ঢাকা, রবিবার   ২১ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ৬ ১৪২৬

বিশ্বকাপ উপলক্ষে কমেছে অপরাধ প্রবণতা

প্রকাশিত : ০১:২৯ পিএম, ১৭ জুলাই ২০১৮ মঙ্গলবার | আপডেট: ০২:৪১ পিএম, ১৭ জুলাই ২০১৮ মঙ্গলবার

ফুটবল জ্বরে গোটা বিশ্বের সঙ্গে ভাসছিল বাংলাদেশও। বিশেষ করে তরুণরা ফুটবলে মজে থাকাতে সারামাসজুড়ে দেশে অপরাধ প্রবণতাও কম লক্ষ্য করা গেছে। কিছু দুঃখজনক ঘটনা বাদ দিলে বাংলাদেশে অপরাধ প্রবণতা কম থাকার পেছনে বিশ্লেষকরা ফুটবলকে কৃতীত্ব দিচ্ছেন। তারা মনে করেন, তরুণদের খেলার মতো নির্মল বিনোদনের সুযোগ দেওয়া গেলে তাদের মাঝে বিপথগামী হওয়ার প্রবণতা কমে যাবে।

গত ১৪ জুলাই, অর্থাৎ বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনালের একদিন আগে বাংলাদেশে এক মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে যায়৷ কক্সবাজারের চকরিয়ায় ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার সমর্থকদের একটি প্রীতি ম্যাচের পর পাঁচ জন কিশোর নদীতে সাঁতার কাটতে গিয়ে ডুবে মারা যায়৷

শনিবার বিকেলে চকরিয়া গ্রামার বিদ্যালয়ের ২২ জন শিক্ষার্থী একটি প্রীতি ফুটবল ম্যাচের আয়োজন করে৷  ব্রাজিল এবং আর্জেন্টিনার সমর্থক দলে ভাগ হয়ে মাঠে নামে দু্ইদল। বিকেলে খেলা শেষে ৪টার দিকে ছয় কিশোর ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনার ঘামে ভেজা জার্সি পরেই মাতামুহুরী নদীতে সাঁতার কাটতে যায়৷ নদীর পানি গভীর হওয়ায় এবং স্রোত প্রবল হওয়ায় তারা সবাই পানিতে ডুবে যায়৷ তাদের মধ্যে পাঁচ জনের লাশ উদ্ধার করা হয় রোববার।

এর বাইরে বিশ্বকাপ ফুটবল চলাকালে দেশের বিভিন্ন স্থানে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷ এছাড়া প্রিয় দলের পতাকা টাঙাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে একজন নিহত হয়েছেন৷

তবে এমন অপ্রীতিকর কিছু ঘটনা ঘটলেও বাংলাদেশে কিন্তু বিশ্বকাপ চলার সময় অপরাধ প্রবণতা কম ছিল৷ রাশিয়ায় বিশ্বকাপের আসর শুরু হয় ১৫ জুন আর শেষ হয় ১৫ জুলাই৷ গত ১৫ জুন থেকে ১৫ জুলাই– এই একমাসের হিসাব আলাদাভাবে না পাওয়া গেলেও সাধারণ মাসের হিসাব বিবেচনায় নিয়ে অপরাধ কমার বিষয়টি স্পষ্ট হয়৷ বাংলাদেশ পুলিশের তরফ থেকেও এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের হিসাবে মে মাসে সারাদেশে বিভিন্ন অপরাধে মামলা হয়েছে ২৩,৪১৬টি৷ আর জুন মাসে মামলা হয়েছে ১৯,৮১৭টি৷ এর মধ্যেই১৫ জুন থেকে শুরু হয় বিশ্বকাপ৷ মে মাসে হত্যাকাণ্ডেরর ঘটনা ঘটেছে ৩৭৯টি৷ জুন মাসে হত্যাকাণ্ড হয়েছে ৩৩৯টি৷ মে মাসে নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মামলা হয়েছে ১৩৬৭টি৷ তবে জুন মাসে তা বেড়ে হয়েছে ১৩৯১টি৷ দস্যুতা, অপহরণ ও ছিনতাইয়ের মতো ঘটনা কমেছে৷ জুলাই মাসের অপরাধ পরিসংখ্যান দেয়া গেলে বিষয়টি হয়ত আরো স্পষ্ট হতো৷ পুলিশ সদর দপ্তর জুলাই মাসের অপরাধ পরিসংখ্যান মাস শেষে চূড়ান্ত করবে৷ তবে সূত্র জানায়, এ পর্যন্ত যে তথ্য আছে, তাতে জুলাই মাসেও অপরাধ প্রবণতা কম৷

ঢাকা মেট্রেপলিটন পুলিশের উপ কমিশনার( মিডিয়া) মাসুদুর রহমান বলেন, ‘‘আমাদের পর্যবেক্ষণ হলো বিশ্বকাপ চলাকালে রাজধানীতে হত্যা, ছিনতাই, দস্যুতা এবং নারী ও শিশু নির্যাতনের মতো অপরাধ কম হয়েছে৷ প্রচলিত অপরাধের সঙ্গে জড়িতদের একটি বড় অংশ হলো তরুণ৷ আর প্রধানত তরুণরাই বিশ্বকাপে মেতে ছিল৷ তাই হয়তো অপরাধও কম হয়েছে৷ তবে ফুটবলের এই মহা আয়োজনে আমাদের দেশে সমর্থকদের মধ্যে যাতে কোনো উত্তেজনা বা বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি না হয়, যা আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটাতে পারে, সেদিকে আমাদের নজর ছিল৷ আমরা এ কারণে টহল বাড়ানোসহ আরো কিছু বাড়তি ব্যবস্থা নিয়েছি৷``

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও অপরাধ বিজ্ঞানের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান বলেন, ‘পরিসংখ্যান বলছে, রাশিয়ায়ও বিশ্বকাপ চলাকালে অপরাধ প্রবণতা কমেছে৷ আর বিশেষ করে তরুণরা অপরাধ থেকে দূরে থেকেছে৷ আমাদের দেশেও পরিসংখ্যান তাই বলছে৷ আর এতে প্রমাণিত হয় কিশোর, তরুণদের আমরা যদি খেলাধুলার মতো সুস্থ বিনোদন দিতে পারি, তাহলে তাদের মধ্যে অপরাধপ্রবণতা কমবে৷ বিশেষ করে আমাদের এখানে তরুণদের একাংশের জঙ্গিবাদে জড়ানোর যে প্রবণতা, তা কমবে বলে আমার মনে হয়৷``

এমজে/