ঢাকা, শনিবার   ০৬ মার্চ ২০২১, || ফাল্গুন ২২ ১৪২৭

ক্ষমা চেয়েছেন মেসি!

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৩:২১, ১৯ জানুয়ারি ২০২১

স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনাল ম্যাচে মেজাজ হারিয়ে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়কে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়ার ঘটনায় লাল কার্ড দেখে ম্যাচ থেকে বহিষ্কার হন লিওনেল মেসি। সেই ঘটনায় সতীর্থদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন বার্সেলোনা সুপারস্টার। খবর মার্কা।

প্রতিবেদনে বলা বয়েছে, রোববার ফাইনাল শেষে ড্রেসিংরুমে মেসি ছিলেন হতাশাগ্রস্ত। একে তো দলের ফাইনাল হার অন্যদিকে নিজের লাল কার্ড। এই দুই ঘটনায় ফুটবল মঞ্চের সেরা তারকা ছিলেন হতাশ। মাঠের পারফরম্যান্স এবং নিজের লাল কার্ডের জন্য সতীর্থদের কাছে ক্ষমা চান তিনি।

রোববারের রাতটি মেসির কাছে ছিল বিভীষিকাময়। কারণ সেই রাতে মেসিকে হজম করতে হয় বার্সেলোনার জার্সিতে প্রথম লাল কার্ড। ফাইনালের আগে বার্সেলোনার জার্সিতে ৭৫৩ ম্যাচ খেলেছেন মেসি। মাঠ থেকে সরাসরি কখনো তাকে উঠে যেতে হয়নি। ম্যাচ যখন হাত থেকে বেরিয়ে যায় তখন মেজাজ হারিয়ে বিলবাওয়ের এসিয়ের ভিয়ালিব্রেকে ঢুসা মেরে ভুপাতিত করেন মেসি। 

রেফারির চোখ প্রথমে এই ঘটনা এড়িয়ে যায়। পরে ভিএআরের সাহায্য নিয়ে রেফারি মেসিকে লাল কার্ড দেখান।

এ ঘটনায় মেসি চার ম্যাচ নিষিদ্ধ হতে পারেন। স্প্যানিশ ফেডারেশন তার ঘটনা তদন্ত করে সিদ্ধান্ত জানাবে। যদি চার ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ হন তাহলে বৃহস্পতিবার কোপা ডেল রে’র ম্যাচে করনেলার বিপক্ষে খেলতে পারবেন না মেসি। পাশাপাশি লা লিগায় ইলচে, অ্যাথলেটিক ক্লাব ও রিয়েল বেতিসের বিপক্ষেও ম্যাচ মিস করবেন তিনি।

বার্সেলোনা ও মেসি যেন পরিপূরক হয়ে উঠেছেন। ২০০৫ সালে কাতালান শিবিরে যোগ দেওয়ার পর মহাতারকা মেসি ক্যাম্প ন্যু মাতিয়েছেন নিজের ছন্দে। পেয়েছেন যশ-খ্যাতি, ঐশ্বর্য।

এটি ছাড়াও মেসি আরও দুইটি লাল কার্ড দেখেন। ওই দুইটি জাতীয় দল আর্জেন্টিনার জার্সিতে। প্রথমটি ২০০৫ সালে জাতীয় দলের অভিষেক ম্যাচে। পরেরটি ১৪ বছর পর ২০১৯ সালে কোপা আমেরিকার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে।
এএইচ/এসএ/
 


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি