ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ জুন ২০২৪,   আষাঢ় ৫ ১৪৩১

চিনি খেলে কি ডায়াবেটিস হয়?

প্রকাশিত : ০৫:০৬ পিএম, ১৪ আগস্ট ২০১৮ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৩:৪৫ পিএম, ১৫ আগস্ট ২০১৮ বুধবার

রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে যাওয়াকে ডায়াবেটিস বলে। অর্থাৎ শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে যদি ইনসুলিন তৈরি না হয় বা কোষগুলো শরীরে তৈরি হওয়া ইনসুলিনে ঠিকমতো সাড়া না দেয় তাহলে রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে যায়। এ ধরণের সমস্যাকে ডায়াবেটিস বলে।

প্যানক্রিয়াস থেকে নিঃসৃত ইনসুলিন মজুদ থাকা সুগার বা খাবার থেকে পাওয়া ফ্যাটের ব্যবহারে শরীরকে সহায়তা করে।   

আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশনের বিশেষজ্ঞদের মতে, জিনগত ও অজানা কিছু কারণে টাইপ ১ ডায়াবেটিস হয়। সাধারণত ছোটবেলায় এটা হয়। এ রোগে প্যানক্রিয়াসের পক্ষে ইনসুলিন তৈরি করা সম্ভব হয় না।

অন্যদিকে বংশগত ও জীবনযাপন প্রণালী- টাইপ ২ ডায়াবেটিসের জন্য এ দুটাই দায়ী। অধিকাংশ লোকজন এ ধরনের ডায়াবেটিসে ভোগেন। এ রোগে প্যানক্রিয়াস ইনসুলিন তৈরি করলেও হয় তা অপর্যাপ্ত অথবা কোষগুলো তাতে সাড়া দেয় না।

আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশনের মতে, চিনি খেলে ডায়াবেটিস হওয়ার ধারণাটি একটি মিথ।

ম্যাক্স হেলথকেয়ারের এন্ডোক্রিনোলজি, ডায়াবেটিস ও অবেসিটির পরিচালক ড. সুজিত ঝা বলেন, “সরাসরি চিনি খেলেই যে ডায়াবেটিস হয় তা নয়। তবে চিনি খেলে এমন কিছু সমস্যা হয়, যা থেকে ডায়াবেটিস হতে পারে। যেমন স্থুলতা বা অতিরিক্ত ওজন যা ডায়াবেটিসের প্রধান কারণ।”

তিনি বলেন, “চিনি খেলেই ডায়াবেটিস না হলেও অতিরিক্ত রিফাইন্ড সুগার খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। কারণ এতে কোনো পুষ্টি নেই। যা আছে তা শুধু ক্যালরি।”

কৈলাশ হাসপাতালের পুষ্টিবিদ ও চিকিৎসক ড. পারভীন ভার্মা বলেন, “কেবল চিনিযুক্ত খাবার খেলে ডায়াবেটিস হয় না। স্থুলতা, স্ট্রেসসহ আরো বিভিন্ন কারণে এটা হতে পারে।

“রিফাইন্ড সুগারের সঙ্গে ডায়াবেটিসের সম্পর্কর একটি কারণ হলো চিনির মতো শর্করাযুক্ত খাবার শরীরের গ্লুকোজোর মাত্রা কমিয়ে দেয়।”

তাই চিনি খাওয়ার সঙ্গে ডায়াবেটিস হওয়ার কোনো সম্পর্ক নেই। তবে চিনির খারাপ দিক নিয়ে যে এত আলোচনা হয় তা মূলত বেকিং, পানীয় ও রেডিমেড খাবারে থাকা অতিরিক্ত চিনি যা অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। আর ডায়াবেটিস রোগটি নির্ভর করে মূলত ব্যক্তির বংশ, পারিবারিক ইতিহাস ও পরিবেশের ওপর। সূত্র: এনডিটিভি

এসি