ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২১ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৫ ১৪২৮

সাতক্ষীরায় ব্যক্তি উদ্যোগে বৃক্ষ যাদুঘর (ভিডিও)

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি 

প্রকাশিত : ১১:৪৪ এএম, ১৬ অক্টোবর ২০২০ শুক্রবার | আপডেট: ১১:৪৬ এএম, ১৬ অক্টোবর ২০২০ শুক্রবার

সাতক্ষীরায় ব্যক্তি উদ্যোগে গড়ে উঠেছে বিলুপ্ত ও বিলুপ্ত-প্রায় গাছসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ-গাছালির যাদুঘর। সঙ্গে আছে গাছ চেনার পাঠশালা। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এখানে মানুষ আসছে নানা গাছ চিনতে ও সংগ্রহ করতে। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০১৩ সালে সাতক্ষীরায় জামাত শিবিরের তাণ্ডবে কেটে ফেলা হয় শত শত গাছ। ওই সময় তাদের হামলার শিকার হন তুজলপুর গ্রামের সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন। তিনি কাটা গাছের শূন্যস্থান পূরণের উদ্যোগ নেন। ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেন গাছের পাঠশালা। 

সুন্দরবনের সকল প্রজাতির গাছসহ, শোভাবর্ধনকারী, ওষুধি, ফলদ, ফুল, শাকসবজীর গাছে ভরপুর এই পাঠশালা। এই প্রতিষ্ঠান থেকে গাছ বিতরণ করা হয় বিনামুল্যে। 

জানতে চাইলে গাছের পাঠশালা ও কৃষি যাদুঘরের  স্বত্ত্বাধিকারী ইয়ারব হোসেন বলেন, ‘যে গাছ আমাদের অক্সিজেন, কাঠ, ফলমূল দেয় সে গাছের ওপর শত্রুতা কেন। গাছ তো মানুষের কোন কোন ক্ষতি করে না।’

গাছ পাঠশালায় সাত শতাধিক উদ্ভিদ রয়েছে। পাশাপাশি গড়ে উঠেছে কৃষি যাদুঘর। ঝাউডাংগা কৃষি ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. গোলাম রহমান বলেন, ‘বিভিন্ন এলাকা থেকে বৃক্ষপ্রেমিরা আমাদের এ যাদুঘরে আসেন। পুরনো অনেক গাছের সঙ্গে তারা পরিচিত হোন।’ 

পরিচর্যাকারীরা বলছেন, ‘প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গাছ পাগল মানুষ আসছে গাছ চিনতে। অনেকে গাছ কিনছেন।’

যাদুঘরে ঘুরতে আসা কয়েকজন জানান, ‘অনেক জায়গায় পছন্দের গাছ পাওয়া যায় না। কিন্তু এখানে সব ধরনের গাছ পাওয়া যায়।’

এআই//এমবি