ঢাকা, শনিবার   ২৬ নভেম্বর ২০২২,   অগ্রাহায়ণ ১২ ১৪২৯

তরুণদের চাকরির সুযোগ দিচ্ছে এগ্রো এক্সপো

প্রকাশিত : ০৭:১৯ পিএম, ৩০ নভেম্বর ২০১৭ বৃহস্পতিবার | আপডেট: ১০:২৯ পিএম, ৩০ নভেম্বর ২০১৭ বৃহস্পতিবার

তরুণরা হন্যে হয়ে ঘুরছে চাকরির পেছনে। অনেকেই এখন বিসিএস এর জন্য মূল্যবান সময় পার করে দিচ্ছে। এ ক্ষেত্রে কেউ সফল হচ্ছে কেউ বা ব্যর্থতার খাতায় নাম লেখাচ্ছে। পড়ালেখা শেষ করে তরুণ-তরুণীরা যাতে বেকার ঘুরতে না হয় সে জন্য এবার প্রথমবারের মতো আয়োজিত হলো এগ্রো ক্যারিয়ার এক্সপো-২০১৭। কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনের আয়োজনে ক্যাটালিস এর সহযোগিতায় দুই দিনব্যাপী মেলা বসে কেআইবিতে। এই মেলায় অংশ গ্রহণ করে ৯৭টি স্টলে মোট ৮৮টি কোম্পানি।  

এ বিষয়ে মেলার আয়োজক প্রতিষ্ঠান থেকে জানানো হয়, সবাইতো সরকারি চাকরির পেছনে ছুটছেন। কেউ বিসিএস এর চাকরির বয়স পার করে দিচ্ছে। কিন্তু আমাদের এসব কোম্পানিগুলোতে যে অসংখ্যা পদ খালি আছে সেটা অনেকে জানে না। সেজন্য এবার আমরা তরুণদের জানানোর জন্য বা তাদের ভবিষ্যত পথ খুলে দেওয়ার জন্য চাকরির মেলার আয়োজন করেছি। যাতে সবাই জানতে পারে। সহজে পথে পথে না ঘুরে চাকরিটি পেয়ে যায়। দুইদিনে এখানে অসংখ্যা সিভি জমা পড়েছে। বেসরকারি খাতে যে অসংখ্যা চাকরির সুযোগ আছে এর মাধ্যমে আমরা সেটা জানাচ্ছি।

মেলায় প্রবেশ করতেই কয়েকটি স্টল রয়েছে সেখানে দেখা যাচ্ছে অসংখ্যা চাকরি প্রার্থী তাদের সিভি জমা দিচ্ছে। তারা জানায় এমন একটি আয়োজনে আমরা খুবই খুশি। বিভিন্ন জায়গা থেকে এসে অনেকে সিভি জমা দিচ্ছে। শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সিভি জমা দিতে এসেছেন ইশরাত জাহান। তিনি জানান, এই মেলা সম্পর্কে আগে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি সেমিনার হয়। সেখানে আমি প্রথমে নাম রেজিস্ট্রেশন করি। তারপর এখন এসে সিভি জমা দিচ্ছি। আসলে এটা আমাদের জন্য একটি বিশাল সুযোগ। এখনকার সময়ে সহজে চাকরি পাওয়া অসম্ভব একটি ব্যাপার। সে ক্ষেত্রে এখানে তারা অন্যরকম একটি সুযোগ তৈরি করেছে। নিঃসন্দেহে এটি একটি ভালো উদ্যোগ। তারা পরবর্তীতে ভাইভার জন্য ডাকবে।

মেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন কোম্পানিতে অনেকে তাদের সিভি জমা দিচ্ছে। ইয়ন গ্রুপ অফ ইন্ডাস্টিজ এ খোঁজ নিয়ে জানা যায় গত দুই দিনে তাদের স্টলে সিভি জমা পড়েছে প্রায় ৮০০ এর মতো। বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে সবাই সিভি দিয়ে যাচ্ছে। এ বিষয়ে কথা হয় ম্যানেজার, কৃষিবিদ সবুর মিয়ার সঙ্গে। তিনি জানান, আমাদের কোম্পানিতে প্রতি মাসে ১২-১৫ জন লোক নিয়োগ দেওয়া হয়। প্রতিনিয়ত আমাদের লোক লাগে। আমরা এখন এখান থেকে লোক নেব। অনেকেই জানে না এসব কোম্পানিতে অসংখ্যা চাকরির সুযোগ আছে। এটি একটি ভালো উদ্যোগ।

লাল তীর সীড লিমিটেড কোম্পানির স্টলে গিয়ে দেখা যায় অনেকে তাদের সিভি জমা দিচ্ছে। কোম্পানির অপারেশন অফিসার শাহরিয়ার এর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, এখন পর্যন্ত আমাদের এখানে এক হাজার ১০০ সিভি জমা পড়েছে। তাদের মধ্যে ৬০ পারসেন্ট এগরিকালচার, কিছু আছে সয়েল সাইন্স, কিছু প্রোডাকশন, জেনারেল ও অন্যান্য সিভি জমা হয়েছে। এখান থেকে আমাদের কোম্পানি প্রয়োজন মতো লোক নিয়োগ দেবে।

এভাবে সবগুলো স্টলেই কম বেশি সিভি জমা পড়েছে। কোয়ালিটি ফিডস লিমিটেডের সিনিয়র মার্কেটিং ম্যানেজার ডা. মোহাম্মদ সাইফুর রহমান জানান, তাদের স্টলে প্রায় ১০০ এর মতো সিভি জমা পড়েছে

তরুণরা চাকরির বাজারে যেভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছে সেখানে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন এর এমন আয়োজন তরুণদের আশার আরও দেখাচ্ছে। এমনটাই জানালেন মেলায় আগত অসংখ্যা তরুণ-তরুণী। এখানে শুধু যে এগ্রো ভিত্তিক জব রয়েছে তা নয়। সব শ্রেণির চাকরিই রয়েছে। যার যেটা প্রয়োজন সেই আলোকে সিভি জামা দিতে পারছে। আর কোম্পানি তাদের প্রয়োজন মতো সিভি দেখে তাদেরকে ভাইভার জন্য ডাকবে।

এ বিষয়ে কথা বলেন বিশিষ্ট কমেডিয়ান নাবিদ হাসান। তিনি জানান, বাংলাদেশে কৃষিতে যে পরিমান অপার সম্ভাবনা রয়েছে, সেটা অনেকেই জানেন না। আর এখানে অসংখ্য চাকরির সুযোগ রয়েছে। এ বিষয়টিও অনেকে অবগত নয়। তাই এমন আয়োজন সত্যি ভালো একটি উদ্যোগ। পড়াশুনা শেষ করে নানা জায়গায় ঘুরার চেয়ে এখানে এসে সহজে চাকরির খোঁজ পেয়ে যাওয়া বিরাট ব্যাপার।

 

 এসি/এসএইচ