ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৮ ৫:১৩:২০

তাসকিনের ডাক না পাওয়ার দুই কারণ

তাসকিনের ডাক না পাওয়ার দুই কারণ

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি টোয়েন্টি কোনো ফরমেটেই দলে ছিলেন না। এর আগের সিরিজেও তার দেখা মেলেনি। বলছি পেসার তাসকিন আহমেদের কথা। কোথায় যেন হারিয়ে গেছে তার ফর্ম। যেন নিজের ছায়ার মধ্যেই নিজেকে খুঁজছেন। গতকাল এশিয়া কাপের জন্য দল ঘোষিত হলো। ক্রিকেটে এই উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় আসরের জন্য ৩১ সদস্যের প্রাথমিক দল ঘোষণা করে বিসিবি। এতে ঠাঁই পেয়েছেন কয়েকজন নতুন মুখ। তবে স্থান পাননি তাসকিন আহমেদ। কিন্তু কেন একসময় নিয়মিত থাকা এ পেসার দলের বাইরে? তাসকিন সবশেষ ছিলেন নিদাহাস ট্রফির টি-টোয়েন্টি দলে। তবে তার পারফরম্যান্সে চোখে পড়ার মতো কিছু ছিল না। এর পর ইনজুরিতে পড়েন তিনি। পরে কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠলে তাকে ‘এ’ দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। উড়াল দেন আয়ারল্যান্ডে। কিন্তু বিধিবাম! ফের ইনজুরিতে পড়েন তিনি। ফিল্ডিং করতে গিয়ে হাতের তালু ফেটে যায় তার। সেই ইনজুরি নিয়ে দেশে ফিরে আসেন তাসকিন। এখন রয়েছেন পুনর্বাসনে। সব মিলিয়ে এশিয়া কাপে খেলার মতো অবস্থায় নেই দেশসেরা এ গতিতারকা। মূলত এ কারণেই প্রাথমিক দলেও জায়গা পাননি তিনি। ইনজুরির পাশাপাশি ফর্মটাও ভোগাচ্ছে তাসকিনকে। বাদ পড়ার আগে গতির পেছনে ছুটতে গিয়ে খেই হারিয়ে ফেলেন তাসকিন। অথচ তার মতো একজন অভিজ্ঞ সিমার এশিয়া কাপে বেশ দরকার ছিল। ৩১ জনের দলে ঠাঁই মেলেনি আরেক পেসার শফিউল ইসলামেরও। গেল বছর দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টি দলে ছিলেন তিনি। তবে পারফরম্যান্স দেখাতে পারেননি। এর পর দল থেকে বাদ পড়েন। তখন থেকে বাইরেই রয়েছেন তিনি। / এআর /
নির্দোষ প্রমাণিত হয়েই দলে ফিরলেন স্টোকস

অবশেষে ব্রিস্টলে পাবের বাইরে ঝামেলার ঘটনায় নির্দোষ প্রমাণিত হলেন বেন স্টোকস। সব দিক বিবেচনা করে, ঘটনাক্রম খতিয়ে দেখে ২৭ বছরের ইংল্যান্ডের তারকা এই অলরাউন্ডারের কলঙ্ক মুছে দিল ব্রিস্টলের ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট। আর নির্দোষ প্রমাণিত হয়েই জাতীয় দলে ফিরে আসছেন তারকা ক্রিকেটার। এই অল-রাউন্ডারকে ভারতের বিরুদ্ধে তৃতীয় টেস্টের দলে ফেরালেন ইংল্যান্ড নির্বাচকরা। পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-০ এগিয়ে থেকে শনিবার ট্রেন্ট ব্রিজে বিরাটদের বিরুদ্ধে নামছে রুটবাহিনী। ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) থেকে এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। স্টোকসের ব্রিস্টল কাণ্ডের বিচার যত এগোচ্ছিল মনে হচ্ছিল, তিনি দোষী প্রমাণিত হবেন। তার বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টার অভিযোগও উঠেছিল। আর দোষী প্রমাণিত হলে স্টোকসকে তিন বছর জেলে কাটাতে হত। সিসিটিভিতে পরিষ্কার দেখা গিয়েছিল স্টোকস দুজন ব্যক্তিকে মারছেন। স্টোকসের দাবি ছিল, তিনি আত্মরক্ষার জন্যই এই কাজ করেছেন। এমনও শোনা গিয়েছিল স্টোকস পুরো মদ্যপ অবস্থায় এই কাজ করেছিলেন। তবে সেটা উড়িয়ে দিয়েছিলেন ইংল্যান্ডের তারকা এই অলরাউন্ডার। শেষ পর্যন্ত সব দিক খতিয়ে দেখে স্টোকসকে ছেড়ে দিল আদালত। এই কাণ্ডের জন্য অ্যাসেজ সিরিজে খেলা হয়নি স্টোকসের।  প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ম্য়াচ জিতে, রাতে নাইটক্লাবে গিয়েছিলেন স্টোকস। স্টোকসের সঙ্গে ছিলেন তার সতীর্থ জো রুট, জনি বেয়ারস্টো ও আলেক্স হেলেস। রুট আর বেয়ারস্টো আগে নাইট ক্লাব ছাড়েন। তারপর স্টোকস মারামারি শুরু করেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল, ব্রিস্টলের দুই সমকামী ব্যক্তিকে উত্যক্ত করার পরে রায়ান আলি ও রায়ান হেল নামের দুই ব্যক্তিকেও বেদম মারধর করেন স্টোকস। স্টোকসের দাবি ছিল, এক সমকামী প্রেমিক যুগলকে হেনস্থা করছিলেন সেই সেনাকর্মী। তাই তিনি মেজাজ হারিয়ে এই কাজ করেছিলেন। একজনের পশ্চাদ্দেশে নাকি জ্বলন্ত সিগারেট চেপে ধরেছিলেন বলে স্টোকসের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠছিল। সূত্র: এনডিটিভি একে//

ভারতীয় নারী ক্রিকেট দলের কোচ হলেন রমেশ পাওয়ার

ভারতীয় নারী দলের কোচ নির্বাচিত হলেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার রমেশ পাওয়ার। এখন থেকে আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত হরমনপ্রীত, স্মৃতি মন্দনাদের কোচিং করাবেন মুম্বাইয়ের এই প্রাক্তন স্পিনার। গতকাল মঙ্গলবার ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের তরফে জানাননো হয়, আসন্ন ক্যারিবিয়ান বিশ্বকাপ পর্যন্ত নারী ক্রিকেট দলের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে রমেশ পাওয়ারকে। প্রাক্তন কোচ তুষার আরথের ইস্তফার পরই রমেশ রাজারাম পাওয়ারকে নারী ক্রিকেট দলের হেড কোচের দায়িত্ব দেওয়া হল। বিসিসিআই সূত্রে জানা গেছে, নতুন কোচ নারী ক্রিকেট দলের সঙ্গে তার কাজ শুরু করবেন ব্যাঙ্গালুরু থেকে। সেখানে ন্যাশনাল ক্রিকেট অ্যাকাডেমি-তে ক্যাম্প করবে ভারতীয় নারী ক্রিকেট দল। রমেশ পাওয়ার মুম্বাই ক্রিকেটের জানা শোনা নাম হলেও কোচিংয়ে তেমন একটা নাম ডাক নেই তার। যদিও এই কিছু দিন আগেই তিনি অস্ট্রেলিয়া থেকে লেভেল থ্রি কোচিংয়ের কোর্স শেষ করেছেন। বোর্ডের তরফে জানানো হয়েছে, এই নতুন কোচই আসন্ন শ্রীলঙ্কা সিরিজ (সেপ্টেম্বর), উইন্ডিজের বিরুদ্ধে দ্বিপাক্ষিক সিরিজসহ (অক্টোবর) টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত কোচিংয়ের দায়িত্বে থাকবেন। প্রসঙ্গত, ৫০ ওভারের বিশ্বকাপে (২০১৭) নজরকাড়া পারফরম্যান্সের পর একেবারেই ধারাবাহিকতা দেখাতে পারেননি হরমনপ্রীত, স্মৃতি মন্দনা, ঝুলন গোস্বামী এবং ঝুলন গোস্বামীরা। চলতি বছরেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে একদিনের আন্তর্জাতিক এবং টি-টোয়েন্টি, দুই সিরিজই হেরেছে ভারত। এমনকী ঘরের মাঠেই ত্রিদেশীয় সিরিজে হতাশজনক ফল করেছে তারা। তারপর এশিয়া কাপ ফাইনালেও বাংলাদেশের কাছে হার। এমন অবস্থায় নতুন কোচের কাজ যে খুব একটা সহজ হবে না, সে কথা মেনে নিচ্ছে ম্যানেজমেন্ট। তবে আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা সম্পন্ন রমেশ পাওয়ারের ওপর ভরসা রাখছে বিসিসিআই। উল্লেখ্য, নারী ক্রিকেট দলের নতুন কোচ রমেশ পাওয়ার ভারতের হয়ে ২টি টেস্টসহ ৩১টি ওয়ানডে খেলছেন। তার ঝুলিতে রয়েছে সর্বমোট ৪০টি উইকেট। ব্যাটে রান খুব কম হলেও একটি আন্তর্জাতিক অর্ধ-শতরান রয়েছে পাওয়ারের। সূত্র: জিনিউজ একে//

কোহেলি ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় টেস্টে অনিশ্চিত

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় টেস্টে অনিশ্চিত ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহেলি। এর কারণ হিসেবে জানা গেছে তার পুরানো সেই কোমরের ব্যথা। কোমরের ব্যথার কারণে লর্ডস টেস্টে ভালোভাবে ফিল্ডিং করতে পারেননি। ব্যাটিংয়ে স্বস্তিতে ছিলেন না বলে জানা গেছে। পুরনো সেই কোমরের চোট আবারও ফিরে আসায় ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নটিংহ্যাম টেস্টে অনিশ্চিত ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি বলেই জানা গেছে। দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে চোট তার সঙ্গী। সেবার তার খেলা হয়নি টি-টোয়েন্টি সিরিজেও। লর্ডস টেস্ট থেকে নটিংহ্যাম টেস্টের বিরতি পাঁচদিন হওয়ায় চোট সেরে ম্যাচে ফেরার আশা ভারত অধিনায়কের। লর্ডস টেস্টে ব্যর্থতার পর ভারতজুড়ে কোহলিদের নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে। সাবেক ক্রিকেটার থেকে শুরু করে ক্রিকেটপ্রেমীরাও ভারতীয় ক্রিকেটারদের সমালোচনায় মুখর। নির্বাচকদের জবাবদিহিতার সামনে পড়তে হতে পারে কোচ রবি শাস্ত্রী ও কোহলিকে। এমন কঠিন সময়ে ভক্তদের উদ্দেশে আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন ভারতীয় এই অধিনায়ক। ফেসবুকে কোহলি লেখেন, কখনও আমরা জিতি, কখনও শিখি। আপনারা আশা হারাবেন না। আমরাও আপনাদের কাছে প্রতিজ্ঞা করছি যে, হাল ছেড়ে দেব না। এই টেস্টে কোহেলি না খেলতে পারলে ভারতের ব্যাটিংয়ে বড় ধরণের বিপর্য ঘটতে পারে বলে জানা গেছে। এসএইচ/

৩৬ বছর বয়সেও তরুণের মতো খেলছেন অ্যান্ডারসন!

ক্রিকেটারদের মাঠে বেশ লড়াই করেই টিকে থাকতে হয়। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে অবসরের চিন্তা মাথায় ডুকে যায়। ৩৫-এর পর তো দলে টিকে থাকাই কষ্টকর। ব্যাটসম্যান কিংবা স্পিনাররা তবু বেশি বয়সে খেলা চালিয়ে যেতে পারেন, পেস বোলারদের বেলায় ব্যাপারটা কঠিন। ৩৫ পেরুনোর পর বড় রানআপে গতির ঝড় বইয়ে দেওয়া তো চাট্টিখানি কথা নয়। জেমস অ্যান্ডারসন সেই কাজটিই করে যাচ্ছেন ৩৬ বছর বয়সে। তার বলিং দেখে এখনও অনেক বোলার অবাক। ৩৬ বছর বয়সেও অ্যান্ডারসন যেন তরুণ। সেটা বড় কথা নয়। এখনও যে ফিটনেস আর ফর্ম, তাতে আরও বছর চারেক তিনি খেলাটা চালিয়ে যেতে পারবেন বলে বিশ্বাস করেন ইংল্যান্ডের কোচ ট্রেভর বেলিস। বেলিস মনে করছেন, অ্যান্ডারসনের মতো সেরাদের সেরার জন্য ৪০ বছর পর্যন্ত পেস বোলিং চালিয়ে যাওয়া কঠিন কিছু হবে না। সদ্য সমাপ্ত লর্ডস টেস্টের দিকেই তাকান না! ৪৩ রানে ভারতের ৯ উইকেট নিয়ে বলতে গেলে টেস্টটা একাই জিতিয়ে দিয়েছেন অ্যান্ডারসন। গত ৩৮ বছরের ইতিহাসে দেশের প্রথম বোলার হিসেবে ৯০০ রেটিং পয়েন্ট ছাড়িয়েছেন এই পেসার। এসএইচ/

অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত সাকিবের ওপরই : বিসিবি

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে হাতের আঙ্গুলে আঘাত পান সাকিব আল হাসান। সাকিব হাতের এই চোট নিয়ে ম্যাচ খেলেছেন। এখন প্রশ্ন উঠেছে  এশিয়া কাপের আগে নাকি পরে - সাকিব আল হাসানের আঙুলে অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নিয়ে চলছিল এই টানাপোড়েন। সিদ্ধান্তটি শেষ পর্যন্ত টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়কের ওপরই ছেড়ে দিয়েছে বিসিবি। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান জানিয়েছেন, সাকিব যখন ভালো মনে করেন, তখনই হবে অস্ত্রোপচার। সাকিব রোববার দেশ ছেড়েছেন হজ করতে। যাওয়ার আগে বিসিবি সভাপতির সঙ্গে কথা হয়েছে তার। নাজমুল হাসান নিজেও হজ করতে দেশ ছাড়বেন কাল বুধবার। সেখানে গিয়ে কথা বলবেন আবারও। জানাবেন বোর্ডের ভাবনা। মঙ্গলবার মিরপুরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বিসিবি সভাপতি জানালেন, বোর্ডের চাওয়া এশিয়া কাপের পরই হোক অস্ত্রোপচার। তবে শেষ পর্যন্ত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন সাকিব নিজেই। এসএইচ/

ভারতের ব্যাটিং লজ্জা

কোথায় গেল বিরাট কোহলি? কোথায় তার মুরালি বিজয়-রোহিত শর্মা? ইংল্যান্ডের মাটিতে একেবারে নির্লজ্জ আত্মসমর্পণ করেছে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ভারতীয় ব্যাটিং লাইন-আপ। এতেই ইনিংস ব্যবধানসহ ১৫৯ রানের লজ্জার হার উপহার পেল টিম ইন্ডিয়া। ব্রিটিশ সুইংয়ের জাদুতে একদিকে অল্প রানেই (দুই ইনিংসে যথাক্রমে ১০৭ এবং ১৩০) গুটিয়ে যেতে হচ্ছে ভারতীয়দের। অথচ সেখানেই সেঞ্চুরি হাঁকাচ্ছেন ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। টেস্টে এমন ব্যাটিং বিপর্যয় ক্রমেই চিন্তা বাড়াচ্ছে গোটা শিবিরের। ভারত যেখানে দুই ইনিংস মিলিয়ে করেছে ২৩৭, সেখানে কেবল এক ইনিংসেই ইংলিশদের সংগ্রহ ৩৯৬। ওকস ও বেয়ারস্টো যেভাবে ভারতীয় বোলারদের তুলোধুনো করেছেন, সেভাবে ইংলিশ বোলারদের সামাল দিতে পারেনি বিরাট কোহলিরা। প্রথম ইনিংসে অ্যান্ডারসনের গতিতে বিধ্বস্ত হওয়ার পর দ্বিতীয় ইনিংসে অ্যান্ডারসনে বিধ্বস্ত হয় ভারতীয়রা। দুই ইনিংস মিলিয়ে অ্যান্ডারসন নেন ৯ উইকেট। এদিকে দুই ইনিংসে কোহলির সংগ্রহ মাত্র ৪০ রান। অন্যদিকে ওপেনিং ব্যাটসম্যান মুরালি বিজয় দুই ইনিংস মিলিয়ে ডাবল ডাক মারেন। অর্থাৎ কোনো ইনিংসেই রান তুলতে ব্যার্থ হন বিজয়। এ তো গোটা ভারতের জন্যই লজ্জা। এশিয়া কাপের আগে ভারতের এমন নির্লজ্জ আত্মসমর্পণ দেশটির সাবেক ক্রিকেটারদের ভাবাচ্ছে নতুন করে। এমজে/  

সৌম্যের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ‘এ’ দলের জয়

সৌম্য সরকারের ব্যাটে রান খড়া দীর্ঘদিনের। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতেও নিজেকে মেলে ধরতে পারেন নি। তিন ম্যাচেই ব্যর্থ। তাঁর প্রতি আস্থা রেখে সুপারিশ করে দলে ঢুকিয়ে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ব্যর্থ হলেও এ দলের হয়ে ঠিকই সফলতা দেখিয়েছেন সৌম্য।  তার ৪১ বলে ৫৭ রানের ইনিংসে ভর করে ডাবলিনে সিরিজের প্রথম অনানুষ্ঠানিক টি-টোয়েন্টিতে আয়ারল্যান্ড ‘এ’ দলকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে টাইগাররা। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারের মধ্যে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৫২ রান সংগ্রহ করেছিল আয়ারল্যান্ড ‘এ’ দল। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪১ রান করেন সিমি সিং। বাংলাদেশের শরিফুল ইসলাম, তাইজুল ইসলাম আর মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন নেন ২টি করে উইকেট। একটি করে উইকেট নেন নাঈম হাসান আর আফিফ হোসেন। ১৫৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইনিংসের প্রথম বলেই ওপেনার জাকির হাসানকে হারিয়ে বসে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় উইকেটে নাজমুল হাসান শান্তকে নিয়ে ৬২ রানের জুটি গড়েন সৌম্য সরকার। ২৩ বলে ৭ বাউন্ডারিতে ৩৮ রানের ঝড় তুলে শান্ত ফিরলে ভাঙে এই জুটিটি। এরপর মোহাম্মদ মিঠুনকে নিয়ে ৪৬ রানের আরেকটি জুটি গড়েন সৌম্য। মিঠুন ৮ করে ফেরার পর সৌম্যও অল্প ব্যবধানে সাজঘরের পথ ধরেন। ৪১ বলে ৫৭ রানের ইনিংসে ৫টি চার আর ৩টি ছক্কা হাঁকান টাইগার ওপেনার। এরপর আল আমিনও (৫) রানআউটের কবলে পড়লে কিছুটা বিপদে পড়ে গিয়েছিল সফরকারিরা। দলকে সেই বিপদ থেকে উদ্ধার করেন আফিফ হোসেন। ২১ বলে ৪ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় ৩৫ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছেড়েছেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। সূত্র : ক্রিকইনফো। / এআর /

বিরাটকে টপকে শীর্ষে স্মিথ

লর্ডসে ইংল্যান্ডের কাছে টেস্ট ম্যাচ হারার পাশাপাশি আর একটা ধাক্কা ভারতীয় ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য। ঐতিহ্যের লর্ডসে ইনিংস ও ১৫৯ রানে হারের পর আইসিসি টেস্ট ব়্যাংকিংয়ে ব্যাটসম্যান হিসেবে এক নম্বর জায়গা হারালেন বিরাট কোহলি৷ ভারত অধিনায়ককে টপকে ফের শীর্ষে নির্বাসনে থাকা অজি অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ৷ লর্ডস টেস্টের দুই ইনিংসে অল্প রানে আউট হয়ে যাওয়ার ফলেই এক নম্বর ব্যাটসম্যানের লড়াইয়ে পিছিয়ে গেলেন ভারত অধিনায়ক। তবে শুধু কোহালিই নন, লর্ডস টেস্টে খারাপ পারফরম্যান্সের জেরে প্রায় সব ভারতীয় ক্রিকেটারের র‌্যাঙ্কিংয়েই প্রভাব পড়েছে। ব্যতিক্রম আর. অশ্বিন। দুই ইনিংসে ২৯ ও ৩৩ নট আউট করার সুবাদে অলরাউন্ডারদের তালিকায় তিন নম্বরে উঠে এলেন এই ভারতীয় স্পিনার। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টে ২০০ রান করলেও দ্বিতীয় টেস্টে ব্যর্থ হওয়ায় রেটিং পয়েন্ট হারিয়ে সিংহাসন হারিয়ে দ্বিতীয় স্থানে নেমে এলেন কোহলি৷ এজবাস্টনে প্রথম টেস্টে ভারত হারলেও বিরাটের ব্যাট থেকে এসেছিল সেঞ্চুরি (১৪৯) এবং হাফ-সেঞ্চুরি (৫১)৷ লর্ডসে দ্বিতীয় টেস্টে বিরাটের অবদান মাত্র ২৩ ও ১৭৷ আর এতেই স্মিথের পিছনে চলে গেলেন বিরাট৷ ৯২৯ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে টেস্ট ব্যাটসম্যান হিসেবে শীর্ষে উঠে এলেন স্মিথ৷ লর্ডসে ভারতের বিপক্ষে দুই ইনিংস মিলিয়ে নয় উইকেট নিয়ে ম্যাচের অন্যতম নায়ক ছিলেন জিমি অ্যান্ডারসন। যে পারফরম্যান্সের সুবাদে ন’শো পয়েন্টের সীমা টপকালেন তিনি। ৩৮ বছরের মধ্যে অ্যান্ডারসনই হলেন প্রথম ইংল্যান্ড বোলার, যিনি নয়শো পয়েন্টের গণ্ডি টপকালেন। অ্যান্ডারসনের পয়েন্ট এখন ৯০৩। এর আগে ইংল্যান্ড বোলারদের মধ্যে ন’শো ক্লাবের সদস্য ছিলেন সিডনি বার্নস, জর্জ লোম্যান, টনি লক, ইয়ান বোথাম, ডেরেক আন্ডারউড ও আলেক বেডসার। অ্যান্ডারসনের বোলিংয়ের প্রশংসা শোনা গেছে সচিন টেন্ডুলকারের মুখেও। সোমবার সচিন টুইট করেন, ‘অসাধারণ বোলিং করল অ্যান্ডারসন এবং ব্রড। আমাদের এখন ভাল ক্রিকেট খেলতেই হবে।’ হরভজন সিংহ বলেছেন, ‘জিমি অ্যান্ডারসন হল কিং অব সুইং।’ স্টুয়ার্ট ব্রড আবার মন্তব্য করেছেন, ‘ভাগ্যিস গল্‌ফ বলের আঘাতটা গুরুতর হয়নি!’ প্রথম দশে ভারতীয়দের মধ্যে রয়েছেন দুই স্পিনার রবীন্দ্র জাদেজা এবং অশ্বিন৷ অল-রাউন্ডার হিসেবে শীর্ষ স্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান৷ দুই ও তিন নম্বরে রয়েছেন যথাক্রমে জাদেজা ও অশ্বিন৷ ইংল্যান্ড সফরে সিরিজের প্রথম দু’টি টেস্ট না-খেলেও নিজের জায়গা ধরে রেখেছেন বাঁ-হাতি অল-রাউন্ডার জাদেজা৷ সূত্র: কলকাতা ২৪x৭ একে//

গত চার মাসে নিজেকে ফিট করেছি: আশরাফুল

বিপিএলে ম্যাচ ফিক্সিং কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ ছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। আজ সোমবার শেষ হয়েছে সেই নিষেধাজ্ঞা। জাতীয় দলে ফেরার লক্ষ্যে ফিটনেসের যে বাধা, সেটি এখন আর বড় কোন বিষয় নয় বলে মনে করছেন ৩৪ বছর বয়সী আশরাফুল। তিনি এখন আগের চেয়ে বেশি ফিট মনে করছেন নিজেকে। বর্তমানে নিজেকে খেলার মধ্যে রাখার জন্যে ইংল্যান্ডের ঘরোয়া এক টুর্নামেন্টে খেলছেন আশরাফুল। রোববার বাংলাদেশ সময় দুপুরের পর থেকে রাত ১১ টা অবধি একটি টুর্নামেন্টে ৪০ ওভারের ম্যাচও খেলেছেন। খেলার মাঠের পারফরমেন্সও ছিল দারুণ। অল্পের জন্য শতরান হাতছাড়া হলেও ৯৪ রানের ঝকঝকে তকতকে ইনিংস বেরিয়ে আসে তার ব্যাট থেকে। সব মিলে দারুণ ফুরফুরে মেজাজেই ছিলেন আশরাফুল। বাংলাদেশ সময় রাত ১২টার (লন্ডনে তখন সবে সন্ধ্যা সাতটা) অল্প সময় পর ম্যাচ শেষে ফেসবুকে যোগাযোগ জাগো নিউজের সাথে। সোমবার দিবাগত রাত ১২ টার পর মানে ১৩ আগস্ট প্রথম প্রহরে জাগো নিউজের সাথে মুঠোফোন আলাপ। সেসময়ই জানালেন ফিটনেস নিয়ে আর আগের মতো চিন্তিত নন তিনি। নিজের ফিটনেসের উন্নতির লক্ষ্যে দেশে-বিদেশে ঘাম ঝরিয়েছেন প্রচুর, পরিশ্রম করেছেন নিজেকে আন্তর্জাতিক মানের করে গড়ে তুলতে। তিনি বলেন, গত এপ্রিলে প্রিমিয়ার লিগ শেষ হবার পর চার মাসে দেশে ও ইংল্যান্ডে এসে নিয়মিত জিম করে আট থেকে নয় কেজি ওজন কমিয়ে অনেকটাই হালকা ও ফিট হয়েছি। লিগে টানা তিন ম্যাচে সহ পাঁচ সেঞ্চুরির পরও দাবি করিনি আমি ফিট। বলেছিলাম, আমি এখনো পুরোপুরি ফিটনা। তৈরীও না সেভাবে। এখন বলছি সেই আমি গত চার মাসে অনেক পরিশ্রম করেছি। আরকে//

এই মুহূর্তে দলে আশরাফুলের জায়গা নেই: নান্নু

বাংলাদেশের ক্রিকেটে মোহাম্মদ আশরাফুল নামটি বেশ নন্দিত ও নিন্দিতও। একসময় দলের ব্যাটিং নিউক্লিয়াস ছিলেন। তাকে ঘিরে সম্ভাবনাও দেখেছিল ক্রিকেট বিশ্ব। একটা সময় যাকে ছাড়া দলের স্কোয়াড ছিল নড়বড়ে সেই আশরাফুলকেই কি-না আজ দলে অপ্রয়োজনীয়! অপ্রয়োজনীয়-ই বটে! অন্তত জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর কথায় সেটিই বুঝা গেল।    আশরাফুলের ওপর থেকে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে আজ। তাই জাতীয় দলে ফেরার ব্যাপারে খুবই আশাবাদী তিনি। আশরাফুল আশায় বুক বাধলেও তাকে দিতে হবে দীর্ঘ পরীক্ষা। যেমনটি বলছিলেন জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। এ ব্যাপারে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, অনেকদিন ধরেই সে (আশরাফুল) আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে। আগে ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলতে হবে তাঁকে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে খেলার জন্য ফিটনেস আছে কি না, সেটা দেখতে হবে। তারপর এক বছর যাওয়ার পর বোঝা যাবে তাঁর ফিটনেস কোন পর্যায়ে আছে। ’ তবে জাতীয় দলে ফেরার জন্য আশরাফুলের বয়স কোনো বাধা নয় বলে মনে করছেন প্রধান নির্বাচক, ‘হ্যাঁ, এটা ঠিক তাঁর বয়স হয়ে গেছে। তারপরও আমি বলব সে আমাদের দেশের জন্য অনেক ভালো ক্রিকেট খেলেছে। অবশ্যই তাঁর সামর্থ্য আছে ভালো কিছু করার। তবে আমি বলব, এই মুহূর্তে জাতীয় দলে তাঁর কোনো জায়গা নেই। ’ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। ২০১৩ সালে এই নিষেধাজ্ঞা পান তিনি। আগামীকাল ১৩ আগস্ট আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হবে তাঁর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ। ৬১ টেস্ট খেলে ছয়টি শতক ও আটটি অর্ধশতকসহ দুই হাজার ৭৩৭ রান করেছেন আশরাফুল। ১৭৭টি ওয়ানডে ম্যাচে তাঁর রান তিন হাজার ৪৬৮। যার মধ্যে আছে তিনটি শতক ও ২০টি অর্ধশতক। / এআর /

আজ থেকে মুক্ত আশরাফুল

অপরাধ করেছিলেন। তার শাস্তিও পেয়েছেন। সব ধরনের ক্রিকেটে নিষিদ্ধ ছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। ৩৪ বছর বয়সী এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানের কাছে আজকের দিনটা বিশেষ কিছু। কেননা তিনি এখন মুক্ত। আবারও বাংলাদেশের জার্সিতে মাঠে নামার স্বপ্ন দেখছেন টেস্টে বাংলাদেশের সর্বকনিষ্ঠ সেঞ্চুরিয়ান।আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ওঠা আশরাফুল কি আবারও জাতীয় দলে ফিরতে পারবেন? এই প্রশ্ন এখন তার ভক্তদের। আশরাফুলের ভাষ্য, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন মোহাম্মদ আমির। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আবার পাকিস্তান জাতীয় দলে ফিরেছেন এই পেসার। আশরাফুলের অনুপ্রেরণা আমির! দীর্ঘ পাঁচ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে যে কঠিন সময় পার করছেন তিনি, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। বাংলাদেশ জাতীয় দলে ফিরতে যে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হবে, তা অজানা নয় আশরাফুলের। তাই তো নিয়মিত পারফরম্যান্স করার দিকেই লক্ষ্য থাকবে তার। যদি সাকিব-মাশরাফিদের সঙ্গে আবারও ড্রেসিংরুম শেয়ার করার সুযোগ পান, তা হলে ঝলক দেখানোর প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন আশরাফুল।তবে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু আশাহতই করলেন। তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, এই মুহূর্তে জাতীয় দলে কোনো জায়গা নেই আশরাফুলের। নান্নু বলেন, ‘সে অনেক দিন ধরেই জাতীয় দলের বাইরে আছে। ওর ফিটনেস আন্তর্জাতিক পর্যায়ের জন্য ঠিক আছে কিনা, সেটা আমাদের দেখতে হবে।’ আশরাফুলের বয়স এখন ৩৪। তবে নান্নু মনে করেন, বয়স কোনো বাধা নয়। জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার জন্য ফিটনেসের পাশাপাশি ঘরোয়া ক্রিকেটে পারফরম্যান্স করাটা জরুরি। তিনি বলেন, ‘অন্যদের তুলনায় আশরাফুলের পারফরম্যান্স অনেক ভালো হতে হবে। কারণ সে যে জায়গায় ব্যাট করে, সে জায়গায় অনেক ক্রিকেটার স্থায়ী হয়ে গেছে।’আশরাফুল অবশ্য এসব নিয়ে ভাবছেন না। পাঁচ বছর পর পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা উঠে গেল। তিনি এখন সব ধরনের ক্রিকেটে খেলতে পারবেন। ‘মুক্ত’ আশরাফুল তাই ফেলছেন স্বস্তির নিঃশ্বাস। সব ধরনের পরীক্ষা (ফিটনেস, পারফরম্যান্স) দিয়েই আবারও জাতীয় দলে ফিরতে চান তিনি।বিপিএলের দ্বিতীয় আসরে পাতানো ম্যাচে জড়িয়ে ২০১৩ সালের জুন মাস থেকে আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হন আশরাফুল। তাকে তিন বছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞাসহ মোট ৮ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। আপিলের পর সেই শাস্তি কমে হয় ২ বছরের স্থগিতসহ ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা। তিন বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ২০১৬ সালের অগাস্টে ঘরোয়া ক্রিকেটে ফেরেন আশরাফুল। তবে স্থগিত নিষেধাজ্ঞার কারণে ফ্র্যাঞ্চাইজি ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ ছিলেন তিনি।দুই মৌসুম ঘরোয়া ক্রিকেট খেলে বেশ সাড়াও ফেলেন আশরাফুল। সর্বশেষ ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে রেকর্ড সর্বোচ্চ পাঁচটি সেঞ্চুরির ইনিংস উপহার দিয়েছেন। টানা তিন ম্যাচে সেঞ্চুরি করার রেকর্ড গড়েন। এসএ/

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি