ঢাকা, বুধবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৭ ১১:৫০:১৭

মোস্তাফিজের জায়গায় শফিউল, মাঠে ফিরছেন তামিম

মোস্তাফিজের জায়গায় শফিউল, মাঠে ফিরছেন তামিম

প্রথম ওয়ানডের আগে অনুশীলনের সময় চোট পাওয়া টাইগার বোলিং সেনসেশন মোস্তাফিজুর রহমানের প্রোটিয়া সফর শেষ। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরোদ্ধে এই সফরে আর দেখা যাবে না ‘কাটার মাস্টার’কে। তার জায়গায় দলে ডাক পেয়েছেন শফিউল ইসলাম। টেস্ট সিরিজ খেলে দেশে ফিরে আসা শফিউল ইসলাম শীঘ্রই দলের সঙ্গে যোগ দিবেন। এদিকে দ্বিতীয় ওয়ানডে খেলতে ইতোমধ্যে কেপটাউনে পৌঁছে গেছে বাংলাদেশ দল। তবে সোমবার মুস্তাফিজের স্ক্যান করানো সম্ভব হয়নি। এ নিয়ে ম্যানেজার মিনহাজুল আবেদীন জানান, মঙ্গলবার ডাক্তারের অ্যাপয়েনমেন্ট নেওয়া হবে। এরপর মোস্তাফিজের স্ক্যান করানো হবে। আর ওর জায়গায় শফিউল দলে যোগ দিচ্ছে। ঊরুর পেশিতে চোট পাওয়া তামিম ইকবাল সেড়ে উঠেছেন। দ্বিতীয় ওয়ানডে খেলবেন বলেও জানান মিনহাজুল আবেদিন।   এমআর/এআর
টি-টোয়েন্টিতে নেই তাহির-রাবাদা

বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য ১৪ সদস্যের স্কোয়াড ঘোষণা করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দল। বাংলাদেশের জন্য কিছুটা স্বস্তির সংবাদ যে, ঘোষিত সেই দলে নেই কাগিসো রাবাদা। টেস্ট সিরিজ ও প্রথম ওয়ানডেতে টাইগার ব্যাটসম্যানদের নাজেহাল করা কাগিসো রাবাদাকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে টি-টোয়েন্টি সিরিজে। সেই সঙ্গে দলে নেই টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে তিন নম্বর বোলার লেগস্পিনার ইমরান তাহিরও। প্রোটিয়া দলে নতুন মুখ রবি ফ্রাইলিঙ্ক। ঘরোয়া ক্রিকেটে দারুণ পারফর্ম করে জাতীয় দলে জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। ইনজুরির কারণে দল থেকে বাদ পড়েছেন ওয়েইন পারনেল। ইমরান তাহিরের অবর্তমানে দলের স্পিন বিভাগকে সামলানোর জন্য ডাকা হয়েছে অ্যারন ফাঙ্গিসো ও তারবেইজ শামসিকে। দক্ষিণ আফ্রিকা টি-টোয়েন্টি দল : ফাফ ডু প্লেসি (অধিনায়ক), হাশিম আমলা, ফারহান বেহারডিয়েন, কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক) , এবি ডি ভিলিয়ার্স, জেপি ডুমিনি, ডেভিড মিলার, মাঙ্গালিসো মোশেলে, ড্যান প্যাটারসন, অ্যারন ফাঙ্গিসো, অ্যানদিলে ফেলুকেয়ো, রবি ফ্রাইলিঙ্ক, তারবাইজ শামসি ও বেরুন হেনড্রিক্স। সূত্র: ইএসপিএনক্রিকইনফো এমআর/এআর

বাবর আজমের রেকর্ড

একদিনের ক্রিকেটে রীতিমতো রানের বন্যা বইয়ে দিচ্ছেন পাকিস্তানের ব্যাটিং সেনসেশন বাবর আজম। প্রথম ওয়ানডের পর শ্রীলঙ্কার বিরোদ্ধে দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও তিন অঙ্কের দেখা পেয়েছেন ২৩ বছর বয়সী এ ডানহাতি ব্যাটসম্যান। গতকালের সেঞ্চুরির মধ্য দিয়ে সবচেয়ে কম ইনিংসে ৭ সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন তিনি। ৭ সেঞ্চুরি করতে মাত্র ৩৩ ইনিংস লেগেছে তার। এর আগে ৪১ ইনিংসে খেলে ৭টি সেঞ্চুরি করেছিলেন হাশিম আমলা। ৮ ইনিংস কম খেলেই তাকে ছুঁয়ে ফেলেন বাবর। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বাবরের ব্যাটিং গড় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৭.২০। নির্দিষ্ট কোনো দেশে টানা সেঞ্চুরির রেকর্ডও ভেঙ্গে দিলেন বাবর। আমিরাতে সর্বশেষ ৫ ইনিংসেই সেঞ্চুরি করেছেন তিনি। ২০১০ থেকে ২০১১ সালের মধ্যে ভারতে টানা ৪টি ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি করেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার এবি ডি ভিলিয়ার্স। কোনো নির্দিষ্ট দেশে টানা সেঞ্চুরির রেকর্ড ছিল এটি।   এমআর/এআর

এক ইনিংসেই ৪০ ছক্কা, ৩০৭ রান

সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ৪০ ছক্কায় ৩০৭ রান করে বিশ্ব ক্রিকেটে তোলপাড় তুলে ফেলেছেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার জস ডানস্ট্যান। সেই সঙ্গে একটা জায়গায় কিংবদন্তী চার্লস ব্যানারম্যান ও ভিভ রিচার্ডসকেও ছাড়িয়ে গেলেন অখ্যাত এই ক্রিকেটার। পোর্ট আগস্টা মাঠে শনিবার মুখোমুখি হয়েছিল ওয়েস্ট আগস্টা ও সেন্ট্রাল স্ট্রিরলিং। সেই ম্যাচেই ওয়েস্ট আগস্টার হয়ে এমন কীর্তি গড়েন জস ডানস্ট্যান। ৩৫ ওভারের ম্যাচে একাই করেছেন ৩০৭ রান, হাকিয়েছেন ৪০টি ছক্কা। সেন্ট্রাল স্টার্লিং দলের বিপক্ষে তিন নম্বরে ব্যাট করতে নামেন ডানস্ট্যান। দলের রান তখন ১০। সপ্তম ব্যাটসম্যান হিসেবে যখন ডানস্ট্যান ফিরেছেন, দলের রান তখন ৩২৮। এই ৩১৮ রানের মধ্যে ৩০৭ রানই এসেছে তার ব্যাট থেকে। এর মাঝে সপ্তম উইকেট জুটিতে বেন রাসেলের সঙ্গে ২০৩ রানের জুটি গড়েছেন। এতে রাসেলের অবদান ৫ রান। দলীয় ৩৫৪ রানের মধ্যে তার রানই ৩০৭ রান। দলীয় রানের ৮৬.৭২ শতাংশ রানই এসেছে। ঠিক এই জায়গাতেই ভিভ রিচার্ডস ও চার্লস ব্যানারম্যানকে পেছনে ফেলে দিয়েছেন জস ডানস্টন। টেস্ট ইতিহাসের প্রথম সেঞ্চুরিয়ান ব্যানারম্যানস ১৮৭৭ সালে ১৬৫ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। ওই ইনিংসে দলের ৬৭.৩৪ ভাগ রান নিয়েছিলেন এই ওপেনার। ১৯৮৪ সালে ভিভ রিচার্ডসের কল্যাণে সে রেকর্ডটি ভেঙ্গে  দেন ভিভ রিচার্ডস। ওল্ড ট্রাফোর্ডে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২৭২ রান তুলেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এর মধ্যে রিচার্ডস একাই করেছিলেন সে সময়ের বিশ্ব রেকর্ড ১৮৯ রান। দলের রানের ৬৯.৪৮ ভাগই করেছিলেন ভিভ। অস্ট্রেলিয়ার এ ক্রিকেটার ঠিক এ জায়গাটায় ভিভকে পেছনে ফেলেছেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে না হলেও স্বীকৃত ক্রিকেটে সেই রেকর্ডটা এখন ডানস্ট্যানের। দলের ৮৬.৭৩ শতাংশ রানই যে এসেছে তার ব্যাট থেকে।   সূত্র: দ্য হিন্দুস্তান টাইমস এমআর/এআর  

বাবর-শাদাব নৈপুণ্যে পাকিস্তানের জয়

বাবর আজমের সেঞ্চুরি ও শাদাব খানের অলরাউন্ডার নৈপুণ্যে শ্রীলঙ্কাকে ৩২ রানে পরাজিত করেছে পাকিস্তান। ফলে পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেলো বর্তমান আইসিসি চ্যাম্পিয়নরা। এটি বাবর আজমের টানা দ্বিতীয় শতক, সবমিলিয়ে সপ্তম। শাদাবের গতকালের ৫২ রানই ক্যারিয়ারের সেরা ইনিংস। সোমবার রাতে আবু ধাবির শেখ আবু জায়েদ স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় একদিনের ম্যাচে টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। শুরুটা মোটেও ভাল হয়নি পাকিস্তানের। দলীয় ১৭ রানে ফখর জামানকে সাজঘরে ফিরিয়ে দলকে প্রথম সাফল্য  এনে দেন লাহিরু গেমেজ। প্রথম ম্যাচে শুন্য রানে আউট হওয়া আহমেদ শেহজাদ এ ম্যাচেও ব্যর্থ। ৮ রান করে সুরাঙ্গা লাকমলের শিকারে পরিণত হন শেহজাদ। ব্যাট হাতে জ্বলে উঠতে পারেননি হাফিজ, মালিক, সরফরাজ ও ইমাদ ওয়াসিমও। লঙ্কান বোলারদের তোপে ১০১ রানেই সাজঘরে ফিরেন পাকিস্তানের ৬ ব্যাটসম্যান। এরপরই ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে পাকিস্তান। ধ্বংসস্তুপে দাঁড়িয়ে লড়েছেন বাবর আজম ও শাদাব খান। সপ্তম উইকেটে ১০৯ রানের জুটি গড়ে দলকে এনে দেন লড়াকু পুঁজি। প্রথম ম্যাচের মত দ্বিতীয় ম্যাচে শতক তুলে নেন বাবর আজম। ১০১ করে গেমেজের বলে সাজঘরে ফিরেন এই ব্যাটিং সেনসেশন। লঙ্কান পেসার লাহিরু গেমেজ ৪টি ও থিসারা পেরেরা ২টি উইকেট লাভ করেন। বর্তমান টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের যুগে ২২০ রানের লক্ষ্য খুব বেশি কিছু নয়। কিন্তু পাকিস্তানি বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে এই লক্ষ্যটাই পাহাড় সম হয়ে যায়। নি:সঙ্গ লড়াই করেছেন লঙ্কান অধিনায়ক উপুল থারাঙ্গা। ওপেনিংয়ে ব্যাট করতে নেমে ১১২ রানের ইনিংস খেলেও পরাজিত দলে এই বাঁহাতি। ব্যাট হাতে ৫২ রান ও বল হাতে ৩ উইকেট নেয়া শাদাব খানের হাতে উঠেছে ম্যাচসেরার পুরস্কার। আগামীকাল একই মাঠে লঙ্কানদের বিরোদ্ধে সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডে খেলতে নামবে মিকি আর্থারের শিষ্যরা।   সূত্র: ইএসপিএনক্রিকইনফো এমআর/এআর

সিরিজে অনিশ্চত মোস্তাফিজ, চোট পেয়েছেন মুশফিকও

অনুশীলনের সময় গোড়ালিতে চোট পাওয়ায় প্রথম ওয়ানডে খেলতে পারেননি বাংলাদেশের পেস আক্রমণের মূল ভরসা মোস্তাফিজুর রহমান। সম্ভবত আরো বড় দু:সংবাদ অপেক্ষা করছে বাংলাদেশের জন্য। এই সিরিজে আর হয়তো দেখা যাচ্ছে না ‘কাটার মাস্টার’কে। কেপটাউনে গিয়ে স্ক্যান করানোর পর মোস্তাফিজের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে ফিজিওর ধারণা, পুরো সিরিজই হয়তো মিস করবে মোস্তাফিজ। টি-টোয়েন্টিসহ সিরিজের বাকি ম্যাচগুলো খেলা কঠিন হবে বাঁহাতি এই পেসারের। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে মোস্তাফিজের মাঠে নামাটা তাই বেশ কঠিনই মনে হচ্ছে। মোস্তাফিজের ছিটকে পড়া সম্পর্কে বাংলাদেশ দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেন, ‘এমনটাই মনে হচ্ছে (মোস্তাফিজ খেলতে পারবে না)। এখন পর্যন্ত যতটুকু দেখছি, ওয়ানডে সিরিজের পুরোটাই সম্ভবত খেলা হবে না তার।’ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সবচেয়ে উজ্জ্বল পারফমার মুশফিকুর রহিমও হ্যামস্ট্রিংয়ে হালকা চোট পেয়েছেন। তাই ১৮ অক্টোবর পার্লের বোল্যান্ড পার্কে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে তার খেলা নিয়ে  কিছুটা অনিশ্চয়তা রয়েছে। এ বিষয়ে মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেছেন, ‘তার হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট লেগেছে। আমরা এখনই কিছু বলতে পারব না। আরও বেশি কিছু জানতে আমাদের কেপটাউন যেতে হবে।’ দ্বিতীয় ওয়ানডেকে সামনে রেখে আজ সোমবারই কেপটাউনে পৌঁছার কথা বাংলাদেশ দলের। সেখানে মোস্তাফিজের স্ক্যান করানো হবে। পর‌্যবেক্ষন করা হবে মুশফিকের অবস্থাও।   এমআর/এআর

টেস্টের পর ওয়ানডেতেও লজ্জার হার

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্টে লজ্জাজন হারের পরে ওয়ানডেতেও ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি সফরকারি বাংলাদেশ। ৭.১ ওভার বাকি থাকতেই দশ উইকেটের জয় তুলে নেয় স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। নিষ্প্রাণ উইকেটে একদমই ধারহীন বোলিংয়ে লড়াইও করতে পারল না বাংলাদেশ। চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন বোলাররা। কেউই কোনো উইকেটের দেখাই পাননি। আর তাই উদ্বোধনী জুটিতে হেঁসে খেলে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় প্রোটিয়ারা। ২১ চার ও ২ ছক্কায় ১৪৫ বলে ১৬৮ রানে অপরাজিত কুইন্টন ডি কক। ১১২ বলে ১১০ রানে অপরাজিত আমলা। দুজনের ২৮২ রানের অপরাজেয় জুটি। এর আগে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন টাইগার দলপতি মাশরাফি বিন মর্তুজা। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারি ২৭৮ রান সংগ্রহ করে সফকারীরা। বাংলাদেশের রানটা জয়ের জন্য কম ছিল নি:সন্দেহে। তাই বলে বোলিংয়ে এতটা অসহায় আত্মসমর্পণ!

পাঁচ সেঞ্চুরির মালিক হলেন মুশফিক

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে আজ অসাধারণ এক সেঞ্চুরি করে পুরো সফরে ধুকতে থাকা বাংলাদেশকে পথ দেখালেন মুশফিক। কিম্বার্লিতে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে তার দুর্দান্ত এই সেঞ্চুরির কল্যাণেই চ্যালেঞ্জিং স্কোর পেয়েছে বাংলাদেশ। একদিনের ক্রিকেটে সেঞ্চুরির নজির এটাই প্রথম নয় মুশফিকের। ওয়ানডেতে এর আগেও ৪ বার পেয়েছেন তিন অঙ্কের দেখা। এক নজরে দেখা যাক মুশফিকের বাকি চার সেঞ্চুরি। ১০১, হারারে (জিম্বাবুয়ে) একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মুশফিকের প্রথম সেঞ্চুরিটি ২০১১ সালে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে। হারারে স্পোর্টস ক্লাবে অনুষ্ঠিত সে ম্যাচে ১০০ বলে ১০১ রান করেও দলকে জেতাতে পারেননি মুশফিক। সে ম্যাচে জিম্বাবুয়ের ২৫০ রানের জবাবে ২৪৫ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। ১১৭, ফতুল্লা মুশফিকের ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরিটি আসে ২০১৪ সালে ঘরের মাঠে এশিয়া কাপে। খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে ভারতের বিরুদ্ধে তার সেঞ্চুরির কল্যাণে ২৭৯ রানের স্কোর পায় বাংলাদেশ। এ ম্যাচের স্মৃতিও সুখের নয়। অধিনায়ক ভিরাট কোহলির ১৩৬ রানের সুবাদে ৬ উইকেটের জয় পায় ভারত। ১০৬, মিরপুর মুশফিকের তৃতীয় ওয়ানডে সেঞ্চুরিটি ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তামিম ইকবাল ‍ও মুশফিকের সেঞ্চুরিতে ৩২৯ রানের বিশাল স্কোর দাঁড় করায় বাংলাদেশ। এ ম্যাচে আর পরাজিত দলে ছিলেন না মুশফিক। ৭৯ রানের বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। ১০৭, মিরপুর মুশফিকের চতুর্থ সেঞ্চুরিটিও মিরপুরে। জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে এ ম্যাচে মুশফিকের ১০৭ রানের কল্যাণে ২৭৩ রান করে বাংলাদেশ। সে ম্যাচে ১৪৫ রানের বিশাল জয় পায় টাইগাররা। সূত্র: ইএসপিএন ক্রিকইনফো এমআর/ডব্লিউএন    

প্রোটিয়াদের ২৭৯ রানের টার্গেট দিল টাইগাররা

প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের সেঞ্চুরিতে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২৭৯ রানের টার্গেট দিয়েছে বাংলাদেশ। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এটি মুশফিকের পঞ্চম সেঞ্চুরি। মূলত: তার অপরাজিত ১১০ রানের কল্যাণেই ২৭৮ রান করতে সমর্থ হয়েছে মাশরাফি মুর্তজার দল। কিম্বার্লিতে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম একদিনের ম্যাচে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন দলপতি মাশরাফি বিন মুর্তজা। দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস ও  লিটন দাসের কল্যাণে ভালো শুরু পায় বাংলাদেশ। উদ্বোধনী জুটিতে ৪৩ রান তোলেন এ দু’জন। লিটন ২১ ও ইমরুল ৩১ রান করে ফিরে গেলে দলের হাল ধরেন মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসান। তৃতীয় উইকেটে দলকে এনে দেন ৫৯ রান। ২৯ রানে সাকিব সাজঘরে ফিরে গেলেও দলকে টেনে নিতে থাকেন মুশফিক। চতুর্থ উইকেটে মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে গড়েন ৬৯ রানের জুটি। প্রিটোরিয়াসের বলে ২৬ রানে মাহমুদউল্লাহ আউট হলে ভাঙ্গে এ জুটি। মাহমুদউল্লাহ ফিরে গেলেও বিচলিত হননি মুশফিক। প্রোটিয়া বোলারদের শাসন করে আদায় করে নেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি। শেষদিকে সাব্বির (১৯) ও অভিষিক্ত সাইফুদ্দিন (১৬) তাকে কিছুটা সঙ্গ দিলে নির্ধারিত ৫০ ওভারে শেষে ৭ উইকেটে ২৭৮ রানের স্কোর পায় ‎চণ্ডিকা হাথুরুসিংহা‎র ছাত্ররা। প্রোটিয়া পেসার কাগিসো রাবাদা ৪টি উইকেট লাভ করেন। এছাড়া ড্যান প্রিটোরিয়াস ২টি উইকেট নেন। ২৭৯ রানের লক্ষে খেলতে নেমেছে স্বাগতিকরা। প্রতিবেদন লেখার সময় দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ৩ ওভারে বিনা উইকেটে ১৫ রান। কুইন্টন ডি কক ৯ ও হাশিম আমলা ৬ রানে ব্যাট করছেন। সূত্র: ইএসপিএনক্রিকইনফো এমআর/ডব্লিউএন

নতুন উচ্চতায় সাকিব

আরো একটি মাইলফলক স্পর্শ করলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে আজকের ম্যাচে ২৯ রান করার পর দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে সাকিব পাঁচ হাজার রান পূরণ করলেন। সেই সাথে ওয়ানডেতে ২০০ উইকেট শিকারীর অভিজাত ক্লাবে নাম লেখালেন তিনি। এর আগে বাংলাদেশের হয়ে ৫ হাজার রান অতিক্রম করেন তামিম ইকবাল। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এর আগে মাত্র চারজন ক্রিকেটার একইসাথে পাঁচ হাজার রান ও ২০০ উইকেট শিকার করেছেন। তারা হলেন, শ্রীলঙ্কার সনাথ জয়াসুরিয়া। ওয়ানডেতে তার রান ১৩৪৩০ ও উইকেট সংখ্যা ৩২৩। দক্ষিণ আফ্রিকার কিংবদন্তি জ্যাক ক্যালিসের রান ১১৫৭৯ ও উইকেট সংখ্যা ২৭৩। পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদির সংগ্রহ ৮০৬৪ রান। আফ্রিদি শিকার করেছেন ৩৯৫ উইকেট। পাকিস্তানের আব্দুর রাজ্জাকের ৫০৮০ রান ও ২৬৯ উইকেট। সনৎ জয়সুরিয়া, জ্যাক ক্যালিস, আব্দুর রাজ্জাক ও শহীদ আফ্রিদের পাশে বসলেন সাকিব। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২২৪ উইকেটের পাশাপাশি ৫০১২ রানের মালিক সাকিব। ২০০৬ সালে হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অভিষেকের পর ১১ বছরের ক্যারিয়ারে সাকিব আল হাসান বাংলাদেশকে নিয়ে গেছেন অনন্য এক উচ্চতায়। সূত্র: ইএসপিএনক্রিকইনফো এমআর/ডব্লিউএন

মুশফিকের শতকে বড় সংগ্রহের পথে বাংলাদেশ

মুশফিকুর রহিমের সেঞ্চুরিতে বড় সংগ্রহের দিকেই যাচ্ছে বাংলাদেশ। ওয়ানডেতে মুশফিকের পঞ্চম সেঞ্চুরি এটি। প্রতিবেদন লেখার সময় ৪৫ দশমিক ৩ ওভারে ৫ উইকেটে ২৩৯ রান তুলে ফেলেছে টাইগাররা। ১০০ রানে ব্যাট করছেন মুশফিক। যেভাবে ব্যাট করছেন তাতে মুশফিকের সেঞ্চুরি পাওয়াটা খুব কঠিন মনে হচ্ছে না। মুশফিকের সাথে ক্রিজে আছেন নাসির হোসেন। ২৯ রান করে আউট হয়েছেন সাকিব আল হাসান। এই ইনিংস খেলার পথে দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে পাঁচ হাজার রান পূরণ করার পাশাপাশি ওয়ানডেতে ২০০ উইকেট শিকারীর অভিজাত ক্লাবে নাম লিখিয়েছেন সাকিব। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে জয়সুরিয়া, জ্যাক ক্যালিস, আব্দুল রাজ্জাক ও শহীদ আফ্রিদির আছে এ কীর্তি।   সূত্র: ইএসপিএনক্রিকইনফো এমআর/ডব্লিউএন

১০০ পেরোলো বাংলাদেশ

স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে শুরুটা ভালই করেছে বাংলাদেশ। টসে জিতে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশকে শুভ সূচনা এনে দেন দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস ও লিটন দাস। উদ্বোধনী জুটিতে ৮ দশমিক ও ৫ ওভারে ৪৩ রান করেন দুজন। রাবাদার বলে আউট হওয়ার আগে ২৯ বলে ২১ রান করেছেন চমৎকার খেলতে থাকা লিটন দাস। ইনিংসটাকে বড় করতে পারেননি ইমরুল কায়েসও। ৩১ রান করে প্রিটোরিয়াসের বলে উইকেটরক্ষক কুইন্টন ডি কককে ক্যাচ দিয়েছেন এই বাঁহাতি।  প্রতিবেদন লেখার সময় বাংলাদেশের সংগ্রহ ২১ ওভারে ১০০ রান। সাকিব আল হাসান ১৮ ও মুশফিকুর রহিম ২২ রানে ব্যাট করছেন। গোড়ালির চোটের কারণে এ ম্যাচে খেলতে পারছেন না ‘কাটার মাস্টার’ মুস্তাফিজুর রহমান। এর আগে বাদ পড়েছেন তামিম ইকবাল। দক্ষিণ আফ্রিকার মারকুটে ব্যাটসম্যান ডেভিড মিলার আজ নিজের শততম একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলছেন। এছাড়া প্রোটিয়া দলে ফিরেছেন বিপজ্জনক এবি ডি ভিলিয়ার্সও। ডি ভিলিয়ার্স-আমলা-ডু প্লেসিদেরকে চ্যালেঞ্জ জানাতে হলে তাই বড় সংগ্রহই করতে হবে ‎চণ্ডিকা হাথুরুসিংহা‎র ছাত্রদের। বাংলাদেশ দল লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), ইমরুল কায়েস, সাব্বির রহমান, ‍মুশফিকুর রহীম, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, নাসির হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা ( অধিনায়ক), মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, তাসকিন আহমেদ ও রুবেল হোসেন। দক্ষিন আফ্রিকা দল কুইন্টন ডি কক ( উইকটরক্ষক), হাশিম আমলা, ফাফ ডু প্লেসি ( অধিনায়ক), এবি ডি ভিলিয়ার্স, ডেভিড মিলার, জেপি দুমিনি, ডুয়াইন প্রেটোরিয়াস, অ্যান্ডিলে ফেহলুকওয়া, কাগিসো রাবাদা, ড্যান প্যাটারসন ও ইমরান তাহির।   সূত্র: ইএসপিএনক্রিকইনফো এমআর

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি