ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৭ অক্টোবর ২০১৯,   কার্তিক ১ ১৪২৬

ভিডিও গেম আসক্তি মানসিক অসুখ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১২:১১ পিএম, ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ বুধবার

আধুনিক বিশ্বে উন্মাদনার অপর এক নাম ভিডিও গেমস। বহু বছর ধরে ভিডিও গেম হয়েছে আরও বেশি জনপ্রিয়, উপভোগ্য এবং চ্যালেঞ্জিং। কিন্তু ভিডিও গেম বা কম্পিউটার গেমের নেশা যে একটি মানসিক রোগ- এটি এখন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থারই স্বীকৃতি। তারা বলছে, এটা এমন এক ধরনের আচরণ যা জীবনের আর সব কিছুর আকর্ষণ থেকে একজনকে দূরে সরিয়ে দেয়।

ইন্টারন্যাশনাল ক্লাসিফিকেশন অব ডিজিজেস বা আইসিডি হলো এমন একটি গাইড যেখানে বিভিন্ন রোগের কোড, লক্ষণ এবং উপসর্গ সম্পর্কিত বিস্তারিত থাকে। চিকিৎসক এবং গবেষকরা এটির সঙ্গে মিলিয়ে রোগ নির্ণয়ের করার চেষ্টা করেন।

গেমিং আসক্তিকে কখন মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে বর্ণনা করা হবে, তার বিবরণ হিসেবে এ গাইডলাইনে বলা হয়েছে যে, ১২ মাস ধরে অস্বাভাবিক গেমিং আসক্তি বা আচরণ দেখা গেলে তা নির্ণয়ের পদক্ষেপ নিতে হবে। তবে কারও ক্ষেত্রে যদি অস্বাভাবিক আচরণের মাত্রা অনেক বেশি হয়, তখন ১২ মাস নয়, তার আগেই ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে।

যে সব লক্ষণের কথা এতে উল্লেখ করা হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে গেমিং নিয়ে নিজের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলা (বিশেষ করে কত ঘন ঘন, কতটা তীব্র এবং কত দীর্ঘ সময় ধরে গেমিং করছে সে বিষয়ে), গেমিংকেই সবচেয়ে প্রাধান্য দেওয়া এবং নেতিবাচক প্রভাব সত্ত্বেও গেমিং অব্যাহত রাখা বা আরও বেশি গেমিং করা।

অবশ্য এর আগেই পৃথিবীর বেশ কিছু দেশে গেমিং আসক্তিকে প্রধান জনস্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে চিহ্ণিত করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যসহ কিছু দেশে তো ইতোমধ্যে এর চিকিৎসার জন্য প্রাইভেট এডিকশন ক্লিনিক পর্যন্ত রয়েছে! মার্কিন শিশু-কিশোরদের অটিজম, মনোযোগ হ্রাস, হতাশা ও তীব্র বিষণ্নতায় আক্রান্ত হওয়ার সঙ্গে ভিডিও গেম আসক্তির সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে বলে মন্তব্য করেছে দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট।