বিশেষ কোনো উদ্দেশ্য নেই। খেলার মধ্যে নিজেকে রাখাই মূল চিন্তা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট যেহেতু ওয়ানডে ছাড়া অন্য কোনো ফরম্যাটে খেলি না, তাই খেলার সুযোগ নষ্ট করা উচিত না। ২০০৯ সালের জুলাই মাসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে কিংসটাউনে সর্বশেষ টেস্ট খেলেছেন মুর্তজা। সেটা ছিল মাশরাফির অধিনায়ক হিসেবে অভিষেক টেস্ট। ম্যাচের তৃতীয় দিন ইনজুরি নিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। সেই ম্যাচই তার ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত শেষ টেস্ট হয়ে আছে। আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে না ফিরলেও গত আট বছরে বেশকিছু প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছেন তিনি। ২০০৯ সালের পর থেকে এ পর্যন্ত ৬টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছেন মাশরাফি। এর মধ্যে ২০১০ সালে একটি, ২০১২ সালে একটি, ২০১৪ সালে দুটি ম্যাচ খেলেন তিনি। ২০১৪ সালের পর দীর্ঘ তিন বছরেরও বেশি সময় বিরতি দিয়ে আবারো ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে এসে ২টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেন। তবে মাশরাফি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলতে নামলেই গুঞ্জন তৈরি হয়, আবারো টেস্ট খেলার সম্ভাবনা মাশরাফির। এবারও একই গুঞ্জন। অল্প সময়ের ব্যবধানে তিনটি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলায় টেস্ট খেলার সম্ভাবনা নিয়ে কথা উঠেছে। অবশ্য মাশরাফি সব পরিস্কার করে দিলেন। তিনি জানালেন, কোনো বিশেষ ভাবনা তার মধ্যে নেই। আমি খুব বেশি দূরের ব্যাপার নিয়ে ভাবতে পছন্দ করি না। টেস্ট নিয়ে ভাবছি না। নিজেকে ফিট রাখতে যখন সামনে যে ক্রিকেট আসে, সেটা ভালো মতো খেলাই লক্ষ্য।  আর

দুর্দান্ত ক্যাচে জিতল পাঞ্জাব

শুরু থেকে অসাধারণ ব্যাটিং করেও দিল্লিকে বন্দরে পৌঁছে দিতে পরেননি সুরেশ আয়ার। সোমবার দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের বিপক্ষে শ্বাসরুদ্ধকর জয় পেল পাঞ্জাব। এর নেপথ্যে নায়ক মুজিবর রহমান। শেষ বলে উইকেট নিয়ে দলকে জেতালেন তিনি। ৪ রানের এই জয়ে আইপিএলের এক নম্বর দল এখন পাঞ্জাব। ৮ উইকেটে মাত্র ১৪৩ রান করেছিল তারা দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের বিপক্ষে। ৮ উইকেটে ১৩৯ রানে থামে দিল্লি। শেষ ওভারে জয়ের জন্য দিল্লির প্রয়োজন ছিল ১৭ রান। কঠিন লক্ষ্যের সামনে দাঁড়িয়েও দারুণ ব্যাটিং করে গেছেন তরুণ ক্রিকেটার করুণ নায়ার। ওভারের প্রথম বল ডট। দ্বিতীয় বলে ছয় হাঁকিয়ে দলকে খেলায় রাখেন নায়ার। পরের দুই বলে নেন ২ রান। পঞ্চম বলে বাউন্ডারি হাঁকালে শেষ বলে টার্গেট দাঁড়ায় ৫ রান। শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু মুজিবের বলে লং অফে ক্যাচ উঠে গেলে তা লুপে নিতে ভুল করেননি অ্যারন ফিঞ্চ। আর তাতেই থেমে যায় নায়ারের একার লড়াই। পায়ের ব্যথায় দিল্লির বিপক্ষে নিজে থেকে সরে দাঁড়ান ক্রিস গেইল। ক্যারিবিয়ান তারকার অনুপস্থিতির প্রভাব বেশ টের পাওয়া গেছে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের ব্যাটিংয়ে। তার বদলে লোকেশ রাহুলের সঙ্গে উদ্বোধনী জুটি গড়েন অ্যারন ফিঞ্চ। দ্বিতীয় উইকেটে মায়াঙ্ক আগারওয়ালের সঙ্গে লোকেশের ৩৬ রানের জুটি ছিল সর্বোচ্চ। মিডল অর্ডারে ডেভিড মিলার ও করুন নায়ারের ৩১ রান ছিল কিছুটা স্বস্তির। ৩৪ রানের সেরা ইনিংস খেলেন নায়ার। মিলারের ব্যাটে আসে ২৬ রান। এছাড়া লোকেশ (২৩), আগারওয়াল (২১) ও যুবরাজ সিং (১৪) দুই অঙ্কের ঘরে রান করেন। পাঞ্জাবের ব্যাটিং দুর্দশায় মূল ভূমিকা রাখেন দিল্লির লিয়াম প্লাঙ্কেট। তিন উইকেট নেন তিনি ৪ ওভারে মাত্র ১৭ রান দিয়ে। দুটি করে পান ট্রেন্ট বোল্ট ও আবেশ খান। লক্ষ্যে নেমে দিল্লি রানের গতি ধরে রেখেছিল। তবে অঙ্কিত রাজপুত, এন্ড্রু টাই, রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও মুজিব উর রহমানের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে বেশ কয়েকবার হোঁচট খায় তারা। শেষ ওভারে দিল্লিকে ঠেকানোর দায়িত্ব পান মুজিব। নায়ার দ্বিতীয় বলে ৬ মারার পর চতুর্থ ও পঞ্চম বলে ২ ও ৪ রান নেন। শেষ বলে দরকার ছিল ৫ রান। ছক্কা হাঁকানোর শটই খেলেছিলেন নায়ার। কিন্তু লং অফে উড়ন্ত বলটি লুফে নেন ফিঞ্চ। ৪৫ বলে ৫৭ রানে আউট নায়ার। পাঞ্জাবের জয়ে বল হাতে দুটি করে উইকেট নেন রাজপুত, মুজিব ও টাই। এ জয়ে ৬ ম্যাচে পঞ্চম জয় পায় পাঞ্জাব। এতে ১০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে উঠল তারা। আর মাত্র ২ পয়েন্ট নিয়ে সবার শেষে দিল্লি। সূত্র: ক্রিকইনফো একে// এআর

বিশ্ব একাদশে খেলবেন সাকিব-তামিম

বিশ্ব একাদশের হয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের খেলতে যাচ্ছেন বাংলাদেশ ওপেনার তামিম ইকবাল ও অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। আগামী ৩১ মে লর্ডসে একমাত্র প্রীতি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বিশ্ব একাদশ। সাকিব, তামিমের মতো বিশ্ব একাদশের হয়ে খেলবেন আফগান স্পিনার রশিদ খান। বর্তমানে রশিদ টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষ বোলার। ঝড়ে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জের দুটি স্টেডিয়াম। স্টেডিয়াম দুটির মেরামত করতে অনেক অর্থের  প্রয়োজন। এ অর্থের জোগান দিতেই এ প্রীতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ জাতীয় দলের বিপক্ষে মাঠে নামতে যাওয়া বিশ্ব একাদশের হয়ে খেলবেন শহীদ আফ্রিদি, শোয়েব মালিক ও থিসেরা পেরেরা। এই ম্যাচে বিশ্ব একাদশকে নেতৃত্ব দেবেন ইংল্যান্ডের সীমিত ওভারের অধিনায়ক ওয়েন মরগান। এমন খেলায় অংশ নিতে পেরে উচ্ছ্বসিত তামিম আইসিসির বিবৃতিতে বলেছেন, ‘যদি ক্রিকেট বিশ্ব ক্ষতিগ্রস্ত ভেন্যুর নির্মাণে ছোট্ট ভূমিকা রাখতে পারি তাহলে এটা হবে খুবই ছোট প্রতিদান। বিপরীতে যার ফলাফল হবে সুদূরপ্রসারী।’ ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে এ ম্যাচের নেতৃত্ব দেবেন কার্লোস ব্র্যাথওয়েট। তাদের পক্ষে খেলবেন ক্রিস গেইল, মারলন স্যামুয়েলস ও আন্দ্রে রাসেলের মতো তারকা। এর আগে বিশ্ব একাদশের হয়ে পাকিস্তানেও খেলেছেন তামিম ইকবাল।   আর

২০১৯ বিশ্বকাপের পরই অবসরের ভাবনা

আসন্ন ২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে খেলার আশা ছাড়ছেন না যুবরাজ সিং। ওই বিশ্বকাপের পরেই অবসর নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চান ভারতের এ বাঁহাতি অর্ডার ব্যাটসম্যান। গত ২০১১ বিশ্বকাপের ম্যান অফ দ্য টুর্নামেন্ট হয়েছিলেন যুবরাজ সিং। জাতীয় দলের হয়ে সর্বশেষ একদিনের ম্যাচ খেলেছেন গত বছর জুনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে। এরপর তরুণ ক্রিকেটারদের ভিড়ে ক্রমশই জাতীয় দলে জায়গা ফিকে হতে শুরু করে এ ব্যাটসম্যানের। কিন্তু মরণরোগ জয়ী যুবি এত সহজে হাল ছাড়ছেন না। ২০১৯ বিশ্বকাপে খেলার ক্ষীণ আশা এখনও রয়েছে তার। সরাসরি না বললেও যুবরাজের বক্তব্যে সেটা স্পষ্ট। ঘরোয়া ক্রিকেটে তেমন পারফরম্যান্স নেই যুবরাজের। চলতি আইপিএলে এখনও নজর কাড়তে পারেননি পাঞ্জাবের এই ক্রিকেটারের। তাই জাতীয় দলে ফেরাটা যে কঠিন লড়াই সেটাও ভালো মতো বুঝে গেছেন তিনি। তবু আশা ছাড়ছেন না। যুবরাজের মতে, ‘যে কোনো পর্যায়েই হোক ২০১৯ সাল পর্যন্ত আমি খেলা চালিয়ে যেতে চাই। আগামী বছরের শেষের দিকে ক্যারিয়ার নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চাই।’ দু`দশক ধরে দেশের হয়ে খেলছেন ৩৬ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডার। তিনিও বোঝেন যে একদিন অবসর নিতেই হবে। এপ্রসঙ্গে যুবরাজ বলেন, ‘ প্রত্যেককেই একসময় থামতে হয়। আমি ২০০০ সাল থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছি। প্রায় ১৭-১৮ বছর হয়ে গেল। সুতরাং ২০১৯ সালের পরই সিদ্ধান্ত নেওয়ার সঠিক সময়।’ আগামী একবছরে যুবরাজের পারফরম্যান্সের ওপর অনেকটাই নির্ভর করবে ফের জাতীয় দলে তার ফেরার সম্ভাবনা। সূত্র: জিনিউজ   আর  

বিশ্বব্যাপী ক্রিকেটারদের কার বেতন কেমন?

আইপিএল আসার পরই ক্রিকেটারদের বেতন হুহু করে বাড়তে আরম্ভ করে। বিশেষ করে ভারতীয় ক্রিকেটারদের বেতন তো আকাশচুম্বী। জানা যায়, প্রতিটি দেশই সরকারিক খাতে সবচেয়ে বেশি বেতন দিয়ে থাকে ক্রিকেটারদের। এ কাতারে এগিয়ে আছে ভারত। আর তাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে খেলে খেলোয়াড়দের আয় ছাড়িয়ে গেছে সব রেকর্ড। আসুন জেনে নিই ক্রিকেটারদের মধ্যে কার আয় সবচেয়ে বেশি? বিভিন্ন সূত্র ঘেটে দেখা গেছে, চুক্তি বাতিলের আগে ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ বাৎসরিক বেতন ছিল স্টিভ স্মিথের। প্রতি বছর তার আয় ছিল ১৪ লাখ ৭০ হাজার ডলার। এর পরই আছেন ইংল্যান্ডের টেস্ট অধিনায়ক জো রুট। তার বেতন বছরে ১৩ লাখ ৮০ হাজার ডলার।ভারতের অধিনায়ক ভিরাট কোহলি আছেন তৃতীয় অবস্থানে। তার আয় বছরে ১০ লাখ ডলার প্রতি বছর। বিভিন্ন দেশে সর্বোচ্চ আয় করা ক্রিকেটারের বার্ষিক বেতন (বাংলাশি টাকায়) •স্টিভ স্মিথ (চুক্তি বাতিল)- ১২ কোটি ১৯ লাখ ৯২ হাজার টাকা •জো রুট- ১১ কোটি ৪৫ লাখ ২৩ হাজার টাকা •ভিরাট কোহলি- ৮ কোটি ৭৭ লাখ ৪৭ হাজার টাকা •ফ্যাফ ডু প্লেসি- ৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকা •অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ- ২ কোটি ৬৫ লাখ ৫৬ হাজার টাকা •সরফরাজ আহমেদ- ২ কোটি ৪৮ লাখ ৯২ হাজার টাকা •জেসন হোল্ডার- ২ কোটি ২৪ লাখ টাকা •কেন উইলিয়ামসন- ২ কোটি ৭ লাখ ৪৭ হাজার টাকা •সাকিব আল হাসান- ১ কোটি ১৬ লাখ ১৪ হাজার টাকা সূত্র: বিবিসি বাংলাএমজে/

টেস্টের চেয়ে টি-টোয়েন্টিতে ফেরা জরুরি মাশরাফির : নান্নু

মাশরাফি বিন মর্তুজা বাংলাদেশ ক্রিকেটের এক দৃঢ়তার নাম, সফলতার নাম। একসময় টেস্ট, ওয়ানডে, টি টুয়েন্টি সব ধরনের ক্রিকেটেই তার বিচরণ ছিল। বর্তমানে সীমিত ওভারের ম্যাচেই দেখা যায় তাকে। তবে টেস্টে মাশরাফির আবেদন যে ফুরিয়ে যাননি সেটি প্রমাণ করেছেন এবার। সর্বোচ্চ উইকেট শিকার করে জাত চিনিয়েছেন। তাই সব মহলে আলোচনায় এসেছে তার টেস্টে ফেরা প্রসঙ্গে। তাকে নিয়ে কী ভাবছেন নির্বাচকরা? চাইলে টেস্ট খেলবে, তবে তার টি-টোয়েন্টিতে ফেরাটা জরুরি- এমন মন্তব্য প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর। সেই ২০০৯-এ টেস্ট ছেড়েছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। ৩৪ ম্যাচে  নিয়েছেন ৭৮ উইকেট। অবাক করা ঘটনা হলেও সত্যি, আট বছরেও দেশের কোনো পেসার ছুঁতে পারেননি এই বোলারকে। ইনজুরি কাটিয়ে পুরোদমে মাঠে ফিরেন ২০১৪’র শেষ দিকে। এরপর ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ফরমেটে দলকে নেতৃত্ব দিয়ে পৌঁছে দিয়েছেন সাফল্যের চূড়ায়। ২০০৯ সালের পর আর টেস্ট খেলতে পারেননি মাশরাফি বিন মর্তুজা। পায়ে একের পর এক অস্ত্রোপচার তাকে ক্রিকেটের অভিজাত শ্রেণি থেকে পুরোপুরি দুরে সরিয়ে দিয়েছে। যদিও আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও টেস্টকে বিদায় বলেননি বাংলাদেশের সেরা এই অধিনায়ক। এখনও মাঝে-মধ্যে বলেন, তিনি টেস্ট খেলতে চান। গত বছর বিসিএলের (চারদিনের ম্যাচ) একটি ম্যাচও খেলেছেন মাশরাফি। তিনি বিদায় বলেছেন টি-টোয়েন্টিকে। এখনও খেলে যাচ্ছেন ওয়ানডে ক্রিকেট। শুধু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেই নয়, ঘরোয়াতে সীমিত ওভারের ফরমেটে মাশরাফি এখন প্রতিপক্ষ যেকোনো দলের আতঙ্কের নাম। কিন্তু দেশসেরা এ অধিনায়ক ভুলতে পারেননি টেস্ট খেলতে না পারার আক্ষেপ। বারবারই বলেছেন সময় হলেই টেস্টে ফিরবো। এ বছর তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কাছে নিজের ইচ্ছের কথাও জানিয়েছিলেন। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন তাতে সায় দেননি। কিন্তু মাশরাফি যে হার মানার নয়। নিয়মিত প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে খেলতে না পারলেও গেল কয়েক বছর জাতীয় ক্রিকেট লীগে (এসসিএল) খেলেছেন কয়েকটি ম্যাচ। গেল বছরও খুলনা বিভাগের হয়ে চার দিনের ম্যাচে মাঠে নেমেছিলেন। এবার তিনি খেলবেন বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগের (বিসিএল) শেষ রাউন্ডেও। কারণ একটাই, নিজেকে  ফের লম্বা ফরমেটের ক্রিকেটে প্রমাণ করা। অবশ্য তার আগেই জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু তার জন্য দিয়েছেন সুসংবাদ। তিনি জানিয়েছেন মাশরাফির জন্য টেস্টের দরজা খোলা। তবে এখানে মাশরাফির ইচ্ছা ছাড়াও বিসিবির ভূমিকার কথাও মনে করিয়ে দিয়েছেন তিনি। নান্নু বলেন,  ‘এটা সম্পূর্ণ ওর ও বিসিবির ব্যাপার। আমাদের যেটা নির্দেশনা দেবে ওভাবেই এগোবো। মাশরাফি যদি টেস্ট খেলতে চায় খেলবে।’ সীমিত ওভারে ক্রিকেটে মাশরাফি ৩৫ বছর বয়সেও দলের অপরিহার্য অংশ। বর্তমানে তিনি ওয়ানডে দলের নেতৃত্ব দিলেও অবসর নিয়েছেন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে। বলা চলে বিসিবি’র সাবেক কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহ  ও বিসিবি সভাপতি নাজমুল ইসলাম পাপনের ওপর অভিমান করেই হঠাৎ তিনি টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে অবসর নেন মাশরাফি। তবে হাথুরুসিংহের বিদায়ের পর বোধোদয় হয়েছে বিসিবির। বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন তাকে টেস্টে ফেরাতে না চাইলেও চেয়েছেন টি-টোয়েন্টিতে। এ নিয়ে তাকে নিদাহাস ট্রফির আগে অনুরোধও করা হয়েছিল বোর্ডের তরফ থেকে। কিন্তু মাশরাফি সেই অনুরোধে সাড়া দেননি। তবে এখনো আশা ছাড়েননি তারা। এখনো বিসিবি চাইছে তাকে টি-টোয়েন্টিতে ফেরাতে। যে কারণে গতকাল সংবাদমাধ্যমকে নান্নু বলেন, ‘আমরা চাইছি টি-টোয়েন্টিতে ওর ফেরাটা জরুরি। যদি ফেরে এটা আমাদের দলের জন্য অনেক ভালো।’ প্রধান নির্বাচকের কথাতেই স্পষ্ট বিসিবি এখনো তার আশায় বসে আছেন। কিন্তু মাশরাফি এর আগে বলেন, এই ফরমেটে আর ফিরবেন না। দেশসেরা অধিনায়কের এখন একটাই ইচ্ছা টেস্টে ফেরা। নিজেকে  ফের টেস্ট খেলার  যোগ্য প্রমাণ করেই মাঠে ফিরতে চান তিনি। শ্রীলঙ্কার স্বাধীনতার ৭০ বছর পূর্তিতে আয়োজিত নিদাহাস ট্রফির আগে এক সাক্ষাৎকারে মাশরাফি বলেছিলেন, ‘আমি টেস্ট খেলতে চাই এটি সত্যি। তবে খেলবো বললেই তো হবে না। তার জন্য তো নিজেকে ফের প্রমাণ করতে হবে। আমি আসলেই ফিট আছি কি না সেটি চারদিনের ক্রিকেটে খেলেই বুঝতে পারবো। এরপর তারা যদি মনে করে আমি ফিট তাহলে ডাকতেও পারেন।’ এরইমধ্যে তিনি খেলেছেন ঢাকা প্রিমিয়ার লীগের চ্যাম্পিয়ন দল আবাহনীর হয়ে। ১৬ ম্যাচে ৩৯ উইকেট নিয়ে রেকর্ড করে সবাইকেই নয় ছাড়িয়ে গেছেন নিজেকেও। টানা প্রিমিয়ার লীগে খেলার কারণে বিসিএলের তৃতীয় ও চতুর্থ রাউন্ডে খেলেননি। ছিলেন বিশ্রামে। তবে মিনহাজুলরা মাশরাফিকে টেস্টে নয়, খুব বেশি করে চাচ্ছেন টি-টোয়েন্টিতে। সেখানেই তাকে বেশি প্রয়োজন। প্রধান নির্বাচক বলেন, ‘...কিন্তু আমরা চাচ্ছি, টি-টোয়েন্টিতে ও ফিরুক। ওখানে ওকে আমাদের বেশি দরকার।’ / এআর /  

শেষে ভালো বল না করতে পারায় হেরে গেলো মুম্বাই

শেষের দিকে রান আটকাতে না পেরে আবারও হারলো মুস্তাফিজের দল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। এ নিয়ে গেলবারের চ্যাম্পিয়নরা পাঁচ ম্যাচের চারটিতে হেরে গেল। চারটিই রোহিম শর্মার দল হেরেছে শেষের দিকে আশানুরূপ বল করতে না পেরে। তবে এবার মুম্বাইয়ের হাত থেকে ম্যাচ বের করে নিয়ে গেছেন কৃষ্ণপ্পা গৌতম। তার শেষের দিকে ১১ বলে ৩৩ রানের ঝড়ে এলোমেলো হয়ে গেছে মুম্বাইয়ের বোলারা। বাংলাদেশের পেসার ‍মুস্তাফিজুর রোববার রাতের ম্যাচে ৪ ওভারে ৩৫ রান দেন। ওভার প্রতি ৮.৭৫ রান দিয়ে নেন এক উইকেট। তবে শুরুর তিন ওভার দারুণ বল করেন তিনি। নিজের প্রথম তিন ওভারে কাটার মাস্টার দেন ২০ রান। কিন্তু নিজের চতুর্থ ওভারে এসে দেন ১৫ রান। প্রথম বলে উইকেট নিয়ে শুরু করলেও শেষ পর্যন্ত রান আটকাতে পারেননি তিনি। মুস্তাফিজের ১৮তম ওভারে ১৫ এবং বুমরাহর ১৯তম ওভারে ১৮ রান তুলে নেয় রাজস্থান রয়্যাল। শেষ ওভারে রাজস্থানের ১০ রান দরকার থাকলে তা আর আটকাতে পারেননি হার্দিক পান্ডিয়া। দুই বল বাকি থাকতে ৩ উইকেটের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে রাজস্থান। এর আগে টস জিতে প্রথমে ব্যাট নেয় মুম্বাই অধিনায়ক রোহিত শর্মা। ওপেনার সূর্যকুমার যাদবের ৪৭ বলে ৭২ এবং উইকেট রক্ষক ইশান কিশানের ৪২ বলে ৫৮ রানের সুবাদে ১৬৭ রান তোলে মুম্বাই। জবাবে ৩৯ বলে সানজু স্যামসান ৫২ এবং ২৭ বলে ৪০ রান করেন বেন স্টোকস। তবে রাজস্থানের ম্যাচ জিতিয়েছেন গৌতম। তিনি ১১ বলে চারটি চার এবং দুটি ছয়ের সুবাদে ৩৩ রান করেন। তিন উইকেটের জয় নিশ্চিত করেই মাঠ ছাড়েন তিনি। এসএইচ/

নিষেধাজ্ঞার সময়ে বিয়ে করবেন স্মিথ    

বল টেম্পারিংয়ের দায়ে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ। এক বছর ক্রিকেট থেকে দূরে থাকতে হচ্ছে তাকে। স্টিভ স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নারদের কাছে অপেক্ষা শব্দটা এখন আতঙ্কের নাম। কদিন আগেও অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ও সহ অধিনায়কের দায়িত্বে থাকা এ দুজনকে এখন লম্বা বিরতিতে থাকতে হচ্ছে। ওয়ার্নার বাড়ি নির্মাণ নিয়ে সময় কাটালেও স্মিথকে ক্রিকেট থেকে দূরে থাকতে হবে বাগদত্তাকে বিয়ের পরিকল্পনা করে! গতকাল ওয়ার্নারের একটি ছবি ভাইরাল হয়েছিল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ছবিতে দেখা যায়  রাস্তার পাশে হাঁটতে হাঁটতে অদৃশ্য ব্যাট নিয়ে অনুশীলন করছিলেন এই ওপেনার। চাইলেও এ খেলার চিন্তা মাথা থেকে দূর করতে পারছেন না। স্মিথ অবশ্য ক্রিকেট নিয়ে এতটা ভাবছেন না। তাঁর বাবা পিটার স্মিথ এমনটাই দাবি করেছেন। ডেইলি টেলিগ্রাফের সঙ্গে কথোপকথনে পিটার বলেছেন, চারপাশের সমালোচনা থেকে বাঁচতে অস্ট্রেলিয়াতেই নেই স্টিভ!    স্মিথ তাই ক্রিকেট থেকে মনোযোগ সরিয়ে নিয়েছেন। আর এ কাজে তাকে সহযোগিতা করছেন হবু স্ত্রী ডেনিয়েল উইলিস। পিটার স্মিথ জানিয়েছেন, ‘সে (ডেনি) দারুণ সমর্থন দিয়েছে। স্মিথকে সাহস দিয়েছে, অলস সময়টা পার করতে সাহায্য করেছে। ওরা এখন বিয়ে নিয়েই ভাবছে-এটাই ওদের কাছে এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। স্টিভ আপাতত অস্ট্রেলিয়ার বাইরে সময় কাটাচ্ছে। ওর এখন একটু দূরে থাকা দরকার। ওর নিজেকে ফিরে পেতে, ধীরে ধীরে আগের অবস্থায় পৌঁছাতে এখন এটাই সবচেয়ে বেশি দরকার।’  কেআই/এসি  

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি