ঢাকা, শনিবার   ১৬ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ২ ১৪২৭

করোনার উপসর্গ নিয়ে রাজশাহী মেডিকেলে ৭ জন

রাজশাহী প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ০৩:৫০ পিএম, ৭ এপ্রিল ২০২০ মঙ্গলবার

রাজশাহীতে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ৭ জন ভর্তি হয়েছেন। গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হওয়া এই সাতজনের মধ্যে ৪ জনকে সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে এবং তিনজনকে পর্যবেক্ষণ ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। 

আজ মঙ্গলবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও করোনা চিকিৎসক সমন্বয় কমিটির আহবায়ক ডা. আজিজুল হক আজাদ। 

তিনি বলেন, ‘ওই চারজন রোগীর নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে। তাদের ভাইরাসের উপসর্গ রয়েছে। তবে সেটি জোড়ালো নয়। পরীক্ষার পর নিশ্চিত হওয়া যাবে তারা করোনায় আক্রান্ত কিনা।’

এ চিকিৎসক বলেন, ‘করোনা ওয়ার্ডের চারজনের মধ্যে একজন কিশোরী। তার বাড়ি রাজশাহীর চারঘাটে। গত ১০ দিন ধরে তিনি জ্বর-সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত ছিলেন। এখন অনেকটাই সুস্থ। চারঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি থেকে ওই কিশোরী চিকিৎসা নিয়েছেন। কিন্তু করোনা পরীক্ষা না করে এলাকাবাসী তাকে গ্রামে ঢুকতে দিচ্ছে না। এ কারণে তাকে রাজশাহীতে পাঠানো হয়।’

ডা. আজাদ বলেন, ‘জ্বর-সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে আরও তিনজন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। হাসপাতালে স্থাপিত পর্যবেক্ষণ ওয়ার্ডে রেখে তাদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। যাদের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হবে না, তাদের করোনা ওয়ার্ডে পাঠিয়ে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে।’ 

এদিকে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজে (রামেক) স্থাপন করা করোনা পরীক্ষার ল্যাবে গতকাল সোমবার পর্যন্ত গত ছয়দিনে ৯৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে পজেটিভ এসেছে একজনের। বাকি ৯৭ জনের শরীরে করোনার উপস্থিতি পাওয়া যায়নি বলে জানান ল্যাবের ইনচার্জ ডা. সাবেরা গুলনেহার। 

তিনি জানান, ‘এখন পর্যন্ত রাজশাহী ল্যাবে ৯৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে সোমবার পরীক্ষা করা হয় ৩১ জনের নমুনা। এর আগের দিন ৪১ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয় এই ল্যাবে।’

অপরদিকে, রাজশাহী সিভিল সার্জন ডা. এনামুল হক জানান, ‘গত ১০ মার্চ থেকে ৬ এপ্রিল পর্যন্ত রাজশাহীতে হোম কোয়ারেন্টাইনে নেয়া হয় মোট এক হাজার ১১০ জনকে। যেখানে এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় নেয়া হয় পাঁচজন। তারা সবাই ভারতফেরত। তবে নির্দিষ্ট মেয়াদ পূর্ণ করায় এক হাজার ১৭ জনকে ছাড়পত্র দেয়ায় বর্তমানে বিশেষ পর্যবেক্ষণে রয়েছেন ৯৩ জন।’

এর আগে সোমবার রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সকাল ১১টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিভাগীয় কমিশনার হুমায়ুন কবির খন্দকারের সভাপতিত্বে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলা নিয়ে আলোচনার রাজশাহীজুড়ে লকডাউন করার সিদ্ধান্ত হয়। এরপর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোকে নির্দেশনা দেয়া হয়।

এছাড়া সার্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণের জন্য পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে। সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার জনাব জাকির হোসেন, অতিরিক্ত ডিআইজি জনাব মিরাজ উদ্দিন আহমেদ, সিটি কর্পোরেশনের সচিব আবু হায়াত মো. রহমতউল্লাহ, উপ-পুলিশ কমিশনার সাজিদ হোসেন এবং স্বাস্থ্য বিভাগের সহকারি পরিচালক ডা. আনোয়ারুল কবির।

এআই/