ঢাকা, শনিবার   ২৮ মার্চ ২০২০,   চৈত্র ১৪ ১৪২৬

মাথার চুল বিক্রি করে সন্তানের খাবার কিনলেন মা!

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৯:১৫ এএম, ১২ জানুয়ারি ২০২০ রবিবার

ক্ষুধায় সন্তানরা কাঁদছে। ঘরে কোনো টাকা কিংবা কোন সম্পদ নেই, যা দিয়ে খাবার কিনবেন। কোনো উপায় না পেয়ে নিজের মাথার চুল ১৫০ টাকায় বিক্রি করে দিলেন মা। তামিলনাড়ুর সালেম এলাকার এই অসহায় মা ওই টাকা দিয়ে সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিলেন।

তামিলনাড়ুর সালেমের বাসিন্দা প্রেমা। ৩ সন্তান ও স্বামীকে নিয়ে সংসার ছিল তার। স্বামী-স্ত্রী দুজনেই কাজ করতেন একটি ইটভাটায়| যা পেতেন, তা দিয়ে কোনমতে চলে যেত দিন সংসার। হঠাৎই প্রেমার স্বামী ব্যবসা করার সিদ্ধান্ত নিলেন। আড়াই লাখ টাকা ধার করে ব্যবসাও শুরু করলেন। কিন্তু সবার পক্ষে ব্যবসা করা সম্ভব হয় না যে। প্রেমার স্বামীরও তাই হলো, ব্যবসা টেকাতে পারলেন না। 

এদিকে সংসার, অন্যদিকে পাওনাদারদের চাপ। শেষপর্যন্ত আত্মহত্যার পথ বেছে নেন প্রেমার স্বামী। তার মৃত্যুর পর তিন সন্তানকে নিয়ে অথৈ জলে পড়েন প্রেমা। প্রথম দিকে সন্তানদের নিয়ে কোনোক্রমে চলে গেলেও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বাচ্চাদের দায়িত্ব পালন করা প্রেমার পক্ষে অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়। 

এ অবস্থায় কী করবে! কোন কিনারা না পেয়ে প্রেমাও আত্মহত্যার পরিকল্পনা করেন। দোকান থেকে কীটনাশক কিনতে গেলে দোকানদার তাকে ফিরিয়ে দেন। এরপর ফের আত্মহত্যার চেষ্টা করলে বোনের নজরে পড়ে যাওয়ায় এবারও প্রাণে বেঁচে যায় প্রেমা।

পরে শুক্রবার সারাদিন সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য পাড়া-প্রতিবেশীদের কাছে হাত পাতেন প্রেমা। কিন্তু সাহায্য পাননি কোথাও। সেই সময় এক ব্যক্তি প্রেমাকে দেখতে পান। পরচুল তৈরির জন্য চুল প্রয়োজন ছিল ওই ব্যক্তির। 

তখন প্রেমাকে চুল বিক্রির কথা বলেন সে। সন্তানের কষ্টের চেয়ে চুল বড় নয় ভেবে প্রেমা রাজি হয়ে যায়। তাই ওই ব্যক্তি ১৫০ টাকার বিনিময়ে প্রেমার মাথার চুল কিনে নেন। চুল বিক্রির টাকায় সন্তানদের হাতে খাবার তুলে দেন তামিলনাড়ুর এই অসহায় নারী।

তবে এই ঘটনা জানাজানি হলে অনেকেই প্রেমাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসেন বলে জানা যায় ভারতীয় গণমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন-এর খবরে।

এএইচ/