ঢাকা, বুধবার   ১৫ জুলাই ২০২০,   আষাঢ় ৩০ ১৪২৭

বাউল সম্রাট লালন ফকিরের তিরোধান দিবস আজ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:৩৬ এএম, ১৭ অক্টোবর ২০১৯ বৃহস্পতিবার

বাউল সম্রাট লালন ফকিরের ১২৯তম তিরোধান দিবস আজ। তিনি ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। যিনি ফকির লালন, লালন সাঁই, লালন শাহ, মহাত্মা লালন ইত্যাদি নামেও পরিচিত। তিনি একাধারে একজন আধ্যাত্মিক বাউল সাধক, মানবতাবাদী, সমাজ সংস্কারক এবং দার্শনিক। অসংখ্য গানের গীতিকার, সুরকার ও গায়ক ছিলেন তিনি।

লালনকে বাউল গানের অগ্রদূতদের অন্যতম একজন হিসেবে বিবেচনা করা হয় এবং ‘বাউল-সম্রাট’ হিসেবেও আখ্যায়িত করা হয়ে থাকে। তার গানের মাধ্যমেই উনিশ শতকে বাউল গান বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করে।

লালন ছিলেন একজন মানবতাবাদী সাধক। যিনি ধর্ম, বর্ণ, গোত্রসহ সকল প্রকার জাতিগত বিভেদ থেকে সরে এসে মানবতাকে সর্বোচ্চ স্থান দিয়েছিলেন। অসাম্প্রদায়িক এই মনোভাব থেকেই তিনি তার গান রচনা করেছেন। তার গান ও দর্শন যুগে যুগে প্রভাবিত করেছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ও অ্যালেন গিন্সবার্গের মতো বহু খ্যাতনামা কবি, সাহিত্যিক, দার্শনিক, বুদ্ধিজীবীসহ অসংখ্য মানুষকে। তার গানগুলো মূলত বাউল গান হলেও বাউল সম্প্রদায় ছাড়াও যুগে যুগে বহু সঙ্গীতশিল্পীর কণ্ঠে লালনের এই গানসমূহ উচ্চারিত হয়েছে। এমনকি গান্ধীরও ২৫ বছর আগে, ভারত উপমহাদেশে সর্বপ্রথম, তাকে ‘মহাত্মা’ উপাধি দেয়া হয়েছিল।

এ উপলক্ষে আখড়াবাড়িতে তিনদিনের উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। কুষ্টিয়ার কুমারখালীর ছেঁউড়িয়ার আখড়াবাড়িতে এরইমধ্যে উৎসব ঘিরে শেষ হয়েছে সবধরনের প্রস্তুতি।

প্রতি বছর সাঁইজীর তিরোধান দিবসের ক’দিন আগ থেকেই আখড়াবাড়িতে জড়ো হন ভক্ত-অনুসারীরা। খন্ড-খন্ড আস্তানায় আসন পেতে উচ্চারণ করেন গুরু পরমপরার বাণী। লালন মঞ্চে তিনদিন ব্যাপী চলবে রাতভর লালনের বাউল গান।
এসএ/