ঢাকা, রবিবার   ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯,   পৌষ ১ ১৪২৬

অতিরিক্ত খাওয়ার পর যে পাঁচটি টোটকা মানবেন

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:৩১ এএম, ২ নভেম্বর ২০১৯ শনিবার | আপডেট: ১০:৪০ এএম, ২ নভেম্বর ২০১৯ শনিবার

আবার এরকম খাদ্যের পর অনেকের অভ্যাস রয়েছে সফট ড্রিকস খাওয়ার। আর এর ফলে অস্বস্তি না কমে বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। কারণ সফট ড্রিকস সাময়িক ঢেকুর তুলে হয়তো স্বস্তি দিতে পারে কিন্তু আদতে তা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। এই ক্ষতিকর জিনিস না খেয়ে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই শরীরকে স্বস্তি দিতে পারে এমন পাঁচটি খাদ্যদ্রব্য রাখতে পারেন আপনার ডায়েটে। যাতে কয়েক দিনের খাবারের অনিয়মের ফলে শরীরে যে ক্ষতি হয়েছে তাও কাটিয়ে ওঠা যাবে। এবার তা জেনে নিন...

* গোল মরিচ
শরীরকে ডিটক্স করতে কোন কৃত্রিম পানীয় বা বড়ির দরকার নেই। আপনার রান্নাঘরেই রয়েছে এর উপায়। গোল মরিচ থাকে সবার রান্নাঘরেই। এই মরিচে আছে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, যা আপনার শরীরকে ভেতর থেকে পরিষ্কার করে। গোল মরিচের মধ্যে থাকা পাইপারিন হজম ক্ষমতা যেমন বাড়ায় এবং তেমনি শরীরকে এনার্জিও দেয়।

* আমলকি
ভিটামিন সি-তে সমৃদ্ধ আমলকি। এই সময়ে আমলকি খাওয়া অত্যন্ত উপযোগী। আমলকি শরীরে উপকারী এনজাইমের পরিমাণ বাড়ায় এবং শরীর থেকে ক্ষতিকর টক্সিন বের করার ক্ষমতা রাখে।

* মেথি
আরও একটি খাবার আপনার প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে তা হল মেথি। মেথি বিজে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে। আগের দিন রাতে মেথি ভেজানো পানি সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে খেয়ে নিন। এর ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেড়ে যাবে।

* মাশরুম ও করলা
সামনেই শীতকাল। এখনই তো নানা ধরনের সবজি খাওয়ার সময়। মাশরুম ও করলা প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় অবশ্যই রাখুন। সপ্তাহে অন্তত ২-৩ দিন ধরে মাশরুম ও করলা খান। উপকার পাবেন।

* বার্লি
ওটস এবং বার্লি জাতীয় খাবারে থাকে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার। এগুলো আপনার শরীরে ইনসুলিন লেভেল ঠিক থাকে এবং সহজে ব্লাড সুগার হতে দেয় না। আপনার প্রতিদিনের আটার বদলে বার্লির আটা ব্যবহার করতে পারেন। এতে অতিরিক্ত খাবারদাবারে ফলে শরীরে যে মেদ
জমেছে, তাও নিয়ন্ত্রণে রাখবে।

এএইচ/