ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০,   ফাল্গুন ১৪ ১৪২৬

তছনছ হয়ে গেল সাকিবের কাঁকড়ার খামার

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৬:২৩ পিএম, ১১ নভেম্বর ২০১৯ সোমবার

বুলবুল-তান্ডবে তছনছ সাকিবের খামার

বুলবুল-তান্ডবে তছনছ সাকিবের খামার

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে তছনছ হয়ে গেছে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের কাঁকড়ার খামারটি। রোববার (১০ নভেম্বর) ভোরে প্রবল ঝড়ের তোড়ে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী এলাকায় করা ওই খামারটির বাঁশের বেড়া ও টিনের ঘর উড়ে গেছে। 

তবে বর্তমানে কাকড়া চাষের 'সিজন' না থাকায় খুববেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে জানিয়েছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য লক্ষ্মী রানী শীল। তিনি বলেন, খামারের টিনের ঘরটি উল্টে গেছে। এছাড়া সম্পূর্ণ খামারটি পানিতে তলিয়ে গেছে। তবে ঘেরের বাঁধ মজবুত হওয়ায় তা ভেঙে যায়নি।

স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, সাকিবের কাঁকড়ার খামারসহ আশেপাশের সবার মাছের খামারই পানিতে তলিয়ে গেছে। তবে সাকিবের খামারের ঘেরের বাঁধটি মজবুত থাকায় কোনও ক্ষতি হয়নি। বেড়াগুলো সরিয়ে এখন রাস্তার পাশে রাখা হয়েছে।

এদিকে, ‘সাকিব অ্যাগ্রো ফার্ম লিমিটেড’-এর সুপারভাইজার তৌফিক রহমান বলেন, শীতের মৌসুম হওয়ায় খামারটি বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। তাই খুব বেশি ক্ষতি হয়নি। মূলত এ মৌসুমে কাঁকড়া পাওয়া যায় না বলেও জানান তিনি।

সাকিবের এ খামারটির কার্যক্রম সম্পর্কে তিনি বলেন, বছরের ছয় মাস এখানে কাঁকড়া চাষ করা হয়। বাকি ছয় মাস বন্ধ থাকে। পরবর্তীতে উর্বর মৌসুমে চাষের জন্য এ সময়টাতে পুকুরগুলো প্রস্তুত করা হয়। কিন্তু ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে পুকুরগুলো এখন পানিতে তলিয়ে গেছে। তাই কিছুটা সমস্যায় পড়তে হবে বলেও জানান তিনি।

কাঁকড়া চাষ সম্পর্কে তৌফিক রহমান বলেন, সুন্দরবনে প্রবাহিত নদীগুলো থেকে ৮০ থেকে ১২০ গ্রাম ওজনের কাঁকড়া সংগ্রহ করা হয়। সেগুলো খামারে রাখার পর নতুন করে খোলস বদলায়। তখন এগুলো সংগ্রহ করে প্যাকেটজাত করে বিদেশে রপ্তানি করা হয়।

প্রসঙ্গত, সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের দাতিনাখালী এলাকায় ৩৫ বিঘা জমিতে কাঁকড়ার এ খামার গড়ে তোলেন সাকিব আল হাসান। ২০১৫ সালে উদ্যোগটি নিলেও বর্তমানে খামারটি পুরোদমে প্রস্তুত।

এনএস/