ঢাকা, রবিবার   ২৪ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৮ ১৪২৮

শ্রীমঙ্গল বেইলী ব্রীজের ভীম ভেঙ্গে এলাকাবাসীর দুর্ভোগ

বিকুল চক্রবর্তী, মৌলভীবাজার:

প্রকাশিত : ০৮:২০ পিএম, ৪ এপ্রিল ২০২১ রবিবার

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে বেইলি ব্রিজের ভীম ভেঙ্গে ঝুঁকিপূর্ণ যান চলাচল মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল শিববাড়ী বেইলি ব্রিজের মধ্যের অংশের ভীম ভেঙ্গে গিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে ব্রীজটি। এ অবস্থায় এই ঝঁকিপূর্ণ ব্রীজ দিয়েই চলছে যানবাহন। উপজেলার শ্রীমঙ্গল- সিন্দুরখান সড়কের শংকর সেনা শিববাড়ি এলাকায় বিলাস ছড়ার উপর নির্মিত এই ব্রীজটি দীর্ঘ দিন ধরেই নড়বড়ে অবস্থায় রয়েছে। 

শ্রীমঙ্গল উপজেলা উপ সহকারী প্রকৌশলী মো. মনিরজ্জামান খান বলেন, ব্রীজটি এমনিতেই পুরাতন তার উপর সম্প্রতি কাজী ফার্মের ভারি ট্রাক ও কভারভ্যান চলাচল করতে গিয়ে ব্রীজের নিচে ভিম ভেঙ্গে যায়। তারা রবিবার সকালে বাঁশ বেঁধে যানবাহন চলাচলা সীমিত করে এসেছেন। 

সরেজমিনে দেখা যায়, কয়েকজন লোক এই ব্রিজের মাঝ বরাবর বাশের খুঁটি বেধে দিচ্ছেন। বিজ্রের এক পাশের দুইটি স্টিলের পাটাটন এর নাট বল্টু খুলে ও ঝালাই খুলে যাওয়ার কারনে যখনই কোন যানবাহন উঠছে বিকট শব্দ করে পাটাটনগুলো নরাচরা করছে। ব্রিজে ঠিক মাঝখানে স্টিলের পাটাটনের নিচের স্টিলের ক্রস ভীম ভেঙ্গে গিয়ে ব্রীজের মধ্যে স্থানে দেবে গেছে। ব্রিজের এই ঝুকিপূর্ণ অবস্থা থাকা সত্বেও সিএনজি, জিপগাড়ি চলছে। ব্রিজের দুই পাশে কয়েকটি মালবাহী ট্রাক দাড়িয়ে রয়েছে। এই বেইলি ব্রীজটি দিয়ে উপজেলার আশিদ্রোন ইউনিয়ন, সিন্দুরখান ইউনিয়ন ও রাজঘাট ইউনিয়নসহ আশপাশের প্রায় কয়েক হাজার মানুষ প্রতিদিন যাতায়াত করেন।

শ্রীমঙ্গল নিন্মাই শিব বাড়ির সেবায়েত ডা: সত্যকাম চক্রবর্তী জানান, এই ব্রীজটি অনেক দিন ধরেই বেহাল অবস্থায় । এক সাইডের পাটাটন খুলে রয়েছে অনেক আগে থেকেই। নাট বল্টুও নাই অনেক জায়গায়। সরকারি লোকজন তো এই বিষয়টি জানতেন। কিন্তু ব্রিজটি কাজ করান নি। তারা ঝুঁকি নিয়েই এই ব্রীজ দিয়ে যাতায়াত করেন। সিএনজি চালিত অটো রিকশার চালক মো. সিরাজুল ইসলাম ও রুবেল মিয়া বলেন, প্রায় বছর খানেক ধরেই এই ব্রিজটি চলাচলের অনুপোযোগী। বিকল্প রাস্তা না থাকায় তারা এই ব্রীজটি ব্যবহার করে আসছেন। তারা যখন সিএনজি নিয়ে ব্রীজ পাড় হন তখন শতর্কতার সহিত পাড় হন। অনেক শব্দ হয়। এখনও বড় বড় যানবাহনও এখানে চলাচল করে। 

ওই এলাকার বাসিন্দা নাজিম মিয়া বলেন, ব্রিজের একটি অংশ ভেঙ্গে গেলেও যানবাহন চলছেই। এটির দ্রুত মেরামত কিংবা ব্রিজের যাতায়াত বন্ধ না করলে যে কোন সময় দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ ব্যাপারে স্থানীয় আশিদ্রোন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রনেন্দ্র প্রসাদ বর্ধন জানান, ব্রীজটি ঝুঁকিপূর্ণ তিনি জনগণকে শর্তক করতে দুই পাশে দুটি সাইনবোর্ড লাগিয়েছেন এবং উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবগত করেছেন। শ্রীমঙ্গল উপজেলা উপ সহকারী প্রকৌশলী মো. মনিরজ্জামান খান আরো বলেন, তারা ব্রীজটি পরিদর্শন করেছেন। এটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায়ই রয়েছে। ব্রীজটিতে বড় যানবাহন না চলার জন্য বাশ বেধে দিয়েছেন। শুধুমাত্র রিকশা, মোটর সাইকেল ও সিএনজি চলছে। তাদের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা হয়েছে। ব্রিজটি দ্রুত মেরামত করা হবে।

আরকে//