ঢাকা, বুধবার   ২১ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ৬ ১৪২৬

৯৯৯ এ কল করে মুক্ত হলেন তরুণী

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:৫৮ পিএম, ৯ মে ২০১৯ বৃহস্পতিবার

রাষ্ট্রীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ কল করে এক তরুণী অসহনীয় নির্যাতন থেকে মুক্ত হলেন। নারায়নগঞ্জের ফতুল্লা থানা এলাকার একটি বাসায় গত ১৪ এপ্রিল থেকে শিকল বাঁধা অবস্থায় ছিলেন তিনি। গত ৬ মে ৯৯৯ এ কল করে নিজের অবস্থার কথা জানালে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ পুলিশের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের ভেরিভায়েড পেইজে বিস্তারিত একটি স্ট্যাটাসের মাধ্যমে বিষয়টি জানা যায়।

স্ট্যাটাসে বলা হয়, ৬ মে সন্ধ্যায় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ একটি কল আসে। ওপাশ থেকে একটি নারী কণ্ঠ জানায় যে, তিনি শিকল বাঁধা অবস্থায় নিজ বসতবাড়িতেই বন্দি জীবন কাটাচ্ছেন। তরুণী তার বর্তমান অবস্থান ও পরিচয় তুলে ধরেন। তার এমন অভিযোগ শুনে ৯৯৯ এর কল টেকার ফতুল্লা থানার ওসিকে ফোনে যুক্ত করে দেন। ফোনে ওসি বিস্তারিত জেনে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেন। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠান। ফতুল্লার একটি তিন তলার ফ্লাটের পেছনের কক্ষ থেকে শিকলে বাঁধা অবস্থায় পাওয়া যায় সেই তরুণীকে। শিকলের তালা খুলে উদ্ধার করা হয় তাকে। এরপর ওই ফ্ল্যাটে সে সময় উপস্থিত তার বাবা ও মাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। তরুণীর অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করেন তারা।

পুলিশ জানান, ভিন্ন ধর্মের ছেলের সঙ্গে প্রেম করে কয়েকবার বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছিল তাদের মেয়ে। তাই এবার ধরে এনে শিকল বেঁধে রাখা হয়েছে যেন পালিয়ে যেতে না পারে। তার বয়স এখন ২০ চলছে এবং তিনি ঢাকার একটি কলেজে অনার্সে পড়ছেন বলে ভূক্তভোগী তরুণী জানান।

একজন পূর্ণ বয়স্ক মানুষকে অমানবিকভাবে আটকে রাখার অপরাধে তরুণীর বাবা ও মাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। আটক বাবা ও মায়ের বিরুদ্ধে ফতুল্লা থানায় পেনাল কোড ৩৪২ ধারার অভিযোগ করেন তরুণী। মামলা রুজু করে আসামী বাবা ও মাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

এদিকে ভুক্তোভোগী ওই তরুণীকে হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। আদালতে জবানবন্দি প্রদান শেষে নিরাপদ হেফাজতে রাখার জন্য আবেদন করা হয়। ভিকটিম পূর্ণ বয়স্ক হওয়ায় তাকে নিজ জিম্মা প্রদান করেন আদালত।

এমএস//এসি