ঢাকা, রবিবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রাহায়ণ ২১ ১৪২৭

৮০ মার্কিন সেনা নিহতের দাবিতে যা বললেন ট্রাম্প

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৯:১২ এএম, ৯ জানুয়ারি ২০২০ বৃহস্পতিবার

ইরাকের মার্কিন ঘাঁটিতে ইরানের প্রতিশোধমূলক ক্ষেপণাস্ত্র হামলার কথা স্বীকার করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে এ ঘটনায় কোনো মার্কিন সেনা হতাহত হয়নি এবং মার্কিন ঘাঁটিরও খুব সামান্যই ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি। 

বুধবার (৮ জানুয়ারি) স্থানীয় সময় সকালে মার্কিন ঘাঁটিতে ইরানের হামলায় ৮০ জন নিহত হওয়ার দাবির জবাবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এ কথা বলেন। খবর পার্সটুডের।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের দাবি, ‘যথাসময়ে সতর্ক সংকেত বেজে ওঠার কারণে মার্কিন ঘাঁটিগুলোর সেনারা নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যাওয়ায় তাদের কোনো ক্ষতি হয়নি।’ 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট তার ঘোষণায় ইরানের প্রতিশোধমূলক কঠোর হামলাকে অতি সাধারণ ব্যাপার বলে তুলে ধরার চেষ্টা করেন।

ইরানের প্রতিশোধমূলক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ‘গুরুত্বপূর্ণ’ ভাষণ দেবেন বলে ঘোষণা দিলেও শেষ পর্যন্ত এদিন তিনি পিছু হটেছেন। ট্রাম্প ইরানের ক্ষপণাস্ত্র হামলা হজম করে তেহরানের বিরুদ্ধে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়ে দায়িত্ব শেষ করেছেন।

এমন সময় এমন নিষ্ক্রিয় প্রতিক্রিয়া দেখালেন যখন এর আগে তিনি হঁশিয়ারি দিয়ে বলেছিলেন, ইরান কোনো মার্কিন স্থাপনায় হামলা চালালে কঠোর জবাব দেয়া হবে। এমনকি তিনি ইরানের ৫২টি স্থাপনা চিহ্নিত করার কথা উল্লেখ করে বলেছিলেন, এটি কোনো হুঁশিয়ারি নয় হুমকি। অর্থাৎ ইরান হামলা চালানোর সঙ্গে সঙ্গে মার্কিন বাহিনী তেহরানের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়বে। কিন্তু বাস্তবে তার কিছুই করলেন না ট্রাম্প। 

এছাড়া, ট্রাম্প এমন সময় মার্কিন বাহিনীর ‘সামান্য’ ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করলেন যখন ইরাকের স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে, ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় দু’টি মার্কিন সামরিক ঘাঁটির মারাত্মক ক্ষয়ক্ষতি ও বহু সেনা হতাহত হয়েছে। 

ইরানের ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, বুধবার ভোররাতে মার্কিন সামরিক ঘাঁটি আইন আল-আসাদে  ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অন্তত ৮০ মার্কিন সেনা নিহত ও ২০০ জনেরও বেশি আহত হয়েছে।

ইরানের ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি গতকাল বুধবার ভোররাতে ইরাকে অবস্থিত মার্কিন সামরিক ঘাঁটি ‘আইন আল-আসাদের’ ওপর অসংখ্য ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে।

ইরানের কুদস ফোর্সের কমান্ডার লেঃ জেনারেল কাসেম সোলাইমানির উপর আগ্রাসী মার্কিন সেনাদের সন্ত্রাসী ও অপরাধমূলক হামলার কঠোর জবাব দিতে আইন আল-আসাদ ঘাঁটিকে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দেয়া হয় বলে আইআরজিসি এক বিবৃতিতে জানায়। 

জেনারেল সোলাইমানিকে গত শুক্রবার ভোররাতে ইরাকের রাজধানী বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে বিমান হামলা চালিয়ে হত্যা করে মার্কিন সেনারা।

এআই/