ঢাকা, শনিবার   ০৪ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২১ ১৪২৬

পেন্সিল যুক্তরাজ্যের দ্বিতীয় বিজয় মেলা

বুলবুল/আহমদ

প্রকাশিত : ০৪:০৩ পিএম, ২২ ডিসেম্বর ২০১৯ রবিবার

"পেন্সিল যুক্তরাজ্যের দ্বিতীয় বিজয় মেলা" শিল্পের নানা স্তরে সম্পৃক্ততা রয়েছে এমন একদল স্বপ্নবাজ শিল্পমনা তরুণ-তরুনীর স্বপ্নের বাস্তব রূপ, অনলাইন ভিত্তিক একটি সৃজনশীল গ্রুপ পেন্সিল যার জন্ম ২০১৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর। পেন্সিলের প্রতিটি সদস্য পেন্সিলর হিসেবে পরিচিত। গত তিন বছরে পেন্সিল তার শক্তি ভালোবাসা দিয়ে শুধু বাংলাদেশে নয় বিশ্বের প্রতিটি কোণায় জন্ম দিচ্ছে পেন্সিলর। 


পেন্সিল গ্রুপ এখন প্রায় দুই লাখ সদস্যের পরিবার।অনলাইন থেকে শুরু করে এখন বাংলাদেশ সরকারের যথাযথ সংস্থার অনুমোদন নিয়ে পেন্সিল ফাউন্ডেশন নামে অফলাইনেও কাজ শুরু করেছে। শহীদ ও মুক্তিযুদ্ধের সকল সূর্যসন্তানদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এবং বাংলাদেশের সংগ্রাম ও বিজয়ের ইতিহাস পরবর্তী প্রজন্মের সামনে তুলে ধরতে গত বছর থেকে ডিসেম্বর মাসে পেন্সিল যুক্তরাজ্য এর উদ্যোগে আয়োজিত হয় বিজয় মেলার এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৫ ডিসেম্বর রবিবার যুক্তরাজ্যের ব্র্যাডি আর্ট সেন্টারে পালিত হলো পেনসিল যুক্তরাজ্যের বিজয় মেলার।


 দিনটির শুরুই হয় শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে।"বিজয় দিবস ও বাংলাদেশ" এই বিষয়ের উপর ৫ থেকে ১২ বছর বয়সী প্রায় শতাধিক ক্ষুদে পেন্সিলর এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। এই প্রতিযোগিতায় বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউনিভার্সিটি কলেজ অব লন্ডনের স্থাপত্যবিদের শিক্ষিকা ক্যামেরন ব্লানচ।যিনি এই শতাধিক বাচ্চার আঁকা ছবি থেকে সেরা ছয় বাছাই করেন।তাছাড়াও প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনকারী প্রতিটি বাচ্চার হাতেই সার্টিফিকেট তুলে দেন পেন্সিল ফাইউন্ডেশনের মুন্নী লাল,কানিজ ফাতেমা টুশি, মুনতাসীর রুবেল ও নিজাম উদ্দীন এশরার লতিফ ও সাদিয়া গাজী অন্তরা এর সঞ্চালনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরু হয় জাতীয় সংগীত ও শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে এবারই প্রথম ইংল্যান্ডের মূল ধারার টিভি চ্যানেল এনটিভি মিডিয়া পার্টনার হিসেবে ছিলো এই আয়োজনে।


 এনটিভি ইউরোপের সিইও সাবরিনা হোসাইন তার শুভেচ্ছা বানীতে এনটিভি ও পেন্সিল যুক্তরাজ্য এর এই পথচলাকে স্বাগত জানান। এর পর একে এক দেশাত্মবোধক গান, কবিতা ও নাচের তালে তালে আগত দর্শকরা দিনটি উপভোগ করেন এবং মেলায় অবস্থিত বিভিন্ন খাবার, পোষাক ও ফেইস পেইন্টিং এর স্টলগুলোর মাধ্যমে একদম দেশীয় একটি আবহের সৃষ্টি হয়।

মূলত স্বাধীনতা সংগ্রাম চলাকালীন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত গান, কবিতা দর্শকদের অন্য রকম এক স্পৃহা দান করে। কার্ডিফ, ব্রিস্টল,বার্মিংহাম এবং যুক্তরাজ্যের অন্যান্য অংশ থেকেও পেন্সিলররা এই বিজয় মেলায় উপস্থিত হয়। এছাড়াও এবারের আয়োজনের অন্যতম আকর্ষণ কিশোর লেখক রাশীক আহনাম এবং জুনিয়র বেক অফের ফাইনালিস্ট আমাল রানার উপস্থিতি, ক্ষুদে পেন্সিলরদের অনেক উৎসাহ প্রদান করে।
 এবারই প্রথম পেন্সিল যুক্তরাজ্য এর নিয়মিত প্রকাশনা " রঙ পেন্সিল" ছাপার অক্ষরে প্রকাশিত হয়। যা কিনা পেন্সিলরদের মাঝে এক অভূতপূর্ব সাড়া ফেলে। মুন্নী লাল,কানিজ ফাতেমা টুশি, এশরার লতিফ, নিজাম উদ্দীন এর নেতৃত্বে এবং মোরশেদ আক্তার, শারমিন মিলা,চারুলতা আরজু,তাইফা বিনতে শায়লা ও তানিয়া রহমানের সার্বিক সহায়তায় অনুষ্ঠানটি পেন্সিল ফাউন্ডেশন এর একজন ডিরেক্টর মুনতাসীর রুবেল এর সমাপনী বক্তব্য এর মধ্য দিয়ে শেষ হয়। অদূর ভবিষ্যতে শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি সংক্রান্ত নানাবিধ কর্মকাণ্ড নিয়ে এগিয়ে যেতে চায় পেন্সিল যুক্তরাজ্য।