ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৯ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৫ ১৪২৬

তারেককে ওহি দেয়া বন্ধ করে এমফিল করতে বললেন জাফরুল্লাহ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১১:২২ এএম, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ মঙ্গলবার

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের উদ্দেশে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ্‌ চৌধুরী বলেছেন, লন্ডনে বসে ‘ওহি’ পাঠাবেন না। স্কাইপের মাধ্যমে দল পরিচালনা করবেন না। তিনি তারেককে লন্ডনে দুই বছর মাস্টার্স বা এমফিলে পড়াশোনা করার পরামর্শ দিয়েছেন।

সোমবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে ‘বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার কোন পথে’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

জাফরুল্লাহ্‌ চৌধুরী বলেন, ‘তারেক আমার খুব প্রিয় মানুষ। ছোটবেলা থেকেই আমি দেখেছি। এত দূর থেকে বসে তোমার মায়ের মুক্তি হবে না। প্লিজ, দুই বছর লন্ডনে একটা মাস্টার্স বা এমফিল করো।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখানে বাংলাদেশে যারা আছেন, তাদের কাউকে দায়িত্ব দিয়ে দাও। এখানে স্ট্যান্ডিং কমিটির হাত-পা নড়ে না, তাদের একটু বাড়ি দিয়ে পাঠাও। তারা বাড়িতে বসে থাকুন। দুই ঘণ্টা দাঁড়াতে পারে না, তাদের দিয়ে হবে না। আমাদের সময় শেষ হয়ে আসছে। আমাদের দিয়ে হবে না।’

ডা. জাফরুল্লাহ্‌ চৌধুরী বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি না হলে দেশের গণতন্ত্রের মুক্তি প্রায় অসম্ভব। তাকে মুক্ত করতে হলে বসে বক্তৃতা দিয়ে নয়, মাঠে যেতে হবে।’ 

তিনি বলেন, বিচারপতিরা জাতির বিবেক, জাতির একমাত্র আশা-আকাঙ্ক্ষার জায়গা। সেখানে তারা একটি জামিনের মামলা শুনতে সাহস পান না। নিম্ন আদালতে খুনের মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তকেও সুপ্রিম কোর্ট জামিন দেওয়ার নজির আছে। 

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার কারাবাসের দুই বছর হতে চলল। যারা তাকে কারাগারে রেখেছেন, তারা আইনের দৃষ্টিতে অপরাধী।

বিচার বিভাগ সম্পর্কে জাফরুল্লাহ্‌ চৌধুরী বলেন, আমাদের বিচারপতিরা বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী পড়ে দেখেন না। অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে শেখ মুজিবুর রহমান বলেছেন, ‘সবচেয়ে বড় অপরাধ বিচার বিভাগকে একাকিত্বে রাখা।’

অনুষ্ঠানে উপস্থিত বিএনপির নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনারাও ওহি দ্বারা পরিচালিত হচ্ছেন। এটাই এই জাতির চরম দুর্ভাগ্য। আপনাদের ওহি আসছে লন্ডন শহর থেকে, স্কাইপের মাধ্যমে। আপনারা এটা ছাড়েন। আপনাদের মাঝে চৌকস কিছু নেতা আছেন, তাদের দায়িত্ব দিয়ে দেন। দেখবেন দেশবাসী আপনাদের পাশে আছে। পাটকল শ্রমিকরা যেমন এই শীতের মধ্যেও কম্বল গায়ে বসে আছেন, আপনারাও অন্তত দুটো দিন হাইকোর্টের মাঠে বসে থাকুন, দেখুন বিচারপতিদের বুকে সাহস আছে কিনা, তারা (বিচারপতিরা) ন্যায়ের জন্য দাঁড়ান কিনা।’

সেমিনারের প্রধান বক্তা সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আ ন ম এহছানুল হক মিলন বলেন, খালেদা জিয়া জেলে থাকলে দেশের গণতন্ত্রও জেলে। বিচারাঙ্গনে বিচার পাচ্ছি না। আইনজীবীরা মানবিক কারণে জামিন চেয়েও খালেদা জিয়ার জামিন পাননি।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবীদের সংগঠন ন্যাশনাল ল’ইয়ার্স কাউন্সিল (এনএলসি) আয়োজিত সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন, বিএনপি নেতা গোলাম মওলা রনি প্রমুখ।