ঢাকা, বুধবার   ১১ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রাহায়ণ ২৬ ১৪২৬

ডাক্তার-গবেষক স্বপ্নীলের জন্মদিন আজ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৫:৩৪ পিএম, ২২ আগস্ট ২০১৯ বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৮:১৫ পিএম, ২২ আগস্ট ২০১৯ বৃহস্পতিবার

অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল) একজন ডাক্তার হয়ে শুধু  চিকিৎসা সেবাতেই নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখেননি তিনি নিজেকে ছড়িয়ে দিয়েছেন সকল ভাল কাজে এবং পেয়েছেন সর্বোচ্চ সফলতা, সময়ের সঠিক ব্যবহার, মানবিকতা শেখার একজন অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল) স্যার, চিকিৎসা, গবেষণা, অধ্যাপনার ব্যস্ততা তাহার মানবিকতা থামিয়ে রাখতে পারেনি ছুটে গেছেন বন্যা কবলিতদের ত্রাণ দিতে, দেশের সকল প্রতিকূলতায় পাশে দাঁড়ান সন্তানের মতো,

তিনি পেয়েছেন আন্তর্জাতিক গবেষকের স্বীকৃতি, তাহার বন্ধুসুলভ সাবলীল, সরল আচরণ ও আন্তর্জাতিক মানের চিকিৎসা সেবা মন জয় করেছেন বাংলাদেশের ও দেশের বাহিরের লক্ষ্য-কোটি লিভার রুগীদের বলা যায়  তিনি একজন ডাক্তার যিনি ডাক্তারের চেয়েও বেশি কিছু, একজন গবেষক যিনি তাঁর চেয়েও বেশী কিছু, একজন নেতা যিনি নেতৃত্বেরও শীর্ষে, একজন লেখক যিনি তাঁর লিখনীতেও সেরা, একজন মানুষ যিনি মানবিকের চেয়েও বেশী কিছু৷, সেই ভাল মানুষটির আজ জন্মদিন। শুভ জন্মদিন প্রিয় স্যার।

আমাদের অধ্যাপক ডাঃ মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল) স্যার সম্পর্কে কিছু তথ্য।

দেশের বিখ্যাত লিভার রোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল) হেপাটোলজি ইন্টারন্যাশনাল–এর এসোসিয়েট এডিটর। তিনি ইউরোএশিয়ান জার্নাল অব হেপাটোগ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি এবং জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল এন্ড এক্সপেরিমেন্টাল হেপাটোলজি সহ লিভার বিষয়ক বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক জার্নালের এডিটোরিয়াল বোর্ডে আছেন। তিনি এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় লিভার এসোসিয়েশনের হেপাটাইটিস বি, হেপাটাইটিস সি, একিউট অন ক্রনিক লিভার ফেইলিউর এবং লিভার ফাইব্রোসিস সংক্রান্ত গাইডলাইন কমিটিগুলোর সদস্য। তিনি সম্প্রীতি বাংলাদেশ এর যোগ্য সদস্য সচিব।

অধ্যাপক ডাঃ মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল) স্যার ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে ১৯৯৫ সালে এম.বি.বি.এস, লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯৮ সালে গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিতে এম.এস.সি এবং ২০০৬ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হেপাটোলজিতে এম.ডি ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি আমেরিকান কলেজ অব গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি, ইন্ডিয়ান কলেজ অব ফিজিসিয়ানস, রয়েল কলেজ অব ফিজিসিয়ানস অব আয়ারল্যান্ড এবং রয়েল কলেজ অব ফিজিসিয়ানস অব লন্ডনের ফেলো।

বর্তমানে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের হেপাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান হিসাবে কর্মরত আছেন। পাশাপাশি তিনি জাপানের এহিমে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি ও মেটাবোলজিম বিভাগের ভিজিটিং রিসার্চার।

বাংলাদেশের লিভার বিশেষজ্ঞদের জাতীয় সংগঠন ‘এসোসিয়েশন ফর দি স্টাডি অব লিভার ডিজিজেজ বাংলাদেশ’-এর তিনি জেনারেল সেক্রেটারী, ‘ইউরোএশিয়ান গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল এসোসিয়েশন’-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট, ‘সাউথ এশিয়ান এসোসিয়েশন ফর দি স্টাডি অব ডি লিভার’-এর ইন্টারন্যাশনাল কো-অর্ডিনেটর। তিনি ‘ফোরাম ফর দি স্টাডি অব দি লিভার’-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।

এ পর্যন্ত তিনি লিভার বিষয়ক বেশ কয়েকটি টেক্সট বই সম্পাদনা করেছেন। এর মধ্যে ‘লিভার’ প্রকাশ করেছে এলসেভিয়ের, ‘টেক্সট বুক অব হেপাটাইটিস বি’, ‘টেক্সট বুক অব হেপাটোগ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি’ ও ‘হেপাটোগ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি প্রেসক্রাইবার’- এর প্রকাশক জেপি ব্রাদার্স, ইন্ডিয়া আর ‘ফ্যাটি লিভার ডিজিজ’ ও ‘হেপাটাইটিস ম্যানেজমেন্ট আপডেট’ বই দুটি প্রকাশিত হয়েছে ম্যাকমিলান পাবলিশার্স থেকে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও জাতীয় বৈজ্ঞানিক জার্নালে তার দুই শতাধিক প্রকাশনা রয়েছে।

হেপাটাইটিস বি চিকিৎসায় নতুন ওষুধ ন্যাসভেক নিয়ে গবেষণা অধ্যাপক স্বপ্নীল স্যার এর অন্যতম কৃতিত্ব। এ দেশে ন্যাসভেকের ফেইজ ১/২ ও ফেইজ ৩ ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের তিনি প্রিন্সিপ্যাল ইনভেস্টিগেটর। তার গবেশনালব্ধ ফলাফলের ভিত্তিতে ওষুধটি এরই মধ্যে কিউবা, নিকারাগুয়া, ইকুয়েডর, বেলারুশ ও এ্যাঙ্গোলায় রেজিস্ট্রেশন পেয়েছে এবং বাংলাদেশের ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর ওষুধটির রেসিপি অনুমোদন করেছে। এতে হেপাটাইটিস বি আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় নতুন সম্ভবনার সৃষ্টি হয়েছে।

অধ্যাপক স্বপ্নীল স্যার বাংলাদেশের লিভার ক্যান্সার চিকিৎসায় সর্বাধুনিক পদ্ধতি ট্রান্স-আর্টারিয়াল কেমো-এম্বোলাইজেশন (টেইস) এরও পুরোধা এবং এদেশে নিয়মিতভাবে এই পদ্ধতিতে লিভার ক্যান্সারের চিকিৎসা করে থাকেন। পাশাপাশি লিভার ফেইলিওরে অটোলোগাস স্টেম সেল থেরাপি চিকিৎসা ও লিভার ডায়ালাইসিসেরও পথিকৃত অধ্যাপক স্বপ্নীল। এই চিকিৎসা পদ্ধতিগুলো এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আলোচিত হচ্ছে। ভয়েস অব আমেরিকা ও বিবিসি বাংলা এ নিয়ে তার সাক্ষাৎকার সম্প্রচার করেছে।

তিনি ২০১৩ সালে ‘আমেরিকান এসোসিয়েশন ফর দি স্টাডি অব দা লিভার’-এর ‘প্রেসিডেন্সিয়াল ডিস্টিংশন’ অর্জন করেন আর ২০১৪ সালে ‘ইউরোএশিয়ান গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল এসোসিয়েশন’ কর্তৃক ‘অর্ডার অব মেরিট’-এ ভূষিত হন। ভারতের ‘কলিঙ্গ গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল ফাউন্ডেশন’ তাকে ২০১৫ সালে সম্মানসূচক ‘ব্লুমবার্গ ওরেশন’ প্রদান করে। ২০১৬ সালে তিনি ভারতের চেন্নাই-এর ‘ভেনাস রিসার্চ ফাউন্ডেশন’ থেকে ‘ডিসটিংগুইশড সাইন্টিস্ট (হেপাটোলজি)’ পদক লাভ করেন। ২০১৭ সালের ‘হুজ হু’-তে তার জীবনী অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। তিনি ২০১৮-তে ‘মার্কুইস হুজ হু’ কর্তৃক ‘এলবার্ট নেলসন মার্কুইস লাইফ টাইম এচিভমেন্ট এ্যাওয়ার্ড’-এ ভূষিত হন। ‘বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘ’ তাকে ‘বিশুদ্ধানন্দ মহাথেরো স্বর্ণ পদন ২০১৮’ প্রদান করেছে।

এছাড়া তার গবেষণার স্বীকৃতি হিসেবে তিনি ‘ইন্টারন্যাশনাল এসোসিয়েশন ফর দি স্টাডি অব দি লিভার’, ‘ওয়ার্ল্ড গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি অর্গানাইজেশন’, ‘এশিয়ান-প্যাসিফিক  এসোসিয়েশন ফর দি স্টাডি অব দি লিভার’, ‘এশিয়ান-প্যাসিফিক প্রাইমারী লিভার ক্যান্সার এক্সপার্ট গ্রুপ’, ‘জাপান সোসাইটি অব হেপাটোলজি’, ‘টার্কিশ সোসাইটি অব হেপাটো-বিলিয়ো-প্যানক্রিয়াটোলজি’ এবং ‘ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল এসোসিয়েশন ফর দি স্টাডি অব দি লিভার’ কর্তৃক পুরস্কৃত হয়েছেন।

 
মোঃ আজিবুর রহমান

সিনিয়র সহ সভাপতি, বাংলাদেশ ফার্মাসিস্ট ফোরাম।

সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোরপস ক্লাব (বিএনসিসি ক্লাব)।