ঢাকা, মঙ্গলবার   ০২ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৮ ১৪২৭

বড় লিডের পথে বাংলাদেশ

নাজমুশ শাহাদাৎ

প্রকাশিত : ০৬:৩৮ পিএম, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ রবিবার

মুশফিকুর রহিম ও মোমিনুল হক সৌরভ

মুশফিকুর রহিম ও মোমিনুল হক সৌরভ

শনিবার শেষ বিকেলে সেঞ্চুরিয়ান ক্রেইগ আরভিনকে ফিরিয়ে ম্যাচে ফিরেছিল বাংলাদেশ। আর আজ দ্বিতীয় দিনের শুরু থেকেই চালকের আসনে মোমিনুলরা। এদিন জিম্বাবুয়েকে গুটিয়ে দিতে টাইগারদের লাগল মোটে ৯৯ বল। যাতে ৩৭ রান দিয়ে সফরকারীদের বাকি চার উইকেট তুলে নেন রাহী-তাইজুলরা।

মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়েকে প্রথম ইনিংসে ২৬৫ রানে থামিয়েছে টাইগাররা। জবাব দিতে নেমে তিন উইকেটে ২৪০ রানে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করেছে বাংলাদেশ। অর্থাৎ সাত উইকেট হাতে রেখে মাত্র ২৫ রানে পিছিয়ে টাইগাররা।

প্রথম দিনের মতো আজ দ্বিতীয় দিনেও বাংলাদেশ শুরুর সাফল্য পেয়েছে সেই আবু জায়েদ রাহীর হাত ধরেই। সবমিলিয়ে চার উইকেট নিয়েছেন রাহী। আগের দিন চার উইকেট নেয়া নাঈম হাসান আজ উইকেট পাননি একটাও। প্রথম দিনে উইকেট খরায় ভোগা তাইজুল ইসলাম পেয়েছেন বাকি দুই উইকেট। 

এই ত্রয়ীর দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে অল্পতেই (২৬৫ রান) থামিয়ে দেয়া গেল জিম্বাবুয়েকে। এদিন সফরকারীদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩০ রান করেন রেগিস চাকাভা। আর আগের দিন সেঞ্চুরি করা আরভিনের ব্যাট থেকে আসে ১০৭ রান। এছাড়া ওপেনার প্রিন্স মাসভাউরে করেন ৬৪ রান।

পরে বোলারদের এনে দেয়া মঞ্চে আলো ছড়ালেন ব্যাটসম্যানরা। ইনিংস শুরুর জড়তা কাটিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষে বাংলাদেশ আভাস দিলো রানপাহাড় গড়ার। অর্থাৎ বড় লিডের পথেই এগোচ্ছে বাংলাদেশ।

বড় সংগ্রহে ব্যাট হাতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন অধিনায়ক মোমিনুল হক সৌরভ। দিন শেষ করেছেন সেঞ্চুরির আভাস দিয়েই। ৭৯ রানে অপরাজিত মোমিনুল। আর তার সঙ্গী মুশফিকুর রহিম অজেয় ৩২ রানে। ১৭২ রানে তৃতীয় উইকেট পতনের পর এই দুজনই দলকে পৌঁছে দেন সুবিধাজনক অবস্থানে। দুজনের ৬৮ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতেই বড় লক্ষ্যের স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশ।

এর আগে শতকের সম্ভাবনা জাগিয়েও ৭১ রানে সাজঘরে ফিরেছেন তিনে নামা নাজমুল হোসাইন শান্ত। টিসুমার বলে উইকেটের পেছনে রেগিস চাকভার গ্লাভসে ধরা পড়ে বিদায় নেন এই তরুণ ব্যাটসম্যান। 
সাজঘরে ফেরা বাংলাদেশের অপর দুই ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল ও সাইফ হাসানের পদাঙ্কই অনুসরণ করেছেন শান্ত। তামিম আউট হন ৪১ রানে। আর মাত্র ৮ রান করে ফিরেছেন উদ্বোধনী জুটিতে তামিমের সঙ্গী সাইফ।

এই তিন ব্যাটসম্যান আউট হলেও সামগ্রিক যে অবস্থা, তাতে বাংলাদেশের জন্য ভয়ের তো কিছু নেই-ই। উল্টো এমন স্পোর্টিং পিচে মোমিনুল-মুশফিকরা নিজেদের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারলে চারশ প্লাস রানের স্কোর গড়া খুবই স্বাভাবিক হবে। কারণ, পিচে তো তেমন অস্বাভাবিক কিছু নেই-ই, আর জিম্বাবুয়ের বোলারদের বলেও নেই তেমন ভয় জাগানো কিছুই।

আজ দ্বিতীয় দিনে টাইগারদের ব্যাটিংই তার প্রমাণ। এদিন তামিম-শান্ত-মোমিনুল-মুশফিকরা খুবই স্বাভাবিক ব্যাটিং করেছেন। বাউণ্ডারির দিকে তেমন মনোযোগ না দিয়ে বরং স্ট্রাইক রোটেড করেই খেলতে দেখা গেছে টাইগারদের। 

তামিম ৪১ করলেও চার মেরেছেন সাতটি, যা তামিমসুলভই বটে। কিন্তু, শান্তের ৭১ রানের ইনিংসেও ছিল মাত্র সাতটি চারের মার। অন্যদিকে, ৭৯ রানে অপরাজিত মোমিনুল, যিনি ক্রিজে এসে চার ছাড়া রানই নেন না, তিনিও এই ইনিংস খেলার পথে চার মেরেছেন মাত্র ৯টি। অর্থাৎ সিঙ্গেল-ডাবল নিয়ে স্ট্রাইকই রোটেড করে খেলেছেন বেশি। যা খুবই পজেটিভ দিক। 

সুতরাং এই ধারা বজায় থাকলে, বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে বড় রান আসাটা সময়ের ব্যাপার। অর্থাৎ মোমিনুল হক সৌরভের দল যে বড় লিডই নিতে যাচ্ছে, তাতে কোনও সন্দেহ নাই।    

এনএস/