ঢাকা, বুধবার   ১১ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রাহায়ণ ২৭ ১৪২৬

বর্ষার ফুল কদম

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:১৭ এএম, ১৫ জুন ২০১৯ শনিবার

কদম ফুল ফুটক আর নাই ফুটক আজ পহেলা আষাঢ়। বর্ষার আগমনী বার্তা নিয়ে আসে কদম ফুল। কদম যেন বর্ষার দূত! এ বাক্যগুলো থেকে বোঝা যায় আষাঢ়ের সঙ্গে কদমের সম্পর্ক নিবীড় । সাধারণত আষাঢ়ের প্রথম বৃষ্টিতেই কদম ফোটে। প্রাচীন সাহিত্যের একটি বিশাল অংশ জুড়ে রয়েছে কদম ফুল।

গোলাকার সাদা-হলুদ রঙের ফুলটি দেখতে ছোট বলের মত। গাছ ভরে এই ফুলের সমাহার ঘটে। সেই মুহূর্তটি এক অপূর্ব সৌন্দর্যের।

পরিচিতি : বৈজ্ঞানিক নাম Anthocephalus indicus. ইংরেজি নাম burflower tree. কদম ফুল নীপ নামেও পরিচিত। এ ছাড়া বৃত্তপুষ্প, মেঘাগমপ্রিয়, কর্ণপূরক, ভৃঙ্গবল্লভ, মঞ্জুকেশিনী, পুলকি, সর্ষপ, প্রাবৃষ্য, ললনাপ্রিয়, সুরভি, সিন্ধুপুষ্পও কদমের নাম।

এর আদি নিবাস ভারতের উষ্ণ অঞ্চল, চীন ও মালয়ে। বিশ্বের নানা দেশে কদমগাছ দেখতে পাওয়া যায়। যেমন- চীন, ভারত, বাংলাদেশ, নেপাল, শ্রীলংকা, কম্বডিয়া, লাওস, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, মালয়শিয়া, পাপুয়া নিউগিনি, অস্ট্রেলিয়া।

এর সংস্কৃত নাম কদম্ব। কদম্ব মানে হলো `যা বিরহীকে দুঃখী করে`! প্রাচীন সাহিত্যের একটি বিশাল অংশ জুড়ে রয়েছে কদম ফুল। মধ্যযুগের বৈষ্ণবসাহিত্যজুড়ে রয়েছ কদমের সুরভীমাখা রাধা-কৃষ্ণের বিরহগাথা! ভগবত গীতাতেও রয়েছে কদম ফুলের উল্লেখ। কদমগাছ বৌদ্ধধর্মের একটি পবিত্র গাছ। ভারতের পূর্বাংশে ভগবান কৃষ্ণের সঙ্গে জড়িত কদমগাছ। শ্রীকৃষ্ণের লীলাখেলা থেকে শুরু করে রাধা-কৃষ্ণের বিচ্ছেদ - সবকিছুতেই রয়েছে কদম গাছের উল্লেখ।

বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস : জগৎ- উদ্ভিদ, শ্রেণীবিহীন- সপুষ্পক উদ্ভিদ, বর্গ- Gentianales, পরিবার- Rubiaceae, উপপরিবার- Cinchonoideae, গোত্র- Naucleeae, গণ- Neolamarckia, প্রজাতি- N. cadamba.

বর্ণনা : কদম গাছ দীর্ঘাকৃতি এবং বহুশাখাবিশিষ্ট।। রূপসী তরুর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে কদম। কদমের কাণ্ড সরল, উন্নত, ধূসর থেকে প্রায় কালো এবং বহু ফাটলে রুক্ষ, কর্কশ। শাখা অজস্র এবং ভূমির সমান্তরালে প্রসারিত। পাতা হয় বড় বড়, ডিম্বাকৃতি, উজ্জ্বল-সবুজ, তেল-চকচকে এবং বিন্যাসে বিপ্রতীপ। এর বোঁটা খুবই ছোট। নিবিড় পত্রবিন্যাসের জন্য কদম ছায়াঘন। এই গাছের উচ্চতা ৪০-৫০ ফুট পর্যন্ত হয়।

শীতে কদমের পাতা ঝরে এবং বসন্তে কচি পাতা গজায়। সাধারণত পরিণত পাতা অপেক্ষা কচি অনেকটা বড়। কদমের কচি পাতার রঙ হালকা সবুজ। কদমের একটি পূর্ণ মঞ্জরিকে সাধারণত একটি ফুল বলেই মনে হয়। কদম ফুল দেখতে বলের মতো গোল, মাংসল পুষ্পাধারে অজস্র সরু সরু ফুলের বিকীর্ণ বিন্যাস। এই ফুলের রং সাদা-হলুদে। তবে পাঁপড়ি ঝরে গেলে শুধু হলুদ রঙের গোলাকার বলের মত দেখা যায়। এই গাছের ফল মাংসল, টক এবং বাদুড় ও কাঠবিড়ালীর প্রিয় খাদ্য।

ফুলে ভরা কদমগাছ দেখতে অসাধারণ হলেও এর আর্থিক মূল্য তেমন একটা নেই। কাঠ নরম বলে আসবাবপত্র তৈরি করা যায় না। কাঠ দিয়ে দেয়াশলাই ও বাক্সপেটরা তৈরি হয়ে থাকে। গাছের ছাল জ্বরের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কোনো কোনো অঞ্চলে কদমফুলের তরকারি রান্না করে খাওয়া হয়।

তথ্যসূত্র : ফুল সংক্রান্ত বই এবং ইন্টারনেট।

এএইচ/