ঢাকা, রবিবার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৮

আমেরিকায় টয়লেট `বিড়ম্বনায়` মোদী

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৭:৫৭ পিএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ মঙ্গলবার

যুক্তরাষ্ট্রে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এক হাই-প্রোফাইল সফরের অংশ হিসেবে নিউইয়র্কের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। সেখানে তাকে একটি গুরুত্বপূর্ণ সরকারি প্রকল্পের জন্য সম্মাননা দেয়া হবে।

তবে সেলেব্রিটি ইভেন্টটি এর মধ্যে বিতর্কিত হয়ে উঠেছে। আর এই বিতর্ক শুরু হয় একটি টুইট বার্তা থেকে।

ভারতে খোলা স্থানে মলত্যাগ বন্ধ করতে দেশটির সরকার যে প্রচেষ্টা চালিয়েছে সে জন্য মোদীকে স্বীকৃতি দেওয়ার কথা রয়েছে বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের। ২রা সেপ্টেম্বর একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এই পুরস্কারের ঘোষণা দেন।

'সোয়াচ ভারাত আভিয়ান' বা 'ক্লিন ইন্ডিয়া মিশন' হিসাবে পরিচিত এই প্রচারণায় সারাদেশের স্যানিটেশন উন্নয়নের লক্ষ্যে দরিদ্র মানুষের জন্য অন্তত এক কোটি শৌচাগার তৈরি করে দেয়া হয়।

আপাতদৃষ্টিতে এই পুরষ্কারটি টুকরো টুকরোভাবে বিভিন্ন মতামতের জন্ম দিয়েছে। কমপক্ষে তিনজন নোবেল বিজয়ী এই পুরস্কার দিতে অসম্মতি জানিয়েছেন। এক লাখ মানুষ এ ব্যাপারে একটি পিটিশনে স্বাক্ষরও করেছে।

আলোচিত এই ইভেন্টটি সেলেব্রিটিরাও প্রত্যাখ্যান করেন - ব্রিটিশ এশিয়ান অভিনেতা জামিলা জামিল এবং রিজ আহমেদের এই অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার কথা থাকলেও পরে তারা সেখানে যাবেন না বলে জানান। এ ব্যাপারে তাদের দু'জনের কেউ কোন ব্যাখ্যা দেননি।

মোদীর জন্য নির্ধারিত এই পুরষ্কারটি নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। কেননা আজ পর্যন্ত যারা গেটস ফাউন্ডেশনের "গোলকিপার" পুরষ্কার পেয়েছেন তাদের বেশিরভাগ তৃণমূলের রাজনৈতিক এবং কমিউনিটি কর্মী ছিলেন।

কেন মোদী পুরষ্কার পাচ্ছেন?

শৌচাগার বা এমনকি কলের পানির সরবরাহ না থাকায় ভারতের ১০ কোটি মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করে। এটি একটি চিরাচরিত সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

এটি একদিকে যেমন মাটি ও পানিকে দূষিত করছিল, পাশাপাশি নানা রোগও সৃষ্টি করছিল। আর নারী ও মেয়েদের নিরাপত্তার জন্যও তা হয়ে পড়েছিল ঝুঁকিপূর্ণ।

নরেন্দ্র মোদী এই খোলা স্থানে মলত্যাগের অভ্যাস বন্ধ করার বিষয়ে ২০১৪ সালে তার একটি উচ্চাভিলাষী প্রতিশ্রুতি পূরণের ঘোষণা দেন, যা সারা বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল।

এই লক্ষ্যটি ক্লিন ইন্ডিয়া মিশনের প্রধান কর্মসূচিগুলোর মধ্যে অন্যতম। মোদীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রচার-প্রচারণা জুড়েও এই বিষয়টি স্থান পায়।

তিনি এবং তাঁর ভারতীয় জনতা পার্টির নেতৃত্বাধীন সরকার একে একটি সাফল্য হিসাবে চিহ্নিত করেছেন - এবং এই বছরের নির্বাচনের আগে, মোদী দাবি করেছেন যে এই কর্মসূচির কারণে ৯০% ভারতীয় শৌচাগার সেবা পেয়েছে। তিনি ক্ষমতা গ্রহণের আগে মাত্র ৪০% মানুষ এই সুবিধা পেতো।

দ্য বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন বিবিসিকে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে যে, "জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার অর্জনের পথে ভারত স্যানিটেশন উন্নয়নে যে অগ্রগতি করছে" সেজন্য তারা মোদীকে এই সম্মান করছেন।

সমালোচকরা যখন মোদীর এই প্রকল্পটির প্রশ্নবিদ্ধ বিষয়গুলো চিহ্নিত করছিলেন, তখনই বড় সমালোচনাগুলো ব্যক্তি নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধেই ওঠে।

২০০২ সালে নিজ রাজ্য গুজরাটে সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় জড়িত থাকার অভিযোগে কয়েক বছর মোদী যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষিদ্ধ ছিলেন।

ভারতের এই প্রধানমন্ত্রী অনেকের কাছে প্রশংসিত হলেও তিনি একজন বিভাজনকারী ব্যক্তিত্ব হিসেবে পরিচিত। তার বিরুদ্ধে প্রায়শই সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে বিভাজনমূলক বক্তৃতা এবং সহিংসতার অভিযোগ উঠেছে।

ভারত-শাসিত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ৫ই আগস্ট ছিনিয়ে নেওয়ার পরে সেখানে মোদীর নির্দেশ যে অচলাবস্থার সৃষ্টি করা হয়েছে, সেটাও নিয়ে সমালোচনা হয়েছে।

কাশ্মীরের হাজার হাজার রাজনৈতিক নেতা-কর্মী, ব্যবসায়ী ও আন্দোলনকারীকে আটক করা হয়েছে।

যোগাযোগ অনেকাংশেই বন্ধ রয়েছে। পুরো রাজ্য জুড়ে অতিরিক্ত নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন। সেইসঙ্গে এই নিরাপত্তা বাহিনী কর্তৃক ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে।

"এই পুরষ্কারের সময় - কাশ্মীর এমন একটি বিষয় যা কেবল কাশ্মীরিদেরই নয়, আমাদেরও তাড়া করে বেড়ায়," বলেন, সামাজিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক শিব ভিশওয়ানাথন বিবিসিকে এ কথা বলেন।

"[কাশ্মীরে] ট্রমা ক্লিনিকের অনেক প্রয়োজন রয়েছে। 'গেটস ফাউন্ডেশন' কি অধিকারের নামে এই ক্লিনিকগুলো প্রতিষ্ঠা করবে? [মোদী] সরকার কি এর অনুমোদন দেবে?"

ডা. ভিশওয়ানাথন এটাও বলেন যে, "বিল গেটসের মতো পরোপকারীরা মোদী সরকারকে বৈধতা দিয়েছেন, এই বিষয়টি এড়িয়ে চলাও কঠিন। "বিষয়টিকে সহজভাবে দেখলে হবে না। এতে এটা নিশ্চিত যে [গেটস] ফাউন্ডেশন ভারতে একটি ভাল সময় কাটাচ্ছে।"

নরেন্দ্র মোদী এই সমালোচনার জবাব দেননি, তবে তিনি পুরষ্কারের জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে টুইট করেছেন।

এসি