ঢাকা, রবিবার   ১২ জুলাই ২০২০,   আষাঢ় ২৭ ১৪২৭

গ্রেফতার আতঙ্কে ঘরছাড়া একই গ্রামের দেড়`শ পরিবার 

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৯:৫৯ পিএম, ৩১ মার্চ ২০২০ মঙ্গলবার | আপডেট: ১০:০০ পিএম, ৩১ মার্চ ২০২০ মঙ্গলবার

প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের কারণে বেহাল সারা বিশ্ব। এ ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকারি ছুটি আরও কয়েকদিন সীমিত আকারে বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর ছুটিকালীন সময়ে সকলেই যাতে নিজ নিজ বাসায় অবস্থান নেয় সেই লক্ষ্যে কাজ করে চলেছে জেলা প্রশাসনসহ সরকারের বিভিন্ন ইউনিট। 

অথচ একটি হত্যাকান্ডের ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশি আতঙ্কে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার মধ্য পারপুগী শিববাড়ী গ্রামের দেড় শতাধিক পরিবারের সদস্যরা এখন গৃহহারা। তারা আজ পুলিশের গ্রেফতার আতঙ্কে একস্থানে তো কাল আরেকস্থানে এভাবে লুকিয়ে লুকিয়ে দিন যাপন করছে। কারণ গত ১০ মার্চ ওই এলাকায় সামসুল ডাকাত নামে একজনের খুনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে থানায় ৭ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৭/৮ জনের কথা উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে নিহত সামসুলের মা জুলেখা বেওয়া। 

পুলিশি আতঙ্কে থাকা ঐ গ্রামের মাহমুদা, লতিফা, হোসনেয়ারাসহ আরো অনেকে জানান, সামসুল ডাকাত হত্যা মামলায় যে সাতজনের নাম উল্লেখ আছে তাদের আটক করে নিয়ে যাক পুলিশ, কিন্তু মামলায় অজ্ঞাত ৭/৮জন উল্লেখ করায় পুরো গ্রামের দেড় শতাধিক পরিবার হয়রানির শিকার হচ্ছে। পুলিশ দিন নেই, রাত নেই এ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করছে-এতে হয়রানি ও গ্রেফতার আতঙ্কে পুরো গ্রামের নারী-পুরুষেরা পালিয়ে বেড়াচ্ছে। 

সম্প্রতি হাসেন আলী নামে এক ভ্যান চালককে ধরে নিয়ে যাওয়ায় এ আতঙ্ক আরও জোড়ালো হয়ে পড়ে। তারা আরও জানায়, ওই এলাকার বেশিরভাগ লোকই দিনমজুর, হোটেল শ্রমিক, চাতাল শ্রমিক। একদিকে সরকারের নির্দেশ সকলকে বাসায় থাকতে হবে, অন্যদিকে পরিবারের অর্জনক্ষম ব্যক্তিরা পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এতে একদিকে অমান্য করা হচ্ছে সরকারি নির্দেশনা।

অপরদিকে অর্ধাহারে-অনাহারে দিন কাটাচ্ছে এ এলাকার মানুষ। এছাড়াও মামলা হতে নাম বাদ দিয়ে দেওয়ার কথা বলে বিভিন্ন অজ্ঞাত মোবাইল নম্বর থেকে এলাকাবাসির কাছে ফোনে ২৫-৩০ হাজার টাকা দাবি করা হচ্ছে বলেও জানান ভূক্তভোগিরা। 

এ বিষয়ে জানতে ঠাকুরগাঁও সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তানভীরুল ইসলামের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, পুলিশ কোন হয়রানি করছে না। মামলার অগ্রগতির জন্য যা করার প্রয়োজন তাই করছি ।

কেআই/এসি