ঢাকা, শনিবার   ১৮ মে ২০২৪,   জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪৩১

২৬৫ রানের লক্ষ্যে ভারতের দুরন্ত সূচনা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৮:৫৪ পিএম, ৬ জুলাই ২০১৯ শনিবার

শ্রীলঙ্কার দেয়া ২৬৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দুরন্ত সূচনা করেছে রোহিত শর্মা ও লোকেশ রাহুল। লঙ্কান বোলারদের ওপর চড়াও হয়ে এরইমধ্যে ১৫ ওভারে ৮১ রান তুলে ফেলেছে এই দুই ভারতীয় ওপেনার।

এর আগে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজের অনবদ্য সেঞ্চুরি আর লাহিরু থিরিমান্নের ফিফটিতে ভর করে নিজেদের শেষ ম্যাচে ভারতকে ২৬৫ রানের লক্ষ্য দিয়েছে শ্রীলঙ্কা। দলটির জন্য নিয়মরক্ষার ম্যাচ হলেও ভারতের জন্য শীর্ষে ওঠার লড়াই। তবে ভারতের বিরুদ্ধে এ ম্যাচটি জিতে বিশ্বকাপ শেষ করতে চান শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নে।

শনিবার চলতি বিশ্বকাপের ৪৪তম ম্যাচে হেডিংলির লিডসে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক করুণারত্নে৷ ব্যাটিংয়ে নেমে একটা সময় মাত্র ৫৫ রানেই চার হারিয়ে বিপাকে পড়ে শ্রীলঙ্কা। ভারতীয় বোলারদের বোলিং তোপে পড়ে একে একে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন করুণারত্নে (১০), কুশল পেরেরা (১৮), আভিস্কা ফার্নান্ডো (২০) ও কুশল মেন্ডিস (৩)। 

তবে পঞ্চম উইকেটে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান থিরিমান্নেকে নিয়ে বড় জুটি গড়েন দলকে সেই বিপর্জয় থেকে উদ্ধার করেন সাবেক অধিনায়ক ও দলের সিনিয়র খেলোয়াড় অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজ। এরই মধ্যে ফিফটি করে কুলদিপ যাদবের শিকার হলে ভাঙে এ দুজনের ১২৪ রানের জুটি। জাদেজার হাতে ধরা পড়ে সাজঘরে ফেরার আগে ৬৮ বল থেকে চার বাউন্ডারির সাহায্যে খেলেন ৫৩ রানের ইনিংস। ফলে ১৭৯ রানে পঞ্চম উইকেট হারায় লঙ্কা।

এরপরও থেমে না গিয়ে সেঞ্চুরি আদায় করে নেন ম্যাথিউজ। দলকে একটি সম্মানজনক স্থানে পৌঁছে দিয়ে আউট হওয়ার আগে খেলেন ১১৩ রানের অনবদ্য এক ইনিংস। বুমরাহর তৃতীয় শিকার হওয়ার আগে ১২৭ বলে দশটি চার ও দুটি ছক্কায় ওই রান করেন অভিজ্ঞ এই অলরাউন্ডার। শেষ দিকে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার ২৯ রানে ভর করে ৭ উইকেটে ২৬৪ রানের সংগ্রহ পায় শ্রীলঙ্কা।

ভারতীয় বোলারদের মধ্যে বুমরাহ ৩টি এবং ভুবনেশ্বর, পান্ডিয়া, জাদেজা ও কুলদিপ একটি করে উইকেট লাভ করেন।

এদিন দলীয় মাত্র ১০ রানেই অধিনায়ক করুণারত্নেকে (১০) হারায় লঙ্কা। এরপর আরেক ওপেনার কুশল পেরেরাকেও (১৮) হারায় দলীয় ৪০ রানে। দুটি উইকেটই তুলে নেন বর্তমান সময়ের সেরা বোলার জাসপ্রিত বুমরাহ। দুজনেই আউট হন উইকেটের পিছনে ধোনির গ্লাভসবন্দী হয়ে।

আর দলীয় ৫৩ রানে জাদেজার শিকার হয়ে ফেরেন চার নাম্বারে খেলতে নামা কুশল মেন্ডিস। সেই ধোনির স্ট্যাম্পিং হওয়ার আগে করেন মাত্র ৩ রান। পরের ওভারে পান্ডিয়ার শিকার হয়ে ফেরেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ন আভিশকা ফার্নান্ডো। তরুণ এই ব্যাটসম্যানের হন্তারকও সেই ধোনি। অন্যতম সেরা এই উইকেট কীপারের গ্লাভসবন্দি হওয়ার আগে তিনি করেন ২১ বলে ২০ রান।

এনএস/