ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৫ আগস্ট ২০২১,   শ্রাবণ ২০ ১৪২৮

আন্তর্জাতিকভাবে পালিত হচ্ছে মেডিটেশন দিবস

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৮:৪২ পিএম, ১৫ মে ২০২১ শনিবার | আপডেট: ০৬:৩৭ পিএম, ২২ মে ২০২১ শনিবার

মানসিক শান্তি আনয়নে ধ্যান বা মেডিটেশন এখন বিজ্ঞানসম্মত বিশ্ব স্বীকৃত পদ্ধতি। সচেতনতা বৃদ্ধির ফলে ক্রমেই ধ্যান মানুষের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠছে। এরই ফলশ্রুতিতে গত কয়েকবছর ধরে আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিবছরের ২১ মে পালিত হচ্ছে বিশ্ব ধ্যান বা মেডিটেশন দিবস।

বাংলাদেশেও বেসরকারি বেশ কয়েকটি সংগঠনের উদ্যোগে রাজধানীসহ সারাদেশে পালিত হবে বিশ্ব মেডিটেশন দিবস।


বিশ্বে ধ্যানের ইতিহাসঃ

প্রাচীন মানুষ যে ধ্যান বা মেডিটেশন চর্চা করতেন তার লিখিত প্রমাণের বয়সই কমপক্ষে পাঁচ হাজার বছর। ৫ হাজার বছরের প্রাচীন ভারতীয় তন্ত্রশাস্ত্রে ধ্যানের উল্লেখ আছে। এটি সতের শতকের একটি দুর্লভ উপনিষদ পান্ডুলিপির খণ্ডাংশ। এখানে ধ্যানের কথা বলা আছে। 

ধ্যান মেডিটেশন মোরাকাবা, তাফাক্কুর- শব্দগুলো ভিন্ন হলেও মূল নির্যাস একই। বিভিন্ন ধর্ম আর সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে এটি প্রায়োগিকভাবে ভিন্ন রূপ নিলেও পানির সার্বজনীনতার মতোই ধ্যানের নির্যাস সার্বজনীন, সকল মানুষের জন্যে।

যুগে যুগে দেশে দেশে সাধকরা আত্ম উপলব্ধির জন্যে এ প্রক্রিয়াকে ব্যবহার করেছেন। মুনি-ঋষিরা পরমাত্মার সাথে সংযুক্ত হওয়ার সাধনায় যোগ-ধ্যানকে ব্যবহার করেছেন। স্রষ্টায় সমর্পণের জন্যে সুফিসাধকরা নিমগ্ন হয়েছেন মোরাকাবা-মোশাহেদায়।

গবেষণায় প্রমাণিত যে, নিয়মিত মেডিটেশন চর্চা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা (ইমিউন সিস্টেম) বৃদ্ধি পায়। রোগ নিরাময়, আত্ম-নিয়ন্ত্রণ আত্মিক প্রশান্তির জন্য ধ্যান বা মেডিটেশন এখন সচেতন মানুষের কাছে জনপ্রিয় বিষয়। 
মেডিটেশনের উপকারিতাঃ

১. টেনশনমুক্তি: মেডিটেশনের প্রথম লাভই হলো টেনশনমুক্তি। বলা হয় টেনশন ও শিথিলায়ন একসাথে থাকতে পারে না। যে শরীরে টেনশন থাকে, সে শরীরে শিথিলায়ন থাকে না। আর শরীর শিথিল হলে টেনশন পালিয়ে যায়। আর আমরা এখন জানি, মনোদৈহিক ৭৫ ভাগ রোগের কারণই টেনশন। তাই মেডিটেশন করলে আপনি অনায়াসেই শতকরা ৭৫ ভাগ মনোদৈহিক রোগ থেকে মুক্তি পাবেন।
২. রোগমুক্তি: মেডিটেশনের মাধ্যমে আপনি মাইগ্রেন, সাইনোসাইটিস, ঘাড়ে-পিঠে-কোমরে বা শরীরের যেকোনো স্থানে দীর্ঘদিনের ব্যাথা, হজমের সমস্যা, আইবিএস, এসিডিটি, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, অনিদ্রা প্রভৃতি রোগগুলো থেকে মুক্ত থাকতে পারবেন। এইধরণের রোগ হলেও সুস্থ হতে পারবেন। আর অন্যান্য রোগ নিরাময়েও ওষুধ ও সার্জারির পাশাপাশি সুস্থ জীবন পেতে মেডিটেশন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
৩. মনোযোগ বৃদ্ধি: একজন শিক্ষার্থী হিসেবে আপনি মেডিটেশন করার মাধ্যমে শিখবেন অখণ্ড মনোযোগ ও অল্পসময়ে পড়া আয়ত্ত করার টেকনিক।
৪.সুখী দাম্পত্য: পারিবারিক সমস্যা দূর করে সুখী দাম্পত্য জীবনে ফিরে যেতে পারবেন আপনি। আপনার নিজের মধ্যেই তৈরি হবে সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা।
৫. সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা: একজন পেশাজীবী হিসেবে সবসময় মাথা ঠান্ডা রেখে আপনি নিতে পারবেন সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত। ব্যাক্তি জীবনেও আপনি হবেন আত্মবিশ্বাসী। একজন সফল মানুষ হওয়ার জন্যে মেডিটেশনে মনছবি চর্চা করে আপনি আপনার জীবনের যেকোনো চাওয়াকে পরিণত করতে পারেন স্বতঃস্ফূর্ত পাওয়ায়। 

বাংলাদেশে মেডিটেশন দিবস পালনের ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে কোয়ান্টাম ফাইন্ডেশন। ২১ মে বিশ্ব মেডিটেশন দিবসে সংগঠনটি একযোগে বাংলাদেশ সময় সকাল ৯.৩০ মিনিটে লাখো মানুষের সম্মিলনে মেডিটেশনের আয়োজন করেছে। এছাড়াও সংগঠনটি ধ্যান দিবসে ধ্যানের প্রয়োজনীয়তা, উপকারিতা তুলে ধরে অন্যান্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে।